নিশি_কাব্য পর্ব-৯

0
899

নিশি_কাব্য পর্ব-৯
লেখা- Rudro Khan Himu

বাসায় আসার পর থেকে আমার মাথায় একটা কথাই ঘুরছে। কিভাবে নিশি কে বুঝাবো ।সব কিছু যদি নিশি জানে যায় তাই তো সর্বনাশ হবে। আমাকে ভাঙ্গা পরলে চলবে। নিশি ঘুমিয়ে আছে কত অপূর্ব সুন্দর লাগছে আমার পুতুল বউটাকে। নিশির কপালে আল্ত করে একটা চুমু দিয়ে আমি ও ঘুমে পরলাম।
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
আমাদের গল্পপোকা ফেসবুক গ্রুপের লিংক: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/



সবাই মিলে সকালে নাস্তা করছি ।
— শুনো আমাকে কিছু টাকা দেও। (নিশি)
আমি মার্কেট করতে যাব।
– কি মার্কেট করতে হবে আমাকে বল। আমি নিজে তোমার জন্য মার্কেট করে নিয়ে আসবো। তুমি কেন অযথা কষ্ট করতে যাবে।(সাব্বির)
–এই আমি বলছি টাকা দিতে। তুমি টাকা দিবে কিনা বল?
– আরে টাকা দিচ্ছি। এতো ঝগড়া করছ কেন? কালি ঘ্যানঘ্যান।
— আমি ঘ্যানঘ্যান করছি। তোমার কিন্তু দিন দিন মুখটা অনেক চালু হয়ে যাচ্ছে সাব্বির।
-মুখ চালু হবে না। আমাকে ফাঁসিয়ে নিজে তো সুখে আছ। আর এ দিকে আমার জীবন টা শেষ হয়ে যাচ্ছে।
— আমি তোমার জীবন কেন শেষ করতে যাব। তুমি তো ভালো ওই আছ।
– আমি ভালো নেই।
— সাব্বির তারমানে আমাকে নিয়ে সুখী না তুমি ? তাই তো। ওকে তাহলে তোমার ইচ্ছে
মতো কোনো মেয়ে কে বিয়ে কর তারপর তাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখো। আমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতে হবে না। টাকা দিতে বলছি টাকা দেও।
–আমি যায়ে মজা করে কথাটা বলছি এটা নিশি আগেই ধরে ফেলছে।দিচ্ছি বাবা। কালি টাকা টাকা।
এই টাকা কোথায়। এখানে তো টাকা ছিল।
— ও এখানের টাকা। এই টাকা আমি নিয়ে ফেলেছি।
— তাইলে আমি তোমাকে টাকা দিব কোথায় থেকে আমার কাছে তো আর টাকা নাই।
–আমি এসব বুঝি না। প্লিজ টাকা দেও।
–আগে আমাকে একটু ভালোবাসা দাও। তারপর টাকা দিব। এখন আমার কাছে কোনো টাকা নাই।
–ইসস ঢং করে। প্লিজ টাকা দেও।
— বললাম না টাকা নাই।( চিৎকার দিয়ে)
কি আনতে হবে আমাকে বল আমি কিনে আনবো।
— আমার কথা কেউ শুনে না।( টাকা পাওয়ার জন্য এতো অভিমান)
আমার টাকা লাগবে না। আমার জন্য কিছু জিনিস কিনে আনতে হবে না।
–আমি তো বলছি। তোমার কি কি লাগে আমাকে বল আমি নিজে কিনে আনবো। নিশির চোখে মুখে অভিমানের সুরে দেখতে পাচ্ছি। আর পাগলী কে রাগেনো যাবে না। নিশির খুব কাছে চলে আসলাম। কানের কাছে এসে বললাম চলো আজকে দুজন মিলে শপিং করে আসি।
— দুষ্টু একটা বর আমাকে না রাগেলে তোমার পেটের ভাত হজম হয় না।
— আমার তো একটাই সোনা বউ । তোমার সাথে খুনসুটি না করলে আমার ভালো লাগে না। এটা বলতে বলতে নিশি কে জরিয়ে ধরলাম । নিশির কানে একটা হালকা কামড় দিলাম ।
.
.
ইচ্ছে মত শপিং করে দু’জন বাসায় ফিরলাম।
নিশি আয়নার সামনে বসে সাজসজ্জা করতাছে। আর আমি রুমে বসে অফিসের কিছু কাজ করতাছি। আমি
মাঝে মাঝে আড়চোখে নিশির দিকে তাকাচ্ছি। আমি একসময় নিশির কাছে আসে। নিশিও সাজসজ্জা করে উঠে পড়লো। নিশি দেখতে পায় আমাকে অপলক দৃষ্টিতে নিশির দিকে তাকিয়ে আছি। নিশি অনেক রেগে আছে। কেন আমি তার দিকে এভাবে তাকিয়ে আছি।
–ওই এভাবে কি দেখছ?
মেয়ে কোনো দিন দেখ নি?
–মেয়ে দেখেছি কিন্তু বউ দেখে নি।
— বা বা।

তাই মেয়ে দেখেছেন কিন্তু বউ দেখেন নি ।
কি সুন্দর কথা। এতো বউ দেখতে হবে না।
আমি তোমার বউ না।
— বউ না হলে ওত ঢং এর বউ । আমার বউ কে আমি দেখবো তোমায় কি?
–এতো দেখতে হবে না। সরো। আমি মায়ের কাছে যাব। শুনো শুধু বউ বউ কর কেন?
আম বলছি না। তুমি আমার স্বামী না। শুধু বিরক্ত করো কেন?
— আমি কোথায় বিরক্ত করলাম। আমি তো তোমাকে শুধু মন ভরে দেখলাম।
–আমি কি তোমাকে বলছি। আমাকে মন ভরে দেখতে।
— না।
তা বলি নি। কিন্তু তোমাকে আমার ভালো লাগে। তাই দেখি।
–দ্যাত। কিছু ভালো লাগে না।

–এই আমার জন্য একটা চা বানিয়ে আনো তো। রুমে বসে বসে অফিসের কাজ করতে হবে। অনেক কাজ।
–এই কাকে বলছ চা বানিয়ে আনতে। নিজে চা বানিয়ে খেতে পার না।
— বউ থাকতে কেন আমি নিজে চা বানাবো। তুমি আমাকে চা বানিয়ে দিবে। যাও চা করে আনো।
–আমি পারব না। বাহ বাহ। উনি বলছেন তাইনের জন্য আমি নাকি চা করে আনবো। আমাকে চাকর পাইছ।
–এই এমন কথা কেন বল?
চাকর মানে কি? আমি বললাম আমার জন্য চা করে আনবে। তাতে এতো কথা কেন বল?
–তুমি আমাকে বকা দিলে কেন?এখন আমি কান্না করবো।

–বাবা রে সোনা বউ কান্না করে না। যাও চা করে আনছি।
কিন্তু আর কোনো দিন আমি তোমার জন্য চা করে নিয়ে আনতে পারব না বলে দিলাম।
–শুনো চায়ে চিনি বেশি দিবে। চিনি বেশি হলে চা খেতে ভালো লাগে।
–আমার ইচ্ছা মতো চা করে নিয়ে আনবো। তাতে তুমি খাবে নইলে তুমি খাবে না। এতো ভালো করে চা করে আনতে পারব না।

চলবে ?
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

▶ লেখকদের জন্য পুরষ্কার-৪০০৳ থেকে ৫০০৳ মূল্যের একটি বই
▶ পাঠকদের জন্য পুরস্কার -২০০৳ থেকে ৩০০৳ মূল্যের একটি বই
আমাদের গল্পপোকা ফেসবুক গ্রুপের লিংক:
https://www.facebook.com/groups/golpopoka/

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে