নষ্ট গলি পর্ব-৯

0
952

নষ্ট গলি পর্ব-৯

লেখা-মিম

রেস্টুরেন্টে বসে অাছে মায়া অার সোহান। গরম ধোঁয়া উঠা স্যুপে একটু একটু করে চুমুক দিচ্ছে সোহান। অার মায়া চামচ দিয়ে স্যুপ নাড়াচাড়া করছে।
-” না খেয়ে কি ভাবছো? খাওয়া শেষ করে এরপর চিন্তা ভাবনা করো।”
-” অাপনি সবাইকে একথা কেনো বলছেন অামি অাপনার বউ?”
-” তোমাকে তো অামি প্রথমদিনই বলেছি তুমি অামার বউয়ের মতো অামার কাছে থাকবে।”
-” অামি বউয়ের মতো করে থাকবো কিন্তু বৌ না। বৌয়ের মতো অার বৌ তো এক ব্যাপার হলো না।”
-” তাহলে তুমি কি চাচ্ছো? তোমাকে বৌ হিসেবে পরিচয় না করাই?”
-” সেটা বলিনি। অামি বলছি যে অাজীবন তো অার অামাকে অাপনার কাছে রাখবেন না। কিছুদিন পর বিয়ে শাদী করবেন। সংসার হবে অাপনার। তখন তো অার অামার প্রয়োজন পড়বে না। তখন লোককে কি বলবেন? তাছাড়া লোকমুখে অাপনার সত্যিকারের বউ তো জেনেই যাবে অাপনি অাগে বিয়ে করেছিলেন।”
-” তোমাকে কে বললোষঅামি অন্য কাউকে বিয়ে করবো? সংসার করবো? সংসার করার জন্যই তো তোমাকে ধরে এনেছি। নতুন করে অাবার অন্য কাউকে ধরে অানার কি হলো?”
-” তবুও…….”
-” তোমাকে অামি অামার ওয়াইফ হিসেবে ইনট্রোডিউস করাচ্ছি এটা কি তোমার ভালো লাগছে না? না লাগলে বলো অার কখনো বলবো না”
-” সেটা বলিনি। বলছি যে লোকে কি বলবে?”
-” শোনো লোকের ধার অামি ধারি না। কে কি বললো না বললো সেসব নিয়ে অামি ভাবি না। তুমি কি চাও সেটা বলো? বউ হিসেবে পরিচিতি পেতে চাও নাকি মিসট্রেস হিসেবে?”
-” অাপনি যেভাবে ডাকতে চান সেভাবেই চলবে।”
-” ব্যস এটা নিয়ে অার কোনো তর্ক হবে না। চুপচাপ খাও।”
রাতে বাসায় ফিরে ফ্রেশ হয়ে চুপচাপ শুয়ে অাছে মায়া । সোহানের মতিগতি মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে ওর। কি থেকে কি ঘটছে বুঝে উঠতে পারছেনা ও। এখন পর্যন্ত ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করছেনা সোহান। তাহলে ওকে এখানে এনেছে কেনো? সাজিয়ে রাখার জন্য? ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে পড়লো মায়া। খাটে এপাশ ওপাশ করছে সোহান। ঘুম অাসছে না ওর। কেউ মাথায় হাত বুলিয়ে দিলে ভালো লাগতো। মায়া তো অাছে। ওকে ডাকলেই তো হয়। মায়ার রুমে এলো সোহান। ঘুমুচ্ছে মেয়েটা। কত্ত অারামের ঘুম। সোহান ছটফট করছে অার মায়া ঘুমাচ্ছে সেটা কি করে হয়? মায়াকেও জাগতে হবে। মায়ার কাঁধে অালতো করে ধাক্কা দিচ্ছে সোহান।
-” এই উঠো।”
-“………….”
-” মায়া…. এই মায়া উঠো।”
ঘুর থেকে লাফিয়ে উঠে বসলো মায়া।
-” হুম? জ্বি? কোনো সমস্যা?”
-” অারে ভয় পাচ্ছো কেনো? অামি এসেছি।”
-” হুম বুঝেছি তো।”
-” ঘুম অাসছে না। মাথায় একটু হাত বুলিয়ে দাও তো।”
মায়ার পায়ের উপর মাথা রেখে শুয়ে পড়লো সোহান। সোহানের মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে মায়া।
-” মায়া…..”
-” হুম।”
-” অামাকে তোমার কেমন লাগে?”
-” খুব ভালো।”
-” জানো শুরুতে সবাই এই কথাই বলে। যখন অামার রাগটা দেখে তখন অামার সাথে অার কেউ মিশতে চায়না। যারা মিশে তারা প্রয়োজনে মিশে অামার সাথে। একদিন হয়তো রাগের মাথায় তোমাকেও গালি দিবো। এরপর তুমিও অামাকে খারাপ ভাববে।”
-” অামি গালি শুনে অভ্যস্ত।”
-” যারা তোমাকে গালি দিয়েছে তাদের তুমি অাগে থেকেই খারাপ জানতে। কিন্তু তুমি তো অামাকে ভালো মনে করো। পরে যখন অামার মুখে গালি শুনবে তখন তোমার ঠিকই খারাপ লাগবে।”
-” যখন গালি দিবেন তখন না হয় বুঝবো।”
–” একটা কথা বলি?”
-” হুম।”
-” তোমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমাই?”
-” অাপনার ইচ্ছা।”
-” তোমার কোনো ইচ্ছে নেই?”
-” অামাদের ইচ্ছা অনিচ্ছা নামের কিছু নেই।”
-” তোমাকে অামি অামার ওয়াইফ হিসেবে ট্রিট করছি মায়া। প্রস্টিটিউট হিসেবে না। সো তোমার ইচ্ছাটা অামার জন্য অনেক বড় কিছু ম্যাটার করে।”
-” যদি না করি?”
-” অামার রুমে চলে যাবো।”
-” অাপনি এখানেই ঘুমাবেন। অামার সাথে।”
-” তাহলে তুমি অামাকে পারমিশন দিচ্ছো?”
-” হুম দিচ্ছি।”
মায়ার পায়ের উপর থেকে সরে বালিশে এসে শুয়ে পড়লো সোহান। মায়াকে টেনে নিলে নিজের বুকে। সোহানের সবকিছু ভালো লাগে মায়ার। বিশেষ করে মায়ার প্রতি যে সম্মানটা দেখায় সেটা মায়ার খুব পছন্দ। প্রতিটা মানুষেরই কোনো না কোনো খারাপ দিক থাকে। সোহানেরও অাছে। রাগটা না হয় তার একটু বেশি রেগে গেলে মুখে লাগাম থাকে না। সে তো মানুষ। ফেরেশতা তো অার না। এমন লোকের সাথে চোখ বন্ধ করে সারাজীবন পাড়ি দেয়া যায়। তাহলে ঐ তিনটা মেয়ে কেনো ওকে ফেলে চলে গেলো। একটা বাজে দিকের জন্য কি মানুষটার বাকিসব ভালো গুনগুলো তাদের কাছে ধামাচাপা পড়ে গেলো? সম্মান….। মায়ার কাছে শব্দটা প্রচন্ড রকমে ভারী মনেহয়। সম্মান কখনো সে কারো কাছে পায়নি। তাই কথাটা তার কাছে খুব মূল্যবান। অাঠারো বছরের জীবনে প্রথম কোনো পুরুষ ওকে সম্মান দিচ্ছে। এতকাল যারা অসম্মান করতো তারাও পুরুষ ছিলো। অার এখন যে সম্মান দিচ্ছে সেও একজন পুরুষ। তার প্রগি ঘৃনা বা ক্ষোভ জন্মায় না। জন্মায় ভালোবাসা,শ্রদ্ধা। সোহানের প্রতিটা ব্যাপারের প্রতি প্রেমে পড়ে যাচ্ছে মায়া। নিজেকে কোনোভাবেই অাটকাতে পারছে না। সে ভালো করেই জানে প্রেম ভালোবাসার অধিকার তাদের নেই। তবু ভালোবাসাটা তৈরী হচ্ছে। হতে পারে ভালোবাসা প্রকাশ করার ক্ষমতা বা অধিকার কোনোটাই তার নেই। কিন্তু ভালোবাসাটা মনের ভিতর তো চেপে রাখা যেতেই পারে। মুখে না অানলেই হলো। এমন মানুষকে কি ভালো না বেসে অাদৌ থাকা সম্ভব? মানুষটার বুকের ধুক-ধুক শব্দ শোনা যাচ্ছে। মনে হচ্ছে সোহানের হৃদস্পন্দেরও প্রেমে পড়ে যাচ্ছে সে। অাচ্ছা এই ভালোবাসার পরিনতি কি হতে পারে? ভালো পরিনতি হবে না সে ব্যাপারে পুরোপুরি নিশ্চিত মায়া । সামনে খুব বড়সড় একটা ধাক্কা সে খাবে এই ভালোবাসার বিনিময়ে এটা তার খুব ভালো করেই জানা অাছে। তবু ভালোবাসাটা বেড়ে চলছে। হোক না খারাপ পরিনতি, তাতে কি? জন্মলগ্ন থেকে শুরু করে এখানে অাসার অাগ পর্যন্ত তো খারাপের মাঝেই অাটকে ছিলো। নতুন করে নাহয় অাবার খারাপ কিছু হবে। এতে তার কিছু অাসে যায় না। একটা সময় হয়তোবা সোহান ওকে চলে যেতে বলবে। তখন হয়তোবা ওর প্রয়োজনটা অার সোহানের কাছে থাকবে না। তবু ওকে ভালোবাসবে মায়া। এখন কাছ থেকে ভালোবাসে তখন নাহয় দূর থেকে ভালোবাসবে। মায়া ভালোবাসতে জানে। যে ভালোবাসতে জানে , সে কাছে থেকেও ভালোবাসতে জানে দূর থেকেও ভালোবাসতে জানে।
(চলবে)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here