গল্প:- দুলহানীয়া পর্ব:-(০৫)

0
699

গল্প:- দুলহানীয়া পর্ব:-(০৫)
লেখা:- AL Mohammad Sourav
!!
বাড়ীতে ঢুকে দেখি অনেক মানুষের সমারহ! তবে সবাইকে দেখে মনে হচ্ছে আজকে বিড়ীতে কিছু তো হয়ছে কিন্তু আম্মা কোথায়? আম্মাকে দেখছিনা কেনো? মনে হঠাত করে একটা মুছুর দিয়ে উঠলো আমি শিড়ি দিয়ে উপরে উঠবো তখনি ভাবি এসে বলে!

ভাবি:- আরে আলিফ তুমি এসেছো?

আমি:- ভাবি আম্মা কোথায়? আর এত মানুষ আমাদের বাড়ীতে আসছে কেনো?

ভাবি:- দরকার আছে তাই এসেছে তুমি আমার সাথে এসো বলে (ভাবি আমার হাত ধরে টেনে উপরে নিয়ে গেছে আম্মার কাছে। আমি আম্মাকে দেখি শুয়ে আছে আমি পাশে বসেছি)

আম্মা:- এসেছিস তুই বাবা আলিফ আমাকে ছাড়া তুই থাকতে পারলি বাবা?

আমি:- কিন্তু যাবার সময় তো তুমি আমাকে বাধা দাওনি। কি এমন হয়ছে হঠাত করে তোমার?

আম্মা:- তেমন কিছু না! তবে আজকে তুই আমাকে কথা দে আমি যা বলবো তুই তাই করবি।

আমি:- কি কাজ করতে হবে বল?

আম্মা:- আজকে তকে বিয়ে করতে হবে। আমার পছন্দ করা মেয়েকে তুই বাবা না করিস না। আমি সবাইকে দাওয়াত দিয়েছি আর তাছাড়া একবার তোর বিয়ে ভাংগছে আর বিয়ে ভাংগতে চাইনা।

আমি:- ঠিক আছে! তার জন্য আমাকে জুরুরী ভাবে ঢেকে আনছো?

আম্মা:- হ্যা! তুই বাবা রাগ করিসনি তো?

আমি:- নাহ তুমি আমার মা আর মায়েরা ছেলেদের কোনো সময় খারাপ কিছু চাইনা। তবে আমি বিয়ের পর বউ নিয়ে এই বাড়ীতে থাকবোনা আর আব্বার সাথে ব্যবসা দেখাশুনা করবোনা।

ভাবি:- মানে তাহলে তুমি থাকবে কোথায়?

আমি:- ভাড়া বাসা নিয়ে।

আম্মা:- নাহ তুই আগের মত সব করবি এইটা আমার আদেশ।

আমি:- ঠিক আছে!

ভাবি:- তাহলে চলো মেয়ের সাথে আলাপ করবে।

আমি:- নাহ তা আর দরকার নেই তুমি বিয়ের জন্য রেডি করাও আমি বিয়ে করতে রাজি আছি।

ভাবি:- ঠিক আছে একে বারে বাসর ঘরে বউকে দেখে নিও কেমন। ভাবি চলে গেছে কিছুক্ষণ পর এসে আমাকে নিয়ে গেছে সাথে করে। নিচে এসে দেখি আব্বা ভাই সহ আরো কিছু কাজিন আত্বীয় স্বজন সহ অনেক মানুষ। কাজি আর মৌলভী সাহেব মিলে আমার বিয়েটা পড়িয়ে দিয়েছে। সারাদিন অনেক জ্বামেলার পর সন্ধায় ছাদে বসে আছি এমনি মোবাইলটা ভেজে উঠেছে হাতে নিয়ে দেখি আশফির নাম্বার প্রথম কেটে দিয়েছি আবার ফোন করেছে এবার রিসিব করেছি।

আমি:- ফোন করছেন কেনো?

আশফি:- ধন্যবাদ দেওয়ার জন্য আর শুভেচ্ছা জানানোর জন্য।

আমি:- কিসের শুভেচ্ছা?

আশফি:- আজকে নাকী বিয়ে করেছেন?

আমি:- হ্যা কিন্তু তুমি জানলে কি করে?

আশফি:- এতদিন আমার পিছু পিছু ঘুরে এখন অন্য একটা মেয়েকে বিয়ে করতে আপনার লজ্জা করেনি। আমি তো আপনাকে পরীক্ষা করে দেখছিলাম আর আপনি কিনা আমাকে রেখে অন্য মেয়েকে বিয়ে করেছেন?

আমি:- তোমার পিছু পিছু ঘুরেছি বলেই তো আজকে নিজেকে চিন্তে পেরেছি। আর তোমার মত মেয়ের সাথে আমার বিয়েটা ভেংগে গেছে আমি অনেক খুশি হয়েছি। আম্মা যে মেয়েটা আমার জন্য ঠিক করেছে একদম ভালো কাজ করেছে।

আশফি:- আমি এখন আপনাকে অনেক ভালোবাসি। আপনি যদি আমাকে ভালোবাসেন তাহলে আমাদের বাড়ীতে চলে আসেন। আজকে আমরা দুজনে পালিয়ে যাবো।

আমি:- ছিঃ তোমার মন মানুষিকতা এতটা ছোট মনের আমার ভাবতেও ঘৃণা করছে তোমার পেছনে এতদিন ঘুরেছি। সত্যি বলতে এখন তোমার প্রতি আমার কোনো ভালোবাসা নেই। আজকে যার সাথে আমার বিয়ে হয়ছে তাকেই নিজের মত করে ভালবাসো আর সারা জীবন ওর সাথেই সংসার করবো।

আশফি:- প্লিজ আলিফ আমাকে একটু সুযোগ দাও।

আমি:- আজকের পর আর কোনো দিন আমাকে ফোন করবে না। আর তোমার নাম্বার ব্লাক লিষ্টে যায়গা হবে। ভালো থাকবে আল্লাহ হাফেজ বলে ফোন কেটে দিয়ে ব্লাক লিষ্টে ফেলে দিয়েছি ওর নাম্বার গুলি। মন খারাপ করে দাঁড়িয়ে আছি এমনি ভাবি এসেছে।

ভাবি:- আলিফ এসো নতুন বউ তোমার জন্য অপেক্ষা করছে রুমে।

আমি:- ভাবি আপনি যান আমি আসতেছি! তখনি ভাবি আমার হাত ধরে টেনে নিয়ে এসেছে। রুমের সামনে এনে ধাক্কা দিয়ে রুমে ঢুকিয়ে বাহির দিয়ে দরজা বন্ধ করে দিয়েছে। আমি চেয়ে দেখি বাসর ঘরে লম্বা একটা ঘুমটা দিয়ে বসে আছে আমাকে দেখে বসা থেকে উঠে এসে আমার পা ছুঁয়ে সালাম করতে এসেছে আমি হাত ধরে ফেলি আর বলি। শুনেন এসব করতে হবেনা আপনার জানা দরকার আমার সম্পর্কে আর আমার জানা দরকার আপনার সম্পর্কে।

বউ:- হ্যা বলেন কি জানতে চান আপনি?

আমি:- আগে আমি বলি আমার সম্পর্কে এর পর আপনি বলবেন কেমন?

বউ:- ঠিক আছে বলেন আপনার সম্পর্কে আচ্ছা একটা কথা জানার ছিলো। যদি কিছু মনে না করেন তাহলে কি বলবেন?

আমি:- কি কথা?

বউ:- শুনেছি আপনার ঠিক করা বিয়ে নাকী ভেংগে গেছে আর মেয়েটাকে নাকী আপনি অনেক ভালবাসতেন?

আমি:- হ্যা ঠিকই শুনেছেন কিন্তু আপনি জানেন কি করে?

বউ:- এখনো কি আগের মত ঐ মেয়েকে ভালবাসেন নাকী?

আমি:- দেখুন এইটা আমার লাইফ আর আমি কি করবো না করবো সেই সম্পর্কে আপনি নাক না গলালে চলবে। আমি যাকে খুশি তাকে ভালবাসবো আর যখন যেখানে খুশি সেখানে যাবো আপনি কোনো কাজে বাধা দেওয়ার চেষ্টা মাত্র করবেন না। আর আমি আপনাকে দিরে দিরে আমার মত করে বুঝে ভালোবেসে নিবো কিছুটা সময় আমাকে দিতে হবে আপনার।

বউ:- ঠিক আছে তাই হবে এখন কি আমাকে একটু দেখবেন।

আমি:- হ্যা একটু দেখা দরকার কারন সকাল বেলা বন্ধুরা এসে আমার বউ দেখতে চাইবে তখন ওল্টা পাল্টা কিছু হলে সবার কাছে হাসির পাত্র হয়ে যাবো।

বউ:- তাহলে ঘুমটা এসে উঠান।

আমি:- হ্যা যখনি ঘুমটা উঠায়ছি আমার চোখ আটকে গেছে কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। আমি কিছু একটা বলতে যাবো তখনি আমার ঠোটে কিস করে বসেছে আমার সব কিছু উলট পালট হয়ে গেছে মনে হচ্ছে আমি আর আমি নেই।
!!
To be continue,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here