♥Love At 1st Sight $2 Part : 13

0
4592

Love At 1st Sight $2

Part : 13

writer-Jubaida Sobti

স্নেহা : দেখো প্লিজ! যেতে দাও আমাকে..?

রাহুল : আমি কি তোমাকে ধরে রেখেছি?? যাও!..

স্নেহা : সরে দাঁড়াও…?

রাহুল সরে দাঁড়ালো..স্নেহা চলে যেতে চাইলে রাহুল আবারো স্নেহাকে টেনে…একই জায়গায় দাড় করাই…?

রাহুল : [স্নেহার কাছে মুখ এনে..] কেনো এসেছিলে…বলো..?

স্নেহা : গী..গীতালি.. বলেছিলো..তুমি নাকি খাওনি..তাই..?

রাহুল : হ্যা তো…খাবার এনেছো?..?

স্নেহা : না..নাহ তো..?

রাহুল : তাহলে পেট ভরবে কিভাবে?..

[ Rahul try to kissed sneha??]

স্নেহা : [ মুখে হাত দিয়ে ] ছিঃ ?

রাহুল : What!?

স্নেহা : এসব কি করছো…?

রাহুল : কেনো লজ্জা লাগছে??

[Sneha’s heart beating fast ?]

রাহুল : Come on sneha! পেয়াস্ লাগিহে মেঠানা তো পাডেগা…?

[Rahul again try to kissed sneha ??] [স্নেহা রাহুলকে ?জোড়ে ধাক্ষা দিয়ে রুম থেকে বেড়িয়ে পড়ে…রাহুল হাসতে থাকে ]

[রুমে গিয়ে স্নেহা মিটিমিটি হাসে..]

মিলি : [স্নেহার পাশে বসে] হুম! তাহলে বাবাকে ও বলতে হচ্ছে…যে ছোট মেয়ের বিয়ের ব্যবস্থাটাও করে নাও…বর মিলে গেছে..?

স্নেহা : [মিলির মুখ চেপে ধরে] আপু???

মিলি : আমার মুখ চেপে ধরে লাব নেই..আমি সব দেখেছি…?

স্নেহা : না আসলে?…আচ্ছা শোনো না..

[ স্নেহা তার বড় বোন মিলিকে সব খুলে বলে]

মিলি : আরেহ! এখন তো ও বলে দিয়েছে…বেচারা কে এত্তো কষ্ট দিচ্ছিস কেনো..বলতো?

স্নেহা : আরেহ! একটু নাচিয়ে দেখছি আরকি..কতোটুকু সজ্য করতে পারে?

মিলি : তুই ও না স্নেহা…?

স্নেহা : আচ্ছা হয়েছে এবার যাও ঘুমিয়ে পড়ো নাহলে কাল ফেকাসে লাগবে?

মিলি : আচ্ছা শয়তান?

পরদিন সকালে,

স্নেহার বাবা : আরেহ রাহুল! কোথায় যাচ্ছো…

রাহুল : এইতো একটু এইদিকটা যাচ্ছিলাম… [ রাহুল মনে মনে..ভাবতে লাগলো বাব্বা এত্তো খুশি লাগছে নিলাজ সাহেবকে কি ব্যাপার ]

স্নেহার বাবা : ওহ আচ্ছা যাও যাও! তবে খেয়েছো তো?..

রাহুল : জি খেয়েছি? কি ব্যাপার আংকেল অনেক খুশি মনে হচ্ছে..?

স্নেহার বাবা : ও হে! আমার মেয়েকে আজ বর পক্ষ দেখতে আসছে…অবশ্য ওরা আগে থেকেই…ওকে দেখে ঠিক করে রেখেছে…আজ আংগটি পড়াতে আসছে.. বিয়েটা কদিন পরেই…হয়ে যাবে…শোনো..বিয়েটা কিন্তু খেয়েই যাবে..?..

[রাহুল হতভাগ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে..কি শুনলো ও?…]
স্নেহার বাবা : আচ্ছা আমি আসি কেমন! তোমার কিছু লাগলে হরিকে বলো..

[ স্নেহার বাবা চলে গেলো ]

রাহুল গিয়ে চারদিক খুজছে স্নেহাকে…

পিছনের উঠোনে গিয়ে দেখে…সব মেয়েরা…নানারকম খাবারদাবার বানাতে ব্যস্ত..আর মহারাণী স্নেহা…খড়ের উপর বসে পা নাড়িয়ে নাড়িয়ে দেখছে…

রাহুলকে দেখে স্নেহা দাড়িয়ে যায়,

স্নেহার মা : আরে বাবা তুমি?..কিছু লাগবে…নাকি?

রাহুল : No আন্টি am alright..

রাশু : মা! জানো অনি ..ঐদিন..কি বলেছে… ওনার নাকি বাসার খাবার গুলো পছন্দ না..তাই রেষ্টুরেন্টে খাবে..?

আর স্নেহা আপু…আমাকে দিয়ে ওনাকে টং এর দোকানে পাঠালো…আমি বললাম এটাই রেষ্টুরেন্ট?

[ রাশুর কথা শুনে সবাই হেসে দিলো ]

মা : চুপ কর! বদমাইশ.. [ রাহুল স্নেহাকে ইশারা করছে…কথা আছে আর স্নেহা মুখ ভেংগিয়ে যাচ্ছে..]

রাশু : আরে ভাই চলেন..এখানে সব মেয়েদের কাজ…আমরা দিঘির পাড়ে যাবো মাছ ধরতে চলেন… [ রাশু রাহুলকে ধরে টেনে নিয়ে গেলো ]

[রাহুল রাশুকে নিয়ে বের হচ্ছে অমনিই উল্টো পথ থেকে স্নেহা এসে…দাঁড়ায়]

স্নেহা : আই রাশু কই যাচ্ছিস! আর এই যে আপনি সব জায়গায় এমনভাবে আসেন যেন কোনো এন্ট্রি সিন্ চলছে…

রাহুল : স্নেহা! এসব কি শুনছি?..আজ নাকি বর পক্ষ আসছে তোমাকে দেখতে?..

স্নেহা : কিহ!?

রাহুল : তোমার বাবাই তো বললো..

স্নেহা খিলখিল করে হেসে উঠলো ..??

রাহুল : Damn it! হাসার কি বললাম?

স্নেহা : হ্যা দেখতে আসবে আমাকে…তো?…

রাহুল : [রেগে] what nonsense! ? তুমি আমাকে আজ বলছো?..

রাশু : কি হলো ভাই? আপুকে লাইন মারা হচ্ছে বুঝি?..

মিলি : [পেছন থেকে গলা ঝেড়ে] এহেম এহেম! আমি কি আসতে পারি?..

[রাহুল অবাক হয়ে পেছন ফিরে তাকালো এটা আবার কে..]

মিলি : আমি স্নেহার…

স্নেহা : [ স্নেহা এসে মিলির মুখ চেপে ধরে] হ্যা মানে আপু বলছে যে আজ স্নেহাকে দেখতে আসছে..আজ আপনার এই বাড়িতে বিশেষভাবে দাওয়াত রইলো..

রাহুল : ? মানে কি?…

[ রাশু আর মিলি মুখ লুকিয়ে হাসতে লাগলো ]

স্নেহা : মানে কি মানে?..?কানে কি কম শুনো নাকি?..

মিলি : স্নেহা হয়েছে অনেক..?আমি স্নেহার বড় বোন…আজ স্নেহাকে না আমাকেই দেখতে আসছে..আপনি টেনশন করিয়েন না..

স্নেহা : ধ্যাত আপু এইটা কি করলা..?

রাহুল : Oh! আপনি স্নেহার বড় বোন?..আচ্ছা আচ্ছা আমি ভেবেছি.. Ok Ok i understand..

মিলি : [ স্নেহার কানে ] বেশি নাচাতে গেলে তখন নিজে ধরা পরবি..শয়তান..

স্নেহা : ধুর যাওতো তুমি..[ মিলি হেসে চলে গেলো ]

[ রাহুল স্নেহার দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে হাসছে]

রাশু : আমার মাথায় কিছু আসে না..এই যে ভাই আপনি আসেন আমি যায়..

রাহুল : [স্নেহার কাছে এসে] মিস্ ড্রামাকুইন আমাকে নাচাতে অনেক মজা লাগছে তাই না?..?

[হঠাৎ, পেছন থেকে খিলখিল হাসার শব্দ]

[ রাহুল আর স্নেহা দুজনেই ফিরে তাকালো.. দেখে অরণি, মহিমা, আর গীতালি একসঙ্গে দাঁড়িয়ে হাসছে..]

মহিমা : হুহ! আর লুকাই লাব নেই..সব বুঝছি আমরা…?

[স্নেহা একটু নার্ভাস হয়ে পাশফিরে যায়..]

রাহুল : এই যে গার্লস গ্রুপ…লুকিয়ে আর হেসো না…এইদিকে এসো তোমরা যে ডেইলি ফোলো করতে তা আমি দেখেছি..

স্নেহা : ?

অরণি : [স্নেহার কানে কানে] আপু তুমিও যাওনা মাছ ধরতে একসাথে?

গীতালি : হ্যা গো দিদি! যাও না..তুমিও একা একা ওনার ভালো লাগবে না…?

স্নেহা : আই! বেশি হয়ে যাচ্ছে না একটু… তোদের ইচ্ছে হলে তোরা যা..?

অরণি : হ্যা আমরা তো যাচ্ছিই..তাই তোমাকে ও আসতে বললাম.. থাক চলেন ভাইয়া আমরা যায়…

স্নেহা : ??

রাহুল : ওকেই [ স্নেহাকে চোখ মেরে সানগ্লাসটা পড়ে নিলো?] Let’s go girls…

স্নেহা : [ বিড়বিড় করে ] হুহ! চশমাটাও এমনভাবে পড়ছে যেন একটা কিছু?

রাহুল : [স্নেহার কাছে এসে ] all the best স্নেহা ?

[স্নেহা রাগান্বিত ?ভাবে রাহুলের দিকে তাকায়..আর রাহুল স্নেহার গলা থেকে টান মেরে স্কার্ফটা নিয়ে মাথায় বেধে নেই]

স্নেহা : আরেহ!?

রাহুল : মাছ ধরতে যাচ্ছি… All the best বলবা না?

স্নেহা : আমার স্কার্ফ??

রাহুল : ওউ! এটা মাছ ধরে এসে দিয়ে দেবো? বাই
ড্রামাকুইন?
… [ রাহুল আর স্নেহার কান্ড দেখে বাকিরা ও হেসে চলে যায় ]

স্নেহা : [ রুমে গিয়ে ] আজিব! ?গেলো তো গেলো আমার স্কার্ফটাও টেনে নিয়ে গেলো… হুহ..

[ এদিকওদিক ছুটাছুটি করছে স্নেহা ]

ধুর আমি এখানে বসে বসে কি করবো…? কি করছে ঐখানে আল্লাহ জানে…

[ হঠাৎ বাইরের দিক তাকাতেই দেখে হরিকাকা ঝুড়ি নিয়ে বের হচ্ছে ]

স্নেহা : [ দৌড়ে গিয়ে ] হরিকাকা..কই যাও তুমি?..

হরিকাকা : আরে দিদিমণি আমিতো দিঘির পাড়ে যাচ্ছি..ঝুড়ি দিতে..কিছু লাগবে?..

স্নেহা : না নাহ! কিছু লাগবে না..এদিকে দাও ঝুড়ি আমি দিয়ে আসি..

হরিকাকা : তুমি দিতে যাবা কেনো..আমি দিয়ে আসি!

স্নেহা : আরে কিছু হবে না! তুমি বাকি জিনিষ গুলো দেখো… আমি দিয়ে আসি..

[ স্নেহা হরিকাকা থেকে ঝুড়ি গুলো নিয়ে দিঘির পাড়ে গেলো দেখে রাশু আর কয়েকজন মাছ ধরছে.. আর মিষ্টার হ্যান্ডস্যাম অনেক তো বলেছে মাছ ধরতে যাচ্ছি…মাছ ধরার নাম নেই..ক্যামেরা দিয়ে ফোটো তুলতে আছে… স্নেহা গিয়ে ঘাটের মধ্যে ঝুড়ি গুলো রাখলো ]

রাহুল : হেই! ড্রামাকুইন! আমি তো জানতাম তুমি আসবে..?

স্নেহা : ওহ! রিয়েলি! হাউ সুইট!?আমি এইখানে ঝুড়ি দিতে এসেছি.. নয়তো আমার বয়ে গেছে আসার জন্যে..

রাহুল : [স্নেহার কাছে এসে] এইদিকে তাকাওতো… [স্নেহা তাকাতেই রাহুল একটা ?ছবি তুলে নেই ..স্নেহা আরো রাগান্বিত ভাবে তাকায় রাহুল আবারো ফটো তুলে নেই]

রাহুল : ওয়াও…স্নেহা কি না পোজ দিলা?

[স্নেহা কিছু না বলে নাক ফুলিয়ে চলে যাচ্ছে…রাহুল ও স্নেহার পিছে পিছে দৌড়ে আসে]

রাহুল : হেই ড্রামাকুইন! কই যাও..

স্নেহা : মরতে যাচ্ছি..?

রাহুল : আরেহ! একা কেনো..আমায় ফেলে?…?

[ হঠাৎ অরণি,মহিমা আর গীতালি ও এগিয়ে আসে]

অরণি : আরে! ভাইয়া চলেন আম বাগানে যাবো.. আমার না কাচা আম খেতে মন চাইছে..

রাহুল : ওয়াও! ম্যাংগো? আই লাভ ইট..ওকে চলো…

স্নেহা : ??

অরণি : আরে আপু তুমিও চলো না প্লিজ!

স্নেহা : নাহ আমি যাবো না তোরা যা!?

মহিমা : আরেহ! চলো তো [ স্নেহাকে টানতে থাকে মহিমা]

স্নেহা : আরে! বললাম তো যাবো না!

রাহুল : থাক থাক বাদ দাও…এমনিতেও ও গিয়ে কি করবে?.. হাইটে ও ছোট মানুষ.. গাছ থেকে আম পারতে পারবে না..

স্নেহা : এক্সকিউজ মি! কি বললে হুম?..?

[ Rahul give a tedi smile?]

স্নেহা : শোনো এই তেডি স্মাইল দেওয়াটা না বন্ধ করো ওকে ফাইন! ?চ্যালেঞ্জ করলাম..যদি আমি তোমার চেয়ে বেশি পেরে দেখাতে পারি তাহলে!

রাহুল : তাহলে তুমি যেটা বলবে আমি সেটা করবো.. ?

স্নেহা : ওকে! ডান?

রাহুল : ?আর যদি আমি তোমার চেয়ে বেশি পেরে দেখাতে পারি…তাহলে আমি যেটা বলবো তুমি সেটা করবে..

স্নেহা : ?ওকে!

রাহুল : Think স্নেহা?

স্নেহা : ডান!?

রাহুল : ওকে তাহলে চলো ?

[ সবাই মিলে একসাথে হাটতে লাগলো.. স্নেহা রাহুলের পাশে হাটতে না চাইলেও রাহুল ইচ্ছে করে করে স্নেহার পাশে হাটছে…আর মিনিটে মিনিটে এক এক রিয়েকশনের ছবি তুলছে..]

অবশেষে পৌছালো…

মহিমা : ওকে! এই দুইটা ঝুড়ি থাকবে..কে কার আগে..ঝুড়ি ভরতে পারে!

স্নেহা : ওকে ওকে…?

রাহুল : স্নেহা ভেবে দেখো এখনো সময় আছে..? তুমি কিন্তু হাইটে ছোট…

স্নেহা : আই ?হাইট নিয়ে বলার কি আছে…আমি তোমার নেহার মতো ১২ইঞ্চির হাই হিল পড়িনা ওকে…?তাই হয়তো তোমার চেয়ে অনেক শর্ট লাগছে..

মহিমা : আরে তোমরা কি ঝগড়াই করবা নাকি…শুরু করবা..?

রাহুল : ইয়াহ! রাইট..? শুরু করো স্নেহা…

[ রাহুল আর স্নেহা দুজনেই…আম পারতে লাগলো… স্নেহা রাহুলের চেয়ে অনেক বেশি পেরেছে…তা রাহুল খেয়াল করলো.. তাই রাহুল অরণিকে ইশারা করাতে…অরণি চুরি করে করে স্নেহার ঝুড়ি থেকে আম নিয়ে রাহুলের ঝুড়িতে ভরিয়ে দিচ্ছে…স্নেহা অবাক হচ্ছে এতোক্ষণে তো ঝুড়ি পুরিয়ে যাওয়ার কথা…কিন্তু এমন কেনো হচ্ছে…কাছের আম তো সবই পারা হয়ে গেছে…বাকি গুলো অনেক উপরে…?]

রাহুল : কি হলো..স্নেহা!? থেমে গেলে যে…আর পারা যাচ্ছে না?.. Any help

স্নেহা : No thanks ?… [ স্নেহা উকি দিয়ে রাহুলের ঝুড়ি দেখলো অনেকটা ভরে গেছে..আর কিছু পারলেই ভরে যাবে… না না..এতো সহজে হার কি করে মানবে স্নেহা… রাহুল চারদিক ঘুরে ঘুরে আম পারায় ব্যস্ত..]

স্নেহা ধীরেধীরে বাকী আম গাছ গুলোতে দেখছে…সব গুলোই নাগালের বাইরে…ঢিল মারছে তাও পড়ছে না..? হঠাৎ দূর থেকে স্নেহার চোখ পড়লো..রাস্তার ধারের আম গাছটার নিচে রাহুলের গাড়ী.. স্নেহা এদিকওদিক তাকিয়ে সেখানে চলে গেলো.. টাইম ওয়েষ্ট করে আর লাভ কি…স্নেহা তাড়াতাড়ি গাড়ির চালের উপর উঠে পড়লো… আহ কত্তো সহজভাবে টুকুর টুকুর আম পারছে স্নেহা…পুরো ওড়নার আচলে ভরে নিয়েছে..]

হঠাৎ,

রাহুল : ওয়াও What a idea! i like it…?

[রাহুলের আওয়াজ শুনাতে হুট করে স্নেহা তার ওড়নার আচল ছেড়ে দেই..আর গরগর করে আম সব মাটিতে পড়ে যায়…? স্নেহা পাশফিরে তাকাতেই দেখে রাহুল..ক্যামেরা হাতে স্নেহাকে ছবি তুলছে স্নেহা জিহ্বাই কামড় দিয়ে দেই ??] [ বাকিরা হেসে উঠে]

রাহুল : স্নেহা! তুমি গাড়ীর চালের উপর কি করছো…?

স্নেহা : [তাড়াতাড়ি গাড়ীর চালের উপর বসে পড়ে] না নাহ! আমি আসলে দেখছিলাম যে তোমার গাড়ীটা টিকসই কিনা…[গাড়ীর উপর একটু বাড়ি দিয়ে] আচ্ছা এটা কিসের তৈরী..

রাহুল : এটা ? …সুতার তৈরী..?

স্নেহা : ????

রাহুল : কি সুতা জিজ্ঞেস করবানা?..?

অরণি : আপু এটা লিনেন সুতার তৈরী?

স্নেহা : সরি!?

রাহুল : আমিতো আগেই বলেছিলাম স্নেহা Think?…আমার সাথে চ্যালেঞ্জ করোনা.. কিন্তু তুমি শুনলানা..

স্নেহা : [ গাড়ীর চাল থেকে নামতে নামতে ] হয়েছে হয়েছে ?যাও..আমি হেরেছি তুমি জিতেছো..

রাহুল : Careful damn it!?দেখে নামো ?

??স্নেহা নেমে এলো ]

রাহুল : থেংকস্ গার্লস্ চলো এইবার..? [ স্নেহাকে চোখ টিপ মেড়ে রাহুল সানগ্লাসটা আবার পড়ে নিলো ]

স্নেহা : ?? [ মুখ ভেংগিয়ে হাটা শুরু করে..]

রাহুল : [স্নেহার পাশে এসে] মনে আছে তো চ্যালেঞ্জ হারলে কি করতে হবে ?

স্নেহা : ??জি! মিষ্টার চাছোড়া মনে আছে..
বলুন কি করতে হবে…

রাহুল : Shut-up don’t call me that..

স্নেহা : [ মুখ ভেংগিয়ে] হুহ!

রাহুল : [হেসে?] are you ready sneha?

স্নেহা : What?

[ রাহুল ইশারা দিয়ে তার ঠোটের দিক দেখিয়ে দিলো ]

স্নেহা : [ চেঁচিয়ে ] কিহ!???

অরণি : কি হলো?..?

রাহুল : কি হলো স্নেহা বলো?..

স্নেহা : ? [ বিড়বিড় করে কি যেন বলে দৌড় দিলো ]

বাড়ীতে পৌছালো,

মা : স্নেহা! কোথায় গিয়েছিলি?..আজকের দিনটা অন্তত না বেড়িয়ে পারতি…

স্নেহা : কি হলো চেঁচাচ্ছো কেনো..আমি আবার কি করলাম..?

মা : নাহ! তুই কিছু করিস নি!..ঘরে কি হচ্ছে না হচ্ছে তোর কি খবর আছে..

স্নেহা : উফ! বাদ দাওতো মিলি আপু কই?..

মা : রুমে আছে যা গিয়ে ওকে তৈরী হতে সাহায্য কর!

স্নেহা : যাচ্ছিরে বাবা..

[ রুমে ঢুকতেই দেখে রাশু একটা গিটার নিয়ে বাজাচ্ছে.. কি বাজে শব্দ আসছে গ্যাং গ্যাং করে]

স্নেহা : আই!? এটা তুই কই পাইলি?..

রাশু : আরেহ! আপু..অই রেষ্টুরেন্ট ওয়ালা রুমে বাজাচ্ছিলো ওর থেকে নিয়ে এসেছি…

স্নেহা : [মনে মনে] ?হুম! আর কিছু সংগে আনুক না আনুক..গিটারটা নিশ্চিত আনবে… প্রথমদিন তো অনেক সাধু সেজে এসেছিলো..নিশ্চয় গাড়ীর ভেতর লুকিয়ে রেখেছে?

[ স্নেহা গিয়ে জানালা দিয়ে উকি দিলো.. ওয়াহ কি ভাবসাব নিয়ে তৈরী হয়ে বেরিয়েছে যেন তারই বিয়ে হচ্ছে রাহুল স্নেহার দিক তাকাতেই আবারো ঠোটের দিক ইশারা করলো স্নেহা তাড়াতাড়ি পর্দা টেনে দেই..রাহুল হাসতে থাকে..? ]

সন্ধায় স্নেহা তৈরী হয়ে উঠোনে এলো…
চারদিক ঘুরঘুর করে দেখছে..খুব সুন্দর সাজিয়েছে.. হঠাৎ,

বাবা : স্নেহা! কি দেখছিস! কেমন হয়েছে সাজানো?..

স্নেহা : হ্যা বাবা অনেক সুন্দর!

বাবা : সবকিছু ঐ শহরের ছেলেটার আইডিয়ায় সাজানো হয়েছে..

স্নেহা : ওহ!?

বাবা : আমার বড় মেয়ের বিয়ে বলে কথা..সব অনুষ্ঠানে সাজানো হবে.. আর ছোট মেয়ের বিয়েতে তো আরো বড় করে সাজাবো..কি বলিস!?

[স্নেহা লজ্জা পেয়ে একটু হেসে দেই]

হঠাৎ, রাহুল স্নেহা আর তার বাবাকে..একসাথে.. দেখে এগিয়ে আসে..

রাহুল : কেমন হয়েছে আংকেল?..

স্নেহার বাবা : হ্যা হ্যা দারুণ সাজিয়েছ..

রাহুল : [ স্নেহাকে চোখ মেরে ]? থেংক ইউ আংকেল! [ স্নেহা মুখ ভেংগিয়ে পাশফিরে যায়]

রাশু : [রাহুলের দিক এগিয়ে এসে] এই নাও ভাই তোমার গিটার…

স্নেহার বাবা : এটা কি?..

রাশু : বাবা! সিংগার সিংগার..এটা বাজিয়ে ওনি গান গায়..?

স্নেহার বাবা : আরে তাই নাকি? তুমি গান করতে পারো?..

রাহুল : জি! হ্যা..মানে ম্যাগাজিন ওয়ার্কের পাশাপাশি গান ও গায় আরকি..?

রাশু : আজ রাতে তো তোমার গান গাইতেই হবে…ভাই

রাহুল : আরে না! কি বলছো এসব!

স্নেহার বাবা : নাহ! কেনো..আজ আমরা সবাই শুনবো তোমার গান!?

স্নেহা : [মনে মনে] গান গাইবে না..? পুরো গ্রামের মেয়েদের পাগল বানাবে.. disgusting [ হন হন করে স্নেহা ভেতরে চলে গেলো ]

[রুম থেকেই আবার উকি দিয়ে দিয়ে দেখছে রাহুল কি করছে…রাহুলের চোখে পড়াতে রাহুল আবারো ঠোটের দিক ইশারা করে স্নেহা তাড়াতাড়ি সরে যায়]

স্নেহা [মনেমনে] কি আজিব বার বার একই জিনিষ করে যাচ্ছে?

মেহেমান চলে এলো চারদিক হৈচৈ..

মা : [ শরবত নিয়ে এসে ] স্নেহা ধর! এগুলো টেবিলে দিয়ে আয়..

[স্নেহা শরবত গুলো নিয়ে টেবিলে রেখে চলে আসছে ]

হঠাৎ,

রাহুল : [পাশে এসে!] Come on স্নেহা তুমি চ্যালেঞ্জ করে এখন ভয় পাচ্ছো…তাহলে তো তোমার নিকনেইম চেঞ্জ করে মিস্ ডারপোক দিতে হবে?

স্নেহা : মোটেও না! ভয় কেনো পাবো হুম!

রাহুল : আমিতো তোমার চোখে ভয় দেখছি!?

স্নেহা : ?প্রতিদিন চশমা পড়ে থাকতে থাকতে তুমি রাতকাণা হয়ে গেছো বুঝলে!

রাহুল : ওকে ফাইন! m waiting… ?যদি তুমি ডারপোক না হোও তাহলে প্রুফ করো…

[ স্নেহা কিছু না বলে রুমে এসে ঢুকে পড়ে]

স্নেহা : [জানালা দিয়ে উকি দিয়ে মনে মনে ] মানে কি! আমি কেনো ডারপোক হবো..? কিন্তু এমন একটা জিনিষ চেয়ে বসলো…উফফ!

মিলি : অই! কি দেখছিস এভাবে?..?

স্নেহা : কই নাতো! ও হে তোমার বর মিষ্টার সিয়াম কে দেখছি..অন্য কোনো মেয়ের সাথে লাইন মাড়ছে কিনা..? By the way কি নাহ লাগছে তোমায়? ভাইয়া তো দেখেই কাত হয়ে যাবে?

মিলি : যাহ শয়তান!

স্নেহা : আচ্ছা তুমি এইখানে কি করছো?..

[ স্নেহা মিলিকে টেনে নিয়ে উঠোনে বেরিয়ে পড়ে..আর তার বরের পাশে চেয়ারে বসিয়ে দেই.. ]

স্নেহা : ভাইয়া ও না আপনাকে লুকে লুকে দেখছিলো তাই…এক্কেবারে ধরে নিয়ে এসেছি?

[ মিলি লজ্জায় উঠে যাচ্ছিলো ]

স্নেহা : আরে আরে! কই যাও…এখন আর লজ্জা পেয়ে কি লাব..?

[উঠোনে বসে…বরের বন্ধুরা..স্নেহা আর তাদের কাজিনরা মিলে অনেক শয়তানি করছে…]

হঠাৎ, দেখে দূর থেকে …রাহুল এগিয়ে আসছে…

রাশু : আরে আরে আসো তোমার অপেক্ষায় করছিলাম… [ রাশু দাঁড়িয়ে গিয়ে ] ভাইরা বোনরা..সবাই শুনুন আমাদের মাঝে এখন একটি গান করতে উপস্থিত হচ্ছে মিষ্টার রাহুল!

রাহুল : হেই! don’t do this please! আমি!

অরণি : আরে ভাইয়া একটা তো অন্তত গাইতে হবে! প্লিজ প্লিজ!

মহিমা : [রাহুলের পাশে এসে] ভাই আমাদের জন্য না..অন্তত স্নেহা আপুর জন্য একটা গেয়ে দাও..?

রাহুল : [ একটু হেসে দিলো ] Ok Ok guyz..?

রাশু : এইনা হলো কাজ! দাঁড়াও আমি নিয়ে আসছি গিটার… ?[ রাশু দৌড়ে গিয়ে রাহুলের গিটার নিয়ে আসে ]

[রাহুল? গিটার হাতে নিয়ে স্নেহার দিকে তাকিয়ে একটু হাসে..আর একটা চোখ টিপ মারে..স্নেহা মুখ ভেংগিয়ে অন্যদিকে ফিরে যায়!]

রাহুল আর কিছু না বলে গিটার বাজানো শুরু করে দিলো…??

[ please don’t skip the song?….listen carefully to imagine this scene, rahul and sneha’s feeling ]??

Sunn mere humsafar,?
Kiya tujhe ithnisi bhi khabar??

ki teri saanse chalti jidhar,?
Rahunga bass wahi umrebhar?

Rahunga bass wahi umrebhar hai,??

[Sneha Blushing ?]

Jithini hasi iya mulakath he,?
Unse bhi pyaari teri baathe he,?
batoon me teri jho kho jathe he,?

Aao na hoshme main kabhi,?
bahome he teri zindegi hai..?

Sunn mere humsafar,?
kiya tujhe ithnisi bhi khabar,?

[Sneha’s heartbeat increased hearing rahul’ voice??]

অরণি : [ স্নেহার কানে ] আররেহ? আপু তুমি হইলে কিনা জানিনা আমি তো ফিদা হয়ে গেলাম??

স্নেহা : আই চুপ কর!?

[সকলে রাহুলের গান শুনে প্রশংসা.. করতে লাগলো… ]

[রাহুল উঠে স্নেহার দিক একবার তাকিয়ে চলে যায়]

প্রায় কিছুক্ষণ পর স্নেহা চারদিক খুজতে লাগলো.. কিন্তু রাহুলকে দেখা যাচ্ছে না.. সবাই তো অনুষ্টানের মধ্যেই আছে..কিন্তু মিষ্টার তেডি স্মাইল কই গেলো…

[রাহুলের রুমের সামনে গিয়ে দেখে দরজা খোলা..স্নেহা উকি দিয়ে দেখলো রুমে নেই…. গিটারটা চৌকির উপর পড়ে আছে..স্নেহা ভেতরে গিয়ে গিটারটা হাতে নিলো.. আর ব্লাশিং হতে লাগলো… ? (মনে মনে) ওয়াহ কি না গেয়েছো…বস্?]

হঠাৎ পেছন থেকে,

রাহুল : মিস্ করছিলে আমায়?..

স্নেহা : [পেছন ফিরে তাকিয়ে?] নাহ! আমিতো.. এমনিতে

[ স্নেহা হুরহুর করে বেড়িয়ে যাচ্ছিলো.. রাহুল স্নেহার হাত ধরে রুমের দরজা আটকিয়ে দেই]

স্নেহা : আরেহ! রাহুল! কি করছো বাড়ী ভর্তী মেহেমান…কেউ দেখে ফেলবে..সরো আমি যাবো…

রাহুল : আচ্ছা তুমি বেড়ালের মতো আমার রুমে উকি দাও কেনো বলো তো..? ডিরেক্ট আসতে পারো না..

স্নেহা : কই উকি দিলাম আমিতো..

রাহুল : তুমিতো আমাকে না দেখা ছাড়া থাকতে পারছিলে না তাইতো?

স্নেহা : নাহ তেমন কিছুই না?

রাহুল : [স্নেহার কাছে এসে] So মিস্ ডারপোক কি ডিসাইড করলে?….??

স্নেহা : Excuse me? i m not ডারপোক….

রাহুল : Ok proof it…?

স্নেহা : Yes! i will proof you!

রাহুল : when? ?

স্নেহা : Now?

রাহুল : রেডি?..?

[স্নেহা ধীরেধীরে রাহুলের কাছে আসে she try to kiss? rahul? কিন্তু রাহুলের চোখের দিক তাকাতেই আবার পিছিয়ে যায়..]

রাহুল : What happen ?

স্নেহা : দেখো প্লিজ তুমি আমার দিক তাকাবানা?

রাহুল : [হেসে?] Ok

[ স্নেহা রাহুলের কাছে এসে আবারো ট্রাই করলো কিন্তু কোনোভাবেই Possible হচ্ছে না..? চুপ করে দাঁড়িয়ে রইলো স্নেহা ]

[Then, রাহুল ধীরেধীরে স্নেহার কাছে এগুতে থাকে..স্নেহা পেছাতে লাগে?]

রাহুল : চ্যালেঞ্জ হেরেছো so punishment তো মিলবেই…?

স্নেহা : দেখো প্লিজ! এসব আমার দাড়া সম্ভব না!? [ স্নেহা রাহুলকে সরিয়ে চলে যাচ্ছিলো ]

রাহুল : [ স্নেহার হাত ধরে ] এভাবে ভেগে যাওয়াটাই তোমার কাজ! আমার ভালোবাসার কোনো মূল্য নেই স্নেহা তোমার কাছে…?

[ স্নেহা ফিরে তাকালে দেখে রাহুল মাথা ঝুকে আছে
কেনো যেন স্নেহার অনেক মায়া হলো রাহুল মাথা ঝুকে থাকায়..]

রাহুল : ওকে স্নেহা গো…আমি আর আটাকাবো না… [ রাহুল স্নেহার হাত ছেড়ে দিলো ]

[ স্নেহা রাহুলের হাত ধরে তার দিক ফেরালো
রাহুল তাকিয়ে আছে..স্নেহ চোখ বন্ধ করে ফেলে]

[রাহুল অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে]

স্নেহা : [রাহুলের অনেকটা কাছে এসে] কিস্ মি?

রাহুল : ইউ ওকে..?

স্নেহা : ইয়াহ! আই এম ওকে!..

রাহুল : স্নেহা!

স্নেহা : শিসস্ Not one more word!

[ Sneha kissed to rahul??]

[After 2mins,both are silent.. nd blushing ?]

স্নেহা : i m not ডারপোক…?

[স্নেহা লজ্জায় লাল ?হয়ে যাচ্ছে আর এক মুহূর্ত ও রাহুলের সামনে দাড়ায়নি…দৌড়ে রুম থেকে বেড়িয়ে যায়…]

[ রাহুল ও Shocked হয়ে ব্লাশিং হতে লাগলো ? কি হলো এটা…]

[রুম থেকে বের হলো…স্নেহা? রাহুলকে দেখতেই লুখে যায়…রাহুল হাসতে থাকে..স্নেহার কান্ড দেখে.. ]

চলবে,

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে