শিরোনামহীন পর্বঃ২

0
584

শিরোনামহীন
সৌরভে_সুবাসিনী(moon)
পর্বঃ২

প্রায় পনেরো ঘন্টা সময় হয়েছে আনতারা নিজেকে ঘরের মধ্যে বন্দী করে রেখেছে। গত রাতে সাবেতের সাথে একদফা কথা কাটাকাটি হয়।
আনতারা যথেষ্ট চেষ্টা করেছিলো নিজেকে সামলে, শান্ত রেখে সব কথা জানার কিন্তু পারেনি সে।
গতকালের কথোপকথন কিছুটা এমন ছিল,

“আরা! আরা আমার কথা শুনো তারপর তোমার যা ইচ্ছা হয় আমাকে বলো। তবে আগে… ”

“আপনি কি কথা শোনাবেন আমাকে? কিভাবে আমার সতীন আনলেন এটা?”

অপর পাশে থেকে একটা দীর্ঘশ্বাস ভেসে আসে। দীর্ঘশ্বাসের কারণ আনতারার অজানা নয়। ফুপিয়ে কেঁদে উঠে আনতারা। কান্নার শব্দে সাবেত বলল,

“একটি পয়সার কিন্তু দুটো পাশ থাকে। এক পাশ জানলে তোমাকে অপর পাশ জানতে হবে। ”

“দয়া করুন আমার উপর। আপনি ফিরে আসেন আমার কাছে। আমার কিছুই লাগবে না।আমি আপনার অল্প আয়ের সন্তুষ্ট ছিলাম, ভবিষ্যতে থাকবো।”

“পাগলামো করে না।আমার কথা শোন।”

“মেয়েটা কি মারিয়া? ”

পুনরায় একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে সাবেত জবাব দিলো,

“হ্যাঁ।”
“কেনো করলেন আমার সাথে এমন অভিনয়? অভিনয় করতে গিয়ে কখনো ক্লান্ত লাগেনি?”

“আমি কখনো অভিনয় করিনি।তুমি প্লিজ আমার কথা শোন।”

“আজ আপনার ঘরের নিচে বসে পশ্চিম দিকে আঁচল ফালিয়ে আল্লাহ্ এর কাছে চাইলাম। আমার লাশ যেনো আপনার দেখার ভাগ্য না হয়।”

“এই মেয়ে এই। তোমার এত কিসের কথা? কতক্ষণ যাবত কিছু বলার চেষ্টা করছি শুনবি না তো?
তোকে কিসের কমতিতে রেখেছি? তোর কোন কম আছে কিছুতে? তাহলে তোর এত কিসের রাগ?
আমি বিয়ে করেছি আমার ইচ্ছায়। কি করবি যা কর। আমাকে আর কোনদিন কল দিবি না।
যা তো যা।”

আনতারা জবাব দেওয়ার আগেই সাবেত কল কেটে দেয়। তারপর নাম্বার ব্লকড। আনতারা চেয়েও পুনরায় কল দিতে পারছিলো না।
রাগে শ্বাশুড়ির ফোন সজোরে ছুড়ে মারে ফ্লোরে। স্ক্রীন ফেটে চৌচির হয়ে গেলো মুহূর্তেই।

ভোরবেলায় নামাজ শেষ হতে না হতেই জমে উঠেছে মজী শেখের চায়ের দোকানে আড্ডা। শীত, বর্ষা বা গ্রীষ্ম। যাই হোক না কেনো, মজী শেখের দোকানে চায়ের সাথে আড্ডা জমে উঠে।
আজকের বিষয় সাবেতের বিয়ে। গ্রামের বাচ্চা-বুড়ো সবার কাছেই এখন সব জানা।

চা হাতে মকবুল চৌধুরী প্রথম মুখ খুললেন এ বিষয়ে। বৃদ্ধ কৃষক মকবুল চৌধুরী। একসময় যুদ্ধ করেছেন ভাষার জন্য,দেশের জন্য,জাতির জন্য।জীবনে অনেক মানুষ দেখেছেন,জীবন মূহুর্তে মূহুর্তে শিখিয়েছে। আজ তার মন খারাপ।ভীষণ খারাপ, শুধুমাত্র কন্যাসম আনতারার জন্য।দীর্ঘশ্বাস ফেলে মকবুল চৌধুরী বললেন,

“বুঝলা রাসু,মেয়েটা বড্ড শান্ত স্বভাবের। দেখলেই সালাম দিয়ে কথা কইবে,সবার বিপদে আপদে সাহায্য করে। বাপের মতন বৈশিষ্ট্য পাইছে। মেয়েটার সাথে সাবেত এমন না করলেও পারতো।”

প্রতি উত্তরে রাসু ওরফে রাশেদ মিয়া বললেন,

” বুঝি মিয়া ভাই। কিন্তু কি কমু কন? সাবেতের মতন পোলায় এমন কাজ করবার পারে এটা কি আমরা কেউ ভাবছিলাম? ওর মতন ভদ্র পোলা কি আমাগো দশ গ্রামে আছে?”

“মাইয়্যাডা এখন কি করবো কে জানে? ওর ভাইয়েরা কিছু জানে না না কি? এহনো তো ফজলে দোকান খোলে নাই।খবর কি পায় নাই? ”

কথা শেষ করেই মকবুল চৌধুরী আশেপাশে চোখ মেলে দেখতে লাগলো।

এ বাজারে খুব ভোরেই শুরু হয় কেনা-বেচা। এখান থেকে পাইকারী দরে বিক্রি হয় জিনিসপত্র, সবজি।বেলা একটু হতে না হতেই বাজারের পরিবেশ হয়ে উঠে মুখরিত। শহর থেকে আসে ছোট ছোট মিনি ট্রাক।এক দফা দরদাম চলে তারপর বোঝাই করা মিনিট্রাকগুলো লাইন বেধে যেমন আসে তেমন চলে যায়। পরিবেশ আবার শান্ত হয়ে যায়।

রাতে বৃষ্টি হওয়ায় রাস্তায় বেশ কাঁদা জমেছে। সাইকেল নিয়ে আজ আসতে বেশ অসুবিধে হচ্ছে ফজলের।
ফজলে ওরফে ফজলে করিম। আনতারার বড় ভাই৷ এই বাজারে তাদের বড় বড় তিনটে দোকান।তিন ভাই-বোনের নামে। আরেক ভাই আনিসুল করিম। দুই ভাই মিলে ব্যবসা দেখে। ফজলে করিমের বয়স চল্লিস ছাড়িয়েছে।শরীরে ধীরে ধীরে বার্ধক্য জায়গা করে নিচ্ছে।
দোকানের কাছাকাছি এসে ঘটলো বিপত্তি। ফ্যাচফ্যাচে কাঁদায় পা ফসকে গেলো।
দোকানের কাছে আম গাছটায় সাইকেল ঠেস দিয়ে দাঁড় করিয়ে ফজলে সাহেব গেলেন মজী শেখের দোকানের পাশে টিবওয়েলে পা পরিষ্কার করতে। ততোক্ষণে কর্মচারী এসে দোকান খুলে ঝাড়ু দেওয়া শুরু করেছে।

ফজলে কে দেখেই মকবুল চৌধুরী হাত ইশারায় ডাকলেন।বাবার বয়সী চাচার ডাকে হাসি মুখে এগিয়ে গেলেন ফজলে রাব্বী।

তবে হাসি মুখে কি আদৌও হাসি থাকবে? না কি ক্ষণিকের মাঝে হাসি কর্পূরের মতন উবে দেখা দিবে একরাশ ঘন কালো মেঘ।

আনতারাকে যখন শ্বাশুড়ি বার বার ডেকেও কোন সাড়াশব্দ পাচ্ছিলো না তখন বেশ চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করেন ভদ্র মহিলা।একে তো এলাকার সবাই বেশ মজাদার মসলাদার বিষয় পেয়েছে আলোচনার জন্য অপর দিকে যখন সকাল সকাল সে বাড়ি থেকে চিৎকারের আওয়াজ আসে তাহলে শূন্য বাড়ি পূর্ণ হতে সময় লাগে না।
আনতারার দেবর যখন ঘরের পিছনের জানালা ভেঙে ভিতরে ঢুকে দরজা খুললো তখন প্রথমে রুমে এলো সাবেতের মা।
খাটের বা পাশে জানালার পাশে তখন আনতারা উবু হয়ে পড়ে আছে। চোখ মুখ নীল বর্ণ ধারণ করেছে।
তবে কি যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগেই হার মেনে আনতারা পাড়ি জমালো পরকালে?

চলবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here