স্বামী পর্ব প্রথম

0
3622

স্বামী পর্ব প্রথম
লেখক/ ছোট ছেলে

২৪ বছর অপেক্ষা করার পর আজ আমি বিয়ে করেছি

বিয়েটা মা বাবার পছন্দ করা মেয়েটা কে করেছি

শুশুর বাড়ি থেকে বিদায় নিয়ে আসতে

শুশুর চোখের জল মুছতে মুছতে

তার কলিজার টুকরাকে আমার হাতে তুলে দিয়ে বললো

শুশুর/ বাবা সবাই জানে সবাই দেখছে

আমি আমার মেয়েকে তোমার হাতে তুলে দিচ্ছি

কিন্তু আমি জানি আমি মেয়ে নয়
আমার কলিজাটা তোমার হাতে তুলে দিচ্ছি

খুব যত্নে মানুষ করেছি
মা বাবার সম্মান নষ্ট হবে এমন কাজ কখনও করেনি

বড় আদরের মেয়ে আমার আমার ঘরটা আঁধার করে আজ তোমার ঘরে প্রদীপ হয়ে যাচ্ছে

কখনও কোন ঝড়ে যেন সেই প্রদীপ নিভে না যাই

কথা দাও আমার মেয়েটাকে সুখে রাখবে গুঁছিয়ে নিভে নিজের মত করে

শুশুর আমার কান্নার জন্য আর কিছু বলতে পারেনি

তবে তার না বলা কথা গুলো আমি বুঝতে পারছি

শুশুরের কান্না দেখে বুঝেছি আমি কি নিয়ে যাচ্ছি নিজের করে

নতুন জামাই তারপরও সব লাজ সরম ভুলে শুশুরকে কথা দিয়েছি

আমি/ আপনার মেয়ে ঠিক তেমন-ই থাকবে আমার কাছে
যেমনটা আপনার ঘরে ছিলো

কিন্তু একটু ভিন্নংভাবে

আপনার কাছে ছিলো কলিজা

আর আমার কাছে হয়ে থাকবে পাগলী

সব আয়োজন শেষে আমার পাশে বসানো হলো নীলা

নীলা দিকে তাকিয়ে দেখি তার হুঁশ নেই

আমি তার মাথাটা আমার বুকে নিয়ে একহাত দিয়ে জড়িয়ে নিলাম

পাশে আছে এক খালাতো বোন নাম জেরী

জেরী/ হুহহহহহ…..
ভালোবাসা দেখে আর বাঁচিনা

আমি/ কেনরে তোর কি খুব হিংসে হচ্ছে?

জেরী/ হিংসে তো হবেই
এমন বর কি আর আমাদের কপালে জুটবে

আমি/ তোর কপালেও আমার মত একটা ছেলে জুটবে

যে তোকে আমার থেকেও অনেক ভালোবাসবে অনেক আদরে রাখবে

জেরী/ কি করে এতটা নিশ্চিত হলে

আমি/ কারন…. ঐরকম ছেলে ছাড়া আমরা তোর বিয়ে দিবনা

দেখতে দেখতে বাড়িতে দিকে চলে আসলাম

গাড়িটা দেখে ছোট ছোট পিচ্চি ছেলেমেয়ে গুলো দৌড়ে আসলো বউ এসেছে বউ এসেছে বলে

আমি গাড়ি থেকে নামি

কিন্তু নীলা তো হুঁশ নেই

সে কিভাবে যাবে

কেউ একজন বলে বউকে কোলে করে ঘরে নিতে হবে

আমিতো হাঁটতে লাগলাম ছোট এক ভাইকে বললাম

আমি/ যা তোর ভাবিকে তুই ঘরে নিয়ে আয়

ভাই/ পারবনা বিয়ে করেছ তুমি

আদর সোহাগ ভালোবাসা তুমি পাবে সব

তো যায়না নিজের বউকে নিজে ঘরে তুলো

ছোটভাই কথাটা দুষ্টুমি করে বলছে

কিন্তু তাতে কি নতুন জামাইতো কি হয়েছে লোকে যা বলার বলুক
লোক লজ্জার ভয় আমি করিনা

নিজের বউকে নিজে কোলে করে ঘরে নিয়ে গেলাম

সবাই পিছন থেকে অনেক বলাবলি আর হাঁসাহাঁসি করছে

ধ্রুব পাগল হয়ে গেছে
নিজের বউকে নিজে ঘরে নিয়ে যাচ্ছে কোলে করে

আমি আর কি করবো লোকের কথায় কান দেইনা

বলুক না যার যা ইচ্ছা তাতে আমার কি বউটা তো আমার বড় আদরের

একটা ঘরে নিয়ে রাখলাম

উফফফফ….. একটু দম নিয়ে নেই

মনে মনে ভাবছি আজ যদি একটা মুটকিকে বিয়ে করতাম

তাহলে হয়তো আর আমাকে খুঁজে পাওয়া যেতনা

বউটাকে দেখতে ছোট বড় অনেকে আসা যাওয়া করতেছে

কিন্তু তার হৃদয়ের কান্নাটা কেউ দেখতে পায়নি

আমিও একটু উঁকি মেরে দেখতেছি

মেয়েটার স্বামী হলেও এখন মনে হয় আমি কেনা

বউয়ের দিকে তাকাতে বুঝতে পারলাম তার হৃদয়ের কান্নাটা

মনে মনে বলতে লাগলাম কাঁদিসনা পাগলি চেয়ে দেখ তোর পাগল দিকে

তোর চোখের জলে যে আমারও খুব কষ্ট হয়

জেরী আমায় দেখতে পেয়ে বলে

জেরী/ ভাইয়া তুমি এখন এখানে কি করছো যাও

সারারাত সময় পাবে দুচোখ ভরে দেখ ভাবিকে

চলে গেলাম

এখন সময়টা তোদের চোরাই দেখ

আমি নাহয় দেখবো রাতে দুচোখ জড়িয়ে

দেখতে দেখতে অনেক রাত হয়ে গেলো

জেরী এসে বলে

জেরী/ ভাইয়া চল

তোমাকে ভাবির কাছে নিয়ে যাই
অভাগী চটপট করতেছে তোমার অপেক্ষায়

চলবে….???

 

প্রিয় পাঠক আপনারা যদি আমাদের (গল্প পোকা ডট কম ) ওয়েব সাইটের অ্যাপ্লিকেশনটি এখনো ডাউনলোড না করে থাকেন তাহলে নিচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করে এখনি গল্প পোকা মোবাইল অ্যাপসটি ডাউনলোড করুন:

??????

https://play.google.com/store/apps/details?id=com.golpopoka.android
https://play.google.com/store/apps/details?id=com.golpopoka.android

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে