বসের সাথে প্রেম পর্ব- ১৪

বসের সাথে প্রেম
পর্ব- ১৪

লেখা- অনামিকা ইসলাম।

ছেলেটির ডায়েরী_
শার্ট পেয়ে কিছুটা কনফিউশনে থাকলেও প্রকাশ করিনি মায়া’কে। রাত্রে খেয়ে আসার পর শার্ট’টা গায়ে দিলাম।হঠাৎ’ই গলার কাছের বড় ছাপ’টার দিকে চোখ যায়। মনে হয়ে যায় দুপুরে ওর মার্কেটে যাওয়ার কথা। মুহূর্তেই সব ক্লিয়ার হয়ে গেল। সেদিন রাত্রে ঘুমানোর আগে ওকে দেখে আসার জন্য ওর রুমের জানালা দিয়ে তাকাইলাম। তারপর যা দেখলাম তাতে আমি পুরো ‘থ’। মায়া একটা শার্ট ঝাপটে ধরে শুয়ে আছে। চোরকে হাতেনাতে ধরার জন্য দরজায় নক করতে গেলাম। কিন্তু একি!!!
দরজা যে খুলে গেল…
তবে কি ও দরজা খুলা রেখেই ঘুমিয়েছিল?!!!
যাক….
দরজা ঠেলে ভিতরে ঢুকলাম। তারপর শার্ট’টা ধরে টান দিলাম। ওর কোনো সাড়া নেই। ওহ, ওনি তাহলে শার্ট বুকে নিয়েই ঘুমিয়ে পরেছিল?!!!
মনে মনে রাগ হচ্ছিল ভিষণ,
এত ভালোবাসে তবুও বলেনি না, সেই জন্য।
সে রাতে আমি ওর রুমের সোফায় বসে ছিলাম।
মাঝরাত্রে ওর ঘুম ভেঙে যায়। চমকে উঠে ও আমায় দেখে। তারপর কাছে যাওয়া, হাত ধরা, এক সাথে বিছানায় হুমড়ি খেয়ে পরে যাওয়া অনেক কিছু’ই হয়। সবশেষে ও আমায় ঘুমানোর কথা বলে। বলে যে__
“ঘুমাবেন না?”
প্রতিউত্তরে আমি বলেছিলাম, ঘুমাবো।
আমি ঘুমাবো ওর রুমে, ওর বুকে। ও থমকে গিয়েছিল সেদিন। ভয়ার্ত দৃষ্টিতে আমার দিকে ফিরে তাকিয়েছিল।
তারপর আমাদের দু’জনের মধ্যে যা কথা হয়_
~এভাবে তাকিয়ে আছ কেন?(আমি)
★……..(….)…..(মায়া)
~চলো, ঘুমাতে যায়।সারারাত একটুও চোখের পাতা এক করতে পারিনি (আমি)
★ভাইয়া, আপনি সারারাত এখানে বসে ছিলেন?(মায়া)
~জি, এখন চলো তো। ঘুমাবো….??(ওকে টান দিয়ে বুকের কাছে এনে আমি)
★আমি শরীর’টা বেশী ভালো লাগছে না, আমি মায়ের সাথে ঘুমাবো।??(কাঁপা কন্ঠে মায়া)
~ এত রাত্রে আম্মুকে পাইবা কই? আর তাছাড়া ওনি এখন ঘুমিয়ে আছেন।(আমি)
★আমার শরীর’টা বেশী ভালো লাগছে না। আমি ঘুমাবো। অন্য রুমে গিয়ে ঘুমাবো।প্লিজ ছাড়েন আমায়.. (ছাড়ানোর চেষ্টা মায়া)
~ছাড়ার জন্য তো ধরিনি মায়া পরি! ওকে টান দিয়ে আরো কাছে নিয়ে এলাম। তারপর ওর ঘাড়ের এলোমেলো চুলগুলো সরিয়ে উপর থেকে নিচ পর্যন্ত হাত দিয়ে রেখা টেনে নিচ্ছি। ও চোখ দুটো বন্ধ করে ফেলল। ওর ঘাড়ের কাছে মুখ নিয়ে গেলাম। ও ঘন ঘন নিঃশ্বাস নেওয়া শুরু করে দিল। যেহেতু আমার বুকের সাথে ও মিশে ছিল, তাই ওর প্রতিটা নিশ্বাসের শব্দ আমি শুনতে পাচ্ছিলাম। আর কম্পনগুলোও যেন মনে হচ্ছিল আমি গুনতে পারব। ওর নিঃশ্বাস ক্রমাগত বেড়ে’ই চলছে, আর আমি ওর মুখের দিকে তাকিয়ে আছি। ক্ষাণিকবাদেই ও চোখ খুলে….
~কি?!!! ভয় পেয়েছ???
★…….(মায়া)
~আচ্ছা, চলো। ঘুমাই এখন। ওকে নিয়ে বিছানায় বসাইলাম। তারপর বালিশ’টা ঠিক করে ওকে জোর করে শুইয়ে দিলাম। তারপর জানালাগুলো ভালো ভাবে আটকিয়ে, রুমের লাইট’টা নিভিয়ে দিলাম। ও স্তব্ধ হয়ে আছে। কোনো কথায় বলেনি। কিছুক্ষণ পর_
‘ আমি কিন্তু বালিশ আনিনি, তোমাকেই বালিশ বানিয়ে ঘুমাবো কিন্তু আজকে….’
★মায়া নিশ্চুপ। আমি আবারো বললাম, আজ কিন্তু তুমি আমার বালিশ…
~নিশ্চুপ মায়া….
★এবার ওর চোখে মোবাইলের আলো ফেললাম। একি?!!! ও যে কান্না করছে, আর ভয়ে কুকড়ে আছে….
ঐ কান্না করছ কেন?
ও কেঁদেই চলেছে। যতই বলি, কান্নার মাত্রা’টা যেন তত’ই বেড়ে যাচ্ছে…..
~ওহ, ভয় পাচ্ছ?!!!?
যাও। শুইব না তোমার বুকে… ?তুমি আমায় জায়গা দাও। আমি ঘুমাবো বালিশে…?
★যেই না কথা’টা বললাম, কান্না থামিয়ে ও লাফ দিয়ে উঠে বসল। আমি ওর বালিশে শুইলে ও লাফ দিয়েই চলে যেতে চাচ্ছিল। তখনি ওর হাত’টা ধরে ফেললাম। ও ভয়ে ভয়ে আমার দিকে তাকালো। ওকে টান দিয়ে বুকের মধ্যে নিয়ে এলাম__
~কি করছেন, এসব?(মায়া)
★করিনি, করব…??
~ও কাঁপা কন্ঠে বলল, কি?
★অনেক কিছু।☺☺
~আমার কথা শুনে এবার আর ও ভয় পেল না। স্ট্রংলি জবাব দিল,
করেন… তাড়াতাড়ি করা শুরু করেন। তারপর আমি ঘুমাবো।
★ এই!!!? তুমি আমায় কি ভাবো বলো’তো?!!?
আমি লুইচ্ছা, ইতর, বদমাইশ..?????
আমাকে কি তোমার তাই মনে হয়?!!!??
এটুকু’ই চিনলা তুমি আমাকে?!!!??
যাক!!!
ভালোই চিনছ…??
কথাগুলো বলে অভিমান করে রুম থেকে বের হয়ে চলে যায়। ও সাথে সাথে দরজা আটকিয়ে দিল।

পরদিন ঘুম ভাঙে ৯টায়। তাড়াতাড়ি করে উঠে রেডি হয়ে না খেয়েই চলে গেলাম অফিসে। রাতের রাগ’টা এখনো যায়নি। ও আমায় এমন ভাবতে পারল???
আজ আর অফিসে এসে ওর খুঁজ নিলাম না। সোজা গিয়ে আমার রুমে বসে ছিলাম। কিছুক্ষণ পর কি মনে করে যেন বাইরে গেলাম। বাইরে গিয়ে দেখি,মায়া নাই…
কনাকে জিজ্ঞেস করলে ও বলে, ‘মায়া আসেনি…’
ওহ, ভালো বলে রুমে চলে গেলাম। খুব ঘুম পাচ্ছিল। কনাকে বললাম, আমাকে যাতে তিনটার আগে ডাক না দেই। যদি আমার বাবাও আসে তাতেও যেন ডাক না দেয়…”
ঘুমিয়ে পরলাম….
ঘুম ভাঙে বাইরে কারো তর্কাতর্কির আওয়াজে। বিরক্তি নিয়ে চোখ মেলে তাকালাম। কনাকে ডাক দিয়ে জানতে চাইলাম কি হয়েছে?!!!
কনা মায়ার কথা বলল।
বলল যে, মায়াকে না করা সত্ত্বেও নাকি ও আমায় ডাকতেছিল।
আমি জোর গলায় বললাম_
কনা! মিস মায়াকে বলে দিন আমি এখন ঘুমোব…
মায়া কিছুতেই কনার কথা শুনতে রাজি নয়। ও কোর করেই রুমে ঢুকল। তারপর আমার কাছে এসে__
ভাইয়া! আপনার খাবার….
চোখ তুলে তাকালাম ওর দিকে। তারপর….
” আপনাকে মানা করেছি, তারপরও চলে এসেছেন?আর কিসের খাবার?!!!?”
★ভাইয়া! আপনি খেয়ে আসেন নি, তাই নিয়ে এসেছি….
~রাখেন আপনার খাওয়া। আমি আপনাকে মানা করার পরও আপনি রুমে ঢুকে গেলেন? কোথায় পেলেন এত স্পর্ধা? অফিসের নিয়ম কানুন কি কিচ্ছু মানবেন না বলে ঠিক করছেন আপনি?
★ভাইয়া! আমি তো আপনার….(……..)….
~স্টুপিড! আর কোনো কথা বলবেন না। আর এটা অফিস, বাসা নয়। এখানে সবাইকে রেসপক্ট দিয়ে চলবেন। কনা আপনার সিনিয়র, ওকে আপু ডাকবেন, আপু। আর আমি আপনার স্যার…
আজ থেকে স্যার ডাকার চেষ্টা করবেন। আর পি.এ পি.এ হয়েই থাকবেন। কারো পার্সোনাল মেটার নিয়ে কথা বলার চেষ্টা করবেন না।?
★ওকে, স্যার….?
~Ohh, hlw!
কোথায় যাচ্ছেন ওকে বলে। বক্সটা নিয়ে যান। এটা ফেলে যাচ্ছেন কেন?
★স্যার, আপনার খাবার…
আপনি দুপুরে খাননি মনে হয়, সকালেও না খেয়ে এসেছেন।তাই বাসা থেকে আমি …….
~আমি বাইরে থেকে খাবার আনিয়ে খেয়ে নিব। আপনি খাবারগুলো নিয়ে যান এখান থেকে।
★স্যার, আপনি বাইরে থেকে খাবেন কেন? আমি’তো নিজ হাতে…….
~’ এনাফ!
অনেক হয়েছে। এবার যান এখান থেকে….
আমায় একটু একা থাকতে দিন।
★স্যার, স্যরি। কালকে আমি ঐভাবে বলতে চাইনি আপনাকে। আমি জাস্ট একটু মজা করছিলাম….
~মায়া! আমাদের সম্পর্ক’টা মজার ছিল না। তোমার মনে রাখা উচিৎ ছিল তুমি আমার বোনের বান্ধবি, আর আমি তার’ই ভাই….
★স্যার, আপনি আমার সাথে রাগ….. (…)…..
~এনাফ! আর এগুবে না! আশা করি তোমার অবস্থান’টা বুঝে গেছ। এখন রুম থেকে চলে যাও..
★নিশ্চুপ হয়ে মায়া মাথা নিচু করে রুম থেকে চলে গেল বক্স নিয়ে।

মেয়েটির ডায়েরী_
সামান্য কারনে ওনি এতটা রেগে যাবেন বুঝতে পারিনি। আর রেগে গিয়ে ওনি আমায় এত কথা শুনিয়ে দিবেন ভাবতেও পারিনি। যাক!!!
ভালো’ই হয়ছে।
আমার অবস্থানটা চিনিয়ে দিলেন ওনি। বুঝিয়ে দিলেন, আমার জন্য ওনি নয়…
২দিন ধরে ওনার সাথে কথা হয়না। কথা হয় না বলতে, আমি’ই কথা বলি না। কেন জানি, কথা বলার সাহস পাইনি….
২দিন পর_
প্রচন্ড জ্বর আর মাথা ব্যথায় মরে যাচ্ছি। কিছুতেই চোখ খুলতে পারছি না। ইচ্ছে হচ্ছে শরীর থেকে মাথা আলাদা করে ফেলি। মাথা ব্যথার এত যন্ত্রনা সেটা না হলে বুঝতে পারতাম না। তখন ছিল মাঝরাত। উঠে গিয়ে যে ঔষধ খাবো সে সাহসটুকুও পাচ্ছি না।
চোখ বন্ধ করে বিলাপ করছি। হঠাৎ’ই কপালে কারো উষ্ম পরশ টের পাচ্ছি। মনে হচ্ছে, কেউ কপালে হাত রাখছে। চোখ না মেলে’ই বলে দিতে পারি এ হাতের পরশ কার…?!!!
এ সিয়াম স্যারের। গত দু’রাত ভরেই ওনার এই পরশটা পায়। তখন হয়তো আধঘুমে থাকি, কিন্তু ওনার উপস্থিতি আমি ঠিক টের পায়। চোখ বন্ধ করে গন্ধ শুকেই বলে দিতে পারি এ আমার বস। আমার স্যার। সিয়াম স্যার। আজকে ওনি আমার কপালে মলম দিয়ে মালিশ করে দিয়েছে। আমার কপালে চুমুও খেয়েছে। যাওয়ার সময় কান্না করে বলেও গেছে__
আমি স্যরি মায়া পরি। আমি আসলে তোমায় রাগানোর জন্য এমন করছি সেদিন। তুমি এতটা কষ্ট পাবে বুঝতে পারিনি। বুঝতে পারিনি ভুল বুঝে দুরে সরে যাবে। আমাকে এত বড় সাজা হবে। কষ্ট দিবে নিজেকে….
আমায় মাফ করে দিও মায়া পরি….!!!
কথা’টা বলে ওনি চলে যাচ্ছিল। ঘোরের মধ্যেই ওনার হাতটা টেনে ধরি। জ্বরের ঘোরেই সেদিন ওনাকে মনের না বলা কথা গুলো বলে দেই…
ওনি আবেগে আমায় জড়িয়ে ধরেছিলেন। কেঁদেছিলেন খুব…..
সেদিন ওনার বুকে মাথা রেখে ঘুমিয়েছিলাম। সেদিন থেকেই শুরু হয় প্রেম। বসের সাথে প্রেম। ওনাকে কখনো আর ভাইয়া বলে ডাকিনি। এই জন্য রাগারাগি করলেও ডাকিনি ভাইয়া বলে। স্যার বলেই ডাকতাম, এই ডাকের মধ্যেই ভালো লাগা খুঁজে পেতাম।
খুঁজে পেতাম ওনার প্রতি শ্রদ্ধা…. সারাদিন অফিসে চোখাচোখি, বাকিটা সময় বাসায়। কখনো বাসায় অভিমান, অফিসে চোখাচোখি। কাজের চ্ছলে ওনি আমায় ডেকে নিতেন, কখনো বা ফাইল আদান-প্রধানের সময় একটু খানি স্পর্শ। এটুকুই….
আধুনিক প্রেমের মত আমরা কখনো একে অপরকে কিস কিংবা অন্য কিছু করিনি। যদিও আমরা একই ছাদের নিচে থাকতাম। আমাদের প্রেমটা ছিল চোখে চোখে। অনেকে আবার বলবে, আমাদের প্রেমটা বড্ড সেকেলে। আবার অনেকে বা বলবে একে কি প্রেম বলে?!!!
আমি বলব এটাই প্রেম।
এটাই ভালোবাসা।
পবিত্র ভালোবাসা।
আমরা একই ছাদের তলায় থাকলেও আমাদের ছিল লোকলজ্জা, ছিল আল্লাহ ভয়। আমরা মানতাম, প্রেম কেবলি পবিত্র বন্ধন।
আধুনিকতার নামে আমরা প্রেমকে অপবিত্র করিনি।
হোক না চোখে চোখে কথা…
ক্ষতি কি?!!!
আমরা তো একে অপরের আছি’ই….

সবমিলিয়ে সুখেই চলছিল আমাদের দিনগুলো…
কিন্তু সেই সুখ আর বেশীদিন আমার কপালে সইলো না। একদিন__
~সিড়ি দিয়ে নিচে নামার সময় লক্ষ্য করলাম আব্বু-আম্মু(আংকেল ও আন্টি)
ড্রয়িংরুমে বিয়ে নিয়ে কি যেন বলছিল। মাঝ সিড়িতে দাঁড়িয়ে কান পেতে রই।
শুনতে পেলাম__
আন্টি:- যায় বলো! তোমার কিন্তু সিয়ামের সাথে এই ব্যাপারে কথা বলার দরকার। ওর নিজেরও তো পছন্দ থাকতে পারে…
আংকেল:- ওকে জিজ্ঞেস করার কিছুই নাই। সিয়ামের প্রতি আমার এ বিশ্বাস আছে, ও আর যায় হোক আমার কথার অমান্য হবে না। আর তাছাড়া আশরাফের মেয়ের মত এমন সুন্দরী-সুশ্রী,শিক্ষিত মেয়ে ও কোথায় পাবে? এটাই ফাইনাল…
ও বিয়ে করলে ঐ মেয়েকেই করতে হবে….
আন্টি:- বিশ্বাসের মর্যাদা যাতে টিকে থাকে…
আংকেল:- টিকে থাকে মানে? ওকে বিয়ে করতেই হবে। আর ঐ মেয়েকেই…
আমার দৃঢ বিশ্বাস আমাকে ও ছোট করবে না…..
আন্টি:- যদি অন্য কাউকে ভালোবেসে থাকে…???
তখন?!!!
আংকেল:- ঐসব ভালোবাসা’টাসা আমি বরদাস্ত করব না। আমার পছন্দ’ই পছন্দ। তবুও যদি ও আমার কথার বাহিরে যায় তাহলে ওকে ভুলে যেতে বলিও আমায়। বলে দিও, সেদিন থেকে আমি ওর জন্য মৃত থাকবো।
আন্টি:- এসব কি বলছ? চুপ করো…
ও রাজি হবে…..
আর মেয়ে তো আজকে আসবে। ও দেখে নিক…
আংকেল:- তাই যেন হয়…
——–+++++++++++++++++++————
আর নিতে পারছিলাম না…
মাঝ সিড়ি থেকেই দৌঁড়ে উপরে উঠে গেলাম। উপরেই সিয়াম স্যার দাঁড়িয়ে ছিল।ওনিও হয়তো এতক্ষণে সব শুনে গেছে। তাই আমার কান্নাভেঁজা চোখের দিকে তাকিয়ে কিছু একটা বলতে চেয়েছিল। ওনাকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই দৌঁড়ে কান্না করতে করতে রুমে চলে গেলাম।

মায়া রুমে গিয়ে দরজা আটকে দিয়েছে।সিয়াম মায়ার পিছুপিছু দৌঁড়ে গিয়েছিল।সিয়াম দরজায় নক করছে, আর মায়া!!!
ভিতরে দরজায় হেলান দিয়ে কান্না করছে….

[সামনেই আসছে দারুণ পর্ব…মহা পর্ব]আর নিতে পারছিলাম না…
মাঝ সিড়ি থেকেই দৌঁড়ে উপরে উঠে গেলাম। উপরেই সিয়াম স্যার দাঁড়িয়ে ছিল।ওনিও হয়তো এতক্ষণে সব শুনে গেছে। তাই আমার কান্নাভেঁজা চোখের দিকে তাকিয়ে কিছু একটা বলতে চেয়েছিল। ওনাকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই দৌঁড়ে কান্না করতে করতে রুমে চলে গেলাম।

মায়া রুমে গিয়ে দরজা আটকে দিয়েছে।সিয়াম মায়ার পিছুপিছু দৌঁড়ে গিয়েছিল।সিয়াম দরজায় নক করছে, আর মায়া!!!
দরজার ওপাশে হেলান দিয়ে কান্না করছে….

[সামনেই আসছে দারুণ পর্ব…মহা পর্ব]

চলবে………

Comments are closed.