কে কোথায় যায়? পর্ব ২

0
661

কে কোথায় যায়? পর্ব ২
বাস থেকে নেমে নিজ স্টপে দাঁড়িয়ে রইল নীহারিকা!সে তার বন্ধুদের বাসায় উঠবে।প্রথমে সে নিজের কেনা ফ্লাটে থাকবে ভাবলেও বন্ধুদের জন্য তা হয়ে উঠলোনা!
স্টেশনে তিন মূর্তিকে দেখতে পেলো নীহারিকা। সেই তিন মূর্তি যাদের সাথে তার বেড়ে উঠা,বন্ধুত্বের হাতেখড়ি।তামিম,রুদ্র ও শুভা!কিন্তু নীহারিকার ডাগর ডাগর চোখগুলো খুজছে অন্য এক পুরুষকে!
শুভা এসে নীহারিকাকে জড়িয়ে ধরে। কানের কাছে এসে কানে কামড় দিয়ে বলে,
——–‘রাফিকে­ খুজছিস দোস্ত? ‘
কানে কামড় পড়তেই নীহারিকা লাফ মেরে বলল,
———‘কামড় মারলি ক্যান?ব্যাথা পাইছি খুব। ‘
রুদ্র নীহারিকাকে উদ্দেশ্যে বলল,
——-‘ব্যাথা­ তোর উইড়া চইলা যাইবো নীহু।রাফি কিন্তু আইতেছে।দ্যাখ!’
সবাই ঘাড় ঘুরিয়ে তাকালো রাফি আসার পানে।রাফির পড়নে কালো জ্যাকেট,ভিতরে নীল টিশার্ট ও জিন্স প্যান্ট।স্পাইক করা চুল।
দৌড়ে এসে রাফি নীহারিকাকে পড়োয়া না করে মাটিতে বসে পড়ল। সবাই এমন কান্ডে তাজ্জব বনে গেল।রুদ্র চারিদিকে মানুষের জড়ো হওয়া দেখে রাফি কে বলল,
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
আমাদের গল্পপোকা ফেসবুক গ্রুপের লিংক: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/


——–‘দোস্ত ওঠ!কি করতেছিস?আমাদের সবার সম্মান মাটিতে মিশাইবি নাকি হ্যাঁ?’
রাফি একপ্রকার গর্জন করতে করতে বলল,
———‘নীহারিকা এখনো আসেনাই?’
নীহারিকা বন্ধদের পাশ কাটিয়ে রাফির সামনে গেল। ছোট্ট করে বলল,
——–‘উহু!’
রাফি তার সেই চেনা কন্ঠটি শুনে আড়চোখে চাইলো।নীহারিকাকে দেখে খানিক হেঁসে বলল,
——-‘অনেক বড় হয়েছে আমাদের নীহারিকাটা।’
নীহারিকা মুখ গুমড়া করে বললো,
——-‘শুধু বড় হয়েছি?তোর বউ হওয়ার যোগ্যতা হয় নাই? ‘
রাফি চুল ঠিক করতে করতে বলল,
——-‘নাহ!বউ হতে হলে এখনো অনেক ধাপ তোকে পাড়ি দিতে হবে নীহা।আমার মতো ব্যাক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ হতে হবে।’
শুভা ভেংচি কেটে বলল,
——-‘কেমন ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ তা তোর এই ফুটপাত বসা থেকেই বুঝতেছি।’
সবাই হো হো করে হেসে উঠল। তামিম এতক্ষণ মুখ খুলল…
——-‘তোদের এইসব কথা কি এখানেই শেষ করবি?নাকি বাসায় যাওয়া আর লাগবেনা?’
তামিমের কন্ঠে রাজ্যের বিরক্তি!নীহারিকা দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরে তামিমকে।নীহারিকা চোখ বন্ধ করে বলে,
———‘কত্তদিন হলো দোস্ত, তোকে দেখিনা।’
তামিম অনেকদিন পর বুকে উষ্ণতার ছোয়া পেল।এই মানুষটাকে সেও তো দেখেনা কতদিন হলো!নীহারিকা তামিমের সাড়াশব্দ না পেয়ে মুখ তুলে তাকালো।তামিম চোখ বুজে আছে।নীহারিকা তামিমের বুকে একটা কিল মারল!তামিম চোখ খুলে নীহারিকার মুখ থেকে কথা বের হওয়ার আগে নিজেই বলল,
———-‘হইছে আর ঢং করতে হবেনা।আমার কথাতো তোর মনেই পড়েনা।’
নীহারিকা তার গেঁজ দাঁত বের করে বললো,
——-‘মনে পড়বেনা ক্যান দোস্ত? রাফির কাছে তোর খোজ রাখি!শুভা ও রুদ্রের কাছ থেকেও খোজ রাখি।তোর নাম্বারটা ও হারায় গেছে দোস্ত!’
শুভা কোমড়ে হাত দিয়ে নীহা আর তামিমের মাঝে দাড়াল,তামিমের দিকে তাকিয়ে ধারালো কন্ঠে বলল,
——–‘তোর অভিনয় শেষ কবে হবে রে?এতক্ষণ আমাদের বললি এবার তুই?’
তামিম নিজের চুলগুলো খাড়া করতে করতে শুভার কথা শুনছিল!ইশারায় নিজের কার দেখালো সবাইকে!সবাই বুঝলো তামিম তাদেরকে তার কারে বসতে বলছে।
তামিম ড্রাইভ করছে, পিছনে বসে আছে নীহা,রাফি ও রুদ্র। তামিমের পাশে বসেছে শুভা।রুদ্র গাড়িতে বসেই টুকটাক গান গাচ্ছিল। রাফিও তাল মিলাচ্ছে। তামিমও গলা মিলাচ্ছে!তবে মনটা পিছনেই,শুধুই পিছনে বসা এক রমণীর কাছে!
চলবে…..
®ইভা আহমেদ চৌধুরী
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।
▶ লেখকদের জন্য পুরষ্কার-৪০০৳ থেকে ৫০০৳ মূল্যের একটি বই
▶ পাঠকদের জন্য পুরস্কার -২০০৳ থেকে ৩০০৳ মূল্যের একটি বই
আমাদের গল্পপোকা ফেসবুক গ্রুপের লিংক:
https://www.facebook.com/groups/golpopoka/

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here