নেশালো সে পর্ব-০৬

0
1742

#নেশালো_সে💖
#লেখনীতে:#তানজিল_মীম💖

০৬.

“রাগী লুক নিয়ে তাকিয়ে আছে আয়াফ আমার দিকে’!!যেন চোখ দিয়েই শেষ করে ফেলবে আমায়’!!ভিতরে ভিতরে ওনার রাগী লুক দেখে ভয় পেয়ে গেলেও সামনে তা প্রকাশ করলাম না’!!একবুক সাহস নিয়ে আবারো বলে উঠলাম আমি আয়াফকেঃ

———–“কি হলো আপনি কথা বলছেন না কেন?

“আয়াফ আমার কথা শুনে আচমকা আমার হাত চেপে ধরে বললঃ

———–“তোমার সাহস কি করে হলো আমার আলমারি খুলে আমার জিনিসে হাত দেওয়ার…

“হুট করে আয়াফের এমন ভয়ংকর রূপ দেখে কেঁপে উঠলাম আমি’!!আয়াফ আফিয়াকে তার দিকে টেনে নিয়ে চেঁচিয়ে বললঃ

————-“কথা বলছো না কেন?

————“আমি আসলে….

————-“একদম সোজা উওর দিবে আফিয়া আমায় বেশি রাগীও না বললাম তার পরিনাম কিন্তু ভালো হবে না…

“আয়াফের এমন থ্রেট শুনে আমার কলিজা পুরো কেঁপে উঠল’!!সামান্য একটা ঝুমকার জন্য এতটা রেগে গেল আয়াফ’!!আমায় চুপ থাকতে দেখে আবারো আয়াফ বলে উঠলঃ

————-“তুমি কি কথা বলবে…..

“আয়াফের কথা শুনে ওর দিকে তাকালাম আমি’!!চোখ পুরো লাল বর্ন ধারণ করেছে’!!আমি শুকনো ঢোক গিলে বললামঃ

————-“ওটা আপনার আলমারিতে থাকা ঝুমকা নয়….

“এবারের কথা শুনে আয়াফ অবাক হয়ে বললোঃ

———–“মানে…..

“একটু নীরবকন্ঠে মাথা নিচু করে বলে উঠলাম আমিঃ

————-“ওটা আমার ঝুমকা,একটা হারিয়ে গেছে,,আজকে হর্ঠাৎ আপনার আলমারিতে আমার ঝুমকাটা দেখে অবাক হয়ে যাই আমি’!!তাই জিজ্ঞেস করলাম আপনাকে কোথায় পেয়েছেন ঝুমকাটা’!!কিন্তু আপনি সামান্য একটা ঝুমকার জন্য এতটা রেগে যাবেন সত্যি বুঝতে পারি নি আমি,,সরি….

“পুরো একশ্বাসে কথাগুলো বলে থেমে গেলাম আমি’!!

||

“এদিকে আয়াফ যেন আফিয়ার কথা শুনে শকট’!!হর্ঠাৎ আয়াফ ছেড়ে দেয় আফিয়ার হাত’!!তারপর চুপচাপ কিছু না বলেই বিছানার উপর বসে পরে’!!যেন কি হচ্ছে তা কিছুই বুঝতে পারছে না আয়াফ…

….

“হুট করে আয়াফের এভাবে শান্ত হয়ে যাওয়াটা কেমন যেন লাগছে আমার’!!কি করবো তাও বুঝতে পারছি না,রুম থেকে বেরিয়ে যাবো!কিন্তু বেরিয়ে গেলে আম্মু আব্বুকে কি বলবো!একরাশ মাথায় চিন্তা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি আমি’!!ধুর,এর চেয়ে না জিজ্ঞেস করলেই তো ভালো হতো!

“বেশকিছুক্ষন পর……

“কুটকুটে নীরবতায় দাঁড়িয়ে আছি আমি’!!আর আমার থেকে কিছুটা দূরে বিছানার উপর বসে আছে আয়াফ’!!কি করবো কিছুই বুঝতে পারছি না’!এদিকে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে পাও ব্যাথা করছে আমার’!!আর কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে থাকলে অবস্থা খারাপ হয়ে যাবে’!!কোনোকিছু না ভেবেই চুপিচুপি গিয়ে আয়াফের পাশে বসে পরলাম আমি’!!তারপর নীরবতার দেয়াল ভেঙে একবুক সাহস নিয়ে বলে উঠলাম আমিঃ

————“ঘুমাবেন না…..

