স্বামীর_বিয়ে পর্ব_৯

"এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে। আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার। আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন "

#স্বামীর_বিয়ে
#পর্ব_৯
#সাখেরীন

আমাতুল্লাহ সাখেরীন
অভ্র কেনো কল করলো??নিহালকে কিভাবে বলব??কি হতে চলছে?? অভ্র কি চায় আমাকে??স্ত্রী হিসাবে কি মেনে নিবে??, হাজারও প্রশ্ন চোখে সামনে ভাসছে। এভাবেই রুহীনি রাতটা পারি দিলো……
প্রেম।
জেনে শুনে অনলে জ্বলে পুড়ে ছাই হওয়ার মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
গরল পান করিয়া বিষম জ্বালা সইতে পারার মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
খালি পায়ে উত্তপ্ত মরুর বুকের বালিকায় হাঁটায় মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
দহন-বেলাতে খোলা আকাশ তলে দগ্ধ হওয়ার মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
চাতকির মতো পিপাসায় কাতর হইয়া ছটফট করার মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
রাতজাগা পাখির মতো রাত জাগিয়া কারো কথা ভাবার মাঝে কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
নিশি-দিন কারো জন্য উদাসীন উন্মাদ হইয়া থাকার মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
ব্যাকুল অন্তরে কারো আসার পন্থ পানে চেয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনার মাঝে যদি কোনো সুখ থাকে, তবে এর নাম ভালোবাসা,
এরই নাম প্রেম।
শুট শেষে আজই বাংলাদেশে ফিরলো নিহাল ও রুহীনি। রুহীনিকে প্রেস মিডিয়া ইত্যাদি নানা প্রশ্ন করলো।
নিহাল মুখ ডেকে সাইড দিয়ে বের হয়ে গেলো। নাহলে নানা প্রশ্ন করবে।সব শেষে
রুহীনি নিজের বাসায় আসলো। রুহীনি আসতে দেখে অভ্র ড্রয়িং রুমে বসে। রুহীনি তেমনটা অবাক হয়নি। কলকাতায় থাকতে তাদের অনেক কথা হতো। অভ্র মাফ চেয়ে এন্ড তার ভুল শিকার করেছে। রুহীনি সব ভুলিয়ে আবারো অভ্রকে বিশ্বাস করতে লেগেছে।
এই ব্যাপারে নিহালকে সবই বলে দিয়েছে রুহীনি। অভ্র বলেছে রুহীনিকে নিহাল এসব বলতে সারপ্রাইজ দিবে। যাই হোক বর্তমানে আসি……….
অভ্র রুহীনিকে দেখে একটা হাসি দিলো।
রুহীনিতো অভ্রকে দেখে ফিদা আবারো ক্রাশ খেয়েছে এক প্রকারে।
অভ্র রুহীনিকে জড়িয়ে দড়াতে রুহীনির হুস হলো।
অভ্র:(রুহীনির হাতে চুমু খেলো )
রুহীনি লজ্জায় লাল-বেগুনি হয়ে গেলো।
অরনি:এহেম এহেম
রুহীনিঃ( লজ্জা পেয়ে অভ্রের দেখে দূরে দাড়ালো)
অভ্রঃতুই এইখানে??
অভ্রের মাঃশুধু অরনি না আমিও
অভ্রের বাবা ঃআমিও
অভ্র আর রুহীনিতো অবাক।
অভ্রঃকিভাবে কি??
নিহালঃআমি বলি
রুহীনির চোখ বড় বড় হয়ে গেলো।
নিহালঃ(রুহীনি মাথায় টুকা দিলো)আমিই সব বলেছি আন্টি ও আংকেল কে
অভ্রের মা অভ্রের কান মলে দিলো আর বললো ঘরের লক্ষিকে কেউ ঘরের বাহিরে রাখে?? তাই আমি আজই আমার বাড়ির লক্ষিকে বাড়িতে নিয়ে যাবো।
অভ্রের মাঃ (রুহীনির হাত ধরে বলে) কিরে মা যাবি না আমার বাড়ির লক্ষি হয়ে?
রুহীনিঃ ( মাথা নিচু করে লজ্জা মাখা হাসি দিলো।) হুম
প্রেস – মিডিয়া ও কাজি ডাকা হলো।
কাজি বিয়ে পড়িয়ে চলে গেলেন।
প্রেস- মিডিয়া এখন অভ্রের ফেমেলি ও নিহাল, রুহীনির ইন্টারভিউ নিচ্ছে।নিহাল রুহীনির হাত ও অভ্রের হাতের দিলো।
নিহালঃসামলে রাখিস….
অভ্র ঃহুম
অভ্র সবার সামনে রুহীনিকে কুলে তুলে কারে নিয়ে বসিয়ে দিলো।
রুহীনি চোখ অফ করে রাখলো। এক অজানা সুখ বয়েছে তার মনে। সে কল্পনাও করেনি এইসব আর আজ তা বাস্তবে হচ্ছে।
অনেক ফটোগ্রাফাররা এই মুভমেন্টটা ক্যামেরা বন্ধি করলো।
অভ্রদের বাসায় আসলে অভ্রের রুহীনিকে নজর টিকা লাগিয়ে দেয়।
অভ্র কাওকে আমন্ত্রণ করেনি তাই অভ্রেকে নিয়ে তেমন মজা করা হয়নি।
কিন্তু অরনিতো রুহীনিকে নানা ধরনের মজা করছে। রুহীনি লজ্জায় লালা বেগুনি।
অভ্রের মা এসে রুহীনিকে খাইয়ে দিলো। রুহীনি কপালে চুমু খেয়ে চলে গেলেন।
অরনি রুহীনিকে চেন্জ করার জন্য একটা নরমাল শাড়ি দিলো।
রুহীনি চেন্জ করে আয়নায় বসে নিজেকে প্রস্তুতি করলো।
অভ্রঃকেমন ফিলিং হচ্ছে সে নিজেও জানে না… যাই হোক অভ্র সাতপাঁচ না ভেবে রুমে যাওয়ার জন্য পা বাড়ালাম….
দরজার ঘট ঘট আওয়াজে রুহীনি বুঝে গেলো অভ্র আসছে।
রুহীনি ঘোমটা দিয়ে বেডে বসে রইলো।
অভ্র এসে দেখে রুহীনি ঘোমটা দিয়ে বসে আছে অভ্রের কাছে এটা খুব ভালো লাগলো। মুচকি হাসি দিয়ে পা বাড়িয়ে আর একটু সামনে দাড়ালো।
রুহীনিঃ( বেডের থেকে নেমে সালাম করতে নিলাম কিন্তু অভ্র আমায় করতে দিলেন না লজ্জায় অভ্রের বুকে মুখ লুকালাম)
অভ্র ঃ( রুহীনির ঘোমটা সরিয়ে কপালে চুমু খেলাম)
রুহীনি চোখ অফ করে রইলাম। অভ্র রুহীনিকে কুলে করে নিয়ে বেডে দিকে পা বাড়ালো………….
♥স্বাক্ষী হয়ে রইলো ওদের ভালোবাসা♥
এক বছর পর _______
আজ অভ্রের আর রুহীনির বিয়ের এক বছর হলো। বদলে গেছে সব কিছুই। নিহাল কানাডায় চলে গেছে। অভ্র আগের থেকে এখন আরো ফেমাস হয়ে গেছে। অরনি টপে আছে সেও নাটকের না মুভির। রুহীনি সেই আগের জায়গাই আছে নাটক করে হঠাৎে। বিয়ে হওয়াই রুহীনির ফেনলোকস কমে গেছে অনেকটাই। রুহীনিও এসব নিয়ে চিন্তা করে না সে শুধু অভ্র নিয়েই ভাবে।
আজ বিয়ের এক বছর সম্পূর্ণ হওয়াই রুহীনি আর অভ্র মানালি যাচ্ছে। অভ্রের ফেভারিট জায়গাটা। অভ্র ও রুহীনি ভালোবাসা কোন কমতি নেই। অভ্র পাগলের মতো রুহীনিকে ভালোবাসে।
চলবে…….

গল্প পোকা
গল্প পোকাhttps://golpopoka.com
গল্পপোকা ডট কম -এ আপনাকে স্বাগতম......

Related Articles

ছন্দ ছাড়া বৃষ্টি পর্ব-০৫ এবং শেষ পর্ব | ইমোশনাল গল্গ

#ছন্দ_ছাড়া_বৃষ্টি #লেখনীতে- Ifra Chowdhury #পর্ব-০৫ (শেষ পর্ব) . তন্ময়, তিন্নি রুম থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ডুকরে কেঁদে উঠলাম আমি। তিহান আমার সাথে এতো বড় বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, এটা...

ছন্দ ছাড়া বৃষ্টি পর্ব-০৪

#ছন্দ_ছাড়া_বৃষ্টি #লেখনীতে- Ifra Chowdhury #পর্ব-০৪ . তিহান অফিসে চলে যাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই তন্ময় হন্তদন্ত পায়ে আমার কাছে ছুটে আসে। আমি ওর প্রতীক্ষায়ই ছিলাম। ও আসার পর সরাসরি...

ছন্দ ছাড়া বৃষ্টি পর্ব-০৩

#ছন্দ_ছাড়া_বৃষ্টি #লেখনীতে- Ifra Chowdhury #পর্ব-০৩ . হঠাৎ করে তিহান হাসতে আরম্ভ করলেন। এবার আমি ভ্রুজোড়া কুঞ্চিত করে জিজ্ঞেস করলাম, 'হাসছেন কেন?' উনি হাসতে হাসতেই জবাব দিলেন, 'তোমাকে ভয় পেলে বেশ...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles

ছন্দ ছাড়া বৃষ্টি পর্ব-০৫ এবং শেষ পর্ব | ইমোশনাল গল্গ

0
#ছন্দ_ছাড়া_বৃষ্টি #লেখনীতে- Ifra Chowdhury #পর্ব-০৫ (শেষ পর্ব) . তন্ময়, তিন্নি রুম থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ডুকরে কেঁদে উঠলাম আমি। তিহান আমার সাথে এতো বড় বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, এটা...
error: ©গল্পপোকা ডট কম