Crush যখন বর?part58/59/60

0
2675

Writer -Afnan Lara
Crush যখন বর?
#Part_58
শিশির laptop নিয়ে বসলো,
ফোন চেক করলে তনু ২৫বার কল দিসে,,
শিশির ফোন টা রেখে দিলো,,
দরজা কে জানি নক করলো,
মীম গিয়ে দরজা খুললো,
মীম-কে আপনি?
মিনু-আমি মিনু,তনুর Best friend
মীম-ও,আসেন ভিতরে আসেন,
মিনু-আমি শিশিরের সাথে কথা বলবো,আমি কি ওনার রুমে যেতে পারি?
মীম-আচ্ছা ঠিক আছে,
মিনু শিশিরের রুমে গিয়ে দরজা লাগিয়ে দিলো,শিশির তনু মনে করে বললো
শিশির-ফিরে তো আসলাই,
এটা বলে তাকিয়ে মিনু কে দেখে অবাক হলো,
শিশির উঠে দাঁড়িয়ে গেলো,আপনি??এখানে?আর দরজা লাগিয়েছেন কেন,
শিশির দরজা খুলতে যাবে মিনু হাত ধরে ফেললো,
মিনু-একা থাকি?থাক না দরজা বন্ধ,
শিশির হাত ছাড়িয়ে নিলো,
মিনু শিশিরকে জোর করে ধরে জড়িয়ে ধরলো,
মিনু-তোমাকে পাওয়ার জন্য কতো কিছু করলাম আর সেই তনু তোমাকে নিয়ে চলে গেলো,
শুরু থেকেই ওকে অনেক বুঝিয়েছি বাট ও তো তুমি বলতে অজ্ঞেন,ফালতু,
শিশির-WTF!leave me,শিশির ছাড়ানোর চেষ্টা করতেছে কিন্তু পারতেছেই না,,
তনু গাড়িতে,সারা রাত ঘুমাতে পারে নি,তার উপর মা কল করে বললো উনি মদ খেয়েছেন, আমি ছাড়া কেউ উনাকে ঠিক করতে পারবে না,আমি যাই,কি করবো আর
শিশির-ছাড়ো,শিশির ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিলো,
মিনু খাটে শুয়ে পরলো জোরে জোরে হাসতে লাগলো,
শিশির দরজা খুলতে গিয়ে দেখলো লক,চাবি??
মিনু চাবি নিয়ে শিশিরকে দেখালো,
শিশির চাবি নিতে গেলো মিনু সরিয়ে ফেললো,
মিনু-উফ সোনা এতো দুষ্টুমি করো কেন???
মিনু রুমে তাকিয়ে দেখলো শিশির আর তনুর ছবি,সে ছবি টা দেখে ছুড়ে মারলো,
মিনু-শুধু মাত্র ওর জন্য আমি তোমার বউ হতে পারিনি,নাহলে আমার মধ্যে কি কোনো কম আছে নাকি,??তোমাকে আমি ভালোবাসি বলতে গিয়েও পারিনি,আর ও বলে তোমাকে জিতে গেলো??সেটা তো হয় না
শিশির-চাবি দাও আমাকে
শিশির মিনুর থেকে চাবি নিয়ে লক খুলে দরজা খুলতে যাবে মিনু একটান দিয়ে বিছানায় ফেলে দিলো,মিনু শিশিরের উপরে উঠে গেলো,
মিনুর কানে হঠাৎ তনুর আওয়াজ এলো,তনু মীমের সাথে কথা বলতেছিলো,সাথে সাথে শিশিরকে টান দিয়ে জড়িয়ে ধরে বলতে লাগলো প্লিস দুলাভাই এমন করিয়েন না,
তনু-মিনুর গলা না???
তনু রুমে এসে দেখলো মিনু চিৎকার দিতেছে,ওরা দুজনেই বিছানায়,
তনু কিছুক্ষন চুপ হয়ে তাকিয়ে রইলো,হাত থেকে ব্যাগটা পড়ে গেলো,
মিনু উঠে ওড়না হাতে নিয়ে তনুর কাছে গিয়ে কাঁদতে লাগলো,
মিনু-দেখ আমি তো ভাবলাম তোর সাথে দেখা করবো আর তোর husband এটা কি করতে গেসিলো,ভাগ্যিস তুই ঠিক টাইমে এসে গেলি,
শিশির-তনু নাহ,ওর কথা বিশ্বাস করো না,ও মিথ্যা বলতেছে
মিনু-তনু তুই তোর best friend কে বিশ্বাস করবি না?
তনুর চোখ থেকে পানি গড়িয়ে পড়তে লাগলো,
তনু শিশিরের দিকে তাকিয়ে চোখ মুছতে মুছতে চলে যেতে লাগলো শিশির এসে হাত ধরলো,
শিশির-তনু Trust me আমি এমন কিছুই করি নি,
তনু শিশিরের দিকে তাকালো,শিশির শক্ত করে ধরে রাখলো তনুকে,
শিশির-আমি এমন না তনু,pls trust করো,
তনু মিনুর দিকে তাকালো, মিনুর সাথে ওর ৮বছরের বন্ধুত্ব,মিনুর চোখের পানি দেখলো তনু,তারপরে শিশিরের থেকে হাত ছাড়িয়ে বাসা থেকে বেরিয়ে কিছুদূর যেতেই senseless হয়ে গেলো,
তারপরে ♥
তনু চোখ মেলে শিশিরকে দেখলো,শিশির মাথায় হাত দিয়ে পাশে বসে আছে,তনু উঠলো,
শিশির তনুকে দেখে ধরতে গেলো তনু হাত দিয়ে মানা করলো,
তনু খাট থেকে নেমে ব্যাগ নিয়ে যাওয়ার সময় শিশির আটকালো,
শিশির-আমাকে বিশ্বাস করো না?
তনু-করি!সাথে মিনুকেও
মিনুর পাল্টে যাওয়া দেখিনি,তবে আপনার টা দেখেছি,
তনু চলে যাওয়ার সময় মা আসলো,
মা এসে তনুকে ধরে কেঁদে দিলো,
মা-তনুরে এমন করিস না তোরা, তোদের সুখ দেখে নিজেও সুখ পেতাম হঠাৎ করে কি এমন হলো তোরা এমন করতেছস,দুটো বাচ্চা আসতে চলেছে তোদের মাঝে তা কি ভুলে যাস তোরা,,
মা তনুর হাত নিজের মাথায় রেখে বললো
মা-আমার কসম তুই এই বাসা থেকে আমি না বলা পর্যন্ত যাবি নাহ,এবার ইচ্ছা হলে যা আমি মরে যাবো
তনু-মা
মা কাঁদতে কাঁদতে চলে গেলো,তনু মীমের রুমে চলে গেলো,
মীম-ভাবি তুমি তখন senseless হয়ে গেসিলা পরে ভাইয়া তোমাকে বাসায় এনেছিলো,
তনু-..।
তনু কি করবে???এক সাইডে তার best friend আরেক সাইডে শিশির,
তনু কাঁদতে লাগলো,
মীম-ভাবি কাঁদিও না,মীম তনুকে থামাতে পারছে না দেখে শিশিরকে ডেকে আনলো,
শিশির তনুর অবস্থা বুঝতে পারতেছে,তনুর কাছে গিয়ে হাঁটু গেড়ে বসে পরলো,
মীম চলে গেলো রুম থেকে,
শিশির নিজের হাত তনুর পেটে রাখলো,
শিশির-আমার বেবির কসম আমি আজ মিনুর সাথে কোনো খারাপ কিছু করিনি, ও যা বলেছে সব মিথ্যা,আমি শুধু তোমাকে ভালোবাসি,সর্বপ্রথম তুমি সেই নারী যাকে আমি ছুঁয়েছি,সবার শেষ তুমি হবা,আর কেউ না,
তনুর চোখের পানি গিয়ে শিশিরের হাতে পরলো,
শিশির তনুকে জড়িয়ে ধরলো,
শিশির-সরি,Sorry for everything,
তনু -মাকে বলেন আমি কাল বাসায় চলে যাবো,আপনি বললে মা রাজি হবে,
শিশির-না যাবা না তুমি,
তনু-আমি কসমে বিশ্বাস করি
চলবে♥

Writer -Afnan Lara
Crush যখন বর?
#Part_59
তনু শিশিরকে সরিয়ে দিলো,
শিশির রুমে গিয়ে ফোন আনলো,এনে তনুর কাছে এলো,
তনু-আবার কি???
শিশির তনুর হাতে ফোন দিলো, দেখো এসব কি??
তনু সব মেসেজ পরে নিজেই টাস্কি খেয়ে গেলো, এগুলা তো আমার আইডি থেকে করা চ্যাট,বাট চ্যাট তো আমি করি নি,
শিশির-তুমি আমাকে বলতে পারতা,লুকালা কেন??
তনু-আমি লুকায় নাই,আজব আমি নিজেই জানি না,
শিশির-তো এগুলা কি মিথ্যা??আর তোমার ছবি?
তনু মাথায় হাত দিয়ে বসে রইলো ভাবতে লাগলো এই ছবি ও কারে দিসে,তনু মিনুকে ছাড়া আর কাউরে কখনও পিক দিতো নাহ,না মিনু এমন করতে পারে না,তনু মাথায় হাত দিয়ে চাপতেছে,শিশির হাত থেকে ফোন নিয়ে নিলো
শিশির-থাক বাদ দাও,Rest নাও,just আমার খারাপ লাগসে এই কারনে যে তুমি আমাকে মিথ্যা বলছো,
তনু-আমি কোনো মিথ্যা বলি নি,আমি প্রমান করে দিব
শিশির -লাগবে না,
তনু-যান এখান থেকে,leave me alone
শিশির উঠে চলে যাওয়ার সময় তনু ডাক দিলো
শিশির-কি?
তনু -আমাকে আপনার ফোন টা দিয়ে যান
শিশির ফোন দিয়ে চলে গেলো,তনু খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে সব দেখতে লাগলো,সারা রাত ধরে সব চেক করতে করতে at last tired হয়ে ঘুৃমিয়ে গেলো,
সকালে তনু ঘুম থেকে উঠে শিশিরের কাছে গেলো
তনু-আপনি মাকে বুঝান আমি বাসায় যাবো,
শিশির-না যাবা না
তনু-যা বলছি করেন, এমনিতেও এই বাড়িতে থাকার আমার কোনো শখ নেই,,আর হ্যাঁ single mother হয়ে থাকার ক্ষমতা রাখি,আমি আপনাকে divorce দিব,আশা করি এরপর থেকে আপনি ভালো থাকবেন,
শিশির তনুর হাত ধরলো,
শিশির-কি বলতেছো এসব??
তনু-যা বলছি করেন,
শিশির আর কিছু বললো নাহ,চুপচাপ শিশির মায়ের কাছে গেলো,মা তনু কিছুদিন নিজের মায়ের বাসায় থাকতে চায় তুমি ওরে অনুমতি দাও,আমাদের ঝগড়া মিটে গেসে,মা অনুমতি দিলো তনু সাথে সাথে বাসায় চলে যাওয়া ধরলো,শিশির শেষ বারের মতন তনুর হাত ধরলো,তনু পিছন ফিরে তাকালো না,
শিশির-একবার দেখবা না আমায়?
তনু-যোগ্যতা হারিয়েছেন,
শিশির-ওও,শিশির হাত ছেড়ে দিলো,তনু চলে গেলো,
কিছুক্ষন পর শিশির দৌড়ে গিয়ে তনুর সামনে দাঁড়ালো,
তনু-কি??
শিশির-চলো বাসায় দিয়ে আসি
তনু-লাগবে না,একা চলা শিখে গেসি,
শিশির হাত ধরে টেনে গাড়িতে উঠিয়ে বাসায় দিয়ে আসলো,
বাসায় এসে সেই আবার মদ order করলো,,
১০দিন কেটে গেলো,কেউ কারও কোনো খোঁজ নিলো না,শিশির নিজের কোনো খেয়াল রাখে না,দরজা সারাদিন বন্ধ,মন চাইলে খুলে order করে percel নিয়ে দরজা আটকে দেয়,,ঠিকমতো খায় না,তনুর সাথে যা করেছে তার শাস্তি সে নিজেকে দিচ্ছে,
তনু রিসাদকে একটা খাম দিলো,শিশিরকে দিয়ে আসার জন্য
রিসাদ গিয়ে খাম টা দিয়ে আসলো,
শিশির-Divorce paper, হাহাহা,শিশির মদ খেয়ে উন্মাদ হয়ে গেছে কিছুক্ষণ হেসে দেখলো তনুর সাইন,শিশির কেঁদে দিলো তার পর চোখ মুছে সাইন করে দিলো,,খাম টা ছুঁড়ে মারলো,
শিশির-রিসাদ তুমি যাও, আমি খাম টা নিয়ে আসবো,
রিসাদ চলে এলো,
শিশির আরও মদ খেলো,সব ঝাপসা,কোনো রকম উঠে গাড়ি চালিয়ে বাসায় আসলো,খাম টা হাতে নিয়ে ঢুকলো,
তনু বারান্দাতে দাঁড়িয়ে আছে,,
শিশির ধাক্কা দিয়ে দরজা খুললো,তনু চমকে উঠে পিছনে তাকালো,
শিশির রুমে ঢুকে দরজা লাগিয়ে দিলো,
শিশির-নিজেকে কি ভাবো তুমি??আমার কোনো feelings নাই??খালি তোমার আছে???
তনু-(এই কি অবস্থা করেছে নিজের,চিনা যাচ্ছে না,)আপনি
শিশির তনুর কাছে গিয়ে তনুকে জোরে দেওয়ালের সাথে চেপে ধরলো,
তনু জোরে জোরে শ্বাস নিচ্ছে,শিশির অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে,
তনু-মদ খেয়েছেন?
শিশির একটা আঙুল এনে তনুর ঠোঁটের মাঝখানে রাখলো
শিশির-চুপ,
তনুর থুতনি ধরে মুখ উপরে তুললো,সাইন করে দিসি,তোমার ইচ্ছা পূরন হলো,শিশির হাসতে লাগলো,
হাসতে হাসতে তনুকে ছেড়ে জানালায় গিয়ে দাঁড়ালো,
তনু মুচকি হাসলো,,খাম টা নিয়ে পড়ে নিলো,
শিশির-খুব হাসি পাচ্ছে তোমার তাই না??
এখন তো আমরা husband wife নাহ,শিশির এসে আবার তনুকে চেপে ধরলো,
তনু কিছুটা ভয় পেয়ে গেলো
শিশির-এখন তোমার সাথে কিছু করলে তা অবৈধ্য হবে তাই না??
তনু কিছু বলতে যাবে শিশির কোলে তুলে নিলো,তনু চুপ,
শিশির তনুকে খাটে নামিয়ে দিলো,,
শিশির-ঠিক করলে না এমনটা করে,
চলবে♥

Writer -Afnan Lara
Crush যখন বর?
#Part_60
তনু-আমি কিছু,,,,,শিশির চুপ করিয়ে দিলো,
শিশির-Shhhhhhh
শিশির তনুর পেটে হাত রাখলো,
শিশির-এগুলা আমার,, পেটের ভেতরের বেবিগুলা আমার,পেট টাও আমার,তারপরে তনুর ঠোঁটে হাত দিলো,এই ঠোঁট টাও আমার,তনুর গলায় হাত বুলিয়ে নিলো,এই সব আমার,অন্য কেউ এর ভাগিদার হতে পারবে না,আমি দিব না, কিন্তু??তুমি তো সাইন করিয়ে নিলা,এগুলা আর আমার থাকবে না???
শিশির উঠে বসে পরলো খাটে,,হাত দিয়ে চোখ মুছতেছে,আর হাসতেছে,
তনু বসে তাকিয়ে আছে শিশিরের দিকে,১২দিনে কি হাল করেছে নিজের,তনুর চোখ শিশিরের হাতের দিকে গেলো,,কাটা গেছে কিভাবে?তনু হাত টা ধরে দেখতে লাগলো,কিভাবে হয়সে এটা??
শিশির-জানি নাহ(শিশির রাগ উঠলে দেওয়ালে ইচ্ছা মতো ঘুষি মারে,ঐদিন মেরেছিলো তাই এই অবস্থা)
তনু-নাকি বলবেন না?
শিশির-বলবো না,
তনু উঠতে গেলো bandage আনার জন্য শিশির আটকালে,
শিশির-যে ব্যাথা টা বুকের ভেতর আছে সেটায় bandage লাগাতে পারবা??তাহলে নামিও
তনু কিছুক্ষন তাকিয়ে থাকলো,তারপরে উঠে গেলো,
শিশির-,,,,,,,,
উঠে First aid box নিয়ে জানালার পর্দা টেনে দিলো,শিশিরের কাছে এসে ওর হাত ধরে bandage লাগিয়ে দিলো,,
তারপর হাত ছাড়িয়ে নিতে নিলো শিশির ছাড়লে নাহ,ধরে রাখলো,শিশির নেশার চোখে তাকিয়ে আছে তনুর দিকে,এটা মদের নেশা না,প্রেমের নেশা,
pregnant হওয়ার পর থেকে তনু তেমন সাজগোজ করে না,গোসল করার পর তনুকে এক অন্যরকম সুন্দর লাগে,
আজ ও সেই সৌন্দর্য্য দেখসে শিশির,,
শিশিরের এমন তাকানো দেখে তনু কিছুটা লজ্জা পেলো,হাত ছাড়ানোর চেষ্টা করলো পারলো না,শিশির শক্ত করে ধরে আছে,,,
তনু-সকালে কিছু খেয়েছেন,
তনুর কথায় শিশিরের হুস আসলো,
শিশির-হ্যাঁ খেয়েছি,মদ খেয়েছি,
তনু-আর কিছু খান নি?
শিশির-না
তনু-বসেন,আমি খাবার আনতেছি,
শিশির-নাহ,আমি খাবো না,ক্ষিধা নেই,
তনু-চুপ
তনু উঠে গিয়ে খাবার আনলো,শিশিরের হাতে তো bandage, তনু নিজে হাত ধুয়ে শিশিরকে খাইয়ে দিলো,,
তারপর প্যারাসিটামল একটা খাইয়ে দিলো,
মা কল করলো তনুকে,
তনু-হ্যাঁ মা উনি আমার কাছে,
মা-মা একটু কষ্ট করে ওরে খাইয়ে দিস,ঠিকমতো খাওয়া দাওয়া করে না
তনু -হ্যাঁ মা খাইয়ে দিসি,
মা-যাক, এখন কি করে?
তনু-ঘুমাচ্ছে,,
মা-আচ্ছা,মনে শান্তি পেলাম,
তনু খাট থেকে নামতে যাবে শিশির তনুর শাড়ীর আঁচল ধরে ফেললো,
শিশির-আমার প্রশ্নের উত্তর পাইনি,,এখন যা করবো তা কি অবৈধ হবে?
তনু-মুচকি হাসলো,,
শিশির -হাসলে চলবে না,আমাকে উত্তর দিতে হবে,নইলে আজ আমি এই অবৈধ কাজ করবো,
তনু কিছু না বলে চলে যাওয়ার সময় শিশির আঁচল ধরে টান দিলো,
শিশির-উত্তর দিবা নাতো??
ঠিক আছে,,
তনু-আসলে……..
শিশির মুখ চেপে ধরলো,
শিশির-উত্তর দেওয়ার সময় শেষ,আমি জীবনে এই প্রথম অবৈধ কাজ করবো,Dont disturb me,ok?
তনু-উহুউহু,কিছু বলতে পারছে না,শিশির মুখ চেপে ধরে আছে,,
শিশির সেই নেশার চোখে তনুকে দেখছে,তনুর মুখ থেকে হাত সরালো
তনু-pls এভাবে তাকিয়েন না,আমি মরে যাবো,
শিশির মুচকি হেসে তনুর চুলের মুঠি ধরে নিজের আরও কাছে আনলো,,
শিশির-কতোদিন ধরে এই ঘ্রান পাই নাহ,অভ্যাস হয়ে গেসে এই ঘ্রানের,,
শিশির তনুর ঠোঁটের দিকে চেয়ে রইলো,তনু ভয়ে থাকলে নিজে রোবট হয়ে থাকলেও ঠোঁট টা নড়াচড়া বেশি করে,শিশির নিজের আঙুল দিয়ে ঠোঁট চেপে রাখলো,
শিশির-এভাবে আমার সামনে ঠোঁট আমাকে লোভ দেখাচ্ছে,,আমি যদি খেয়ে ফেলি??
শিশির-আগে দেখবো,তারপরে?
শিশির আবার তনুকে দেখতে লাগলো,তনুকে চেপে ধরে দেখতেছে,তনু নড়তে পারছে না,দম বন্ধ হয়ে আসতেছে,
আর যাই হোক ছেলের শক্তির সাথে পেরে উঠা যায় নাহ,
তনু নড়াচড়া করতে করতে নিজেই tired হয়ে এবার আরেক দিকে তাকিয়ে শিশিরের গা থেকে হাত সরালো,এতোক্ষন শিশিরকে সরানোর বৃথা চেষ্টা করেছে,
শিশির তনুর মুখ ধরে নিজের দিকে ফিরালো,
অজান্তেই তনুর চোখ থেকে পানি যেতে লাগলো,
শিশির হাত দিয়ে চোখের পানি মুছে দিলো,,নিজের দুইহাত দিয়ে তনুর মুখ ধরে এগিয়ে গেলো,নাকে নাক লেগে গেলো,
তনু এতক্ষন বাধা দিসে,এখন আর বাধা দেওয়ার শক্তি ওর নেই,তাই চুপ হয়ে থাকলো,,
শিশির নিজের মতো করে আদর করতে লাগলো,??আর কিছুক্ষণ পর সেই উল্টা পাল্টা কথা,আজগুবি কথা বলতে লাগলো,তার মধ্যে একটা ছিলো,,,,আচ্ছা আমি তো অবৈধ্য কাজ করে ফেলতেছি আমাকে কি জেলে দিবা??????


তনু ঘুমিয়ে আছে,শিশিরের চোখে ঘুম নেই,, তনুর দিকে তাকিয়ে আছে,তারপর ওর চোখ গেলো খামটার দিকে,তনুকে চাদর গায়ে দিয়ে শিশির বারান্দার দিকে চলে গেলো,
এটা কোনো divorce paper ছিলো না,?,এটা ছিলো একটা deal এর কাগজ,,,
শিশির আর তনুর বিয়েতে কাবিন ৬লাখের হয়ে ছিলো,,
শিশির বিয়ের দিনই ৫লাখ দিয়ে দিসিলো,,
১লাখ বাকি আছে,সেটা শিশিরকে আগামি ১০তারিখের আগে দিতে হবে না দিলে তনুকে শিশিরের নিজের অফিসের PA বানাতে শিশির বাধ্য???
আর সেই পেপারে Mr.Sisir chowdhury সাইন করে দিসে,,???
শিশির থ হয়ে গেলো,এটা কি ছিলো???
শিশির তনুর দিকে তাকালো,একটা মেয়ে এতো শয়তান কেমনে হতে পারে???
আমি তো আরও ভাবসি দেশে আর থাকবো না,বিদেশ চলে যাবো,
চলবে♥

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে