Devil_Teacher Part -08 | Golpo poka Sad love story

0
928

??Devil_Teacher??

??রং তুলি ??

part – 8

— আমি Devil এর দিকে তাকিয়ে একটু হাসার চেষ্টা করছি, যদি দয়া হয়। কিন্তু ওনার রাগি চেহারা দেখে আমার হাসিও উধাও হয়ে গেলো। ওনিতো আমার দিকে এগিয়ে আসছে, এখন কি করি? ওনি কাছে আসার আগে আমি বরং এখান থেকে কেটে পরি। আমি যখনি যাওয়ার জন্য পা বাড়াচ্ছি ওনি আমার হাত ধরে ফেললো, হাত ধরে টেনে একটা রুমে নিয়ে গেলো,,,
শান্ত : কি কি যেন বলছিলে, আমি বজ্জাত, জিরাফ, এনাকন্ডা, লাল বাদর আমাকে কুপিয়ে কিমা কিমা করবে? এখন দেখবে কে কাকে কিমা বানায় ( দাতে দাত চেপে )
তুলি : স্যার আমার ভুল হয়েগেছে ( কাঁদোকাঁদো গলায়)
শান্ত : just shut up… ( ধমক দিয়ে) তোমার এতো ভুল হয় কি করে?
তুলি :….. ( নিশ্চুপ)
শান্ত : সবসময় তো এতো বকবক করো, এখন কথা বলছোনা কেন? ( হাত চেপে ধরে)
তুলি : আহ,, স্যার হাতে ব্যথা পাচ্ছি
— ওর চোখে পানি দেখে হাতটা ছেড়ে দিলাম, রাগের চোটে এতটা জোড়ে চেপে ধরেছি হাতটা লাল হয়ে গেছে। কেন জানি নিজের রাগটা control করতে পারিনা, নিজেকে স্বাভাবিক করে বললাম,,,
শান্ত : এখন যদি বাহিরে গিয়ে কারো সাথে আর একটা কথা বলো, তাহলে আমি কি করবো নিজেও জানিনা। মনে থাকে যেন
তুলি : হুম ( মাথা নিচু করে )
শান্ত : যতক্ষণ মেহমান থাকবে তুমি আমার সাথে থাকবে।
— কথাটা বলেই ওনি আমার হাতে একটা চুমু খেলো, গালে একটা চুমু দিয়ে হাত ধরে বসার রুমে নিয়ে আমাকে বসিয়ে নিজেও আমার পাশে বসে পরলো। ওনি আমার হাত ধরে বসে আছে, অনেকে আমার সাথে কথা বলছে কিন্তু কারো কোন কথার উত্তর দিচ্ছি না, তা দেখে ওনি বললো,,,
শান্ত : এখন আবার কি হলো? কারো কথার কোন জবাব দিচ্ছনা কেন?
তুলি : স্যার আপনি তো না করছেন কারো সাথে কথা বলার জন্য ( ছলছল চোখে)
শান্ত : তাই বলে,,, তুমি কি ছোট বাচ্চা কিছু বুঝনা? ( রাগি গলায়)
তুলি :…. ( নিশ্চুপ)
শান্ত : দেখো তুলি যদি কেউ কোন প্রশ্ন করে তুমি যদি তার উত্তর না দাও, তাহলে তাকে অপমান করা হয়।
তুলি :…..( নিশ্চুপ)

— তুলির কান্ড দেখে ইচ্ছে করছে নিজের মাথা নিজেই ফাটায়, ও এতোটা অবুঝ কেন? পুরো অনুষ্ঠানে চুপচাপ বসে ছিলো, কারো সাথে কথা বলেনি। অনুষ্ঠান শেষে রুমে গিয়ে চুপ করে বসে আছে কিছু বলছেনা, ওর এমন চুপ থাকা আমার কাছে মোটেও ভালো লাগছে না। তাই রেগে গিয়ে বললাম,,,
শান্ত : এই মেয়ে এমন চুপ করে বসে আছো কেন?
তুলি : আপনি তো বললেন আমি বেশি বকবক করি
শান্ত : তাই বলে এভাবে চুপ করে বসে থাকবে নাকি?
তুলি : তাহলে কি করবো? ( মাথা নিচু করে)
শান্ত : যা ইচ্ছে বলো, কিন্তু আমার সামনে এভাবে চুপ করে বসে থাকবে না।
তুলি : স্যার আমাকে কিছু করবেন নাতো?
শান্ত : করবো না, আগে স্যার ডাকা বন্ধ করো please… আমি তোমার husband
তুলি : তাহলে স্যার কি ডাকবো?
শান্ত : আবার স্যার?
তুলি : sorry স্যার, আসলে আপনি তো,,,
শান্ত : চুপ আর একবার স্যার বললে খবর আছে, বাসায় থাকলে তুমি আমার নাম ধরে ডাকবে।
তুলি : ঠিক আছে স্যার
শান্ত : you are just impossible…( দাতে দাত চেপে) তোমাকে দিয়ে কিচ্ছু হবেনা।
তুলি : যাকে দিয়ে হয় তাকে নিয়ে আসলেই তো পারেন, আমার মধ্যেতো কত সমস্যা আমি বকবক করি, আমি বাচ্চামি করি, আমার কান্ড জ্ঞান নেই, ছেলেদের সাথে গা ঘেষে কথা বলি আরো কত কি? ( রেগে গিয়ে)
শান্ত : কি বললে? ( ভ্রু কুচকে )
তুলি : বলছি স্যার আমার পেটে ক্ষুদা লাগছে। ( ভয় পেয়ে)
— কথাটা বলে আমি রুম থেকে তাড়াতাড়ি বেরিয়ে আসতে যাবো, devil টা পেছন থেকে আমার কোমড় ঝড়িয়ে ধরে বললো,,,
শান্ত : আজকে বলছো, next time যেন এমন কথা না শুনি। আর সেদিনের জন্য আমি সত্যি লজ্জিত ( শান্ত গলায়)
তুলি : হুম
শান্ত : হুম কি?
তুলি : স্যার আগে ছাড়েন তারপর বলছি
শান্ত : কেন? আমি কাছে আসলে কি সমস্যা ( বলেই আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো)
তুলি : স্যার কেমন কেমন জানি লাগে।
শান্ত : কেমন ( নিজের দিকে ফিরিয়ে)
তুলি : জানিনা
শান্ত : জানতে হবেনা, হুসস,,,
— ওনি আমাকে ওনার একদম কাছে টেনে নিয়ে আমার কোমড় জড়িয়ে ধরে ঘারে গলায় অনেক গুলো চুমু খেলো, ওনার স্পর্শে আমি শিহরিত হয়ে উঠছি। ওনার ঠোট দুটো ক্রমশ আমার ঠোটের দিকে এগিয়ে আসছে, এখন আমি কি করি? ওনাকে আটকাতে হবে,,,
তুলি : স্যার আমার পেটে ক্ষুদা লেগেছে।
শান্ত : হুম ( বেঘোরে)
তুলি : স্যার অনেক ক্ষুদা লেগেছে, please স্যার ছাড়েন
শান্ত : কি? আমার রোমান্টিক মোডটাই নষ্ট করে দিলে ( বিরক্তি নিয়ে )
তুলি : স্যার এখন তো ছেড়ে দেন ( করুণ দৃষ্টিতে )
শান্ত : আজকে কত খেতে পারো দেখবো

— খাবার টেবিলে বসে আমি আমার শশুড় শাশুড়ির সাথে বকবক করছি, আমি একটু বেশি বকবক করি। এই পরিবারের মানুষ গুলো একটু বেশি ভালো কেউ কিছু বলেনা, সবাই কত সহজে আপন করে নিয়েছে, শুধুমাত্র devil টা ছাড়া। devil এর দিকে চোখ পরতেই দেখি আমার দিকে তাকিয়ে আছে, ওনার ভাব বেশি ভালো দেখাচ্ছে না। তাই খেতে খেতে নদীকে বললাম,,,
তুলি : নদী আজকে আমি তোর সাথে ঘুমাবো। আমার একটা কাজ আছে
নদী : না গো ভাবি আমার সাথে ঘুমাতে হবেনা ( দুষ্টামির হাসি দিয়ে)
তুলি : তুই আমাকে না করে দিলি?
নদী : sorry রে,,,
— শান্ত রাগি চোখে তাকিয়ে আছে তুলির দিকে। ইচ্ছে করছে এই মেয়েকে মাথায় তুলে আছার মারতে, ফাজিল মেয়ে। খাবার শেষে শান্ত রুমে বসে আছে তুলি এখনো আসেনি, কি করছে মেয়েটা এখনো? অনেকক্ষণ অপেক্ষা করে শান্ত শুয়ে পরলো। তুলি বাহিরে থেকে লুকিয়ে দেখে শান্ত শুয়ে পরেছে, তুলি আস্তে আস্তে রুমে ঢুকে সোফায় শুয়ে পরলো। তুলি চোখ বন্ধ করে শুয়ে আছে, তার কাছে মনে হচ্ছে কেউ একজন তার দিকে তাকিয়ে আছে। চোখ মেলতেই দেখে শান্ত দাড়িয়ে আছে,,,
তুলি : আপনি এখনো ঘুমাননি ( কাঁপা কাঁপা গলায়)
শান্ত : এতো লেট হয়েছে কেন তোমার আসতে? ( ভ্রু কুচকে)
তুলি : আমিতো অনেকক্ষণ আগে আসছি
শান্ত : কতক্ষণ হবে?
তুলি : যখন আপনি ঘুমিয়ে ছিলেন ( আমতা আমতা করে)
শান্ত : অনেকক্ষণ অপেক্ষা করছো কখন আমি ঘুমাবো তাইনা? ( তুলিকে কোলে তুলে নিয়ে)
তুলি : স্যার please আমার সাথে কিছু করবেন না। আমি এখনো অনেক ছোট ( কাঁদোকাঁদো গলায়)
শান্ত : তুমি ছোট?
তুলি : হুম
শান্ত : আর যদি করি? ( বিছানার দিকে এগিয়ে)

চলবে,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here