মেয়েটা অসত্বী পর্ব/ ৯

0
1996

মেয়েটা অসত্বী পর্ব/ ৯

লেখক/ ছোট ছেলে

^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^
আমি/ রাতে আসতে হবেনা আর এখন থেকে বাহিরে
আমরা দেখা করবো

তবে আসতে পারো কিন্তু রাতে থাকতে পারবেনা

নীলা/ এসব তুমি কি বলো আমি কিছুই বুঝতেছিনা

আমি/ তোমাকে বুঝতে হবেনা
এখন রাখি রিমিকে নিয়ে বাসায় যেতে হবে

ফোনটা রেখে দিলাম নীলাকে আর কিছু বলার সুযোগ দেইনি

একজন নার্স এসে বললো

নার্স/ ধ্রুব কে

আমি/ জ্বী আমি

নার্স/ আপনাকে ডাকছে আপনার রোগী

আমি তাড়াহুড়ো করে গেলাম রিমির কাছে

আমি/ কি হলো কিছু লাগবে তোমার

রিমি/ মাথা দিয়ে বোঝানো না

আমি/ তাহলে ডাকলে কেন

রিমি/ হাত দিয়ে বোঝালো তার পাশে একটু বসতে

রিমি আমার একটা হাত টেনে তার মাথায় রাখলো

আমি কি করবো বুঝতেছিনা

আমি/ কি বাসায় চলে যাবে

রিমি/ অনেক কষ্টে উত্তর দিলো হুমমমমম

আমি/ ঠিক আছে তুমি বসো আমি ডাঃ এর সাথে কথা বলে আসি

ডাঃ এর সাথে কথা বলে রিমিকে কাছে আসলাম

রিমি/ ডাঃ কি বলছে বাসায় যেতে পারবো

আমি/ হুমমমম

রিমি/ তাহলে আমাকে বাসায় নিয়ে চলুন

কি আর করা বলছে যখন তখন আর নিয়ে যাই

রিমিকে বাসায় নিয়ে আসলাম

আমি/ চুপচাপ শুয়ে থাকো চোখ বন্ধ করে কোন কথা বলবেনা

রিমিকে শুয়ে দিয়ে আমি অন্য ঘরে এসে বসে রইলাম

কিছুক্ষণ পর নীলা আসলো

আমি/ আরে তুমি এই সময়

নীলা/ কেন আসতে পারিনা বুঝি

আমি/ তা কেন নয় যখন ইচ্ছা তখন-ই আসবে

নীলা/ তা আর কিভাবে মনে হয় এবার সেই দরজাটা বন্ধ হয়ে যাবে

আমি/ কেন

নীলা/ যেভাবে বউ পাগল হলে
তাতে তো দেখি আমার জন্য দরজাটা চিরদিনের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে

আমি/ আরে না কি বলো তুমি
ডাঃ বললো ওর একটু সেবাযত্ন নিতে তাই একটু

নীলা/ থাক আর বলতে হবেনা

আমি/ চলো ওকে দেখবে

নীলা/ পাগল নাকি আমি যাবো ঐ মেয়েকে দেখতে হা হা হা

আমি/ এ কি এতে এত হাঁসির কি আছে

নীলা/ শোন আমি তোমাকে দেখতে এসেছি তোমার সাথে একটু সময় কাটাতে এসেছি

তোমার বউয়ের সাথে নয়

আমি/ ওহহহহহ

তা আমার সাথে দেখা তো হলো কথা হলো

এবার তুমি আসতে পারো

নীলা/ মানে কি তুমি আমাকে তাড়িয়ে দিবে নাকি

আমি/ হুমমমম মনে করো তাই যার মাঝে এতটুকু মনুষত্ব্য নেই তার সাথে আর যাই হোক কোন সম্পর্ক করা যায়না

তুমি আসতে পারো

নীলা/ আচ্ছা আচ্ছা তুমি যখন এত করে বলছো তখন আর কি করা চলো দেখে আসি

আমি/ না তোমাকে দেখতে হবেনা তুমি এখন যাওতো

নীলা/ ধ্রুব তুমি এমন করছো কেন

আমি/ প্লিজ তুমি যাবে

নীলা/ আচ্ছা ঠিক আছে আমি যাচ্ছি

আমি/ হুমমমমম

এই ফাঁকে রিমিও বের হয়ে আসলো

আমি/ এ কি তুমি আবার উঠে আসলে কেন

তোমাকে না ডাঃ বারণ করেছে

রিমি/ আপুকে ফেরাও আপুতো চলে যাচ্ছে

আমি/ যে যাবার তাকে যেতে দাও এটা নিয়ে তোমাকে ভাবতে হবেনা

যাও তুমি তোমার ঘরে যাও

রিমিকে নিয়ে তার ঘরে গেলাম

চলে আসার সময় রিমি আমার হাত ধরে বলতে লাগলো

আমি/ ক্ষমা কিসের ক্ষমা

রিমি/ এইযে আমার জন্য নীলা আপনাকে ভুল বুঝে চলে গেছে

আমি এ কিরে বাবা নিজের কথা না ভেবে অন্য আরেকটা মেয়ের জন্য এত ভাবে

তার সাথে যার না আছে রক্তের সম্পর্ক আর না আছে কোন আত্মীয়ের পরিচয়

আমি/ দেখ কি ভাঙ্গলো আর না ভাঙ্গলো সেটা নিয়ে তুমি চিন্তা না করলেও চলবে

আগে তুমি সুস্থ হও তারপর দেখা যাবে

রিমির চোখ দিয়ে পানি পড়তে লাগলো

আগে না বুঝলেও এখন বুঝতেছি

দেহের ক্ষত চেয়ে তার মনের ক্ষতটা অনেক বেশি অনেক যন্তণাদায়ক

রিমির মাথায় হাত বুলিয়ে ঘুম পাড়াতে পাড়াতে মনে মধ্যে অনেক প্রশ্নের জন্ম হলো

সত্যি কি রিমি অসত্বী
সত্যি কি ওর জীবনে আমার আগে অন্যকেউ এসেছিলো

আচ্ছা ওর জীবনে যদি কেউ থেকে থাকে

তাহলে তো এত অত্যাচার নির্যাতন সহ্য না করে ঐ ছেলেটার হাত ধরে চলে যেতো

নাকি আমার চোখে কালো চশমার কারনে রিমির মত একটা ফুলের মত পবিত্র মেয়েকে মিথ্যে অপবাদ দিয়ে যাচ্ছি

উফফফফ……..।

একটু আদর যত্ন পেয়ে রিমি ঘুমিয়ে পড়লো

আচ্ছা….কিছুক্ষণ ঘুমাক

ঘুম ভাঙ্গলে ঔষধটা খাইয়ে দিবো

কিন্তু খালি পেটে ঔষধ কি করে খাওয়াবো

বাসায় তো কিছু রান্না নেই

এখন কি করবো দোকানে যাবো

না রিমিকে একা রেখে কোথাও যাবোনা

বাসায় রুটি আছে আপাতত রাতটা এটুকু দিয়ে চালিয়ে দিবো

রিমির পাশে গিয়ে বসে রইলাম

কখন ওর ঘুম ভাঙ্গবে

আমি তার পাশে বসে মোবাইল টিপি

একটু পরে রিমির ঘুম ভাঙ্গলো

রিমি/ এ কি আপনি এখানে

আমি/ তোমার অপেক্ষায় আছি

রিমি/ আমার কেন
ওহহহহহ বুঝেছি আপনাদের জন্য রান্না করতে হবে তাইতো

বলে রিমি উঠতে গেলো

আমি/ আরে আরে কি করছো কি করছো তুমি

চলবে…???
রিমি/ আমাকে ক্ষমা করে দিবেন তো

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে