অলৌকিক যাতী

0
334

রাত দশটা ।
কালু তার সিএনজিটাকে ধোঁয়া মোছা করছে । স্ট্যান্ডে আর কোন সিএনজি নেই । কালু বাড়ি ফিরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে । হঠাৎ একজন লোক ব্যাগ হাতে এসে দাঁড়ালো ।
– যাবে ?
– না ভাই , এত রাতে যাবো না ।
– আমার বউ খুব অসুস্থ । না গেলে ওকে বাঁচাতে পারবো না । ভাড়া যত টাকা লাগে দিবো ।
একটু ভেবে কালু বলল,”কোথায় যাবেন ?”
– ফুলপুর ।
– আমি তো চিনি না ।
– সমস্যা নেই আমি তোমাকে পথ দেখিয়ে নিয়ে যাবো ।
– ঠিক আছে উঠে বসুন ।
লোকটা সিএনজিতে উঠে বসলো । কালু সিএনজি স্টার্ট দিল ।
রাস্তার দুইপাশে উঁচু উঁচু গাছের সারি । চাঁদটা মেঘে ঢাকা । চারদিকে হালকা কুয়াশা ঘেরা । হেডলাইটের আলোতে সিএনজি এগিয়ে চলছে ।
ঘন্টাদুয়েক পর ওরা অলিপুর এসে পৌঁছালো ।
সিএনজি থামিয়ে কালু বলল,”আর একটু সামনে তো বিশাল শশ্মান । আর তো কোনো গ্রাম নেই ।”
” আরে কে বলছে ? তুমি সামনের দিকে যাও”, পিছনের লোকটি বলল ।
কালু ইতস্তত হয়েই সিএনজি নিয়ে সামনের দিকে এগোলো ।
ও যতদূর জানে সামনে আর কোনো গ্রাম নাই । তবুও লোকটার কথায় ও সিএনজি চালাতে লাগলো ।
হঠাৎ সিএনজির সামনে একটা ছোট ছেলে এসে দাঁড়ালো ।
দ্রুত ব্রেক কষলো কালু । চোখের পলকেই উধাও হয়ে গেল ছেলেটা । একটু অবাক হল ও ।
পিছন থেকে লোকটা বলল,”সামনে যাই কিছু হোক না কেন ? তুমি সিএনজি আর থামাবে না ।”
” কেন ?” কাপাঁ কন্ঠে জিজ্ঞাসা করলো কালু ।
“সব প্রশ্নের উত্তর দিবো সিএনজি থেকে নেমে । তুমি চালাতে থাকো”, রহস্যময় কন্ঠে বলল লোকটা ।
মাথাটা কেমন যেন বনবন করছে কালুর ।
সামনের দিকে এগোতে লাগলো ও ।
হঠাৎ লাইটের আলোয় ও দেখতে বেশ কিছু সাদা কাপড় পরা লাশ রাস্তায় পড়ে আছে । পিছন থেকে লোকটা বলল,”থামবে না । তুমি চালাতে থাকো ।”
কালু সিএনজি চালাতে থাকলো । লাশগুলোর কাছে যেতে সেগুলো উধাও হয়ে গেল । আর একটু সামনে যেতেই কালু দেখতে পেল রাস্তার দুইপাশের গাছে ঝুলছে মৃতদেহ । ও এদিক সেদিক না তাকিয়ে সোজা সিএনজি চালাতে লাগলো । ভয়ে বুক কাঁপছে ওর ।
কিছুক্ষণপর ওরা বিশাল এক বটগাছের কাছে আসলো ।
লোকটা বলল,”এখানেই থামাও । আমি এখানেই নামবো ।”
কালু সিএননজি থামালো । লোকটা নামলো ।
কালু কাঁপা কোনোরকমে জিজ্ঞাসা করলো,”এখানে তো কোন বাড়িঘর নেই । আপনি কোথায় যাবেন ?”
লোকটা বটগাছের দিকে তাকিয়ে বলল,”বিশ বছর আগেই তো বাড়িঘর নদীর ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেছে ।”
” মানে ?” বিস্ফোরিত কন্ঠে বলল কালু ।
“বিশ বছর আগে আমার বাড়িঘর নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে । অভাবের তাড়নায় এই বট গাছে আমি আর আমার বউ ফাঁসি দিয়ে মরেছি । “, বিকৃত কন্ঠে বলল লোকটা ।
বাকরুদ্ধ হয়ে গেল কালু ।
লোকটা তখন এক লাফে বট গাছে উঠে ঘন অন্ধকারে হারিয়ে গেল ।
আর সহ্য হল না কালুর । অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে গেল ।
জ্ঞান ফিরতেই দেখলো অলিপুর স্ট্যান্ডে সিএনজির ভিতরে শুয়ে আছে ও ।
সকাল হয়ে গেছে । চারপাশে মানুষের কোলাহল শোনা যাচ্ছে ।
ধীরে ধীরে সবকিছু মনে পড়লো ওর । ও ভাবলো হয়তো কোনো দুঃস্বপ্ন দেখেছে । সিএনজি স্টার্ট দিয়ে বাড়ির দিকে রওয়ানা দিল ।
তখনই কালু দেখলো ওর পায়ের কাছে একটা ব্যাগ পড়ে আছে ।
ও ব্যাগটা খুলে দেখলো তাতে অনেক টাকা আর একটা চিরকুট ।
তাতে লেখা –
“আবার হয়তো অলৌকিক যাত্রী হিসাবে দেখা হবে এমনি কোনো এক নির্জন রাতে ।”

“হরর ছোট গল্প”
অলৌকিক যাত্রী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here