?ভোর? পর্বঃ ০৮।

0
1341

?ভোর? পর্বঃ ০৮।
লেখিকাঃ আয়sHa?
|
|
আলো এখন পুরোপুরিভাবে সুস্থ। ভোরেরও পিঠের জঘমটা সেরে গেছে কিন্তু দাগ রয়ে গেছে।
|
ভোর অফিসে যাচ্ছে রেডি হয়ে আর আলো এখনো ঘুমিয়ে আছে। আলো ঘুমিয়ে আছে তাই ভোর আলোর ব্রাশে পেস্ট লাগিয়ে টেবিল ল্যাম্পের টেবিলটার উপর রাখলো.. এক মগ কফি রাখলো আর একপাশে নাস্তার প্লেট রেখে অফিসে চলে গেলো।
|
আলোর ঘুম ভাঙ্গল। উঠে বসে পাশে তাঁকিয়ে দেখে কফির মগের সাথে হেলানো একটি ছোট্ট কাগজে লেখা… GoOD mOrniNg বৌ। ?
|
আলো এসব দেখে হাত দিয়ে এক ধাক্কাতে টেবিল ল্যাম্পটা ফেলো দিলো আর সব পড়ে গেলো। তারপর উঠে রুমে সব কিছু এক এক করে ছুড়ে মেঝেতে মারলো। সার্ভেন্টরা এসে এ অবস্থা দেখে ভোরকে কল দিলো। ভোর সার্ভেন্টদের কল পেয়ে গাড়ী ঘুরিয়ে বাড়ি চলে এলো। এসে রুমে দৌড়ে গেলো। আলো এখন একটা ফুলের টব নিলো ছুড়ে মারার জন্য। তখন ভোর গিয়ে আলোকে ধরে….
|
ভোরঃঃ কি হয়েছে আলো? এসব ছুড়ছো কেন?
|
আলোঃঃ আপনার সমস্যা?? আমি সব ভাঙবো। আপনার সমস্যা?? ((রাগী কন্ঠে))
|
ভোরঃঃ এতো রাগ কিসের জন্য??
|
আলোঃঃ চুপ একদম..
|
ভোরঃঃ ও ও ওকে। নাও এটাও ভাংগো। সব ভেঙে ফেলো।
|
ভোর আলোর দিকে আর একটা ফুলের টব দিয়ে বললো তারপর চুপটি করে বসলো বেডে। আলো এক এক করে সব ভাঙলো। তারপর বেডে ধুম করে বসলো।
|
ভোরঃঃ নাহ আর কিছু নাই সব ভাঙ্গা কম্পিলিট। ((চারদিক তাঁকিয়ে)) এবার বলো এগুলা ভাঙলে কেন??
|
আলোঃঃ আপনি আমার সাথে একদম কথা বলবেন না। এইসব আপনার জন্য করেছি। ((রাগী লুক))
|
ভোরঃঃ আমি কি করলাম??
|
আলোঃঃ ঐগুলো কে রাখছে??(( নিচে ফেলানো ব্রাশ.. কফি.. নাস্তা দেখিয়ে))
|
ভোরঃঃ আমি। কেন?
|
আলোঃঃ আপনার ব্রাশ করা.. কফি খাওয়া.. নাস্তা করা.. এগুলা কম্পিলিট করেই তো অফিসের জন্য বের হয়েছিলেন?
|
ভোরঃঃ হ্যাঁ। কেন?
|
আলো এবার উঠে ভোরের কলার চেপে ধরে…
|
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share

আলোঃঃ আমি মরে গেছিলাম? আমাকে উঠানো যেতো না? আমি সারাদিন এই বাড়িতে একা একা বন্ধি থাকি। আপনার সাথে না হয় কফিটা খেতাম। নাস্তা করতাম। এইটুকু সময় তো পেতাম গল্প করার জন্য? আর আপনি? আমাকে না ডেকে ঢং করে এসব পাশে রেখে চলে গেছেন?? আমার জন্য একটুও মায়া হয় না?? আমিও তো একটা মানুষ না কি?? এই বাড়ি থেকে তো বেরও হতে দিবেন না। কতসময় একা একা থাকা যায় বলুন? বলুন আমাকে? ((আলোর চোখে পানি টলমল করছে))
|
ভোর আলোর এমন রূপ দেখে অবাক হলো। আলোর কোমড়ে হাত দিয়ে নিজের আরও কাছে নিয়ে তারপর দুহাত দিয়ে আলোর মাথাটা ধরে আলোর কপালের সাথে কপাল ঠেকিয়ে…
|
ভোরঃঃ সরি। সরি বৌ। আমার বুঝিনি বৌ সরি। ((আস্তে করে))
|
আলো এবার কেঁদেই দিলো। ভোর আলোর চোখের পানি মুছে…
|
ভোরঃঃ সরি। ক্ষমা করে দাও এবারের মতো? প্লিজ। ((করুন কন্ঠে))
|
আলোঃঃ হুমমম…
|
ভোর আলোকে বুকের সাথে জড়িয়ে নিলো। আলো একটুপর ভোরের থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে পাশে বসলো।
|
ভোরঃঃ এবার এগুলার কি হবে?? ((নিচের দিকে তাঁকিয়ে))
|
আলোঃঃ আপনি সব পরিষ্কার করবেন।
|
ভোরঃঃ তুমি এসব করছো তুমিই পরিষ্কার করবে।
|
আলোঃঃ হুমমমম….(( মন খারাপ করে))
|
ভোরঃঃ পাগলি সার্ভেন্টরা করে দিবে। তুমি চলো।
|
আলোঃঃ কোথায়??
|
ভোরঃঃ আমার সাথে অফিসে যাবে। বাসায় একা একা থাকতে হবে না।
|
আলোঃঃ আমি অফিসে গিয়ে কি করব??
|
ভোরঃঃ কিছু না। আমার সাথে সাথে থাকবে।
|
আলোঃঃ না। অফিসে কত মানুষজন থাকবে।
|
ভোরঃঃ তো কি হয়েছে? তুমি আমার বৌ ওকে। চলো চলো রেডি হও।
|
ভোরের জোরাজুরিতে আলো রেডি হয়ে ভোরের সাথে অফিসে গেলো। অফিসে ঢোকার পর সবাই আলো আর ভোরের দিকে তাঁকিয়ে আছে। ভোর সবার তাঁকিয়ে থাকা দেখে আলোর ঘাড়ে হাত দিয়ে…
|
ভোরঃঃ সবার মনে নিশ্চয়ই প্রশ্ন জাগছে উনি কে?? ((আলোর দিকে তাঁকিয়ে)) উনি আপনাদের এমডি’র ওয়াইফ। মানে আমার একমাত্র বৌ। Only one.. উনি আলো চৌধুরী। এবার সবাই কাজে মন দিন।
|
বলে ভোর আলোকে নিয়ে কেবিনের দিকে যাচ্ছিলো তখন একজন মেয়ে স্টাফ আর একজন মেয়ে স্টাফকে বললো..
|
স্টাফঃঃ দেখলে শেষে একটা কালির ড্রাম বিয়ে করল। অথচ আমি কত ঘুরলাম পাত্তা দিলো না। কি পেয়েছে এর মাঝে?
|
এটা ভোরের কানে চলে গেলো। ভোর পিছন ঘুরে…
|
ভোরঃঃ মিস টিয়া.. ওর মাঝে যা আছে আপনার মাঝে তার বিন্দু পরিমাণ ও নাই। ওর মাঝে আপনার মতো বেহায়াপনা নাই। ওকে?? ((রাগী লুকে))
|
টিয়াঃঃ ওওকে স্যার সরি।
|
ভোর আর কথা না বাড়িয়ে আলোকে নিয়ে কেবিনে চলে গেলো। আলোকে টেনে ভোরের চেয়ারটাতে বসিয়ে দিলো।
|
আলোঃঃ আমাকে এখানে বসালেন কেন?? এটা তো আপনার চেয়ার।
|
ভোরঃঃ তো কি হয়েছে??
|
আলোঃঃ না না আপনিই বসুন। আমি বরং ঐ চেয়ারটাতে বসছি।
|
আলো উঠে সামনের চেয়ার বসলো। ভোর ওর চেয়ারটাতে বসে।
|
ভোরঃঃ তো এখন কি একা একা লাগছে??
|
আলোঃঃ বাসাতেই ভালো ছিলাম। এখানে আমাকে নিয়ে আসায় আপনার কতো কিছু শুনতে হলো। ((মন খারাপ করে))
|
ভোরঃঃ কে কি বললো তাতে আমার কোনো যায় আসে না।
তুমি এসব নিয়ে মন খারাপ করবে না। তোমার একটাই কাজ।
|
আলোঃঃ কি???
|
ভোরঃঃ আমাকে ভালোবাসবে শুধু। পারবে না??
|
আলোঃঃ হুমমম।
|
ভোরঃঃ তাহলে এদিকে আসো একটা ভালোবাসা দাও ঠোঁটে।
|
আলোঃঃ ধুরররর চুপ করুন এটা অফিস। আচ্ছা আমাকে কোনো কাজ দিন লেখালেখি বা হিসাবের। আমি বসে বসে করি।
|
ভোরঃঃ ওকে দাঁড়াও… তুমি আঁকাআঁকি পারো??
|
আলোঃঃ হুম একটু একটু…
|
ভোরঃঃ তাহলে এই প্রোজেক্টের ছবিগুলো এর থেকে আর একটু ভালো করে একেঁ দাও।
|
আলোঃঃ আচ্ছা চেষ্টা করছি। আমি ঐ সোফাতে বসে আঁকি?
|
ভোরঃঃ আচ্ছা…
|
আলো গিয়ে সোফাতে বসে মন দিয়ে আঁকাআঁকির কাজ করতে লাগলো। ভোরও অফিসের কাজ করতে লাগলো। মাঝে মাঝে স্টাফরা আসছে কেউ কেউ। কিন্তু আলোর সেদিকে কোনো ভ্রু-ক্ষেপ নেই। ও ওর মন দিয়ে আঁকছে।
|
প্রায় ২ ঘন্টা পার হয়ে গেলো তারপর আলোর মন ঘুরালো আর সাথে সাথে বলে উঠলো..
|
আলোঃঃ এটা কি এঁকেছি?? ((একটু উচ্চস্বরে আংতকে উঠে বললো))
|
ভোর আলোর কথা শুনে আলোর কাছে গিয়ে পেপারটা হাতে নিয়ে…
|
ভোরঃঃ Wow…
|
আলোঃঃ আমি এটা কখন আঁকলাম??
|
ভোরঃঃ এখনি। তুমি এতো সুন্দর করে আমাকে আঁকলে কি করে??
|
আলোঃঃ আমি তো মনে মনে অন্য কিছু ভাবছিলাম কিন্তু ওনাকে কখন এঁকে ফেললাম?? ওহ সিট ((মনে মনে))
|
ভোরঃঃ কি হলো কি ভাবছ??
|
আলোঃঃ না তেমন কিছু না। ইশশশ আপনার প্রোজেক্টের ছবি আঁকতে গিয়ে কখন যে আপনাকে এঁকে ফেললাম আমি জানি না। সরি ((করুন দৃষ্টিতে))
|
ভোরঃঃ কিসের সরি? এটা আমি বাধিয়ে রাখবো আমাদের রুমে। আমার বৌ আমাকে এঁকেছে। আসলেই তুমি আমাকে ভালোবাসো। ভালোবাসা না থাকলে এত সুন্দর ছবি আঁকা যায় না। i love you বৌ।
|
আলোঃঃ হুমমমম..
|
ভোর ধুম করে সোফাতে আলোর কোলে মাথা দিয়ে শুয়ে….
|
ভোরঃঃ এনার্জি পাচ্ছি না কাজ করার। একটু পাওয়ার দাও তো। ((মিটিমিটি হেসে))
|
আলোঃঃ মানে…(( ভোরের মাথায় হাত দিয়ে))
|
ভোরঃঃ মানে হলো… একটা চুমু দাও।
|
আলোঃঃ আপনিও না? সরুন উঠুন।
|
ভোরঃঃ দিবে না? ((মুখ বাঁকা করে))
|
আলোঃঃ না। এটা অফিস। উফফফফ সরুন।
|
ভোরঃঃ ওকে….
|
বলেই আলোর কোমড়ে হাত দিয়ে কোমড় পেঁচিয়ে ধরে আলোর কামিজটা সরিয়ে পেটের উপর মুখ গুঁজে দেয়। আলো সাথে সাথে কেঁপে ওঠে।
|
আলোঃঃ কিকিকি কি করছেন এসব? ((ভোরের মাথা সরিয়ে দেবার বৃথা চেষ্টা))
|
ভোরঃঃ বৌকে আদর করছি।
|
আবার একটা চুমু খেয়ে পেটে। এবার আলোর উঠে দাঁড়ালো।
|
আলোঃঃ কতবার বল্লাম এটা অফিস.. আপনার বেড রুম না।
|
ভোরঃঃ ওকে ওকে আর রাগতে হবে না। যাও বাসায় গিয়েই করবো। ((মন খারাপ করে))
|
আলোঃঃ হুমমম…
|
ভোর আবার কাজ করতে শুরু করলো আর আলো এটা ওটা দেখতে লাগলো ভোরের কেবিনের।
|
|
|
চলবে………….
((ভুল-ত্রুটি ক্ষমার চোখে দেখবেন। ধন্যবাদ?))

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে