গল্প:-নব_বধূয়া পর্ব:-(০৮)

0
3359
গল্প:-নব_বধূয়া পর্ব:-(০৮) লেখা_AL_Mohammad_Sourav !! তসিবাকে জড়িয়ে ধরতে যাবো তখনি তসিবা আমার হাতটা ধরে নিয়েছে। আমি অভাক হয়ে তসিবার দিকে তাকিয়ে আছি নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে বলে,,, তসিবা:- ধন্যবাদ আমাকে ধরার জন্য। তবে আপনি আমাকে জড়িয়ে ধরার সেই অধিকারটা হারিয়ে ফেলেছেন। এখন তো আমি আপনার কেও হয়না তাইনা? আমি:- হ্যা ঠিকই বলছো দেখি আমাকে দেখতে দাও বাহ প্রীতিকে তো আজকে অনেক সুন্দর লাগছে,,, যাই প্রীতির সাথে আজকে কিছুটা ভাব জমিয়ে আসি। তসিবা:- কি বলছেন কার সাথে ভাব জমাবেন তবেরে দেখাচ্ছি বলে আমার চুল গুলো এলো মেলো করে দিতে লাগলো। ট্রাইটা টেনে খুলে দিয়েছে আর সাট টেনে টুনে দিতেছে,,,,, আমি:- আরে কি করছো এমন করছো কেনো? তসিবা:- অনুষ্টানে এসেছেন এতো সেজে গুজে এসেছেন কেনো? আর প্রীতির থেকে তো আমাকে বেশি সুন্দর লাগছে আপনি আমার সাথে ভাব না জমিয়ে প্রীতির সাথে ভাব জমাতে যাচ্ছেন। আমি:- তুমি তো বলছো আমি সব অধিকার হারিয়ে ফেলছি আর তোমাকে জড়িয়ে ধরতে দিবে না। আর সত্যি তো তুমি আমার কে যে তোমার সাথে ভাব জমাবো? (তসিবা চুপ করে দাঁড়িয়ে আছে কিছুই বলছে না) কি হলো বলো তুমি আমার কে? তসিবা:- আপনি আমার কেও না আমি আপনাকে চিনি না, আপনি যার তার সাথে ভাব জমান তাতে আমার কি? আর তো মাত্র ২ মাস এর পর আমি আমার স্বপ্নের ঠিকানা চলে যাবো। আমি:- যেখানে খুশি যাও আমি গেলাম তসিবাকে সরিয়ে আমি সাহেদা প্রীতি আর ওদের সব বান্ধবীর কাছে এসেছি,,, সাহেদ আর সাহেদা দুজনকে অনেক খুশি খুশি লাগছে,,, সাহেদ:- আচ্ছা সৌরভ তসিবা কি তোমার শুধু কাজিন নাকি অন্য কিছু? আমি:- তসিবা তো আমার তখনি তসিবা আমাকে থামিয়ে বলে,,,, তসিবা:- সৌরভ সম্পর্কে আমার খালাত ভাই হয় আর কিছুই লাগে না তখনি প্রীতি এসে বলতেছে,,, প্রীতি:- সৌরভ তোমার কোনো গ্রালফ্রেন্ড আছে? আমি:- গ্রালফ্রেন্ড ছিলো তবে এখন নেই তখনি প্রীতি একটা গোলাপ ফুল হাতে নিয়ে হাটু গেরে বসেছে আমার সামনে,,,, আমি সহ সবাই প্রীতির দিকে তাকিয়ে আছি তখনি তসিবা ওর হাত থেকে ফুলটা নিয়ে বলে,,,, তসিবা:- তোর সাহোস হয় কি করে ওনাকে প্রপোজ করার। আর আপনিও কিছু বলছেন না কেনো? আমি:- আরে আজিব তো তোমার সমস্যাটা কোথায় আমাকে বলবে? তসিবা:- আমার সমস্যা আপনাকে আপনি এখানে এসেছেন কেনো? আপনাকে কত না করেছি আমার সামনে আসতে তাও আসেন কেনো? সাহেদা:- তসিবা ওনাকে তো আমি ফোন করে দাওয়াত দিয়েছি কেনো কি করেছে ওনি তুকে? তসিবা:- তাহলে আমাকে দাওয়াত দিয়েছিস কেনো? আমি যদি জানতাম আপনি এই অনুষ্টানে আসবেন তাহলে আমি জীবনেও আসতাম না। আমি:- আসলে সমস্যাটা কি জানো তোমার পেটে যেইটা আছে সেইটা মুখে আসে না। আর মুখে যেইটা বলো সবটা মিথ্যা বলো। তুমি নিজেও জানোনা কি বলছো কি করছো আর কেনো করছো? তসিবা:- আমি যা করি যা বলি, সব কিছু ঠিক বলি শুধু আপনি ঠিক করে কিছু বলেন না। আর শুনেন আপনি আমার পিছু পিছু ছাড়েন কেনো আমার পিছু পড়ে আছেন? (তখনি প্রীতি সাহেদা আর ওর বান্ধবীরা সবাই এক সাথে বলে,,,)
মানে সৌরভ তোর পিছু পড়ে আছে তসিবা? আর তুই পাত্তা দিতেছিস না দেখে তো মনে হচ্ছে তুই সৌরভের পিছু পড়ে আছিস হি হি হি। তসিবা:- থাম তোরা আসলে তোরা আমার বান্ধবী না আজকের পর তোদের সাথে কোনো কথা নেই। আর আপনাকে বলি আমার পিছু ছেড়ে দিবেন যদি আমার পিছু আসেন তাহলে আমি আপনাকে আমি খুন করবো। আমি:- যাও আজ থেকে তোমার আর তোমার ভালোবাসার সব খেতা পুরি। তুমি তোমার রাস্তা আমি আমার রাস্তা বলেছি তসিবা ঘুরে চলে যেতে ছিলো তখনি একটা মেয়ে এসে তসিবাকে সরবতের গ্লাস দিয়েছে,, আর এক চুমুকে খেয়ে ফেলছে আর মেয়েটা বলতেছে,,,, এভার তসিবা বুঝবে কত ধানে কত চাল আমাকে একদিন ড্রিংক্স করিয়েছে আর সবাই আমাকে নিয়ে মজা করেছে আজকে ওকে নিয়ে আমরা সবাই মজা করবো,,,, আমি:- মানে তুমি তসিবাকে ড্রিংক্স করিয়েছো? মেয়ে:- হ্যা সরবতের সাথে মিসিয়ে আমাকেও একবার খায়িয়েছে,,, তখনি চেয়ে দেখি তসিবা আবল তাবল বলছে আর নিজে নিজে নাছতেছে,,, (তখনি আমি ঐ মেয়েটাকে একটা দমক দিয়ে বলছি,,,) আমি:- যদি তসিবার কিছু হয় তাহলে বুঝবে কত দিনে বছর হয়। আমি গিয়ে তসিবার হাত ধরেছি তসিবা হাতটা ছাড়িয়ে বলে,,, তসিবা:- কে আপনি ও সৌরভ আমার বর উম্মা আপনি জানেন আমার কতটা খারাপ লাগে আপনি যখন অন্য কোনো মেয়েদের সাথে কথা বলেন। ( আমি তসিবার দিকে তাকিয়ে আছি কিছুটা দূরে চলে গেছে,,,) আমি:- তসিবা তুমি এখন ঠিক নেই চলো আমার সাথে আমি তোমাকে বাড়ীতে দিয়ে আসবো। তসিবা:- আপনি ঠিক নেই আমি ঠিক আছি,,, জানেন আপনাকে আমার খুব ভালো লাগে, যখন আপনি ঘুমিয়ে থাকতেন তখন রোজ রাতে আপনার কপালে কিস করতাম।
আমি:- তার জন্য বলি কপাল লাল হয়ে থাকতো কেনো? আচ্ছা তসিবা এখন বাড়ীতে চলো বলে তসিবাকে কুলে নিয়েছি,,,, তসিবা:- আমাকে কুলে নিয়েছেন কেনো নামান বলছি আপনি আমাকে বাড়ী থেকে বের করে দিয়েছেন যানেন আমার কতটা খারাপ লাগছে,,, আমি:- নামাবো না আজকে তুমি বললেও না এখন বাড়ীতে যাবে চলো,,, তখনি প্রীতি সাহেদা সহ তসিবার কিছু বান্ধবীরা এসেছে,,, সাহেদা:- সৌরভ তসিবা তোমাকে যে বর বলছে,,? আমি:- হ্যা তসিবা আমার বউ আসলে তসিবা আমাকে এখনো মন থেকে মেনে নিতে পারেনি। তবে তসিবাকে আমি অনেক ভালোবাসি আর সবচেয়ে বড় কথা হলো তসিবাকে আম্মু একদম সহ্য করতে পারে না তাই কাল ওকে আমাদের বাড়ী থেকে ওদের বাড়ীতে পাঠিয়ে দিয়েছে,,, আর প্রীতি তোমার কাছে আগেই বলতাম কিন্তু তসিবাকে কাছে পেতে বলিনি কারন তোমার নাম শুনলে তসিবা রেগে যেতো আর তখন আমাকে আগলে রাখতে চাইতো প্লিজ কিছু মনে করো না। প্রীতি:- তসিবা অনেক ভালো তবে কেনো এখনো তোমাকে মেনে নিতে পারেনি তার কারনটা আমি জানি না। তবে তসিবা তোমাকে ভালোবাসে আমরা সবাই বুঝতে পারছি। আমি:- ঠিক আছে ধন্যবাদ তোমাদের তাহলে তসিবাকে আমি সাথে নিয়ে যাই কেমন। সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে তসিবাকে কুলে করে নিয়ে আসতেছি,,, তসিবা এতটা মাতাল হয়েছে যে হাটার মত অবস্থা একদম নেই। তসিবা বাইকের সামনে বসিয়ে ওর ওরনা দিয়ে আমার সাথে বেধে নিয়েছি,,, আমি বাইক চালাচ্ছি তসিবা বসে আছে সামনে,,, তসিবাকে নিয়ে ওদের বাড়ীতে গেছি,,,, দরজার কলিং বেল চাপ দিয়েছি,,, তসিবাকে কুলে নিয়ে আছি এখন তসিবা ঘুমিয়ে আছে,,,,কিছুক্ষণ পর দরজাটা খুলছে শ্বাশুড়ি আমাকে দেখে বলে,,,,, শ্বাশুড়ি:- সৌরভ তুমি এই বাড়ীতে? আমি:- আন্টি একটু নিছে তাকিয়ে দেখেন। তখনি ওনি দেখলেন তসিবা আমার কুলে আর বলে,,,, শ্বাশুড়ি:- তসিবার আব্বু আপনি এসে দেখে যান সৌরভ তসিবাকে কি যেনো করে নিয়ে এসেছে,,, তসিবা হাত পা একদম ছেড়ে দিয়েছে,,,,, এই সৌরভ আমার মেয়েকে কি করেছো তুমি? আমি:- আন্টি তেমন কিছুই হয়নি তসিবা ড্রিংক্স করেছে এখন ঘুমিয়ে আছে,,, শ্বাশুড়ি:- মানে মদ খেয়েছে তুমি বললে আমি বিশ্বাস করবো তা ভাবলে কি করে? আমার মেয়ে জীবনেও এসব খায় না। তখনি তসিবার আব্বু আর ওর ছোট বোনটা এসেছে,,,, শ্বশুড়:- সৌরভ তসিবার কি হয়ছে? আমি:- কিছু না একটু ঘুমিয়ে আছে,,, আচ্ছা তসিবাকে ওর রুমে নিয়ে যেতে লাগলাম আর তখনি শ্বশুড় বলে,,,, শ্বশুড়:- সৌরভ তুমি রুমে যাবে না তসিবাকে নামিয়ে দাও আর তোমার সাহোস হলো কি করে আমাদের বাড়ীতে আসার। আমি:- আরে এমন করছেন কেনো? আমি কি করেছি? আর এইটা আমার শ্বশুড় বাড়ী তসিবার সাথে এখনো আমার ডির্ভোস হয়নি তাহলে কেনো এমন করছেন? শ্বাশুড়ি:- ডির্ভোস হয়নি কিন্তু তোমার মা যখন বলছে তখন তো তুমি কিছুই বলোনি।
আমি:- আপনারা তো অনেক কিছু বলেছেন আর শুনেন আমি আমার বউকে কুলে নিয়ে এসেছে,,, আমি তসিবাকে ওর রুমে নিয়ে গেলাম,,, ওনারা বক বক করছে আমি সোজা তসিবাকে কুলে নিয়ে ওর রুমে এসেছি,,, তসিবাকে শুয়িয়ে দিয়েছি তখনি,,, তসিবা আমার সাট ধরে রাখছে,,, আমি ওর কপালে কিস করে দিয়ে ওর হাতটা ছাড়িয়ে দাঁড়িয়েছি,,, আবারো ওর কপালে আদর করে দিয়ে চলে আসবো তখনি তসিবা আমার হাতটা ধরেছে,,, আমি তাকিয়ে তো পুরাই অভাক হয়ে গেছি,,,, তসিবা:- চুড়ি করে আমাকে কিস করে চলে যাচ্ছেন কেনো? আসেন আজকে আমার সাথে আমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমাবেন বলে টান মেনে আমাকে ওর কাছে নিয়ে গেছে,,, আমি:- তসিবা তুমি ঠিক আছো তো? তসিবা:- কেনো আমার কি হয়ছে আপনি ঘুমান তো আর আমাকে একটু আদর করে দেন। আমি:- আদর তো করবো সকালে তো আমার বারোটা বাজবে বলে ওর কপালে গালে আদর করে দিয়েছি,,, তসিবা আমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে,,, সকালে কি হয় আল্লাহ যানে,,,,To be continue,,,,,

( প্রিয় পাঠক আপনাদের যদি আমার গল্প পরে ভালোলেগে থাকে তাহলে আরো নতুন নতুন গল্প পড়ার জন্য আমার facebook id follow করে রাখতে পারেন, কারণ আমার facebook id তে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন গল্প, কবিতা Publish করা হয়।)
Facebook Id link ???

https://www.facebook.com/shohrab.ampp

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে