Love_at_1st_sight Part – 16 [ Last part]

3
4179

Love_at_1st_sight
Part – 16 [ Last part] writer-Jubaida Sobti♥ 
রাহুল স্নেহাকে বুকে ঝড়িয়ে কেঁদে উঠে…
স্নেহার চোখ অনেকটা খোলা…
সে রাহুলের দিকে তাকিয়ে আছে.. স্নেহা রাহুলকে কিছু বলতে চাচ্ছিলো….
কিন্তু স্নেহা কথা বলার শক্তি পাচ্ছে না, চোখটা বন্ধ হয়ে এলো স্নেহার…চোখের কোনে জমে থাকা পানি গড়িয়ে পরলো..
স্নেহার মাথা থেকে অজর রক্ত পরছে,
রাহুলের সাদা শার্ট লাল বর্ণের হয়ে গেলো,
রাহুল স্নেহাকে কোলে নিয়ে গাড়ীতে তুলে… গাড়ী চালানোর সাহস কাজ করছে না রাহুলের…
হসপিটালে পৌছানোর সাথে সাথে রাহুল স্নেহাকে কোলে তুলে হসপিটাল বেডে শুয়ে দেই…
স্নেহাকে ICU তে ঢুকালো…
রাহুল স্নেহার মাকে ফোন দিলো..কিন্তু কি হয়েছে তা বলতে পারছে না…শুধু কেদেই যাচ্ছে..শুধু হসপিটালের নামটা বলতে পারলো…
স্নেহার মা বুঝতে পারলো কিছু একটা হয়েছে, তাই তিনি স্নেহার বাবাকে নিয়ে তাড়াতাড়ি হসপিটালে পৌছালো…
রাহুল একদিকে হেলান দিয়ে চেয়ারে বসে আছে…পুরা শার্ট রক্তাক্তে ভরা..চোখ রক্তের ছানির মতো লাল হয়ে আছে…চোখের কোনে জল গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ছে…
স্নেহার মা রাহুলের কাছে দৌড়ে গিয়ে জিজ্ঞেস করলে… রাহুল স্নেহার মা কে ঝড়িয়ে ধরে কেঁদে উঠে,…
স্নেহার মা বুঝতে দেরি নেই স্নেহার কিছু হয়েছে… তিনি ও কেঁদে ফেলে রাহুলের কান্না দেখে..?
প্রায় ৩ ঘন্টা পরে ডাক্তার এসে বলে স্নেহার মাথায় প্রচন্ড আঘাত পেয়েছে…
এখনো কিছু বলা যাচ্ছে না…তবে পেসেন্টকে ICU তেই রাখতে হবে,
সকাল ফেটে গেলো স্নেহার জ্ঞান এখনো ফিরেনি…
রাহুল ঐভাবেই বসে আছে,….
স্নেহার মা বাসায় যেতে বললো কিছুক্ষন রেস্ট নিতে, রাহুল স্নেহাকে ফেলে কিভাবে যাবে,…..
দুপুর হয়ে গেলো রাহুল কিছুই খায়নি…
স্নেহার মা খেতে বললে ও খায়নি।
রাত ৮ টার দিকে স্নেহার জ্ঞান ফিরে,…
রাহুল স্নেহাকে দেখতে ICU রুমে গেলো..
স্নেহার মাথায় বেন্ডেজ করা,পায়ে বেন্ডেজ করা।
স্নেহা রাহুলকে দেখলে ?চোখ থেকে গড়িয়ে পানি পরে,
রাহুল স্নেহার পাশে বসে..
রাহুল : ?? দেখেছো স্নেহা কি হয়েছে…কথা না শুনলে এমনটাই হয়, কি দরকার ছিলো গাড়ী থেকে বের হওয়ার।
স্নেহা : কিছু বলছে না কেঁদে যাচ্ছে।
রাহুল : স্নেহা কাঁদছো কেনো?…কিছু হয়নি…আমি আছি,… কিছু হবে না তোমার?
স্নেহা : আপনি কাঁদছেন কেনো?..??
রাহুল : ঐ যে কথা শুনো নি তাই…??
স্নেহা : সরি রাহুল ????
স্নেহার মা – বাবা, ভাই একে একে সবাই..স্নেহাকে দেখতে আসে..কারণ ICU তে দুজন Allow না।
২সপ্তাহ পরে স্নেহাকে বাসায় নিয়ে আসা হয়..
…স্নেহার মা – বাবা প্রায় এসে স্নেহাকে দেখে যায়..স্নেহা এখনো ভালো করে হাটতে পারে না…তবে রাহুল খুব যত্ন করে স্নেহাকে সেবা করে যাচ্ছে..কারন স্নেহা ছাড়া রাহুলের আপন আর কেউ নেই…
স্নেহা : আচ্ছা রাহুল, এক্সিডেন্টে যদি আমি মারা যেতাম…কি হতো..
রাহুল স্নেহার দিকে তাকিয়ে রইলো কিছুই বললো না.. চোখের কোনে পানি এসে জমে গেছে রাহুলের…
স্নেহা : রাহুল ? কি হয়েছে আমিতো ফান করে বলেছি….
স্নেহা রাহুলের চোখ মুছে দিয়ে রাহুলকে ঝরিয়ে ধরলো..
রাহুল ও স্নেহাকে ঝরিয়ে ধরে শক্ত করে..
রাহুল : স্নেহা I love u ?????
স্নেহা : I love u too ???
রাহুল : এমন কথা বলবা না আর বুঝেছ?. ??
স্নেহা : ?কখনো না..?
স্নেহা ধীরেধীরে সুস্থ হয়ে উঠে…
এখন স্নেহা রাহুলের আগে উঠে রাহুলের জন্য নিজের হাতে ব্রেক ফাস্ট তৈরী করে,
বুয়া নিষেধ করলে ও স্নেহা প্রতিদিন ব্রেকফাস্ট তৈরি করতে উঠে যায়।
রাহুল : স্নেহা বলেছিলাম না সকাল সকাল না উঠতে,… কথা শুনো না কেনো..
স্নেহা : উফফ বললাম না এখন আমি সুস্থ তারপরে ও এমন করেন কেনো….
আর আমার ভালো লাগে আপনার জন্য খাবার বানাতে,?
রাহুল স্নেহাকে কাছে টেনে…
স্নেহা : কি করছেন দেখবে তো…
রাহুল : দেখুক? (with তেডি স্মাইল)
স্নেহা : [blushing ?] রাহুল : আমার Morning কিস ?
রাহুল স্নেহার কাছে আসতে গেলে… বুয়া চলে আসে হঠাৎ,
বুয়া তাদের এই অবস্থায় দেখে…লজ্জায় চলে যায়…?
স্নেহা : হয়েছে এবার ছাড়ুন দেরি হচ্ছে আপনার..
রাহুল অফিস চলে গেলো…
এভাবে ১মাস চলে যায়…
একদিন হঠাৎ স্নেহার খুব খারাপ লাগছিলো..
বুয়া : শুইয়া থাকেন গিয়া..আপনারে দেইখা অসুস্থ মনে হইতাছে, রান্না আমি করমু।
স্নেহা : আচ্ছা ঠিকাছে, রাহুল আসার আগে…আমাকে ডেকে দিবা,
বুয়া : আইচ্ছা।
রাহুল বাসায় এসে দেখে স্নেহা ঘুমাচ্ছে..তাই আর তাকে ডেকে ডিস্টার্ব করেনি…
বুয়া বলেছে স্নেহার সকাল থেকে খারাপ লাগছে আজ…কিছু খায় ও নি…সকাল থেকে,
রাহুল খাবার নিয়ে স্নেহার পাশে গিয়ে স্নেহাকে ডাকতে গেলে দেখে…স্নেহার খুবই জর এসেছে…
রাহুলের হাতের ছোয়ার অনুভুতিতে স্নেহা সজাগ হয়ে যায়..
স্নেহা : এসেছেন আপনি….
রাহুল : স্নেহা শুয়ে থাকো…উঠতে হবে না..তোমার তো গায়ে অনেক জর এসেছে…আমাকে বলোনি কেনো?..
স্নেহা : হে সামান্য একটু জর এসেছে এতে এতো টেনশন নেওয়ার কিছুই নেই…
রাহুল : just shut-up স্নেহা… তোমাকে বলেছিলাম কাজ করার দরকার নেই..সকাল সকাল উঠতে হবে না… তা ও তুমি কথা শুনো না,
(স্নেহা রাহুলের ঠোটে ?? করে)
রাহুলের স্নেহার উপর জমে থাকা রাগ সব চলে যায়??
রাহুল ও স্নেহাকে একটি ? কিস করলো…
রাহুল : স্নেহা ভালো পাম্পিং দিতে জানো ?
স্নেহা রাহুলকে শক্ত করে ঝরিয়ে ধরে…
রাহুল : জরে শরীরটা পুরে যাচ্ছে আর তুমি বলছো সামান্য একটু তাই না…
কাল সকালে আমার সাথে ডাক্তারের যাবা বুঝেছো…
স্নেহা : আচ্ছা মিস্টার তেডি স্মাইল ?এবার দেখি গুড বয়ের মতো আমাকে ঝরিয়ে ধরুন…
রাহুল : Never…
স্নেহা : ???
রাহুল : আগে গুড গার্ল এর মতো খাবারটা কমপ্লিট করো…
স্নেহা : কিন্তু ??
রাহুল : কোনো কিন্তু নয়… খাবা কি না বলো…
স্নেহা : খাইয়ে দিন ??
রাহুল স্নেহাকে খাইয়ে দিলো ?
কিন্তু স্নেহা যা খেয়েছে তা কিছুক্ষন পরে আবার বমি করে বের করে দেই…
স্নেহার এমন অবস্থা দেখে রাহুল খুব টেনশনে পরে যায়…সারারাত ঘুমায়নি স্নেহাকে বুকে নিয়ে শুয়ে ছিলো…
সকাল হলে রাহুল স্নেহাকে নিয়ে ডাক্তারের কাছে যায়…
ডাক্তারি চেকাপ করে আসে ২দিন পরে রিপোর্ট আসবে…
২দিন পরে রাহুল রিপোর্ট নিয়ে আসে..
রাহুল বাসায় এসে বেল দেই স্নেহা দরজা খুলতেই রাহুল স্নেহাকে কোলে তুলে নেই…???
স্নেহা : আরে কি করছেন, রাহুল কি হয়েছে…??পরে যাবো তো…
রাহুল স্নেহাকে নিচে রেখে স্নেহার কপালে একটি কিস করে 
রাহুল : স্নেহা তুমি জানো না…তুমি কতো বড় সারপ্রাইজ দিয়েছো…
স্নেহা : ??
রাহুল : ঐ যে ছোট ছোট কাপড়… এদিক ঐদিক হাটবে…তুমি ইন্সটেগ্রামে অনেক গুলো ছবি আপলোড দিবা???
স্নেহা আমি বাবা হচ্ছি ???
স্নেহা রাহুলের কথা শুনে খুশিতে কেঁদে দিলো…
রাহুল : ঐ পাগলী কাঁদছো কেন?..হুম?..
স্নেহা রাহুলকে ঝরিয়ে ধরে,রাহুল ও স্নেহাকে ঝরিয়ে ধরে….?
After 9 months,
আজ স্নেহার খুব খারাপ লাগছে…
রাহুল বাসায় নেই…অফিসে গেছে…
স্নেহার খারাপ লাগছে তা দেখে স্নেহার মা রাহুলকে ফোন দেই…
রাহুল বাসায় এসে দেখে স্নেহা চিৎকার করে করে কাঁদছে…
রাহুল স্নেহাকে গাড়ীতে তুলে তাড়াতাড়ি হসপিটাল নিয়ে যায়…
প্রায় ১ঘন্টা পরে ডাক্তার এসে স্নেহার মাকে ডেকে নিয়ে যায়..
কিছুই বুঝছে না রাহুল… কি হচ্ছে এসব ঐদিকে স্নেহার চিৎকার করে কেঁদে উঠার শব্দ আসছে…
রাহুল এদিক ওদিক হাটছে…স্নেহার জন্য খুব টেনশন হচ্ছে রাহুলের?
কিছুক্ষন পরে স্নেহার মা একটা ফুটফুটে বাচ্চা কোলে করে বাহিরে নিয়ে আসে…
এবং রাহুলকে দেখায়…?
বাচ্চা দেখে রাহুল তার চোখের পানি ধরে রাখতে পারলো না…
মা : আলহামদুলিল্লাহ আমার একটা নাতনি হয়েছে?
রাহুল খুশিতে হাহাকার?
রাহুল : মা স্নেহা কেমন আছে…
মা : স্নেহা সুস্থ আছে.. যাও গিয়ে দেখে আসো…
রাহুল স্নেহাকে দেখতে গেলো…
স্নেহা : দেখেছেন আমাদের একটা পরী হয়েছে?
রাহুল : হে দেখেছি… পুরাই Little sneha??
স্নেহা : স্মাইলটা কিন্তু আপনার মতো তেডি ??
রাহুল : ???
স্নেহা এখন তার বাবুর জন্য ছোট ছোট কাপড় কিনে আনেক শপিং করে…
রাহুলকে ফোন দিয়ে…
বাবুর এটা লাগবে বাবুর ঐটা লাগবে..?
(রাহুল স্নেহাকে পিছন থেকে ঝড়িয়ে ধরে),
রাহুল : স্নেহা তুমি আমার লাইফে না আসলে কিন্তু আমার লাইফটা এতো সুন্দর হতো না?
স্নেহা : আর আপনি আমার লাইফে মিস্টার তেডি স্মাইল 
রাহুল : সব ক্রেডিট কিন্তু কলেজকে দিতে হবে ??
যেখানে আমাদের প্রথম দেখা..
যেখানে আমি তোমাকে প্রথম দেখেই তোমার প্রেমে পরে গিয়েছিলাম… U know যেটাকে বলে #Love_at_1st_sight?
স্নেহা রাহুলকে ঝরিয়ে ধরলো? রাহুল ও স্নেহাকে খুব শক্ত করে ঝড়িয়ে ধরে 
রাহুল আর স্নেহার ছোট সংসারটি এভাবে কেটে যাচ্ছে,? সবাই তাদের জন্য দোয়া করবেন ?
আমার জন্য ও সবাই দোয়া করবেন।
[Happy Ending ]

3 COMMENTS

  1. Wow just amazing ending
    Story ta amy ghumate dilo na. Ses korlam akhon
    Thank You everyone eto sondor sondor golpo deyar jonno.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here