নেশালো সে পর্ব-১৩

0
1500

#নেশালো_সে💖
#লেখনীতে:#তানজিল_মীম💖

১৩.

“আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে আয়াফ আর আফিয়া’!!সূর্যের প্রবল তাপে কারোই কোনো হুস নেই’!!অবশ্য হুস থাকার কথাও না’!!কাল শেষ রাতে ঘুমিয়ে ছিল দুজন’!!প্রচন্ড গরম তারওপর আবার ক্যারেন্ট নেই সব মিলিয়ে যাচ্ছে তাই অবস্থা ছিল ওদের, জেনারেটর চালু করবে তাও করতে পারি নি কোনো এক সমস্যা কারনে’!!সারারাত বেলকনিতে বসেই কাটিয়ে দিয়েছে দুজন’!!তারপর শেষরাতের দিকে ক্যারেন্ট আসার পর ঘুম দিয়েছিল দুজন’!!আয়াফ তো প্রথম লজ্জায় তাকাতেই পারছিল না আফিয়ার দিকে’!!পরক্ষণেই ধীরে ধীরে নিজেকে সামলে নিলো সে’!!

.

“দরজায় লাগাতার শব্দ করে যাচ্ছে কেউ’!!কিন্তু রুমের ভিতর দুজন এমন ঘুমে মগ্ন যে কারো কানেই সে শব্দ এসে পৌঁছাচ্ছে না’!!দরজার বারি মারার আওয়াজ আরো বেরে গেল’!!ধীরে ধীরো আয়াফের ঘুম পাতলা হতে লাগলো’!!শেষমেশ চোখ মেলে তাকালো আয়াফ’!!ওদিকে দরজায় লাগাতার বারি মেরে চলেছে কেউ’!!আয়াফ একরাশ বিরক্ত মাখা মুখ নিয়ে বিছানা থেকে উঠতে যাবে তখনই মনে হলো তার কেউ তাকে জড়িয়ে ধরে আছে’!!পরক্ষণেই আফিয়া বুঝতে পেরে তাকালো আয়াফ, আফিয়ার দিকে’!!তারপর দ্রুত আফিয়াকে ছাড়িয়ে দরজা খুলতে ব্যস্ত হয়ে পরল সে’!!চোখ ডলতে ডলতে এগিয়ে গেল আয়াফ’!!দরজা খুলে আরিশাকে দেখে মেজাজ বিগড়ে গেল তার’!!তারপর একটু বিরক্ত মাখা নিয়ে বললোঃ

———-“কি হয়েছে তোর,এত ভোরে দরজা ভাঙছিস কেন?

“আরিশা বেশ অবাক হলো আয়াফের কথা শুনে’!!তারপর অবাক হয়ে বললো সেঃ

————“লাইক সিরিয়াসলি ভাইয়া এখন ভোর, সকাল ১০ঃ০০টা বাজে….

“আরিশার কথা শুনে আয়াফের চোখ রসগোল্লা হয়ে গেল’!!তারপর একটু জোরেই বললো সেঃ

———–“কি?

————“হুম!ওই দেখ ঘড়ির দিকে তাকিয়ে….

“আরিশার কথা মতো ঘাড় বাঁকিয়ে তাকালো আয়াফ’!!ঘড়ির কাঁটায় ১০টা বেজে ১০ মিনিট!আয়াফ অবাক হয়ে বললোঃ

———–“এত বেলা হয়ে গেছে আর তুই আমায় এখন ডাকতে আসছিস….

————“এই নিয়ে তিনবার আসছি তোমরা তো দরজাই খুলছিলে না….

“এইবার আয়াফ কি উওর দিবে বুঝতে পারছে না’!!মাথা চুলকিয়ে বললো সেঃ

———–“ঠিক আছে, ঠিক আছে তুই যা আমরা আসছি…..

“আরিশাও আর কিছু না বলে গেল তার কাজে!

“আয়াফও আর কিছু না বলে আফিয়াকে দু-বার ডাক দিয়ে চলে গেল ওয়াশরুমে’!!

“ওয়াশরুম থেকে বেরিয়েও দেখলো আয়াফ আফিয়া এখনো ঘুমিয়ে আছে’!!কিন্তু এই মুহুর্তে উঠাবে কও উঠাবে না ভেবে পাচ্ছে না আয়াফ’!!আয়াফ চটজলদি তৈরি হয়ে নিলো তাকে অফিস যেতে হবে’!!আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে চুল ঠিক করছিল সে’!!এমন সময় আফিয়া নড়েচড়ে উঠলো’!!আয়াফ আফিয়াকে নড়তে দেখে ওর সামনে গিয়ে বসে বললোঃ

———“মায়াবতী আর কতো ঘুমাবে এখন তো উঠতে হবে ভার্সিটি যাবে না নাকি…..

———“আর একটু ঘুমাই না কি হবে তাতে…

“মুচকি হাসলো আয়াফ’!!তারপর বললো সেঃ

———-“অনেকটা বেলা হয়ে গেছে তো ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখো ১০ঃ৩০টা বেজে গেছে’!

“আয়াফের কথা শুনে হকচকিয়ে উঠলো আফিয়া’!!আর একটু জোরে আওয়াজ করে বললোঃ

———“কি..😳

———-“হুম!

“তারপর আয়াফ সরে আসে আফিয়ার কাছ থেকে’!!এদিকে আফিয়া এখনও যেন শকট এতটা বেলা হয়ে গেল’!!আজকে টাকলা স্যারের ক্লাস ছিল আমায় তো দেখতে পেলে খেয়েই ফেলবে!যাক ভালো হইছে আজকে আর ভার্সিটি যামু না’!!ভেবেই নেচে উঠলো মন আফিয়ার’!!বিশ্ব জয় করা এক হাসি দিয়ে বিছানা ছেড়ে উঠে দাঁড়ালো সে’!!তারপর নাচতে নাচতে ওয়াশরুমে চলে গেল’!!অন্যদিকে আয়াফ আফিয়ার কান্ড দেখে কি বলবে বুঝতে পারছে না’!!

_____________

“ডাইনিং টেবিলে বসে ব্রেকফাস্ট করছে আয়াফ, আফিয়া,আরিশা আর শাশুড়ী মা, শশুর মশাই অনেক আগেই চলে গেছে অফিসে’!!আয়াফ আফিয়ার দিকে তাকিয়ে খেতে খেতে বলে উঠলঃ

——–“তুমি তো তৈরি হও নি এখনো আজকে কি ভার্সিটি যাবে না….

———–“না আজকে যাবো না এমনিতেই অনেক দেরি হয়ে গেছে তারপর গেলে টাকলা স্যারে দেখলে প্রচুর বকবে তাই আজকে আর যাবো না!

“বিনিময়ে আয়াফও আর কিছু বললো না!চুপচাপ খাবার খেয়ে শাশুড়ী মাকে বিদায় জানিয়ে চলে গেল সে’!!

||

“রান্না ঘরে দাঁড়িয়ে আছি আমি আর আরিশা’!!আর সামনে শাশুড়ী মা কাজ করছে’!!আমি পিছন থেকে শাশুড়ী মাকে জড়িয়ে ধরে বললামঃ

———“মা আমি কিছু করি….

———“কি করবি তুই কিছু করার দরকার নেই….

———“মা….

——–“হুম বল….

———“একটা কথা বলি…..

———“হুম বল না…

———“বলছিলাম কি মা…..

———“এত হেয়ালি না করে বলে ফেল….

———“বলছিলাম কি মা আমি আর আরিশা একটু আমাদের বাড়ি যাবো,ভার্সিটিতে তো যাই নি আজকে আর তুমি কোনো কাজ করতে দিচ্ছো না আমায় আর আরিশাও যেহেতু বাসায় আছে তাই বলছিলাম কি আমি কি একটু যাবো আমাদের বাড়িতে অনেক দিন হলো মা বাবার সাথে দেখা হয় না(একটু মন খারাপ করে)

“শাশুড়ী মা অনেকক্ষণ ভেবে বলে উঠলেনঃ

———-“ঠিক আছে….

“আরিশাও খুশি হয়ে শাশুড়ী মাকে জড়িয়ে ধরে বললঃ

———–“থ্যাংকু মা উমম্মা….(গালে চুমু দিয়ে)

———–“হইছে হইছে কখন ফিরবি….

———–“মা আজকের দিনটা থেকে কালকে বিকালে চলে আসবো,তুমি একটু বাবাকে মানিয়ে নিও….

———-“আচ্ছা ঠিক আছে….

“ব্যস হয়ে গেছে আমি আর আরিশা খুশি হয়ে নাচতে নাচতে চলে গেলাম উপরে’!!তারপর দু’জনেই সুন্দর করে সেজেগুজে শাশুড়ী মায়ের কাজ থেকে বিদায় জানিয়ে চলে আসলাম গাড়ির কাছে’!!আমরা বসতেই ড্রাইভার গাড়ি চালাতে শুরু করল……

||

“কলিং বেল বাজতেই আম্মু এসে দরজা খুলে দিলো’!!আমায় আর আরিশাকে দেখে অবাক হলো সাথে খুশিও’!!আম্মুর রিয়েকশন দেখে বলে উঠলাম আমিঃ

———“সারপ্রাইজ কেমন দিলাম কেমন আছো আম্মু….

“আম্মু খুশি হয়ে আমায় জড়িয়ে ধরে বললোঃ

——–“খুব ভালো তোরা…..

———-“আমরাও ভালো আছি….

“আম্মু আরিশার দিকে তাকিয়ে বললোঃ

———“কেমন আছো আরিশা….

———“আলহামদুলিল্লাহ ভালো আন্টি আপনি….

———“আমিও ভালো আছি…

———“চল ভিতরে তোরা….

———–“হুম চল তাড়াতাড়ি খেতে দেও আম্মু কতদিন হলো তোমার হাতের রান্না খাই না….

———-“হুম যা তোরা উপরে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে আয়,,

———–“ওকে আম্মু….

“তারপর আমি চলে আসলাম উপরে’!!এদিকে আম্মু চলে গেল রান্না ঘরে’!!আরিশাও চললো আফিয়ার পিছন পিছন’!!সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠছিল আরিশা’!!হর্ঠাৎই পা ছিলিপ কেটে পড়ে যেতে নেয় সে’!!সাথে সাথে ভয়ে চোখ বন্ধ করে নিলো সে’!!এমন সময় পিছন থেকে তার কোমড় জড়িয়ে ধরল কেউ’!!ঘটনাটা হুট করে হয়ে যাওয়াতে আরিশা কিছুই বুঝতে পারে নি’!!আস্তে আস্তে চোখ খুললো আরিশা’!!সামনে একটা ছেলেকে দেখে ঘাবড়ে যায় সে’!!তাড়াতাড়ি নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে সামলে বলে উঠল আরিশাঃ

———–“সরি…..

“অন্যদিকে আয়ান মেয়েটির দিকে হা হয়ে তাকিয়ে আছে’!!যাকে বলে প্রথম দেখাই ভালোলাগা’!!অপলকভাবে তাকিয়ে আছে আয়ান আরিশার দিকে’!!টানা টানা চোখ,মায়াবী ফেস সবই ঘায়েল করে ফেলেছে আয়ানকে’!!

.

“আরিশা এইভাবে হা করে ছেলেটিকে তাকিয়ে থাকতে দেখে হাতে তুরি বাজিয়ে বলে উঠল সেঃ

———-“এই যে মিস্টার কোন দেশে হারিয়ে গেলেন….

“এতক্ষণ পর আয়ান তার ভাবনার জগৎ থেকে বেরিয়ে আসলো’!!সামন্য ঘাবড়ে যাওয়া মুখ নিয়ে বলে উঠল সেঃ

———–“কোন দেশে হারাবো কোথাও হারাই নি…..

“এমন সময় সিঁড়ি উপরে দাঁড়িয়ে আফিয়া বলে উঠলঃ

———-“ওই যে মিস ননদিনী কোথায় হারিয়ে গেলেন আপনি….

“আরিশা উপরে উঠতে উঠতে বলে উঠলঃ

———-“কোথায় হারাবো কোথাও হারাই নি তো ভাবি….

“হর্ঠাৎই আরিশার পিছনে আয়ানকে দেখে অবাক হয়ে বলে উঠলাম আমিঃ

———–“আয়ান তুই কতদিন পর দেখলাম কেমন আছোস তুই?

———–“এই তো ভালো আছি তুই….

————“আমিও ভালো আছি….

————“ওই মেয়েটা কে রে…

———–“ওহ আরিশা মাই ননদিনী….

————“ওহ…

“ততক্ষণে আরিশা চলে গেছে রুমে ফ্রেশ হতে’!!তারপর আফিয়া আর আয়ান মিলে বসে পরলো সোফায়’!!আর জুরে দিলো হাজারো গল্পের মজলিস’!!আয়ান হলো আফিয়ার কাজিন!!এতদিন বিদেশ ছিল তাই বিয়েতে আসতে পারে নি’!!

__________________________________________

_______________________

“রাত_১০ঃ০০টা……..

“অফিস সেরে ক্লান্ত মাখা মুখ নিয়ে রুমে ঢুকলো আয়াফ’!!আজকে একটু বেশি ব্যস্ত ছিল সে যার কারনে বাসাও আসতে পারে নি দুপুরে’!!ক্লান্ত শরীর নিয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দিল’ আয়াফ’!!কিছুক্ষন চোখ বন্ধ করে রাখলো সে’!!বেশকিছুক্ষন কাটানোর পর আফিয়াকে না দেখতে পেয়ে বেশ অবাক হয় আয়াফ’!!এতক্ষণে তো আফিয়ার রুমে আসার কথা কিন্তু এলো না কেন?বিছানা সেরে উঠে বসলো আয়াফ’!!তারপর গোসল করতে চলে গেল ওয়াশরুমে সে’!!বেশকিছুক্ষন পর ফ্রেশ হয়ে এসে আফিয়াকে না দেখে এবারও বেশ অবাক হচ্ছে আয়াফ’!!আয়াফ চেঁচিয়ে আরিশার নাম ধরে ডাকতে লাগলো’!!আয়াফের চেঁচামেচি শুনে আয়াফের আম্মু চলে আসলো’!!আয়াফকে এইভাবে চেঁচাতে দেখে বলে উঠল সেঃ

———“কি হয়েছে আয়াফ এই ভাবে চেচাচ্ছিস কেন?

———-“না মানে তুমি এলে আরিশা কই….

———–“ওই আরিশা আর বউমা তো তাদের বাপের বাড়ি গেছে কালকে বিকেলে ফিরবে….

“আয়াফ বেশ অবাক হয়ে বললোঃ

———“ওহ…

———হুম,তোর কি কিছু লাগবে….

———-”না কিছু লাগবে না তুমি যাও কিছু লাগলে আমি বলবো নে…

———“ঠিক আছে….

“বলেই চলে যায় আয়াফের আম্মু!

“এদিকে আয়াফ ভিতরে ভিতরে রেগে গেছে আফিয়া চলে গেল অথচ তাকে বলে যাওয়ার প্রয়োজন মনে করলো না’!!একরাশ অভিমান নিয়ে বসে পরলো আয়াফ বিছানায়……

||

“আর অন্যদিকে আফিয়া দিব্বি হেঁসে হেঁসে ডাইনিং টেবিলে বসে পার করে দিচ্ছে আজকের রাতটা’!!সে এতোটাই খুশিতে আছে যে আয়াফের কথা প্রায় ভুলেই গেছে সে…….

!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
#চলবে…………

🤍🤍🤍[ভুল-ত্রুটি ক্ষমার সাপেক্ষ!!
আর গল্প কেমন লাগছে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবে!!]🥰🥰🥰

#TanjiL_Mim♥️

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে