?ভোর? পর্বঃ ২৩।

0
867

?ভোর? পর্বঃ ২৩।
লেখিকাঃ আয়sHa?
|
|
বেবির কান্নায় আলোর ঘুম ভেঙ্গে গেলো। আলো উঠে বেবিকে খাওয়াচ্ছে। বাহিরে সূর্যের আলো ফুঁটেছে হাল্কা। বেবি ঘুমিয়ে গিয়েছে আবার। বেবিকে পাশে শুয়েই দিয়ে কাঁথাটা টেনে দিলো ভোরের উপর। তারপর উঠে অযু করে ফজরের নামাজ আদায় করলো। তারপর ছোট বেলকনিতে গিয়ে দাঁড়িয়ে রইল। মিহি বাতাস বইছে সাথে হাল্কা শীতও পড়েছে। আলোর হাল্কা শীত শীত লাগছে কিন্তু সাথে ভালোও লাগছে এমন সুন্দর সকালটা। আলো চোখ বন্ধ করে উপভোগ করতে লাগলো।
|
হঠাৎ পিছন থেকে ভোর এসে আলোর কোমড় জড়িয়ে ধরলো। আলো চোখ বন্ধ করেই বললো…
আলোঃঃ ঘুম ভেঙ্গে গেলো?
|
ভোরঃঃ কিভাবে বুঝলে আমি?
|
আলোঃঃ আপনার উপস্থিত আমি বুঝতে পারি আর তো আপনার স্পর্শ। সবচেয়ে বড় কথা আপনি বাদে আমাকে যে টাচ করবে তার তো আলু ভর্তা অবস্থা করবেন।
|
ভোরঃঃ হুহহ… চলো ঘুম পাচ্ছে.. (ঘুম ঘুম কন্ঠে)
|
আলোঃঃ নো ঘুম। আমার সামনে একটু আসুন তো!
|
ভোরঃঃ কেন?
|
আলোঃঃ আসুন না..
|
ভোর ঘুরে আলোর সামনে গেলো।
|
আলোঃঃ একটু কোলে নিন তো আমাকে..
|
ভোরঃঃ আমি এখন চালের বস্তা উঠাতে পারব না।
|
আলোঃঃ উহুমম নিন বলছি..
|
ভোর আলোকে কোলে তুলে নিলো। তারপর…
|

এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share

আলোঃঃ ঐ যে দেখুন বাহিরে কতো আগাছা ফুল। যেগুলো বিনা চাষ করায় ফুঁটেছে। ঐফুল গুলোর কাছে নিয়ে যান।
|
ভোরঃঃ বাহিরে তো শীত।
|
আলোঃঃ আমি তো আপনার কোলে তারপরও শীত লাগছে?
|
ভোরঃঃ উহুম..
|
ভোর আলোকে নিয়ে বাহিরে গেলো তারপর সেই ফুলগুলোর কাছে নিয়ে গেলো।
|
আলোঃঃ দেখুন এখানে যত আগাছা ফুল আর এই পৃথিবীতে এমন যত ফুল আছে যা চাষবিহীন সেই সমস্ত ফুল আজ আপনাকে দিয়ে বলছি… আপনি কি সারাজীবন এমনভাবে আমাকে ভালোবাসবেন? কখনো কষ্ট দিবেন না তো? (ছলছল নয়নে)
|
ভোরঃঃ তুমি কি আমাকে প্রপোজ করলে? (ভ্রু কুঁচকে)
|
আলোঃঃ হুম..
|
ভোরঃঃ এমনভাবে আমার কোলে বসে? নিচে নেমে তো করতে পারতে।
|
আলোঃঃ যাকে ভালোবাসি তার সান্নিধ্যে থেকে প্রপোজ করলাম এটা আপনি বুঝবেন না। বলুন প্রপোজ এক্সসেপ্ট?
|
ভোরঃঃ কিন্তু এমন আগাছামূলক ফুল কেন?
|
আলোঃঃ চাষ করা ফুল দিয়ে তো সবাই করে। টাকায় কেনা যায়। কিন্তু এই ফুল ভালোবাসায় ভরপুর কেননা এর অস্তিত্ব আপনি পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে পাবেন আর আমাকে কখনো ভুলতে দিবে না।
|
ভোরঃঃ এতো বুদ্ধি কোথায় রাখো?
|
আলোঃঃ ভালোবাসা দেখলেন না? নিচে নামান আমাকে এখনি। (রাগীমুডে)
|
ভোরঃঃ তোমাকে এর থেকে বেশি ভালোবাসবো। কোনদিন একতিল পরিমান কষ্ট দিবো না। (আলোর কপালে চুমু খেয়ে)
|
আলোঃঃ I love you.. (ভোরের গলা চক্ত করে জড়িয়ে ধরে)
|
ভোরঃঃ I love you too.. চলো রুমে।
|
আলোঃঃ হুম চলুন। বেবি একা।
|
তারপর রুমে এসে..আলোকে বেডে বসিয়ে দিয়ে..
|
ভোরঃঃ তুমি এতো রোমান্টিক আগে জানতাম না।
|
আলোঃঃ রোমান্টিকের দেখেছেন কি? এখন থেকে সব দেখবেন।
|
ভোরঃঃ দেখাও। আমি দেখতে চাই। ( আলোর কানের কাছে মুখ নিয়ে)
|
আলোঃঃ ফ্রেশ হন যান। আচ্ছা আমরা বাসায় কবে যাচ্ছি?
|
ভোরঃঃ তুমি পুরোপুরিভাবে সুস্থ হও তারপর।
|
আলোঃঃ ভালোই হবে.. যান তাড়াতাড়ি ফ্রেশ হয়ে আসুন।
|
ভোরঃঃ ওকে ম্যাডাম।
|
ভোর বেবির গালে একটা পাপ্পি খেয়ে ওয়াশরুমে চলে গেলো। আলো আধোশোয়া হয়ে শুয়ে রইলো।
|
সকাল ৯টা প্রায়। ভোর অফিসে যাবে। আলো বেবিকে নিয়ে এখন ব্যস্ত। ভোরের দিকে আলোর কোনো খেয়াল নেই।
|
ভোরঃঃ মা মা মা????
|
আলোর মাঃঃ হ্যাঁ বাবা বলো… (আলোর রুমে এসে)
|
ভোরঃঃ আপনার মেয়ে পাল্টে গেছে মেয়ে।
|
আলোর মাঃঃ মানে কি?
|
ভোরঃঃ দেখুন সেই কখন থেকে বেবিকে নিয়েই আছে আর আমি যে চলে যাচ্ছি তার দিকে কোনো খেয়াল নেই।
|
আলোঃঃ কেন? আপনি কি বেবি? (ভ্রু কু্চকে) বেশি কথা না বলে অফিসে যান। ফালতু…
|
আলোর মাঃঃ আহ আলো… ও তো ঠিকই বলছে। তুই ওর দিকে একটু খেয়াল রাখবি না।
|
আলোঃঃ হ্যাঁ মা রাখছি দেখো। যাওয়ার আগে আমার মেডিসিন দিয়ে যাবেন সকালে খাবারের পরের। (মুচকি হেসে)
|
ভোরঃঃ ওহ নো.. আমি তো ভুলেই গিয়েছিলাম.. ওয়েট এখনি দিচ্ছি।
|
আলোঃঃ এখন তো মেডিসিন আমাকে যে কবে ভুলে যাবেন তার ঠিক নেই। (মন খারাপ করে)
|
আলোর মাঃঃ তোদের ভাবভঙ্গী কিছু বুঝি না গেলাম আমি।
|
আলোর মা চলে গেলো। ভোর মেডিসিন আলোকে খাইয়ে দিয়ে বেবিকে কোলে নিয়ে…
ভোরঃঃ My princes.. আমি কে বলো তো?
|
আলোঃঃ তোমার বদ বাবাই…
|
ভোরঃঃ একদম আমার princes কে বাজে কথা শিখাবে না। হুহহ
|
আলোঃঃ মিটিং এর দেড়ি হয়ে যাচ্ছে কিন্তু।
|
ভোরঃঃ ওহ হ্যাঁ তাই তো…
|
বলে বেবিকে কয়টা পাপ্পি দিয়ে.. আলোর কপালে চুমু খেয়ে…
|
ভোরঃঃ সাবধানে থাকবে। আসছি…
|
আলোঃঃ হুমমমম। সাবধানে যাবেন। আর গিয়ে ফোন দিবেন।
|
ভোরঃঃ ওকে। বায়
|
ভোর বেরিয়ে গেলো আর আলো বেবিকে ঘুম পড়ানোর চেষ্টা করতে লাগলো।
|
রাত ১১টা ভোর এখনো আসছে না। ফোন দিয়েছিলো কিন্তু ফোন বন্ধ গত একঘণ্টা ধরে। আলোর খুব টেনশন হচ্ছে। বেবি ঘুমিয়ে আছে। আলোর মা আলোকে জোর করিয়েই খাইয়ে দিয়েছে অনেক আগে আর মেডিসিনও। আলো বেলকনিতে দাঁড়িয়ে একধারে ভোরের ফোনে কল আর মেসেজ দিচ্ছে কিন্তু কোনো রেসপন্স নাই। আলো কি করবে বুঝতে পারছে না। বেলকনির গ্রীলে হাত দিয়ে সামনপ তাঁকিয়ে কাঁদছে।
|
রাত ১টা ছুঁই ছুঁই তখন ভোরের গাড়ী এসে ঢুকলো বাসায়। আলো ভোরের গাড়ী দেখার সাথে সাথে দৌড়ে বাহিরে গেলো। ভোর গাড়ী থেকে নামতেই আলো দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলো।
|
ভোরঃঃ এই পাগলি কাঁদছো কেন? আরেহ মিটিং এ আটকে গিয়েছিলাম। তারপর রাস্তার জ্যাম আর ফোনের চার্জ শেষ হয়ে গিয়েছিলো। সরি
|
আলো কিছু বলছে না শুধু কাঁদছে আর ধরধর করে কাঁপছে…
|
ভোরঃঃ মেয়েটা ভয় পেলে এমন ধরধর করে কাঁপে। (মনে মনে)
কান্না থামাও প্লিজ.. এই দেখো কান ধরছি আর হবে না এমন। সরি।
|
আলো তবুও কান্না করছে।
|
ভোরঃঃ ওকে তুমি কান্না করো। আমি চলে যাই আবার..
|
আলো আরও শক্ত করে চেপে ধরে। ভোর উপায় না পেয়ে কোলে তুলে নেয়। তারপর রুমে গিয়ে আলোর চোখের পানি মুছে দিয়ে দুই হাত দিয়ে কান ধরে উঠবস করে। আলো থামিয়ে দিয়ে নিজেকে একটু শান্ত করে।
|
আলোঃঃ আপনি ফ্রেশ হয়ে আসুন। আমি খাবার দিচ্ছি।
|
ভোরঃঃ ওকে…
|
আলো খাবার এনে বসে থাকে। ভোর ফ্রেশ হয়ে পাশে বসে খাবারে হাত দিবে তখন আলো হাত থামিয়ে দিয়ে নিজে খাবার মেখে ভোরকে খাইয়ে দেয়। ভোরতো সেই খুশি। খাওয়া দাওয়া শেষ করে ভোর শুয়ে পড়ে। একটুপর আলো ভোরের বুকে মাথা দিলো। তারপর ঘুমিয়ে পড়লো।
|
রাত ৪টা প্রায়.. বেবি কেঁদে উঠে। আলো উঠে বেবিকে নিবে তখন…
|
ভোরঃঃ তুমি ঘুমাও আমি বেবিকে ঘুম পাড়াচ্ছি।
|
আলোঃঃ আমাকেও কোলে নিন তাহলে..
|
ভোরঃঃ হুমম.. (মুচকি হেসে)
|
আলো ভোরের কোলের উপর মাথা দিলো আর বেবি ভোরের হাতে নিয়ে দুলাতে লাগলো। দুলাতে দুলাতে একটা সময় ভোর ওভাবেই ঘুমিয়ে পড়লো আর বেবিও। আলো আস্তে করে উঠে ভোরের কাছ থেকে বেবিকে নিয়ে পাশে শুয়ে দিলো আর ভোরকে ঠিকভাবে শোয়ালো তারপর আলোর ভোরের বুকের উপর শুয়ে পড়লো। ভোর মুচকি একটা হাসি দিয়ে আলোকে জড়িয়ে ধরলো ঘুমের ভান করে।
|
|
|
চলবে……….
((ভুল-ত্রুটি ক্ষমার চোখে দেখবেন।ধন্যবাদ?))

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here