তোকে চাই❤পর্ব:১৭+১৮+১৯

0
1435

তোকে চাই❤পর্ব:১৭+১৮+১৯
#writer:রোদেলা❤
#part:17


আমি উনার দিকে রাগী চোখে তাকিয়ে আছি,,কিন্তু উনি আমাকে পাত্তায় দিলেন না।।।নিজেকে আজ খুব ছোটো ছোটো লাগছে,,আচ্ছা আমি কি উনার ওয়াইফ হওয়ার যোগ্য নই??এটা কি আমাকে অপমান করা হলো না??আজ আমি যদি উনাকে কোনো ছেলের কাছে ভাই হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিতাম উনি কি মেনে নিতেন???তখন সাথে সাথেই আমার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন উঠতো।।নিজের কাছেই আজ আমি লজ্জিত।।হঠাৎ ছেলেটি বলে উঠলো,,

হাই রোদেলা,,আমি সাহেল,,,শুভ্রর ছোট্ট বেলার বন্ধু।।গ্রামের ভাষায় বলতে গেলে ন্যাংটা কালের বন্ধু।।হা হা হা

আমি শুধু একটা শুকনো হাসি দিলাম,,,উনি আবার বলে উঠলেন,,

রোদেলা??আমি কি তোমাকে রোদ বলে ডাকতে পারি??,রোদেলা নামটা বেশি বড় হয়ে যায়,,প্লিজ??

ইয়াহ,,,অবশ্যই।।(জোর করে একটা হাসি দিয়ে)

উনার পাশের ভাইয়াটা হালকা কাশি দিয়ে সাহেল ভাইয়াকে কনুই দিয়ে গুতো দিয়ে বলে উঠলেন,,,

মাম্মা??কি চলে?(দাঁত কেলিয়ে)

হোয়াট কি চলে??স্যাট আপ।।শুভ্র তোরা কই যাচ্ছিলি??

রোদকে ড্রপ করে দেন অফিস যাবো।।রোদ এবার এডমিশন দিবে,, মাহির ভাইয়ের কোচিং এ এডমিট করে দিছি।।

ওহ,,আচ্ছা।।

আমার আর ওদের কথাবার্তা ভালো লাগছে না।।রাগে গা জ্বলে যাচ্ছে,,,জানি না এ রাগ কার উপর নিজের উপর,,নাকি শুভ্রর উপর।।এদের সবার চুল টেনে টেনে ছিঁড়তে পারলে রাগটা কমতো বলে মনে হচ্ছে।।কি মনে করে শুভ্র নিজেকে??আমি কি ফেলনা নাকি??আমার পরিচয় যদি ওর কাছে শুধুই ফুপ্পির মেয়ে হয়,,তাহলে আমার কাছেও ওর পরিচয় শুধু আমার মামুর ছেলেই হওয়া উচিত।।আর কিছু ভাবতে ইচ্ছা করছে না,,,আর না ওদের দাঁত কেলানো দেখতে ইচ্ছা করছে,,মনে হচ্ছে পুরো দুনিয়া যেনো আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করছে,,,

ভাইয়া??শুভ্র ভাইয়া??

আমার ভাইয়া ডাক হয়তো উনার হজম হয় নি,,, বা উনি হয়তো এক্সপেক্ট করে নি এমন কিছু,,,যার কারনে উনি অবাক চোখে আমার দিকে তাকালেন,,,

কি হলো ভাইয়া??এভাবে তাকিয়ে আছেন কেনো??চলুন প্লিজ আমার ক্লাসে লেট হচ্ছে,,,,

উনি কোনোরকম মাথা নেড়ে উনাদের থেকে বিদায় নিয়ে বাইট স্টার্ট দিলেন।।আমিও চুপচাপ বসে আছি।।।আমি বুঝতে পারছি না,, আমার ঠিক কেমন রিয়েকশন দেওয়া উচিত।।।উনি আমাকে কোচিং এর সামনে নামিয়ে দিলেন,,,

ভাইয়া,,ছুটির সময় আপনাকে আসতে হবে না,,আই উইল মেনেজ।।

বলেই চলে এলাম,,না তাকিয়েই বুঝতে পারছি উনি অবাক চোখে তাকিয়ে আছেন,,,,থাকুক তাকিয়ে,,,শুধু অবাক কেন??পারলে “হা” করে তাকিয়ে থাকুক,,,সাথে দুই তিনটা মশাও খেয়ে নিক,,,তাতে আমার কি??হো কেয়ারস্?????

কোচিং শেষে রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছি রিকশার জন্য,,কিন্তু আশেপাশে রিকশার টিকি টা পর্যন্ত দেখতে পাচ্ছি না।।সব রিকশাওয়ালা কি রোদের বিপক্ষে জোট গঠন করেছে নাকি??যে রোদ কে তারা কেউ রিকশায় তুলবে না??আমার ভাবনা-চিন্তাকে দুমড়ে মোচড়ে দিয়ে একটা গাড়ি চরম স্পিডে আমার সামনে এসে থামকে দাঁড়ালো।।ভয়ে আমি রীতিমতো লাফিয়ে উঠলাম।।।মনে হচ্ছে,,আমার প্রানিপাখি উড়ে গিয়ে আশেপাশে ডানা ঝাপটিয়ে আবার ফিরে এসেছে।।মেজাজটা চরম গরম হচ্ছে,,,ব্যাটা গাড়ি আছে তাই বলে কি উড়ে যেতে হবে নাকি??এদের উড়াউড়িতে কারো জীবন উড়ে গেলে কি হবে শুনি??যত্তোসব আজাইরা পাবলিক,,হুহ।।নিজের মনে বিরবির করছিলাম ঠিক তখনই গাড়ি থেকে একটা কচুরিপানা নেমে আমার সামনে দাঁড়ালো,,, এই লোকটার জন্য কচুরিপানা নামটা আপাতত আমার কাছে পার্ফেক্ট বলেই মনে হচ্ছে,,,কড়া সবুজ ব্লেজার আর কুচুরিপানার ফুলের কালারের শার্ট পড়েছে লোকটা।।তবে দেখতে তেমন খারাপ লাগছে না।।ভালো করে মুখের দিকে তাকিয়ে দেখলাম,,ওহ এটা তো সাহেল ভাইয়া।।।এই ব্যাটায় এইখানে কি করে??

হাই রোদ??এখানে দাঁড়িয়ে আছো কেন??

মাছ মারার জন্য দাঁড়িয়ে আছি,,,আবে তোরে কোন দুঃখে বলতে যামু??একটু আগেই তো প্রায় হার্ট আট্যাক করে ফেলছিলাম,,(মনে মনে)….জী রিকশার জন্য ওয়েট করছি।।(একটা হাসি দিয়ে)

ওহ,,চলো আমি তোমাকে পৌছে দিই।।

নো থেংক্স।।আই উইল মেনেজ।।

বলেই হাটা দিলাম,,হয়তো সামনে রিকশা পেয়ে যাবো।।এখানে দাঁড়িয়ে এই আবালের বকবকানি শোনার কোনো মানেই হয় না।।কিন্তু মসিবত কি এতো সহজে পিছু ছাড়ে??উনিও দৌড়ে আমার পাশে এসে আমার সাথে পা মিলিয়ে হাঁটতে লাগলেন,,,আমি ভ্রু কুঁচকে তাকাতেই উনি বলে উঠলেন,,,

তুমি যতোক্ষণ রিকশা না পাও,,আমিও তোমার সাথে হাটি,,

আপনার গাড়ি থাকতে আপনি হাঁটবেন কোন দুঃখে??(ভ্রু কুচকে)

দুঃখে হাটঁবো কে বললো??হাটবো তো সুখে,,,

মানে??

এতোদিন কানাডায় ছিলাম প্রায় ৬ বছর,,,এতোদিন পর দেশে আসছি,, একটু হেঁটে হেঁটে পরিবেশটা উপভোগ করি,,,এই কদিন পারি নি কজ সঙ্গী ছিলো না,,কিন্তু আজ তো তুমি আছো।।

এক্সকিউজ মি??আমি আপনাকে সঙ্গ দিতে যাবো কেন??আপনি যান তো এখান থেকে,,,,একদম বিরক্ত করবেন না(বিরক্তি নিয়ে)

আরে,,এভাবে বলছো কেনো??ফ্রেন্ডের বোন হিসেবে এইটুকু সার্ভিস তো দিতেই পারো,,তাই না??

ওহ,,,হ্যালো,,,ফ্রেন্ডের বোনদের কি আপনার ফ্রি সার্ভিস মনে হয় নাকি??(রাগী গলায়)

আরে তা কেনো হবে??ওকে যাও,,আই উইল পে ফর ইট।।

তাই নাকি??তাহলে অন্যকাউকে অপয়েন্ট করেন আম নট অ্যাবলএবল।।।

প্লিজ,,তোমাকে আমি আইসক্রিম খাওয়াবো,,,যদি তোমার সাথে হাটার পারমিশন দাও তো,,,(বাঁকা হাসি দিয়ে)

ওই মিষ্টার??আপনার কি আমাকে বাচ্চা মনে হয়??যে আইসক্রিমের লোভ দেখাবেন আর রাজি হয়ে যাবো৷,,,,,আর পারমিশন পারমিশন যে করছেন,,,পারমিশন না নিয়েই তো দশ মিনিট ধরে আমার সাথে হাটঁছেন,,সেটা??

ডাবল পে করবো,,,আইসক্রিম প্লাস ফুচকা??মেয়েরা আর কি খায় জানি না(মাথা চুলকে)

উনার দিকে কিছুক্ষণ ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে থেকে হেসে দিলাম,,,উনিও হেসে দিয়ে বললেন,,

সো পারমিশন গ্রেনটেড??তাহলে আইসক্রিম খাই??

আমিও রাজি হলাম,,,পাশের দোকান থেকে আইসক্রিম কিনে যেই না মুখে দিবো,,একটা বাইক তুফানের গতিতে আমার সামনে এসে দাঁড়ালো,,, আমি ভয়ে চোখ খিঁচে বন্ধ করে রেখেছি,,,ভেবেছিলাম,,আজ আমার ইন্নাননিল্লাহ্ হলো বলে কিন্তু লাস্ট পর্যায়ে বেঁচে গেছি।।আজ সব সিডর,,আইলা আমার সাথেই কেনো হচ্ছে বুঝতে পারছি না।।চোখটা হালকা খুললাম বাইকে থাকা মানুষটাকে দেখার আশায়,,,,

#চলবে,,,,,
#তোকে চাই❤
#writer:নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤
#part:18


শুভ্র ভাইয়া বাইকে বসে রাগী দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে,,এই দৃষ্টির কোনো অর্থ আমি খুজে পেলাম না।।তবে মনের ভিতর বাসা বেধে থাকা ভয়টা যে নড়েচড়ে উঠলো তা বেশ,বুঝতে পারলাম

ভ,,ভ,,ভাইয়া,,আপনি এখানে??

হ্যা তো??(রাগী চোখে)

না,, আপনাকে তো বলেছিলাম যে,,,আসতে হবে না।।আমি ম্যানেজ করে নিবো।।

আমি তোমাকে নিতে আসি নি।।কাজ ছিলে তাই আসছি,,

কথাটা আমার লাগলো,,,ব্যাটা বজ্জাত কথায় কথায় আমাকে অপমান না করলে কি তোর পেটের ভাত হজম হয় না???তোর বউ মরে যাবে শালা।।।আল্লাহ আমাকে আবার তুলে নিও না,,,আমি কিন্তু উনার বউ নই আপাতত ফুপ্পির মেয়ে,,হুহ,,,এই কথাটা মাইন্ডে রেখো কেমন??এই ব্যাটার সামনে দাঁড়ায় থেকে কোনো লাভ নেই,,,খাটাশ টা কাজ করতে করতে শহীদ হয়ে যাক,,,ঢং!!!

ওহ,,,ওকে,,,আচ্ছা সাহেল ভাইয়া,,তো চলুন যাওয়া যাক??(মুচকি হেসে)

হ্যা রোদ চলো,,,বাই শুভ্র তোর সাথে পরে কথা হবে,,,আপাতত তোর বোনকে সঙ্গ দেই(চোখ টিপে)

সাহেল ভাইয়ার কথাটা শুনে যেনো উনার চোখ আরো লাল হয়ে গেলো।।কারনটা বুঝতে না পারলেও ভয়ে ঢোক গিলছি বারবার।।এখান থেকে কেটে পড়ায় আমার জন্য মঙ্গল।।

আব,,সাহেল ভাইয়া,,,চলুন,,এখানে দাঁড়িয়ে অযথা কথা বলার ইচ্ছা থাকলে আপনি থাকেন,,আমি গেলাম।।(নিজে বাচঁলে বাপের নাম,,,বিরবির করে)

আরে,,না না,,,আম কামিং।

আমি বাইকটা পাশ কাটিয়ে যেতে নিলেই উনি শক্ত করে আমার হাত চেপে ধরলেন,,,আমি অবাক চোখে উনার দিকে তাকালাম।।।সাহেল ভাইয়াকে দেখে মনে হচ্ছে,, তিনি অবাকের দিক দিয়ে আমার থেকে কয়েক ধাপ এগিয়ে গেছেন।।।”হা” করে শুধু দেখেই যাচ্ছেন।।।

ক,,,কি হইছে ভাইয়া??এভাবে ধরে আছেন কেন ভাইয়া??আমার লাগছে ভাইয়া,,,,ছাড়ুন ভাই,,,,

চুপপপপ,,,এক লাইনে কয়বার ভাইয়া ডাকো??ভাইয়া ভাইয়া করতে করতে কানের পোকা মেরে ফেললা।।।এখন চুপচাপ বাইকে উঠো।।

কিন্তু ভাই,,,,

আই সেইড স্টপ,,,,উঠো,,

আমি সাহেল ভাইয়ার সাথে যাবো,,আপনি চলে যান,,(মুখ গোমরা করে)

হ্যা,,,শুভ্র তুই যা,,আমি ওকে পৌঁছে দিবো,,নো টেনশন।।

আমি বাইকে উঠতে বলছি রোদ(দাঁতে দাঁত চেপে)

আমি মাথা হেলিয়ে আইসক্রিম টা মুখে দিতে যাবো তখনই উনি আইসক্রিমটা টেনে নিয়ে নিলেন,,,

আরেহ,,,ওটা আমার আইসক্রিম ছিলো,,আপনার খেতে ইচ্ছে করলে আপনি কিনে নেন না,,,,আমারটা নিচ্ছেন কেনো??(ভ্রু কুচঁকে)

তুমি বাচ্চা নাকি যে আইসক্রিম খাবা?আইসক্রিম ইজ নট গুড ফর হেল্থ।।।

সো হোয়াট??তাতে আপনার কি??আমার আইসক্রিম দেন???

বলে হাত বাড়াতেই উনি আইসক্রিম টা মাটিতে ফেলে দিলেন,,,”এবার খাও'”,,,এবার রাগটা চরম পর্যায়ে পৌঁছে গেল,,,শালা জীবনটা তো ত্যানাত্যানা বানিয়ে দিছিসই এখন কি খেতেও দিবি না??

সাহেল ভাইয়া?? আমাকে আরেকটা আইসক্রিম কিনে দেন তো??(মুখ ফুলিয়ে)

ওকে,,আমি আনছি,,,,

সাহিল ভাইয়ার কথার মাঝ পথেই উনি বাইক থেকে নেমে এসে আমাকে কোলে তুলে বাইকে বসিয়ে দিলেন,,,,ঘটনাটা এতো তাড়াতাড়ি ঘটলো যে আমি আর সাহেল ভাইয়া দুজনেই ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলাম।।।সাহেল ভাইয়ার মুখটা ছোট হয়ে গেলো।আমারও মেজাজ খারাপ হচ্ছে,,,এটা কোন ধরনের অসভ্যতা??যত্তোসব আজাইড়া পাবলিক।।উনি হঠাৎই বাইক থামিয়ে দিলেন।।।ধমকের সুরে বলে উঠলেন নামো।।।আমিও বাধ্য মেয়ের মতো নেমে দাঁড়ালাম,,চারদিকে তাকিয়ে বুঝতে পারলাম আমরা কোনো আইসক্রিম পার্লারের সামনে দাঁড়িয়ে আছি।।উনি বাইক পার্ক করে,, সামনের দিকে হাঁটা দিলেন,,যেতে যেতে বললেন,,,”চলো”,,,আমিও বাধ্য মেয়ের মতো উনার পিছু নিলাম।।ভিতরে গিয়ে আমাকে একটা চেয়ারে বসতে বলেই উনি চলে গেলেন।।আজিব মানুষ,,,একটু আগেই বললো,, আইসক্রিম ইজ নট গুড ফর হেল্থ,,,আর এখন আইসক্রিম পার্লারেই চলে আসছে,,যত্তোসব ফাতরা পোলাপাইন।।। এতোই যদি আইসক্রিম খাওয়ার শখ হয়ে থাকে তো ওখানেই খেতে পারতেন,,এখানে আসার কি দরকার ছিলো শুনি??বসে বসে উনার চৌদ্দগোষ্ঠী উদ্ধার করছিলাম,,বেচারা আইসক্রিমটার জন্য খুব মন খারাপ হচ্ছে,,,তখনি উনি এসে সামনে বসে পড়লেন,, উনার চোখে-মুখে রাগ স্পষ্ট।।আমি দুই একটা ঢোক গিলে আসীম সাহস নিয়ে বলে উঠলাম৷৷

ভাইয়া,,,আমরা এখানে কেনো??,আইসক্রিম খাওয়ার হলে তো ওখানেই খেতে পারতেন ভাইয়া,,,

চুপপ,,,একদম চুপপ।।কিসের ভাইয়া হ্যা?আমি তোমার ভাই লাগি??(রাগী চোখে)

হ্যা,,,, মামুর ছেলে তো ভাইয়াই হয়।।তাই না ভাইয়া??(ইনোসেন্ট ফেস নিয়ে)

আবার ভাইয়া??আরেকবার ভাইয়া ডাকলে চড়াই দাঁত ফেলাই দিবো।।বাবা-মা তোমার মুখে ভাইয়া শুনলে কি ভাববে??

এখানে ভাবাভাবির কি আছে আজিব,,,ভাইকে ভাই বলবো না???(অবাক চোখে)

আচ্ছা??(দাঁতে দাঁত চেপে)আমি তোমার ভাই না??

তা নয়তো কি??

প্রেকটিক্যালি দেখাই আমি তোমার কি??(ভ্রু নাচিয়ে উঠে দাড়ালেন)

উনার দাঁড়ানো দেখেই আমার প্রানপাখি উড়ে যায় যায় অবস্থা।।উনি আমার পাশে বসে পড়লেন,,আমার তো রীতিমতো কাঁপা-কাঁপি অবস্থা,,,উনি আমার কানের কাছে স্লো ভয়েজ এ বলে উঠলেন,,,

পাবলিক প্লেসে বাস,,,

আর কিছু বলার আগেই,,ওয়েটার প্রায় ত্রিশটা আইটেমের আইসক্রিম রেখে গেলো,,,,এগুলো দেখে আমার চোখ বেরিয়ে আসার উপক্রম,,,, এসব কি??ভয় টয় ভুলে বলে উঠলাম,,

এসব কি??এতো আইসক্রিম কার জন্য??(অবাক হয়ে)

তোমার জন্য(শয়তানী হাসি দিয়ে)

মানে??(চিৎকার করে)এত্তোগুলো আমার জন্য??পাগল নাকি আপনি??

হুহ,,,খুব আইসক্রিম খাওয়ার,শখ না??এখন আমার সামনে সবকটা খাবা,,,স্টার্ট(দাঁতে দাঁত চেপে)

পাগল নাকি??ইম্পসিবল

পসিবল বেবি,,,এবরিথিং ইজ পসিবল।।।তোমার দাঁত কেলিয়ে আইসক্রিম খাওয়ার শখ আজ মেটাবো।।।শুরু করো,,,(রাগী গলায়)

আমি উনার দিকে করুন চোখে তাকিয়ে আছি,,,কিন্তু উনি আমাকে পাত্তা না দিয়ে আবার ধমক দিয়ে উঠলেন,,,কি আর করা??বাধ্য মেয়ের মতো খেতে শুরু করলাম।।।আল্লাহ আমাকে একখান জামাই দিছে,,,যে কি না ওলওয়েজ আমাকে মারার প্ল্যান করতে থাকে,,,বেশি দিন বাঁচুম বলে মনে হয় না,,,,বাঁচার আশা ক্ষীণ,,,,

এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share

#তোকে চাই❤
#writer:নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤
#part:extra part❤❤


আমি খুব ধীরে সুস্থে একটা আইসক্রিম শেষ করলাম।।আইসক্রিমটা শেষ করে ওয়েটারকে ডাক দিয়ে বললাম,,,”প্লিজ এগুলো প্যাক করে দেন”,,ওয়েটার ইয়েস ম্যাম বলে মাথা নাড়ার সাথে সাথেই,,,উনি হুংকার দিয়ে উঠলেন,,

কিসের প্যাকিং??তুমি এগুলো শেষ করবা এবং সেটা এখনই,,,,(রাগী চোখে)

কেনো??(ভ্রু কুঁচকে)

কেনো মানে??আমি বলছি তাই,,,

আপনি বললেই খেতে হবে কেন??(ভ্রু নাচিয়ে)

বেশি কথা না বলে খাও,,নয়তো আমার থেকে খারাপ কেউ হবে না,,,,(দাঁতে দাঁত চেপে)

এমনিতেও আপনার থেকে খারাপ এই পৃথিবীতে আর দুটি নেই,,,ইউ আর দা ওয়ান পিস,,,নতুন করে আর খারাপ কি হবেন??

কি বললা??(রাগী গলায়)

যা বলছি ঠিক বলছি,,তাছাড়া আপনি তো সেইরকম ডোমেনেটিং পার্সোন,,,অন্যের বউকে জোড়াজোড়ি করছেন।।

আমি আবার কার বউকে কি করলাম??(অবাক হয়ে)

কেন??আমাকে কি চোখে পড়ে না??আমার সাথেই তো জোড়াজোড়ি করছেন।।

কিহ,,,তুমি অন্যের বউ??(ভ্রু কুঁচকে)

হ্যা,,বেচারা দুনিয়ার কোন কোনায় আছে কে জানে??আপনি আমাকে একা পেয়ে এভাবে অত্যাচার করছেন।।(মুখ গোমরা করে)

হোয়াট দ্যা হেল??তুমি অন্যের বউ হলে আমার কি হও শুনি??(দাঁতে দাঁত চেপে)

কেনো বোন,,(দাঁত কেলিয়ে)

হোয়াট???(চিৎকার করে)

চেচাচ্ছেন কেন??আপনিই তো তখন আপনার ফ্রেন্ডদের বললেন,, আমি আপনার ফুপ্পির মেয়ে,,এখন আমি ভাইয়া বললে চেচান কেন??আপনি বোন বললে সমস্যা নেই আর আমি ভাইয়া ডাকলেই সমস্যা কেন কেন???

স্যাট আপ স্টুপিড গার্ল।।আমি ওদের কখন বললাম যে তুমি আমার বোন??

ফুপ্পির মেয়ে বলছেন,,,তাতে কি বোন বুঝায় না??

ইডিয়ট,,,আমার সাথে বিয়ে হলেও তুমি যেমন আমার ফুপির মেয়ে,,,ভবিষ্যতে দশ বাচ্চার মা হলেও তুমি আমার ফু্প্পির মেয়েই থাকবা,,,নাকি মা চেঞ্জ হয়ে যাবে???

আজিব মা চেঞ্জ হতে যাবে কেন??কি বোঝাতে চাচ্ছেন আপনি??

আমি বোঝাতে চাচ্ছি,, আমি ভুল কিছু বলি নি কিন্তু তুমি ভুল বলছো,,,

মানে??

ইউ স্টুপিড,,, তুমি কি আমার জিএফ??(আমি মাথা নাড়লাম)তো আমিও মানা করছি যে তুমি আমার জিএফ নও।।।আমি বলেছি,, তুমি আমার ফুপ্পির মেয়ে,,,এটা তো সত্যি তাই না??(আমি আবারও হ্যাবোধক মাথা নাড়লাম)আমি তো এটা একবারও বলি নাই যে তুমি আমার বোন,,,বলছি কি??(আমি আবারো মাথা নাড়লাম,,,না সে বলে নি)তাহলে এখানে আমার ভুলটা কি???সবটা ওদের বোঝার ভুল,,,

এবার আমার রাগ লাগছে,,,শালা এতো পেচায় বললে কে না বুঝতে ভুল করবে??সবার মাথায় তো আর তোর মতো ছিট নাই।।

কেন আপনি সরাসরি বলতে পারলেন না??যে আমি আপনার বউ??(রাগী চোখে)

প্রয়োজনবোধ করি নি।।

শালা তোর প্রয়োজন বোধ দিয়ে তুই জোস বানাই খা,,,প্রয়োজন বোধ করি নি,,হুহ।।(মনে মনে)

খুব ভালো কথা,,আপনি তখন প্রয়োজনবোধ করেন নি,,,এখন আমি প্রয়োজনবোধ করছি না,,,#আমার মামুর ছেলে,,হুহ

বলেই উঠে চলে এলাম।।।সবকিছুর একটা লিমিট আছে।।লাইফটা বিরক্তির একটা ডিব্বাই পরিনত হয়েছে,,,হোয়াট দ্যা হেল ইয়ার।।।”প্রয়োজনবোধ করি নি”,,,,এটার মানে কি??উনার প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে আমার লাইফ চলবে নাকি??উনাকে এখন আর সহ্য হচ্ছে না,,তাই উনাকে বের হতে দেখেই একটা রিকশা নিয়ে চলে এলাম।।কিন্তু খাটাশ বলে কথা,,এতো ইজিলি আমাকে ছাড়বে নাকি??হঠাৎই খুব স্পিডে এসে রিকশার একদম সামনে বাইক দাঁড় করালেন,,বৃদ্ধ রিকশাচালক এমন একটা আনএক্সপেক্টেট বিষয় ঠিক সামলে উঠতে পারলেন না,,আর আমি গিয়ে পড়লাম রাস্তায়।।।হাতের বিভিন্ন জায়গায় হয়তো ছিলে গেছে,,,হাটুতেও বড্ড জ্বালা করছে।।।নিজের অজান্তেই চোখ থেকে পানি বেরিয়ে এলো।।।নিজেকে নিজের কাছেই বোঝা মনে হচ্ছে,,,বিয়ের পর থেকে একটা দিনও শান্তিতে থাকতে দেন নি।।আমি উনার সমস্যাটাই বুঝে উঠতে পারছি না,,,না আমাকে কাছে টেনে নিচ্ছে,,, না আমাকে দূরে যেতে দিচ্ছে,,,কি চান উনি??

#চলবে
#তোকে চাই❤
#writer:নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤
#part:19


রাস্তায় চুপচাপ বসে আছি,,, ব্যাপারটা কিন্তু মোটেও তা নয়,,,আসলে আমি উঠে দাঁড়াতে পারছি না হয়তো পায়ের কোনো একটা জায়গায় প্রচন্ড আঘাতে এমনটা হয়েছে,,,,কিন্তু আঘাতটা ঠিক কোথায় সেটাও বুঝে উঠতে পারছি না।।আর পারার কথাও না হাতের কিছু অংশ,এতোটাই জ্বলছে যে অন্য ব্যাথাগুলোর ফিলটাই আসছে না।।বৃদ্ধ রিকশা চালক আমার দিকে অপরাধী দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন,,সেই দৃষ্টিতে হয়তো হালকা ভয়ও জড়িয়ে আছে।।।দিন শেষে কষ্টে উপার্জিত এই টাকাগুলো দিয়েই হয়তো একমুঠো খাবার নিয়ে ঘরে ফেরার আশা ছিলো তার,,কিন্তু ভাগ্যটা সহায় হলো না,,মাঝ রাস্তায় এমন একটা দূর্ঘটনা ঘটলো যে,বুকের আশাটুকু এখন ভয়ে রীতিমতো আড়ষ্ট,,, মনে একটাই চিন্তা,,হয়তো নিজের প্রাপ্য ভাড়াটাও পাবে না সে,,,সাথে মিলবে একগাদা অসম্মান ভরা গালি।।।লোকটির মুখটা একদম শুকিয়ে আছে,,,,,

চাচা??এদিকে আসবেন একটু,,,

আমার মুখে “চাচা” ডাকটা শুনে হয়তো একটু ভরসা পেলেন,,, ভয়ে ভয়ে এগিয়ে এলেন আমার কাছে,,বলে উঠলেন,,,

মায়ে,,আমি ইচ্ছা করে এমনডা করি নাই।।আফনের ভাড়া দেওন লাগতো না,,,বুড়া মানুষ তো সামলাইতে পারি নাই।।আজকে ভাড়াও মারি নাই,,টেহা নাই,,আপনার ঔষধের টেহা দিবার পাইতাম না,,মাফ কইরা দেন।।

আমি উনাকে থামিয়ে দিয়ে ব্যাগ থেকে টাকা বের করে উনার দিকে এগিয়ে দিলাম,,,উনি বেশ অবাক হলেন বলেই মনে হলো।।তবে মুখ দেখে অবাকের পরিমানটা বুঝতে পারছি না,,,গরীবদের অবাক হওয়ার ক্ষমতাও হয়তো দারিদ্রতার সাথে ঝুঝতে ঝুঝতে একসময় হালকা হয়ে যায়,,,

যে লাগতো না টেহা।।আমার জন্যে আফনি দুক্কি পাইলেন,,

চাচা??কি আপনি আপনি করছেন,,আমি আপনার মেয়ের চেয়েও ছোট হবো।।আপনি আপনি না করে,, টাকাটা নিয়ে আমাকে টেনে তুলুন তো,,দাঁড়াতে পারছি না,,(ঠোঁট উল্টিয়ে,একটু হেসে)

লোকটার চোখে মুখে চরম বিস্ময় আর কৃতজ্ঞতা স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছিলাম,,,টাকার জন্য না ওনাকে দেওয়া সম্মানটার জন্য,,,কারো চোখে বিস্ময় ফুটিয়ে তুলতে পারাতেও অন্যরকম মজা আছে।।উনি আমাকে ধরতে যাবেন ঠিক তখনই,,শুভ্র শক্ত হাতে আমার ডান হাতটা চেপে ধরলেন,,মনে তো হচ্ছিলো কেউ আমার জানটাই বুঝি নিয়ে নিলো,,,ছিলে যাওয়া জায়গাটায় খুব শক্ত করে চেপে ধরেছেন উনি,,আমি ব্যাথায় কুঁকিয়ে উঠলাম কিন্তু উনার লাল হয়ে যাওয়া রাগী চোখে হয়তো আমার কষ্টটা ধরাই পড়লো না।।

আমার কথা না শুনলে এমনটাই হবে??কি দরকার ছিলো ওভাবে বেরিয়ে আসার??

উনার কথায় মাথায় রক্ত উঠে গেলো,,,ফাজলামো নাকি??হাতটা ঝারি দিয়ে ছাড়িয়ে উনার কলার চেপে ধরে নিজের রাগের ঝাঁজ টা উনার উপরই ঢেলে দিলাম,,

ডোন্ট টাচ মি,,,,ক্যান ইউ হেয়ার মি??আই সেইড,,ডোন্ট টাচ মি।।।আপনাকে আমি আগেই বলে দিয়েছিলাম আমাকে টাচ করার চেষ্টাও করবেন না,,বুঝতে পারেন না আপনি??আর কি চান,,হ্যা?? আমার থেকে এক্চুয়েলি কি চান আপনি,,বলবেন প্লিজ??নীলি!! নীলি!!!নীলি!!করে সারাদিন না চেঁচালেও আমি জানি আপনি নীলিকে ভালোবাসেন,,,,তো বাসেন নীলিকে ভালো,,আমি তো আপনাকে ধরে রাখি নি।।।বিয়ে আপনি যেমন চাপে পড়ে করেছেন আমিও ঠিক সেভাবেই বিয়েটা করতে বাধ্য হয়েছি।।।তবু আপনার কাছে আমি অপরাধী,,,, কেনো??কেনো বলুন তো??আরে অপরাধী তো আপনারা,,,,আপনারা সবাই।।।(চিৎকার করে)বার বার যে পিচ্চি পিচ্চি করেন,,,,একবারও মনে হয় না??যে পিচ্চিটার মনেও কিছু স্বপ্ন থাকতে পারে,,,কাউকে ভালোবাসার ইচ্ছা থাকতে পারে।।।কিন্তু আপনারা,??,,,,,আপনারা তো আমার থেকে ভালোবাসার অধিকারটাও কেড়ে নিয়েছেন।।একটা মিথ্যা সম্পর্কে বেঁধে রেখে,,আপনাদের ইচ্ছার পুতুলে পরিনত করেছেন।।

কথা বলতে বলতে কখন যে কাঁদতে শুরু করেছি খেয়ালই করি নি।।এখন তো রীতিমতো হেঁচকি উঠে গেছে,,,বারবার কথাগুলো জড়িয়ে যাচ্ছে তবু বলে উঠলাম,,,

চুপ করে আছেন কেন??কথা শেষ??আপনার কাছে যাওয়ার অধিকার আমার আছে??নেই,,,,আপনার সম্পর্কে কিছু বলার অধিকার আমার আছে??নেই,,আপনাকে স্বামী হিসেবে পরিচয় দেওয়ার অধিকার আমার আছে?? নেই,,আবার রাস্তায় দাঁড়িয়ে কোনো ছেলের সাথে কথা বলার অধিকারও আমার নেই,,কারন আমি অন্যের বউ,,কিন্তু সেই বউয়ের অধিকারটাও আমার নেই,,,,বাহ,,,অসাধারণ।।আরো একটা মজার ব্যাপার কি জানেন??আমার ভাগে নেই,,নেই উত্তরটা বারবার আসলেও,,, আপনি কিন্তু ঠিকই আমার উপর সব অধিকার খাটিয়ে চলেছেন,,,এটা কেমন একতরফা অধিকারবোধ??চুপ করে থাকবেন না বলুন,,(চিৎকার করে)

উনি চুপচাপ শুনে যাচ্ছেন,,,কোনো কথা বলছেন না,,,আমি কাঁদতে কাদঁতে উনার বুকেই মাথা রাখলাম।।শরীরটা বড্ড ক্লান্ত লাগছে,,,উনার বুকে মাথা রেখেই বললাম,,,”কি হলো উত্তর দিন”,,উনি কিছু না বলে আমাকে কোলে তুলে হাঁটতে লাগলেন,,,যাওয়ার সময় রিকশাওয়ালার হাতে কিছু টাকা গুঁজে দিয়ে বলে উঠলেন,,,

সরি চাচা,,বউ রাগ করছে তো রাগ ভাঙাতে গিয়ে আপনার ক্ষতি হয়ে গেল,,সামনের চাকাটা ঠিক করে নিয়েন।।

আমি অবাক দৃষ্টিতে উনার দিকে তাকিয়ে আছি।।মানুষটাকে আমি কখনোই বুঝতে পারি না,,,উনি ঠিক কি চান,,,তা হয়তো তিনি নিজেও জানেন না।।।


বিছানায় হাত-পা ছড়িয়ে শুয়ে আছি।।একটু আগে ডাক্তার আংকেল এসে মেডিসিন দিয়ে গেছেন,,,এখন অনেকটাই সুস্থ,, শুয়ে শুয়ে উনার কথায় ভাবছিলাম,,,এত্তোগুলো কথা শুনালাম আজ,, তবু কোনো উত্তর দিলেন না এমন কি রাগও করলেন না,,,আজিব তো,,,উনার মাঝে মাঝে পাল্টে যাওয়াটা আমাকে খুব ভাবায়।। আমার ভাবনার জগৎকে উল্টেপাল্টে দিয়ে,,,কোথা থেকে উনি এসে হাজির হলেন,,আর এসেই এক ঝটকায় টেনে বসিয়ে দিলেন আমাকে,,আমি কিছুই বুঝতে পারছি না,,শুধু হাবলার মতো তাকিয়ে আছি উনার দিকে,,,আবার কি চলছে উনার মাথায়?

#চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here