মেঘসন্ধি পর্ব-১০

0
188

#মেঘসন্ধি
#লেখনীতে:সারা মেহেক

১০

কিছুক্ষণ আগে ডক্টর এসে জহির ইসলামকে দেখে গিয়েছেন। উপরি পরীক্ষায় তিনি যতটুকু জানতে পেরেছেন, জহির ইসলামের অ্যানজাইনা এটাক হয়েছিলো। আর কিছুক্ষণ সময় এমন থাকলে তিনি নিশ্চিত হার্ট এটাক করতেন। সময়মতো বিশ্রাম এবং ওষুধ খাওয়ায় তিনি হার্ট এটাক হতে বেঁচে গিয়েছেন।

জহির ইসলামকে বিশ্রামে রেখে একে একে সকলে ড্রইংরুমে এসে বসলো৷ সকলের চোখেমুখে এ মূহুর্তে দুশ্চিন্তা এসে ভর করেছে। তাদের দুশ্চিন্তার কারণ আপাতত দু’টো। প্রথমত, জহির ইসলামের শারীরিক অবস্থা। দ্বিতীয়ত, মৌ এর বিয়ে। আশেপাশের একটু কাছের পরিচিত মানুষেরা জানে, মৌ এর বিয়ে আগামী শুক্রবার। আর এলাকার পাড়া প্রতিবেশীদের মধ্যে যাদের সাথে সম্পর্ক ‘কেমন আছেন’ পর্যন্ত তাদের আজকাল মিলে দাওয়াত দেওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু মৌ এর বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় তা সম্ভব হচ্ছে না৷ আপাতত সবাই এই নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে, সবাইকে মৌ এর বিয়ে ভাঙার ব্যাপারে কি বলা হবে। একটা মেয়ের বিয়ে ভাঙা মোটেও কম কথা নয়। যারা কোনোদিন কথা বলেনি, এ সুযোগে তারাও মেয়েকে এবং মেয়ের পরিবারের সদস্যদের কথা শুনিয়ে দিতে পিছপা হয় না৷ সমাজটাই এমন!

থমথমে নিস্তব্ধ পরিবেশের বুক চিড়ে হঠাৎ মাহতাব ঠাণ্ডা গলায় মৌ এর দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলো,
” তুই আয়ানকে ভালোবাসিস?”

মাহতাবের প্রশ্নে সকলে নড়েচড়ে বসলো। রুমে উপস্থিত প্রতি জোড়া চোখ মৌ এর উপর আবদ্ধ হলো। না চাইতেও ভয়ে চুপসে গেলো মৌ। ফলস্বরূপ কোনো জবাব না দিয়ে চুপচাপ মাথা নিচু করে বসে রইলো সে৷ তার নিশ্চুপ ভঙ্গি দেখে মাহতাব আগের মতোই একই প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলো তার দিকে৷ এবারও মৌ কিছু বললো না৷ হঠাৎ করে সে কেমন যেনো মাহতাবকে ভয় পাচ্ছে। হয়তো তার-ই এই ভয়কে সত্য প্রমাণিত করতে মাহতাব গর্জে উঠলো। ক্রুদ্ধ হয়ে জিজ্ঞাস করলো,
” কথা বলা কি ভুলে গিয়েছিস তুই? দুইবার একই প্রশ্ন করলাম। অথচ এর জবাব না দিয়ে চুপচাপ বসে আছিস! ভালোবাসার স্বীকারোক্তি করতে ভয় করছে? হুম? ওকে ভালোবাসার আগে তোর এ ভয়টা হয়নি? বল আমাকে।”

মাহতাবের প্রতিটা কথা কাঁটার মতো মৌ এর শরীরে বিঁধলো যেনো। সে বসে থাকা অবস্থাতেই শিউরে উঠলো। জান্নাত মৌ এর অবস্থা দেখে গরম চোখে মাহতাবের দিকে তাকিয়ে বললো,
” এতোগুলো মানুষের সামনে বোনের উপর এভাবে চেঁচাচ্ছো কেনো? শান্ত হয়ে কথা বলো। ”

মাহতাব, জান্নাতের কথা কানে তুললো না৷ উল্টো সোফা ছেড়ে উঠে তেড়েমেরে মৌ এর গায়ে হাত তুলতে নিলো৷ তবে তার আগেই তার মামা মাহতাবকে শক্ত করে ধরে ফেললেন। রাগত স্বরে তিনি মাহতাবকে বললেন,
” তোর এতো রাগ কোথা থেকে আসলো? শান্ত হয়ে কথা বলা যাচ্ছে না? এতো বড় মেয়ের গায়ে তুই হাত তুলতে যাচ্ছিলি কোন সাহসে?”

মাহতাব তার মামার কথার তোয়াক্কা করলো। সমস্ত শক্তি দিয়ে মৌ এর দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে লাগলো। তার এ অবস্থা দেখে আয়ান দ্রুত নিজের জায়গা হতে এগিয়ে এলো। মাহতাবকে ধরে সে বললো,
” পরিবেশ পরিস্থিতি দেখে কথা বল মাহতাব। আংকেলের অবস্থা ভালো না। আবার মৌ এর…..”

আয়ানকে মাঝপথে থামিয়ে দিয়ে মাহতাব গর্জে উঠে বললো,
” তুই চুপ থাক। তোর কোনো কথা শুনতে চাই না। তোর আর মৌ এর জন্যই আজ আব্বুর এ অবস্থা। ”

আয়ান বিস্মিত হয়ে বললো,
” আমার জন্য কি হলো!”

” তোর জন্য কি হলো, এটা আবার জিজ্ঞাস করছিস!! মৌ কে ওভাবে ক্লাসরুমে না নিয়ে গেলে আজ এতো কাহিনি হতো না। শুধু শুধু ওরা মৌ কে সন্দেহ করলো!”

” সিরিয়াসলি মাহতাব! তুই এখনো ঐ হৃদয়কে সাপোর্ট করছিস? ওর তো সন্দেহ বাতিক আছে। যেদিন মৌ কে দেখতে আসে, সেদিন আমাকে জিজ্ঞাস করেছিলো, আমার আর মৌ এর মধ্যে কিছু আছে কি না৷ তাহলে বল, সেদিনই যদি সন্দেহ করে তাহলে বাকি জীবন তো মৌ এর প্রতি সন্দেহ করতে করতেই তার সময় কাটবে।”

” আমি হৃদয়ের পক্ষ নিচ্ছি না৷ তোর আর মৌ এর ভেতরকার সম্পর্কের কথা জানতে চাচ্ছি। ” এই বলে সে মৌ এর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাস করলো,
” আর একবার জিজ্ঞাস করবো শুধু। জবাব দিলে ভালো। না হলে……..
তুই আয়ানকে ভালোবাসিস? ”

মৌ এবার মাথা তুলে চোখজোড়া অবনত রেখে বললো,
” ভালোবাসতাম। এখন ভালোবাসি না।”

মৌ এর কথা শুনে আয়ানের বুক ধক করে উঠলো। সে নিষ্পলক মৌ এর তাকিয়ে রইলো। সে অনুভব করছে, কোথাও এক সুক্ষ্ম ব্যাথা অনুভূত হচ্ছে তার। এদিকে মৌ মুখে এমনটা স্বীকার করলেও সে জানে, এখনও সে আয়ানকে ভালোবাসে। আয়ানকে পুরোপুরি ভুলিয়ে দিতে পারছে না সে। আয়ানের প্রতি নিজের ভালোবাসাকে ঘুচিয়ে দিতে সক্ষম হচ্ছে না৷

মাহতাব বললো,
” এ কথাটা আমাকে আগে বলা যেতো না? তাহলে হৃদয়……”

মাহতাবকে মাঝপথে থামিয়ে দিয়ে জান্নাত বললো,
” এসব কথা ভাইকে বলা যায় নাকি?”

” তো কাউকে তো বলবে……”

” বলেছে তো। আমি আর অহনা জানতাম। ”

মাহতাব বিস্মিত হয়ে জিজ্ঞাস করলো,
” তুমি জানতে! ”

” হ্যাঁ, এসব বিষয়ে মানুষ ফ্রেন্ড, কাজিন, ভাবীর সাথেই শেয়ার করে। ভাইয়ের সাথে শেয়ার করে না।”

মাহতাব আর কিছু বলতে যাবে তার আগেই অবন্তিকা ইসলাম কাতর গলায় বললেন,
” দোহাই লাগে, তোরা চুপ হো। তোদের বাবা যে ঐ রুমে শুয়ে আছে, এটা তোদের মাথায় নেই? কখন থেকে চেঁচিয়ে যাচ্ছে! আর একটা কথাও শুনতে চাই না আমি। ”

অবন্তিকা ইসলামের কথা শুনে মাহতাব একদম চুপ হয়ে গেলো, আর মৌ মাথা নিচু করে নিঃশব্দে কাঁদতে লাগলো।
কিছুক্ষণ পর আফসার খান সোফা ছেড়ে উঠে বললেন,
” আমরা এখন আসি তাহলে। বিকেলের দিকে জহির ভাইকে দেখতে আসবো আমি।”
এই বলে তিনি দরজার দিকে পা বাড়ালেন। তাকে অনুসরণ করে আয়েশা খান, তনিমা খান, আয়ান এবং অহনা বেড়িয়ে গেলো।

.

সন্ধ্যার দিকে আফসার খান এসে জহির ইসলামের পাশে বসে পরলেন। জহির ইসলামের শরীর আগের তুলনায় কিছুটা ভালো। মোটামুটি সুস্থতা বোধ করছেন তিনি। রুমে আপাতত আফসার খান এবং জহির ইসলাম আছেন। দুজন দুজনার হালচাল জিজ্ঞাস করার পর হঠাৎ জহির ইসলাম বলে উঠলেন,
” আফসার ভাই? মেয়ের বিয়ে ভাঙার ব্যাপারে কি বাইরের মানুষজনের কাছে খবর চলে গিয়েছে?”

আফসার খান চিন্তিত মুখে বললেন,
” এখনো খবর ছড়ায়নি। কিন্তু ছড়াতে কতক্ষণ? আজ না হোক, কাল না হোক, পরশু তরশু ঠিকই জেনে যাবে সবাই।”

জহির ইসলাম তপ্ত এক দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললেন,
” তা ঠিক বলেছেন। পরশুদিন হলুদের আয়োজনের সাজসজ্জা এবং বিয়ের সাজসজ্জা না দেখলে সবার সন্দেহ এমনিতেই হবে।”
এই বলে তিনি কয়েক সেকেন্ড নিশ্চুপ থেকে বললেন,
” হৃদয় ছেলেটা এমন জানলে কখনও বিয়ে ঠিক করতাম না। প্রথমদিনই আমার মেয়েকে নিয়ে সে সন্দেহজনক প্রশ্ন করে। এ নিয়ে অবশ্য আজ বিকেলে আমি আর অবন্তিকা কথা বলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তার আগেই…..” এই বলে তিনি ফোঁস করে নিঃশ্বাস ছাড়লেন। আফসার খান তাকে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করে বললেন,
” আল্লাহ যা করেন ভালোর জন্যই করেন। যা হওয়ার তা তো হয়ে গিয়েছে। এখন ওসব নিয়ে চিন্তা না করে সামনের দিনগুলোতে কি করবেন তা নিয়ে ভাবুন।”

” সেটা নিয়েই ভাবছি৷ এলাকার সবার সামনে আমার মানসম্মান তো শেষ হয়ে যাবে একেবারে। আমাকে দেখলেই হয়তো সবাই বলাবলি শুরু করে দিবে, উনার মেয়ের বিয়ে ভেঙে গিয়েছে না? শুনলাম উনার মেয়ের চরিত্র নিয়ে……”
এই বলতে বলতেই জহির ইসলাম কান্নায় ভেঙে পরলেন। আফসার খান কাতর গলায় বললেন,
” ভাই…কান্না করবেন না। আপনি শক্ত না থাকলে বাসার বাকি সবার অবস্থা কি হবে? এমনিতেই তারা আপনার শরীর নিয়ে চিন্তায় আছে। ”

আফসার খান নিশ্চুপ ভঙ্গিতে বসে রইলেন। এদিকে জহির ইসলাম নিঃশব্দে কাঁদছেন বেশ কিছুক্ষণ ধরেই৷ তাঁর কান্না কিছুটা কমে এলে তিনি নিচু গলায় বললেন,
” আমার মেয়ে এমন কিছু করবে তা কখনও চিন্তা করিনি আমি৷ ”

আফসার খান ছোট্ট একটা নিঃশ্বাস ফেলে বললেন,
” মেয়ের কোনো দোষ নেই ভাই। তার একজনকে পছন্দ হতেই পারে। দোষ তো আমার ছেলের। সে ভালোমতো মৌ কে না বুঝিয়ে অপমান করে গিয়েছে। পরে অবশ্য এর জন্য সে মৌ এর কাছে ক্ষমাও চেয়েছে। যদিও মৌ ওকে এখনও অব্দি ক্ষমা করেনি। ”

” দোষ দুপক্ষেরই আছে। তবে আমরা যা-ই বলি না কেনো, হৃদয়ের পরিবার আজ যেমন অপমানিত হয়ে গিয়েছে এর রেশ ধরে তারা আমার মেয়ে আর আয়ানকে নিয়ে নানা মিথ্যা কথা রটিয়ে দিতে পারে। এতে কোনো সন্দেহ নেই৷ এজন্য আমি চিন্তায় আছি, মৌ এর বিয়ে নিয়ে। আগামী শুক্রবার ঠিক হয়ে যাওয়া বিয়ে এভাবে ভেঙে যাওয়ার কথা শুনে আমার মুখে সবাই যেমন থু থু দিবে। তেমন মৌ কেও ছাড় দিবে না তারা। এরপর ওর জন্য ছেলে দেখতে নিলে, বিয়ে দেওয়াতে নিলেও আজকের এ কলঙ্কের জন্য সব শেষ হয়ে যাবে। আমার মেয়ের আর বিয়ে হবে না৷ কে করবে এমন কলঙ্কিত মেয়েকে বিয়ে? সবাই তো ওর অতীত নিয়ে ওকে কথা শুনাবে। ” এই বলে জহির ইসলাম মাথায় হাত রাখলেন।
আফসার এ মূহুর্তে গভীর চিন্তায় ব্যস্ত। বেশ কিছুক্ষণ চুপ থাকবার পর তিনি হুট করে প্রস্তাব দিয়ে বসলেন,
” মৌ কে আমাদের বাড়ির বউ করতে চাই৷ আপনার আপত্তি না থাকলে…….”

®সারা মেহেক

#চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here