জোরপূর্বক ভালোবাসা পর্বঃ ০৩

0
2546

জোরপূর্বক ভালোবাসা পর্বঃ ০৩
– আবির খান

তমা উপরে উঠে ক্লাস এ ঢুকে দেখে হ্যা সত্যিই ফর্ম টা তার ডেস্কে রেখে গেসে..তমা যেইনা ফর্ম টা নিয়ে পিছনে ঘুরলো আর সাথে সাথে আবিরের সাথে ধাক্কা খেলো…তমা আচমকা ধাক্কা খাওয়ায় নিজেকে সামলাতে না পেরে পরে নিতে যাচ্ছিলো… ঠিক তখনই আবির তমাকে ধরে ফেলে…

আবির এবার ভালো করে তমার দিকে তাকালো…
তমার চোখটা স্বচ্ছ গ্লাস দিয়ে ঢাকা..মানে খুব সুন্দর একটা চশমা পরা..চশমা যেন ওর জন্যই বানানো…চশমার ভিতর থেকেও তমার মায়াবী চোখটা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে..চশমাটা চোখের সৌন্দর্য আরো বারিয়ে দিয়েছে..ঠোট দুটো যেনো গোলাপের পাপরি..মন চাচ্ছে ছুয়ে দি..কি দিবো নাকি??না থাক আপনারা রাগ করবেন..হাহা..চুল গুলো খুব সিল্কি..হালকা বাতাসেও উড়ছে…আর একটা কড়া মিষ্টি ঘ্রাণ আসছে ওর চুল থেকে…যে ঘ্রাণ আবিরকে আরো পাগল করে দিচ্ছে…সব মিলিয়ে তমাকে খুব কিউট আর বাচ্চা বাচ্চা লাগছে…তবে সে এমন..যে কেউই তার মায়ায় জরাতে জীবন দিতেও রাজি..আবিরের দেখাও যেনো শেষ হচ্ছেনা..কাউকে যে হাতের পাজরে নিয়ে আছে মনেই হচ্ছেনা…মনে হচ্ছে কোন নরম জিনিস হাতের স্পর্শে আছে..আবিরের চোখ জ্বলজ্বল করছে তমার এই রূপের মেলা দেখে…ছাড়তেই মন চাচ্ছে না..সময়টা কেমন যেন থমকে গিয়েছে…হঠাৎ তমা বলে উঠলো…
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
আমাদের গল্পপোকা ফেসবুক গ্রুপের লিংক: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/


তমাঃ আমাকে দেখা হলে এবার কি উঠতে পারি???
আবির তমার কথায় কিছুটা লজ্জিত হলো…আর তাকে আস্তে করে উঠিয়ে দাড় করিয়ে দিলো…

তমাঃ আপনি এখানে কেন এসেছেন?? আর আসছেন আসছেন কিন্তু এতো কাছে কেন এসেছেন হ্যা??রাগী কন্ঠে…
আবিরঃ সকালের জন্য সরি…
তমাঃ আপনার সরির কোন প্রয়োজন নেই আমার বুঝেছেন… আপনি যা আজ করেছেন তা আমি কোন দিনও ভুলবো না আর আপনাকে মাফও করবো না..জোর গলায় বলল..
আবিরঃ সরি বললাম তো…
তমাঃ আমি আপনাকে বলেছি সরি বলতে??আপনি আমাদের সিনিয়র মানলাম..তাই বলে ভুল শুধরে না দিয়ে সবার সামনে এভাবে আমাকে অপমান করবেন!!!
আবিরঃ….
তমাঃ দেখুন সরুন এখান থেকে….আমার দেরি হয়ে যাচ্ছে… আর হ্যা আমার কাছে আসার চেস্টা করবেন নাহ…আর এভাবে তাকাবেন নাহ…বাই…তমা চলে গেলো…

আবিরের প্রচুর রাগ উঠে গেলো…সে এসেছিলো ওকে সরি বলতে আর ও এটা কি করলো…আবিরের ভিতরের শয়তানটাকে আবার জাগিয়ে দিলো..আবিরের চোখ রাগে টকটকে লাল হয়ে গিয়েছে… আগুন ঝরছে চোখ থেকে…মনে হচ্ছে আজ কাউকে মেরেই ফেলবে…রাগ আর ধরে না রাখতে পেরে সামনের ওয়ালে অনবরত ঘুষি দিয়েই যাচ্ছে…এদিকে ঘুষির কারণে হাত কেটে টপটপ করে রক্ত পরছে…

হঠাৎ শুভ আবিরকে খুজতে এসে আবিরের এই অবস্থা দেখে তারাতারি ওকে থামানো চেষ্টা করে…কিন্তু আবিরের মাথায় যেন রাগটা চেপে বসে আছে…কোন ভাবেই আবিরকে থামানো যাচ্ছেনা…

শুভঃ আবির থাম অনেক হয়েছে…কি হয়েছে??এমন করছিস কেন??
আবির রাগী লুকে শুভর দিকে তাকায়…শুভও ভয় পেয়ে যায়…কারণ এতো রাগী আবিরকে কখনো দেখেনি ও…
শুভঃ ভাই প্লিজ থাম…তোর হাতের অবস্থা খুব খারাপ..
আবির কোনভাবেই থামছে না…
শুভঃ আন্টির কসম প্লিজ থাম…
এবার আবির থেমে গেলো… কারণ আবির তার মাকে অনেক ভালো বাসে…
শুভঃ তারাতাড়ি চল…তোর হাতের অবস্থা অনেক খারাপ…

শুভ আবিরকে নিয়ে টেনে বাইরে নিয়ে আসছে…কিছুদূর আসতেই আবির তমাকে দেখে ওর বান্ধবীর সাথে দাঁড়িয়ে আছে..আবির তমার কাছ দিয়ে যাওয়ার সময় খুব রাগী লুকে তাকিয়ে চলে গেলো মনে হচ্ছে ওকে মেরেই ফেলবে…তমা কিছুটা ভয় পেলো..আর খেয়াল করলো আবিরের হাত দিয়ে অজস্র রক্ত পরছে..তমা ঘাবড়ে গেলো…

তিশাঃ কিরে তমা…উনি তোর দিকে এভাবে রাগী লুকে তাকিয়ে চলে গেলো কেনো??আর হাত দিয়েও তো অনেক রক্ত পরছে দেখলাম..

এরপর তমা তিশাকে সব খুলে বলল…তিশা তমার কথা শুনেতো পুরা অবস্থা খারাপ..

তিশাঃ তুই কি পাগল নাকি??সিনিয়র আর এইরকম ডেঞ্জারাস মানুষের সাথে এভাবে কথা বলে???দেখেছিস কি করেছে নিজেকে??
তমাঃ তুই শুধু তারটাই দেখলি!!আমাকে যে অপমান করলো??
তিশাঃ আরে অপমান করছে ঠিক আছে… সেতো সরি বলতেই আসছিলো নাকি…
তমাঃ দেখ…আমার যা ভালো লাগছে তাই করছি…ওনাকে আমার একটুও সহ্য হয়না..
তিশাঃ কাজটা ঠিক করিসনি দোস্ত… আচ্ছা বাদ দে..এখন চল বাসায় যাই…
তমাঃ হুম…
তমা আর তিশা বাসায় চলে গেলো…

আবির আর শুভ হাসপাতালে…
শুভঃ আঙ্কেল একটু ভালো করে ব্যান্ডেজ করে দিয়েন…
আবির এখনো রাগী লুকে নিজের হাতের দিকে তাকিয়ে আছে..
ডাক্তার তার কাজ করে চলে গেলো..

শুভঃ আচ্ছা ভাই এভাবে নিজেকে কষ্ট দিচ্ছিলি কেনো?? কি হইছে??
আবির কিছুই বলেনা…
শুভঃ বলবি না কি হইছে??
আবিরঃ আমার ওই মেয়েকে চাইই চাই… শুভ…
শুভঃ কোন মেয়ে??যাকে সকালে শাস্তি দিলি??
আবিরঃ…..
শুভঃ আচ্ছা.. দেখা যাবে…

শুভ আবিরকে নিয়ে গাড়িতে করে আবিরের বাসায় যাচ্ছে…আবির গাড়িতে বসে মনে মনে ভাবছে…

আবিরঃ আমাকে কথা শুনাও না..আবিরকে ঝাড়ি দেও না…তোকে আমার করে ছাড়বো দেখিস…তোর লাইফ এখন শুধু আমার কন্ট্রোলে থাকবে…জাস্ট ওয়েট এন সি…
আবিরঃ আমার ওর সব ডিটেইলস চাই…
শুভঃ আচ্ছা ভাই তুই শান্ত হ…তুই যা চাবি তাই হবে…
আবিরঃ তোমাকে দেখে নিবো চশমিশ….

চলবে…?

এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

▶ লেখকদের জন্য পুরষ্কার-৪০০৳ থেকে ৫০০৳ মূল্যের একটি বই
▶ পাঠকদের জন্য পুরস্কার -২০০৳ থেকে ৩০০৳ মূল্যের একটি বই
আমাদের গল্পপোকা ফেসবুক গ্রুপের লিংক:
https://www.facebook.com/groups/golpopoka/

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে