প্রেমময় আসক্তি পর্ব-১৩

0
485

#প্রেমময়_আসক্তি
#পর্ব_১৩
#নন্দিনী_চৌধুরী

১৩.

অপারেসন থিয়েটারে বাহিরে চেয়ারে বসে আছে রোদেলা। রোদেলার ঠিক সামনে বসে আছে আরাভ। রোদেলার পাশে বসে আছে রুবা,মুন,কাশফিয়া। রাফসান এখনো জানেনা আদ্রিয়ানের এই অবস্থার কথা।

রোদেলা সেই যে চুপ করে বসে আছে তো বসে আছে। আদ্রিয়ানের শরীলের রক্ত এখন তার হাতে শুকিয়ে গেছে। রোদেলার সাদা জামা আদ্রিয়ানের রক্তে লাল হয়ে আছে। রোদেলার নিজেকে কেমন শুন্য লাগছে। মনে হচ্ছে কিছু একটা হারিয়ে ফেলছে সে। আদ্রিয়ান এখন ঠিক থাকলে তাকে এখন কত জ্বালাতো। কত ভাবে ভালোবাসার আবেদন করতো। কিন্তু হায় এখন সেই লোকটাই জীবন-মরন যুদ্ধ করছে!

আদ্রিয়ানের অপারেশন করছে এক বিশেষজ্ঞ হার্ট সার্জন। আজকে সকালেই সে অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরেছে। আরাভ আর সে দুজনেই বন্ধু। আরাভ চেয়ারে বসে আছে মাথা নিচু করে। আজ খুব অসহায় লাগছে। বন্ধুটার জন্য খুব চিন্তা হচ্ছে তার। আরাভ রোদেলার দিকে তাকিয়ে বলে,

আরাভ: রোদেলা।

রোদেলার আরাভের ডাকে তার দিকে তাকায়। আরাভ রোদেলাকে বলে,

আরাভ: আদ্রু যখন প্রথম বাংলাদেশে আসে তখন ও আমার কাছে সিলেটে আসে। আমি দেশে আসার পর সিলেটে ছিলাম প্রায় ৬মাস। আদ্রিয়ানকে খুব জোর আর অনুরোধ করে বাংলাদেশে আনি। আদ্রিয়ান বাংলাদেশে আসার পর ওকে আমিই রিসিভ করি। সিলেটে আমি যেখানে থাকতাম সেখানেই ওকে নিয়ে গেছিলাম। একদিন সকাল বেলার আমার ডিউটি ছিলো। আদ্রিয়ান সকালে গাড়ি নিয়ে বের হয়ে যায়। আদ্রিয়ান জায়গাটা ঘুরে ঘুরে দেখবে তাই। আদ্রিয়ানের গাড়ি মাঝ রাস্তায় নস্ট হয়ে যায়। আদ্রিয়ান যখন গাড়ি থেকে নেমে কোনো মেকানিককে খুঁজবে তখন সে দেখা পায় এক নারীর। এক মোহময়ী সুন্দর নারী যার পরনে একটা ব্লাক রেড মিশানো স্কার্ট ও একটা লেডিস টপস। এক হাত ভর্তি কালো চুরি আর কাঁধে ব্যাগ। আদ্রিয়ান সেদিন প্রথম দেখায় নারীটার মায়ায় পরে যায়। নিজের অজান্তেই তার ছবি তুলে নেয় তার ফোনে। সেদিন আদ্রিয়ান মেকানিক তো পায়নি কিন্তু একজন রমণীকে পেয়েছিলো। আদ্রিয়ান বাসায় আসার পর থেকে দেখতাম কি জানি ভাবতে! পরে কারণ জানতে চাইলে আমাকে সেই মেয়ের ছবিটা দেখায়। এরপর থেকে রোজ মেয়েটার জন্য ওই রাস্তায় অপেক্ষা করতো আদ্রিয়ান। আদ্রিয়ান! যার জন্য মেয়েরা সব পাগল, যার জন্য মেয়েরা পাগলের মতো করে। সেই আদ্রিয়ান, কারো জন্য রাস্তায় অপেক্ষা করতো! জাস্ট একবার দেখার জন্য। এভাবে আড়াল থেকে মেয়েটাকে দেখতে দেখতে সব কিছু জানতে লাগলো মেয়েটার ব্যাপারে। সব তথ্য জোগার করলো মেয়েটার। মেয়েটার নাম, ঠিকানা, পরিবার, ক্লাস সব ইচ এন্ড এভ্রিথিং। আদ্রিয়ান বুঝতে পেরেছিলো, ও যে ভালোবেসে ফেলেছে এই মেয়েটাকে। আদ্রিয়ান মেয়েটার প্রতি সব সময় নজর রাখতো। একদম নেশায় আসক্ত হয়ে গেছিলো মেয়েটার প্রতি। দেখতে দেখতে আদ্রিয়ানের আবার সিডনি চলে যাবার সময় হয়ে যায়। আর আমার ঢাকা যাবার। আদ্রিয়ান এখানে মেয়েটার জন্য তার লোক রেখে যায় যাতে মেয়েটার কোনো সমস্যা না হয়। এরপর আদ্রিয়ান সিডনি চলে যায় আর আমি আসি ঢাকা। আদ্রিয়ান সিডনিতে যাওয়ার পর শুনে মেয়েটার বিয়ে ঠিক হচ্ছে সেটা শুনে আদ্রিয়ান আমাকে কল দেয় আর সেদিন আমি ফিল করলাম আদ্রিয়ান কতটা ভালোবেসে ফেলেছে মেয়েটাকে। আদ্রিয়ান পর পর ওই মেয়ের দুই বিয়ে ভেংগে দেয়। আদ্রিয়ান কোনোভাবেই মেয়েটাকে অন্য কারো হতে দেখতে পারতোনা। তবে আদ্রিয়ান কোনোদিন মেয়েটার সামনে আসেনি। ওর একটাই কথা ছিলো সঠিক সময় হলেই ও মেয়েটার সামনে যাবে। এর মাঝে মেয়েটা ঢাকা চলে আসে। আদ্রিয়ান চাইতোনা মেয়েটা ঢাকা আসুক। কারন আদ্রিয়ানের কিছু শত্রু জানতে পেরেছিলো মেয়েটার কথা। আদ্রিয়ান তাই তাড়াহুড়া করে দেশে আসলো মেয়েটাকে সেফ রাখার জন্য।
আদ্রিয়ান নিজের থেকে বেশি মেয়েটাকে ভালোবাসে। যেদিন অই মেয়েটার একটা ছোট এক্সসিডেন্ট হয় আর আমার হাসপাতালে মেয়েটাকে ও পাগলের মতো ছুঁটে নিয়ে আসে। সেদিন অপারেশন থিয়েটারের অপর সাইডে দাঁড়িয়ে অনেক কেঁদেছিলো আদ্রিয়ান। ওর একটাই ভয় ওর নেশামই ওকে ছেড়ে চলে না যায়! আদ্রিয়ান একটাই ভয় ছিলো জীবনে আর সেটা তার নেশামই। সব জেনে তার নেশামই যদি তাকে মেনে না নেয়। ভালোনাবাসে তাহলে কি হবে!
আদ্রিয়ান ওই একটা মেয়ের জন্য ২য় অন্য কোনো মেয়ের কথা ভাবতোনা। সে এক নারীতেই আসক্ত থাকতে চায়।

এতোটুকু বলে আরাভ একটু থামলো। উপস্থিত সবাই আরাভের কথা শুনে অবাক। কেউ কাউকে এতোটা ভালোবাসতে পারে, তাদের জানাছিলোনা। আরাভ আবার বলতে লাগে,

আরাভ: আদ্রিয়ান ছোট থেকে কারো ভালোবাসা পায়নি। ছোট বেলায় আন্টি আর শাম্মি মারা যাওয়ার পর। আদ্রিয়ান একদম গম্ভীর হয়ে গেছিলো। ওতোটুকু ছেলে যার খেলেধুলে বেড়ানোর বয়স, সে সেই বয়স থেকে ম্যাচিউরদের মতো চলাফেরা শুরু করে। আদ্রিয়ান এই জায়গায় এসেছে শুধু মাত্র নিজের চেষ্টায়। আদ্রিয়ান মাফিয়া হলেও সে কোনো নির্দোষকে মারেনি কোনোদিন। সব দোষীদের সে মেরেছে। আর একদিন ও এখান থেকে বেড়িয়ে আসবে যেদিন ও ওর মা বোনের খুনিকে ধরতে পারবে। আদ্রিয়ানের নেশামই অন্য কেউনা, তুমি রোদেলা! আদ্রিয়ান তোমাকে সত্যি অনেক ভালোবাসে। ওর ভালোবাসাটাকে পায়ে ঠেলে দিওনা। আমার বন্ধুটা তাহলে মরে যাবে রোদেলা। ওর এই দুনিয়ায় কেউ নেই আপন। ওকে তুমি দূর করে দিওনা।

আরাভ কথাটুকু বলতে গিয়ে কান্না করে দেয়। আরাভ আদ্রুকে ভাইয়ের মতো ভালোবাসে। সেই ভাই আজ ওর এই অবস্থায় ও কিভাবে মানবে এটা।

সায়মন এভার রোদেলাকে বলে,

সায়মন: বেয়াদবি নিবেননা মেডাম। তবে আমাদের স্যার অনেক ভালো মনের একজন মানুষ। এইযে আমাকে দেখছেন, আমাকে উনি রাস্তা থেকে এনে এখানে জায়গা দিয়েছেন। আমাকে পড়াশুনা করিয়েছেন। নিজের কম্পানিতে জায়গা দিয়েছেন। আমার পরিবার দেখাশুনা উনি করেন। আমার বড় বোনের বিয়ে হচ্ছিলোনা টাকার অভাবে। সেই বিয়েও উনি দিয়েছেন। আমাদের এই মাফিয়া দলের কাউকে সে নিজ হাতে ক্ষুন করতে দেয়নি। সব ক্ষুন নিজ হাতে করেছে। আমারাতো শুধু খবর এনে দেই আর কয়েকটা মাইর দেই কিন্তু আসল কাজ সব স্যার নিজ হাতে করে। স্যার আপনার জন্য আসলে অনেক পাগল। নাহলে ভাবুন কেউ কাউকে কতটা ভালোবাসলে তার মতো একটা পুতুল বানিয়ে ঘরে রাখতে পারে! হ্যাঁ, স্যার সিডনির বাড়িতে আপনার মতো দেখতে একটা পুতুল বানিয়ে এনেছেন। সেটাকে দিন রাত দেখেন আর সেটার সাথে কথা বলতেন।
স্যার আপনাকে এতোটাই ভালোবাসেন আপনার আশেপাশে যাতে কেউ না আসে তাই আমাদের আপনার গার্ড করে রেখেছিলেন। আর আজকের এই গুলি স্যারের না আপনার লাগার কথা ছিলো। হ্যাঁ, মেডাম। স্যার জানতো আজকে আপনার উপর আক্রমণ হবে। তাইতো আপনাকে ফুল সেফলি তার সাথে বের করেছিলেন। এইযে ড্রেস আপনি পরে আছেন এটায় বুলেট প্রুফ দেওয়া আছে। তাই গুলি আপনার লাগতোনা। আমরা স্যারকে কত করে বলেছিলাম স্যার আপনিও লাগিয়ে নিন কিন্তু স্যার শুনেননি। স্যারের কথা ছিলো এটাই,

“আজ আমি যদি এই গুলি দিয়ে আহত হই তাহলে আমার শত্রুপক্ষ কিছুটা হলেও দমে যাবে।”

মেডাম আপনি খেয়াল করবেন গুলি যখন চলেছিলো স্যার কিন্তু আপনাকে পিছনে করে নিজে সামনে চলে এসেছিলো। আর গুলি ওনার গায়েই লাগে। আমরা তার পিছনে থাকার পরেও আমরা কিছু করে উঠার আগেই সব হয়ে গেলো। স্যার আপনার জন্য নিজের জীবন দিতেও পিছ পা হবেন না। তিনি এতোটাই ভালোবাসেন আপনাকে! স্যার এর আগেও দুবার গুলিতে আহত হয়েছিলো। একবার আমাকে বাঁচাতে আর একবার একটা বাচ্চাকে বাঁচাতে। স্যারের মতো মানুষ খুব কম হয় মেডাম! খুব কম।

রোদেলা সবার কথা শুনে চুপ হয়ে আছে। এবার মুন বলা শুরু করলো,

মুন: সেদিন যখন তুই রাস্তায় পরেছিলি। তোর মাথা থেকে রক্ত পরছিলো। সেদিন উনিই তোকে নিয়ে এসেছিলেন হাসপাতালে। সেদিন আমি ওনার চোখে তোকে হারানোর একটা ভয় দেখেছিলাম। প্রথমে আমি সেটা এতো গুরুত্ব না দিলেও পরে তার তোর প্রতি এতো অস্থিরতা আমাকে বুঝিয়েছিলো, সে তোকে ভালোবাসে। এমনকি সেদিন, যেদিন তোকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলনা, সেই সময় সে তোকে পাগলের মতো খুঁজেছে। তোকে যেদিন কোলে করে ঘুমন্ত অবস্থায় বাসায় নিয়ে আসেন উনি, ওনার চোখে আমি দেখতে পাচ্ছিলাম একটা কষ্টের ছাপ। ওনার ভালোবাসায় কোনো খুঁত নেই রে রোদেলা। উনি সত্যি তোকে খুব ভালোবাসে।

রুবা: হ্যাঁ। রোদেলা এতো পাগলের মতো ভালোবাসার মানুষটাকে তুই দূরে ঠেলে দিসনা। উনি তোকে ছাড়া থাকতে পারবেনা। তাতো তুই ওনার সবা কাহিনী জেনে বুঝতে পারছিস। এতো ভালোবাসার মানুষটাকে হাতছাড়া করিস না। পায়ে মারিয়ে দিসনা তার ভালোবাসা।

কাশু: রোদেলা একটা মানুষ কতটা ভালোবাসলে এতো কিছু করতে পারে তুই ভাব। জিজু তোকে সত্যি অনেক ভালোবাসেরে। তোর জন্য একজন পার্ফেক্ট জীবন সজ্ঞী আমাদের আদ্রিয়ান জিজু।

রুবা: জিজু🙄?
কাশু: হু জিজু। রোদেলা আর জিজুর বিয়ে হলে আদ্রিয়ান তো আমাদের জিজুই হবে🥰।
রুবা: 😒তুই সব সময় এক লাইন বেশি বুঝিস। এখনো ওদের মাঝে কিছু ঠিক হলোনা ও আসছে বিয়ে নিয়ে!
মুন: এই থাম তোরা।

ওদের কথার মাঝে ওটির লাইন বন্ধ হলো। সবাই লাইট অফ হতে দেখে উঠে দাঁড়ালো। ওটির ভেতর থেকে একটা মেয়ে বের হলো। দেখতে আরাভ আদ্রিয়ানদের বয়সি মেয়েটা। আরাভ মেয়েটার দিকে এগিয়ে গিয়ে বললো,

আরাভ: ডাক্তার আদৃতা, আদ্রিয়ান?
আদৃতা: দেখুন মিস্টার আরাভ, পেসেন্টের বুকে দুটো গুলি লেগেছে। অনেক ব্লিডিং হয়েছে। তাও আমরা যথেস্ট ব্লাড দিয়েছি। মাঝখানে তো আশাই ছিলোনা ওনার জন্য। তবে এখন আমরা আশা রাখি। ২৪ঘন্টার ভেতরে জ্ঞান না ফিরলে রোগী কোমায় চলে যেতে পারে অথবা সে মারাও যেতে পারে। জ্ঞান ফেরার চান্স আছে ১০%। আর ডাক্তারদের কাছে ১০% মানে অনেক কিছু। যেখানে ০% ছিলো আশা সেখানে এখন ১০% আশা আছে। বাকিটা আল্লাহ ভরসা।

কথাটা বলে ডাক্তার আদৃতা চলে আসলো। আর রোদেলা পাথরের মতো আবার বসে রইলো। বাকিরা আশাহত চোখে তাকিয়ে রইলো।

#চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here