প্রেমময় আসক্তি পর্ব-১৭

0
502

#প্রেমময়_আসক্তি❣️
#পর্ব_১৭[বিয়ে স্পেসাল]
#নন্দিনী_চৌধুরী

১৭.

দেখতে দেখতে আদ্রিয়ান রোদেলার বিয়ের সময় চলে এলো। আর একদিন পরেই তাদের বিয়ে। আগামীকাল তাদের হলুদ। আদ্রিয়ান-রোদেলা, রাফসান-মুন এদের প্রেম বেশ ভালোই চলছে। কাশু নিজেকে তৈরি করে নিয়েছে রোদেলার বিয়ের দিন সে কাউসারকে তার উত্তর জানাবে। রোদেলা কলেজের কাউসার, তিথি-মাহিনকে নিজের বিয়েতে দাওয়াত করেছে। সবাই বিয়ের আয়োজন নিয়ে ব্যস্ত।

রাতে রোদেলা ডিনার করে রুমে আসলো। তখন ফোনে কল আসলো আদ্রিয়ানের। রোদেলা কল রিসিভ করার পর আদ্রিয়ান বললো,

আদ্রিয়ান: শুনো, আলমারিতে দেখো একটা প্যাকেট রাখা আছে। সেটায় যা যা আছে সব পরে রেডি হয়ে নেও।
রোদেলা: আচ্ছা কিন্তু এখন এতো রাতে কই যাবো?
আদ্রিয়ান: বেশি কথা বইলোনা। তাহলে তোমার নাগা মরিচ তোমাকেই খাইয়ে দিবো।
রোদেলা: আচ্ছা হচ্ছি রেডি।

রোদেলা ফোন রেখে আলমারি খুলে একটা প্যাকেট পায়। সেটা নিয়ে ওয়াশরুমে যায়। একটা কালো শাড়ি সাথে মেচিং চুড়ি, ঝুমকা আর একটা গাজরা। রোদেলা সব পরে রেডি হয়ে নেয়। একদম হালকা একটু সাজে। রেডি হয়ে বাহিরে আসে বাসার। যা ভাবনা তাই। আদ্রিয়ান গাড়ি নিয়ে বসে আছে। রোদেলা গিয়ে গাড়িতে বসলো। আদ্রিয়ান একটা ব্লাক শার্ট আর ব্লাক পেন্ট, ব্লাক বেল্ট ঘড়ি পরছে। আদ্রিয়ানকেও দেখতে বেশ লাগছে। আদ্রিয়ান গাড়ি ড্রাইভ করে একটা ফাঁকা জায়গায় আসলো। জায়গাটা অনেক অন্ধকার রোদেলা কিছুই বুঝতে পারছেনা। রোদেলা গাড়ি থেকে নামার সাথে সাথে জায়গাটায় লাইট জ্বলে ওঠে। অনেক সুন্দর করে ডেকোরেশন করা জায়গাটা। অনেক সুন্দর কেন্ডেল দিয়ে সাজানো। লাইটিং করা, লাল, সাদা, নীল, বেলুন দিয়ে সাজানো।

রোদেলা অবাক চোখে তাকিয়ে দেখছে সবটা। আদ্রিয়ান এসে রোদেলা পিছনে এসে দাঁড়ালো। তারপর রোদেলাকে পিছন থেকে জরিয়ে ধরে বললো,

আদ্রিয়ান: উপরে আকাশে তাকাও।

রোদেলা আদ্রিয়ানের কথা মতো আকাশে তাকায় সাথে সাথে আকাশে লেখা উঠে,

“প্রেমের এক অজানা আসক্তি দেখেছিলাম তোমার মাঝে। সেই আসক্তিতে ডুবে যেতে চেয়েছি তোমাকে নিয়ে। তুমি আমার প্রেমের এমন এক আসক্তি। তাইতো তুমি আমার প্রেমময় আসক্তি।”

রোদেলা আকাশে লেখা গুলো দেখে অবাক আর খুশি দুটোই হয়েছে। আদ্রিয়ান ততোক্ষনে রোদেলাকে ছেড়ে দিয়েছে। রোদেলা পিছনে ঘুরে আদ্রিয়ানকে কিছু বলবে তার আগে আদ্রিয়ান ওর সামনে একটা গোলাপের তোড়া যার উপরে অনেক গুলো চোকলেট রাখা আর একটা রিং।

আদ্রিয়ান: সবার মতো এতো স্টাইল করে, “আই লাভ ইউ” বলা আমার দ্বারা হবেনা। আমার মনের সব অনুভুতি তোমাকে আমি অনেক আগেই জানিয়েছি। ভালোবাসি ঠিক কতটা সেটা হয়তো তোমাকে পরিমাপ করে দেখাতে পারবোনা। তবে তোমাকে কোনোদিন কোনো কষ্ট ছুঁতে পারবেনা। আমার জীবনের প্রতিটা মুহুর্ত আমি তোমার সাথে থাকতে চাই। সব সময় তোমাকে নিজের পাশে চাই।
“ভালোবাসি নেশামই”।

রোদেলা আদ্রিয়ান থেকে তোড়াটা নিয়ে আর সেকেন্ডও দেড়ি করেনা। খুব শক্ত করে জরিয়ে ধরে আদ্রিয়ানকে। ঠিক যতটা শক্ত করে ধরলে নিজেকে আদ্রিয়ানের মাঝে ডুবিয়ে দেওয়া যায়। আদ্রিয়ান রোদেলাকে জরিয়ে ধরে। তাদের ভালোবাসার মিলন আজকের আকাশের চাঁদও যেনো খুশিতে হাসছে।

রোদেলা আদ্রিয়ানকে জরিয়ে ধরে বলে,

রোদেলা: আমি কোনোদিন আপনাকে ছেড়ে কোথাও যাবোনা। এক মাত্র মৃত্যু ছাড়া আদ্রিয়ানের থেকে তার নেশামইকে কেউ কেড়ে নিতে পারবেনা।

আদ্রিয়ান রোদেলা বুকে থেকে সামনে এনে ওর কপালে ভালোবাসার পরস একে দিলো। তারপর দুজনে আরো কিছুটা সময় কাটিয়ে বেরিয়ে পরলো বাসার জন্য।

রাফসান পানি খেতে কিচেনে এসে বোতলে পানি নিয়ে কি ভেবে মুনের রুমে উঁকি দিলো। দেখলো মুন টেবিলে মাথা দিয়ে ঘুমিয়ে আছে। পড়তে পড়তে ঘুমিয়ে গেছে মুন। রাফসান রুমে এসে খুব সাবধানে মুনকে কোলে করে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে গায়ে কাঁথা দিয়ে দিলো। রোদেলা রুমে না দেখে অবাক হলো রাফসান। কিন্তু একটুপর গাড়ির হর্ন এর আওয়াজ পেয়ে বারান্দায় এসে দেখে রোদেলা আদ্রিয়ানের সাথে। রাফসান এটা দেখে হালকা হেসে নিজের রুমে চলে যায়। রোদেলা আদ্রিয়ানের থেকে বিদায় নিয়ে বাসায় চলে আসে।

পরেরদিন,,,,,,

আজকে রোদেলা আর আদ্রিয়ানের হলুদ। হলুদ হবে আদ্রিয়ানদের বাসায় বড় গার্ডেনে। সকাল থেকে সবাই হলুদের কাজে বিজি। মুন, রুবা, কাশু সবাই হলুদ বাটতেছে। রোদেলাকে রুমে ওর মা হাতে মেহেদি দিয়ে দিচ্ছে। বিকালের দিকে পার্লারের মেয়েরা এসে রোদেলাকে সাজিয়ে দিলো। রোদেলাকে একটা লাল হলুদ মিশানো লেহেঙ্গা পরানো হয়েছে সাথে জুয়েলারি আর কাঁচা ফুলের গহনা পরানো হয়েছে।

দেখতে দেখতে হলুদ শুরু হয়ে গেলো। আদ্রিয়ান আর রোদেলাকে স্টেজে বসানো হলো। আদ্রিয়ানকে একটা হলুদ পাঞ্জাবি পরানো হয়েছে। অনুষ্টানের ছেলেরা নীল আর মেয়েরা গোলাপি হলুদ মিশানো শাড়ি আর পাঞ্জাবি পরেছে।

আরাভ তো রুবাকে দেখে বড় ধরনের ঝটকা খেয়েছে। কারন রুবা বাংলা স্টাইলে শাড়ি পরেছে। চুল গুলো সুন্দর করে বেনি করে মাঝে ফুল দেওয়া। দুই হাত ভর্তি চুড়ি সাথে ফুলের গহনা।

কাউসার কাশুকে দেখে আরেক দফা ফিদা। কাশু শাড়ি পরেছে সাথে চুল গুলো খুলা। হালকা সাজ সব মিলিয়ে অনেক সুন্দর লাগছে।

রাফসান মুনকে দেখে পারলে এখোনি বিয়ে করে ফেলে। মুনকেও দেখতে অনেক সুন্দর লাগছে।

সবাই আসতে আসতে করে রোদেলা ও আদ্রিয়ানকে হলুদ ছোঁয়ালো। নাচ গান আনন্দে পার করলো হলুদ সন্ধ্যা।

কাশফিয়ার দুইচোখ খুঁজে যাচ্ছে কাউসারকে। কাউসার পিছন থেকে এসে কাশুকে ধাক্কা দিলো। প্রথমে কাশু ভয় পেলো। পরে সামনে তাকিয়ে দেখে কাউসারকে।

কাউসার: কি কাকে খুঁজতেছো আমাকে?
কাশু: নাতো। আপনাকে খুঁজতে যাবো কেন? আমিতো এমনি এখানে দাঁড়ানো।
কাউসার: ওহ আচ্ছা। তাই নাকি তাহলে ঠিক আছে থাকো তুমি আমি যাই।
কাশফিয়া: নাহ্।
কাউসার: কি?
কাশফিয়া: আমার আপনাকে কিছু বলার আছে। মানে উত্তর দেওয়ার আছে।
কাউসার: আচ্ছা তবে দেও উত্তর।
কাউসার কাশফিয়ার আর একটু কাছে এগিয়ে গেলো। কাশফিয়ার বুক ধুক ধুক করছে। কাশফিয়া অনেক সাহস জুগিয়ে বললো,

কাশফিয়া: আমি আপনাকে…
কাউসার: হুম, তুমি আমাকে!
কাশফিয়া: আমি আপনাকে ভা…
কাউসার: তুমি আমাকে ভা..কি?
কাশফিয়া: আমি আপনাকে ভালোবাসি। [এক নিশ্বাসে চোখ বন্ধ করে কথাটা বললো।]
কাউসার কাশফিয়ার কানের কাছে মুখ এনে বলে,
লোকে ঠিকই বলে বিয়ে বাড়িতে বিয়ে হয় দুইজনের আর প্রেম হয় ৪/৬ জনের।
আমিও তোমাকে ভালোবাসি মিস চাশমিস।

বলেই কাউসার চলে গেলো। কাশফিয়ার অনেক নার্ভাস লাগছিলো। তাই তাকে রিলেক্স করতে কাউসার চলে আসে।

অনেক রাত করেই শেষ হয় হলুদ অনুষ্টান। সবাই যার যার মতো করে ফ্রেশ হয়ে বাসায় এসে শুয়ে পরে। আগামিকাল বিয়ের আয়োজন আছে।

অপেক্ষার প্রহর শেষে আজ সেই দিন আদ্রিয়ান ও রোদেলার সারাজীবনের জন্য এক হবার দিন। আজ তাদের বিয়ে। এই দিনটার জন্য কতটা অপেক্ষায় ছিলো তারা।

সারাবাড়ি সুন্দর করে সাজানো হচ্ছে বিয়ের জন্য। সবাই মিলে রং খেলে করলো। এখন রোদেলাকে গোসল দিবে। রোদেলাকে গোসল দিয়ে সোজা নিয়া যাওয়া হলো পার্লারে। রোদেলারা সবাই সেজে বাসায় আসলো ৭টায়। রোদেলাকে একটা লাল বেনারসি শাড়ি পরানো হয়েছে। সাথে মেচিং গহনা। রুবা, কাশু, মুন তিনজন শাড়ি পরছে।

রোদেলাকে নিয়ে সেন্টারে যায় সবাই। কিছুক্ষনের মাঝে আদ্রিয়ানরা আসে। ২০০০০ টাকা না দিলে আদ্রিয়ানকে রুবারা ঢুকতে দিবেনা। অনেকক্ষন গেটে মজা করার পর আদ্রিয়ান টাকা দিলো। তারপর ওকে মিষ্টি আর শরবত খাইয়ে স্টেজে নিয়ে বসানো হলো।

রুবা নিজের শাড়িটা একটু ঠিক করতে ওয়াশরুমে আসে। শাড়ি ঠিক করতে করতে আরাভ পিছন থেকে এসে ডাকে,

আরাভ: মিস চেইন খুলা!!

ডাকটা শুনে রুবা থমকে যায়। পিছনে তাকিয়ে দেখে আরাভ দুই হাত ভাজ করে দাঁড়িয়ে আছে। রুবা শাড়ি ঠিক করে আরাভকে বলে,

রুবা: আপনি এখানে?
আরাভ: হুম আমি। কেন কোনো সমস্যা?
রুবা: না সমস্যা না।

বলে রুবা যেতে নিলে আরাভ রুবার হাতটা ধরে ফেলে। রুবা এতে ওনেক শকড হয়ে যায়।

আরাভ: পালাচ্ছেন মিস?
রুবা: ন.নাতো.প.পালাবো কেন? হাতটা ছাড়ুন।
আরাভ রুবার হাতে একটা খাম দেয় আর বলে,

আরাভ: আশা করি উত্তরটা পাবো।

বলেই আরাভ চলে আসে আর রুবা খামটার দিকে তাকিয়ে থাকে। খামটা পার্সে রেখে বিয়ের আসরে যায়।

কাজি চলে আসছে বিয়ে পড়াতে। বিয়ে পড়ানো শুরু হলো। প্রথমে রোদেলাকে কবুল বলতে বলা হলো। রোদেলা কিছুটা সময় নিয়ে কবুল বললো। এরপর আদ্রিয়ান কবুল বললো। বিয়ে সম্পুর্ন হবার পর সবাই মিষ্টি মুখ করলো। খাওয়া দাওয়া শেষ। এবার বিদায়ের পালা। রোদেলা ওর বাবা ভাইকে ধরে অনেক কান্না করতে লাগলো। এক মাত্র মেয়ে এক মাত্র বোনকে বিদায় দেওয়া খুব কষ্টের। রোদেলাকে রাফসান গাড়িতে বসালো তারপর আদ্রিয়ানের সাথে কথা বলে বিদায় দিলো বোনকে। রুবা, কাশু, মুন সবাই কান্না করছে।

আদ্রিয়ানদের বাসায় জুঁই, আদ্রিয়ান, আরাভ রোদেলাকে বরণ করে ঘরে তোলে। আদ্রিয়ান রোদেলাকে কোলে করে বাসর ঘরে দিয়ে আসে। আদ্রিয়ান রোদেলাকে রুমে রেখে বলে যায় চ্যাঞ্জ করে নিতে। বেশ অনেকটা সময় পর আদ্রিয়ান রুমে আসে। রুমে এসে আদ্রিয়ান রোদেলাকে দেখে হুসসসস। কারন রোদেলা আদ্রিয়ানের একটা সাদা টি শার্ট পরেছে। যেটা হাঁটু পর্যন্ত রোদেলার হয়েছে। আদ্রিয়ান রোদেলাকে দেখেও না দেখার মতো ওয়াশরুমে যেয়ে ফ্রেশ হয়ে আসে একটা টাউজার পরে আসে গায়ে কিছু পরেনা। রোদেলা আদ্রিয়ানকে এভাবে দেখে লজ্জায় পায়। আদ্রিয়ান সেটা বুঝতে পেরে রোদেলার কাছে গিয়ে ওর কোমর জরিয়ে ধরে বলে,

আদ্রিয়ান: এতো লজ্জা পেলে হবে! আমিতো এখনো কিছুই করিনি।

আদ্রিয়ানের কথায় রোদেলা লজ্জা পায়।

আদ্রিয়ান রোদেলা দিকে তাকিয়ে বলে,

আদ্রিয়ান: রোদেলা মে আই?

রোদেলা বুঝতে পারে আদ্রিয়ান কি বলতে চাইছে। আজ তাদের মাঝে কোনো বাধা থাকবেনা। আজ রোদেলা আদ্রিয়ানকে উজার করে ভালোবাসবে আদ্রিয়ান রোদেলাকে ভালোবাসবে। রোদেলা আদ্রিয়ানকে সম্মতি দেয়। রোদেলার থেকে সম্মতি পেয়ে আদ্রিয়ান রোদেলাকে কোলে তুলে নেয়। আজ সে হারিয়ে যাবে রোদেলার নেশায়। আজকে তার প্রেমের আসক্তি পূর্নতা পাবে। আজ সে ডুব দেবে রোদেলার আসক্তির মাঝে। আজ পূর্নতা পাচ্ছে তাদের প্রেমময় আসক্তি। আদ্রিয়ান রোদেলা বিছানায় শুইয়ে দিয়ে ওর ঠোঁটে নিজের ঠোঁট দিয়ে আবদ্ধ করে নেয়। আসতে আসতে গাড়ো হচ্ছে আদ্রিয়ানের স্পর্শ। আজ ওদের মিলন দেখে দূর থাকা দেওয়ালটাও লজ্জা পাচ্ছে।

#চলবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here