“বিনিময়ে আয়াফ কিছু বললো না’!!ওনার চুপ থাকতে দেখে আমি আবারো বলে উঠলামঃ

————-“সরি বললাম তো,এতো রাগ করার কি আছে!আমি কথা দিচ্ছি আর জীবনে কোনোদিন না বলে আপনার জিনিসে হাত দিবো না!

“এবারো আয়াফ কিছু বললো না!নীরবেই বসে রইলো সে’!!আয়াফের এমন কাজে এখন আমার বিরক্ত লাগছে’!!একরাশ বিরক্ত মাখা মুখ নিয়ে বলে উঠলাম আমিঃ

————-“ঠিক আছে আপনাকে কিছু বলতে হবে না আপনি থাকেন আপনার নীরবতা নিয়ে আমি ঘুমাই….

“বলেই যেই না বিছানা থেকে উঠতে যাবো সাথে সাথে আয়াফ আমার হাত ধরে ফেললো’!!ওনার এমন কাজে অবাক হয়ে তাকালাম আমি তার দিকে’!!আয়াফ টেনে বসিয়ে দিল তার পাশে’!!তারপর বলে উঠলেনঃ

————-“তোমার ঝুমকা কিভাবে হারালো….

“এতক্ষণ পর আয়াফের মুখে এমন কথা আশা করিনি আমি’!!তবে যেহেতু বলেই ফেলেছে তাই আমিও বলে উঠলামঃ

———–“কিভাবে হারিয়েছি যেটা ঠিক বলতে পারবো না,,কিন্তু একদিন ভার্সিটিতে ওটা পড়ে গিয়েছিলাম সেদিন আমার জন্মদিন ছিল’!!সেদিন অনেক লাফালাফি করছি আর কি তখন হয় তো হারিয়ে ফেলেছি,,ঠিক কখন হারালো জানি না!কিন্তু এটা আমার অনেক ফেবারিট ছিল’!!তাই একটা হারিয়ে যাওয়াতে আরেকটা রেখে দিয়েছিলাম’!!আমি ভাবতেই পারি নি ওটা আপনার কাছে থাকবে’!!আপনি কোথায় পেলেন ঝুমকাটা?’……

————-“তোমার কোনো লাল ড্রেস আছে…..

“এবারের কথায় যেন অবাকের চরম সীমানায় পৌঁছে গেছি আমি’!!আমি চোখ বড় বড় করে বলে উঠলামঃ

————“কি?’

———–“তুমি কি বাংলা বুঝতে পারো না,,যাও তোমায় বলছি কেন তোমার আলমারি কোথায় আগে বল…

————-“আপনি কি পাগল হয়ে গেছেন আয়াজ…

————-“বেশি কথা বলবে না যেটা বলছি তার উওর দেয়, বলো কোথায় তোমার আলমারি….(দমক দিয়ে)

“আয়াফের দমক শুনে হাতের ইশারায় সামনে দেখিয়ে দিলাম আমি কোথায় আমার আলমারি’!!আয়াফ আর দু-মিনিট দেরি না করে চলে গেল আলমারির কাছে’!!তারপর আলমারি খুলে একটা একটা করে সব জামাকাপড় এলেমেলো করতে লাগল’!!অবশেষে আমার একটা লাল রঙের গাউন বের করলেন উনি’!!তারপর কিছুক্ষণ সেটার দিকে তাকিয়ে থেকে চোখ বন্ধ করে নিলো’!!

……

“এদিকে আয়াফ ভাবছে এই ড্রেসটাই পড়েছিল সেই মেয়েটা’!!তাহলে কি? চটজলদি আয়াফ তার চোখ খুলে ফেললো’!তারপর দ্রুত গতিতে আফিয়ার সামনে এসে বললোঃ

———-“শাড়ি খুলে এটা পড়ো তো….

.

আচমকা আয়াফের মুখে এমন কথা শুনে চোখ বেরিয়ে আসার উপক্রম আমার’!!আমি চোখ বড় বড় করে বলে উঠলামঃ

———–“আপনার কি মাথা খারাপ হয়ে গেছে এতরাতে এই গাউন পরবো…

“মুহূর্তেই রেগে গেল আয়াফ’!!দমক দিয়ে বললোঃ

———–“এত কথা কেন বলো তুমি যা বলছি তাই করো তা না হলে আমি কিন্তু শাড়ি খুলে পড়িয়ে দিবো তোমায়…..

————“কি😳

———–“না তোমায় এইভাবে বললে কাজ হবে না বলেই আয়াফ এগিয়ে আসতে লাগলো আমার দিকে’!!সাথে সাথে আমি চেঁচিয়ে বলে উঠলামঃ

————“না না আপনাকে কিছু করতে হবে না আমি পরে নিচ্ছি….

————“ঠিক আছে তবে হ্যা পাঁচ মিনিটের বেশি সময় লাগলে খবর আছে তোমার,বলেই বেরিয়ে গেল আয়াফ রুম থেকে…..

||

“এদিকে আমার অবস্থা শেষ’!!আয়াফ এসব কি করছে সব মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে’!!উনি কি পাগল হয়ে গেলেন নাকি’!!হায় রে শেষ পর্যন্ত একটা পাগল কি না আমার জামাই হলো’!!আমার ভাবনার মাঝখানে দরজায় নক করেই বলে উঠল আয়াফঃ

———-“হয়েছে…..

———–“এই না না আর পাঁচ মিনিট……

________________________

“এদিকে দরজার বাহিরে দাঁড়িয়ে আয়াফ ভাবছে অন্যকিছু’!!সে বিশ্বাস করতে পারছে না ওই মেয়েটা কি তাহলে আফিয়া’!!এতদিন কাছে থেকেও চিনতে পারলো সে’!!আর ভাবতে পারবে না আয়াফ!সবকিছু এলেমেলো লাগছে তার কাছে’!!এমন সময় দরজার ভিতর থেকে বলে উঠল আফিয়াঃ

———“চলে আসুন হয়ে গেছে….

“আফিয়ার কথা শুনে আয়াফ আর দু’মিনিট দাঁড়ালো না’!!দ্রুত গতিতে রুমের ভিতরে চলে গেল সে’!!অবাক চোখে তাকিয়ে আছে আয়াফ আফিয়ার দিকে’!!কারন সে বুঝে গেছে ওই মেয়েটাই আফিয়া’!!আয়াফ অদ্ভুত অনুভূতি নিয়ে এগোচ্ছে আফিয়ার দিকে’!!

||

“হুট করে আয়াফের এইভাবে আমার দিকে এগিয়ে আসতে দেখে ঘাবড়ে গেলাম আমি’!!একটু পিছনে যেতে যেতে বলে উঠলামঃ

————“আপনি এই ভাবে এগোচ্ছেন কেন?’

“আয়াফ চুপ!

————“দেখুন আয়াফ আপনি আমায় গাউনটা পরতে বলেছেন আমি পরে ফেলেছি তারপরও এভাবে এগোলে আমি কিন্তু খেলবো না হুহ….

————“কেন খুব ভয় করছে বুঝি….

————“ভয় ভয় কেন করবে(তুতলিয়ে)

————-“তুমি ভয় পাচ্ছো না…

————“একদমই না…

————“তাহলে তোতলাচ্ছো কেন?’

————-“তো…ত….লাচ্ছি ক….ই!

“এদিকে পিছনে যেতে যেতে একদম দেয়ালের সাথে লেগে গেছি আমি’!!হাত পা থরথর করে কাঁপছে আমার’!!আয়াফও একদম কাছে এসে দাঁড়ালো আমার’!!আচমকা ঝুঁকে পরলো আয়াফ আফিয়ার দিকে’!!সাথে সাথে আফিয়া তার চোখ বন্ধ করে নিলো’!!এদিকে আয়াফ তার হাত দিয়ে টান মেরে আফিয়ার বাঁধানো খোঁপা খুলে ফেললো’!!সাথে সাথে আফিয়ার ঘন কালো লম্বা চুল খুলে কোমড় পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে’!!আয়াফ অপলক ভাবে তাকিয়ে আছে আফিয়ার দিকে’!!

……

“আয়াফের একেক পর একেক কাজে অবাক হচ্ছি আমি’!!উনি কি করছেন এসব’!!অবাক হয়ে চোখ খুলে তাকালাম আমি’!!অদ্ভুত এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে আয়াফ আমার দিকে’!!

.

“আয়াফ আফিয়ার চোখের দিকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে’!!সেই মায়াবী চোখ,সেই মাতাল করা লম্বা চুল,,আবারো এক অদ্ভুত মায়ায় জড়িয়ে গেল আয়াফ’!!বুকের বাম পাশে দক দক করছে তার’!!শুধু মাথায় একটা কথাই ঘুরছে তার এত কাছে থেকেও কি করে চিনতে পারলো সে তার মায়াবতীকে’!!ভিতর থেকে কিছু একটা ফিল হচ্ছে আয়াফের’!!সে ভাবতেই পারছে না যার চোখের মায়ায় পড়ে ভালোবেসেছিল,সেই কিনা তার বউ হলো’!!আসলেই পৃথিবী খুব ছোট,আর অদ্ভুত সব আবরনে ঘেরা!!ভেবেই মুচকি হাসলো আয়াফ’!!

__________________________________________

_______________________

“রাত_২ঃ০০টা……

“বিছানা লেপ্টে ঘুমিয়ে আছে আফিয়া’!!পরনে এখনো তার সেই রেড কালারের গাউন’!!চুলগুলো খোলা,,রাতের জোৎসা ভরা আলো আসছে বিছানার বাম দিকের জানালা থেকে’!!সেই আলো এসে পরছে আফিয়ার মুখে’!!আয়াফ মুগ্ধ নয়নে তাকিয়ে আফিয়ার মুখের দিকে’!!জানালার পর্দা ভেদ করে ঠান্ডা শীতল মেশানো বাতাস বইছে’!!সেই বাতাসে আফিয়ার চুলগুলো উড়ে আসছে আফিয়ার মুখে’!!আয়াফ তার হাত দিয়ে সেই চুলগুলো গুজিয়ে দিল আফিয়ার কানের পিছনে’!!আনমনে হাসলো আয়াফ’!!সে ভাবতেই পারছে না যে মেয়েটার সাথে শুরু থেকেই ঝগড়া ছাড়া ভালো ভাবে কথা হয় নি সেই মেয়েটাকেই কিনা সে ভালোবাসে’!!আরো অবাক হচ্ছে এটা ভেবে এত কাছে থেকেও কি করে চিনতে পারলো না আয়াফ তার মায়াবতীকে’!!অবশ্য চিনবে কি করে সে তো সেইভাবে কখনো তাকাই নি আফিয়ার দিকে’!!বিয়ের পর সেদিন যখন হুট তার অনেকটা কাছে চলে এসেছিল আফিয়া সেদিনই কেমন যেন লাগছিল আয়াফের’!!আসলেই ভালোবাসা খুব অদ্ভুত,বড্ড অদ্ভুত’!!আজকে আয়াফ খুব খুশি,,সে পেয়ে গেছে তার মায়াবতী কে…..

“এই মুহুর্তে আয়াফের ইচ্ছে করছে আফিয়াকে জড়িয়ে ধরতে কিন্তু পারছে না’!!কেমন কেমন লাগছে তার!

“একরাশ অস্থিরতা নিয়ে চোখ বন্ধ করে নিলো আয়াফ!

_____________________

“মাঝখানে কাটলো দু’দিন! আয়াফ তো এই দু’দিন আফিয়াকে দেখতে দেখতেই পার করে দিল’!!আজকে তারা তাদের বাড়িতে ফিরবে’!!ব্রেকফাস্ট শেষ করে আয়াফ তৈরি হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ডাইনিং টেবিলের পাশে’!!তার পাশে আছে আম্মু আব্বু,দুজনেই অনুতপ্ত হয়ে কথা বলছে আয়াফের সাথে’!!আর আয়াফ তাদের বার বার বারন করছে’!!অবশেষে সিঁড়ি বেয়ে নিচে নামছিল আফিয়া’!!পরনে তার রেড কালারের সুন্দর শাড়ি,চুলগুলো খোপা করে ফুল দেওয়া’!!চোখে কাজল, হাতে মুঠো ভর্তি করা কাঁচের চুরি, সাথে হালকা মেকাপ দিয়ে অসম্ভব সুন্দর লাগছে আফিয়াকে’!!আয়াফ তো আফিয়াকে দেখেই পাগল হয়ে গেছে’!!কিছুক্ষন তাকিয়ে থেকে তাড়াতাড়ি চোখ নামিয়ে নিলো সে’!!আর মনে মনে বললোঃ

————–“ওই চোখে বেশিক্ষণ তাকিয়ে থাকলে আমার যে নেশা হয়ে যাবো “মায়াবতী”……
!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
!
#চলবে…………

~ ভুল-ত্রুটি ক্ষমার সাপেক্ষ!!🖤🥀
আর গল্প কেমন লাগছে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবে!!🥰🥀

#TanjiL_Mim♥️

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে