নিষিদ্ধ প্রেম পর্ব-০১

0
892

#নিষিদ্ধ প্রেম
#জান্নাতুল ফারিয়া প্রত্যাশা
|১|

পাত্রী দেখতে এসে রীতিমতো ভূত দেখার মতো চমকে গেল অরিক সোবহান। অক্ষিপটে ভেসে উঠল তার কিছুদিনের আগের সেই মূহুর্তগুলো। তবে সে’ই কিন্তু একা চমকালো না, তার পাশে বসে থাকা তার বন্ধু নিরবও সমান তালে চমকেছে। নিরব খুব মনোযোগ সহিত তার সামনে বসে থাকা রমনীর আপাদমস্তক পরখ করে নিশ্চিত হলো এই সেই মেয়ে। ঘাম ছুটে গেল তার। হাত দিয়ে কপাল মুছে বন্ধুর কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিসিয়ে বললো,

‘দোস্ত, এটা সেই মেয়েটা না যাকে কয়দিন আগে তুই ধ*..’

বাকি কথা বলার আগেই অরিক নিরবের হাত চাপড়ে ধরল। চোখ গরম করে তাকিয়ে চুপ থাকতে বললো তাকে। দমে গেল নিরব, কিন্তু মনের ভয় কমে নি তার। মেয়েটার এই নীরব চাহনী যেন তাদের ভয় কে আরো বাড়িয়ে তুলছে।
.

বাড়ির বড়ো’রা কথা বলবে তাই সেই ফাঁকে অরিক আর রাইমা কেও আলাদা রুমে দেয়া হলো একটু কথা বলার জন্য। রাইমার কাজিনরা তাদের রুমে রেখে বেরিয়ে গেল। অরিকের চোখ মুখ শুকনো। দেখেই বোঝা যাচ্ছে সে ভীষণ ভীত। চোখ তুলে মেয়েটির দিকে তাকাচ্ছে না পর্যন্ত। রাইমাও চুপচাপ দাঁড়িয়ে রইল অনেকক্ষণ। গভীর মনোযোগে পর্যবেক্ষণ করলো সে অরিক কে। তারপর সে অরিকের দিকে দু কদম এগিয়ে গিয়ে বললো,

‘আমাকে চিনতে পারছেন?’

অরিক এবার তাকাল। সেই চাহনী তে ভয় ছাড়া যেন আর কিছুই দেখতে পারছে না রাইমা। রাইমা হাসল খুব। বললো,

‘একি আপনাকে এত ভীত দেখাচ্ছে কেন? ভয় পাবেন না, আমি কাউকে কিছু বলবো না।’

অরিকের কপালে বিস্ময়ের ভাজ পড়ল। ক্ষিপ্ত কন্ঠে বললো,

‘আমাকে চিনতে পেরেও কাউকে কিছু বলবেন না কেন? চাইলে আপনি এখনি আমাকে পুলিশে দিতে পারেন। আমি যা অন্যায় করেছি তার জন্য তো আমার কঠিন শাস্তি হবে। তাহলে আপনি আমাকে বাঁচিয়ে দিতে চাইছেন কেন? কি উদ্দেশ্য আপনার?’

রাইমা আরেক দফা হাসল। সুন্দরী মেয়েদের হাসি সুন্দর হলেও এই মুহুর্তে রাইমার হাসিটাকে ঠিক সুন্দর উপাধি টা দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ তার এই হাসিতে সৌন্দর্য নেই আছে বুক ভরা যন্ত্রণা আর হাহাকার। রাইমা হাসি থামাল। আরো কিছুটা এগিয়ে গেল অরিকের দিকে। রাইমার হঠাৎ এত কাছে আসায় অরিক কিছুটা ঘাবড়ে গেল। এক কদম পিছিয়ে যেতেই রাইমা বিদ্রুপের সুরে বললো,

‘ওমা পিছিয়ে যাচ্ছেন কেন? আজ আর কাছে আসতে মন চাইছে না? সেদিন তো আমার খুব কাছে এসেছিলেন। আমার শরীরের প্রতিটা অঙ্গ প্রতঙ্গ ছুঁয়েছিলেন। সেদিন এই ভয় কই ছিল? নিজের সমস্ত বাসনা মিটিয়ে আমাকে রাস্তায় ফেলে রেখে তো দিব্যি বন্ধুকে নিয়ে চলে এসেছিলেন। তবে আজ কেন এত ইতস্তত বোধ করছেন? এই যে আমি আপনার কত কাছে, ছোঁ’ন আমায়। কি হলো, পিছিয়ে যাচ্ছেন কেন?’

অরিক রেগে যায় তার কথায়। এখানে আসার আগে যদি একবার মেয়ের ছবি টা দেখে আসতো তাহলে আর তাকে এই সিচুয়েশনে পড়তে হতো না। নিজের দোষেই তার আজ এই হাল। রাগে ফোঁস ফোঁস করতে করতে সে বললো,

‘শুনুন, এসব ফালতু কথা বলা বন্ধ করুন। আমি জানি আমি একজন ধর্ষক, আমি আপনাকে ধর্ষণ করেছি, এটা এক্ষুণি গিয়ে আপনি আপনার পরিবার কে জানিয়ে দিন। তারপর পুলিশ ডেকে এনে আমাকে গ্রেফতার করিয়ে দিন। আর এত নাটক করবেন না। অনেক করেছেন।’

রাইমা এদিক ওদিক তাকিয়ে জোরে একটা নিশ্বাস নিল। কথাগুলো দুর্মর গতিতে মস্তিষ্কে আলোড়ন তৈরি করছে তার। সে তাই শক্ত গলায় বললো,

‘না, আপনাকে আমি পুলিশে দিব না। না আমি এই ব্যপার টা কাউকে জানাব। আমার পরিবারের আপনাকে খুব পছন্দ হয়েছে। আর আমার মনে হয় আপনার পরিবারেরও আমাকে খুব পছন্দ। আপনার মা’র কথা শুনে তো তাই মনে হলো। এখন যখন দুই পরিবারেরই সবকিছু পছন্দ তবে আমি আর বেঁকে বসবো না। আপনাকেই আমি বিয়ে করবো।’

অরিক হতভম্ব হয়ে পড়ল। বিস্মিত হয়ে তাকিয়ে রইল মেয়েটার দিকে। অদ্ভুত! একটা মেয়ে কি করে তার ধর্ষক কে বিয়ে করতে রাজি হয়? তাও আবার এত সহজে? অরিকের সন্দেহ হয়। মন বলছে তার, মেয়েটার মাথায় অন্য কিছু চলছে। নিশ্চয়ই আগে থেকে কিছু প্ল্যান করে রেখেছে সে। না না এই মেয়েকে কোনোমতেই বিয়ে করা যাবে না। অরিক সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয়। সাফ গলায় জানিয়ে দেয়, সে তাকে কোনো ভাবেই বিয়ে করবে না।

রাইমা তাচ্ছিল্যের হাসি দিয়ে জবাবে বললো,

‘বিয়ে তো আপনাকে করতেই হবে অরিক সোবহান। আর আমাকেই করতে হবে।’

‘মগের মুল্লুক নাকি? বলেছি তো আমি আপনাকে বিয়ে করবো না। এখন আপনি যদি সবাই কে সবটা বলে দিতে চান তো বলে দিতে পারেন। আমার কিছু যায় আসে না।’

কথাটা উচ্চস্বরে বলে দু’পকেটে হাত দিয়ে অন্য দিকে মুখ করে দাঁড়াল সে। রাইমা বাঁকা হাসল। বললো,

‘আপনি যতটা সহজ ভাবছেন সবকিছু কিন্তু অতটাও সহজ না মি. অরিক সোবহান। কি বলুন তো, আমার না খুব শখ ছিল আমার একটা সংসার হবে, ছোট্ট ভালোবাসার একটা সংসার। সেখানে আমি আর আমার স্বামী অনেক সুখে থাকব। তারপর একদিন সেই ছোট্ট সংসার কে পরিপূর্ণ করে দেওয়ার জন্য আমাদের একটা ছোট্ট পরী আসবে। যে তার জাদু দিয়ে আমাদের সুখ কে আরো বাড়িয়ে দিবে।(একটু থেমে) কিন্তু..কিন্ত আপনি কিছু হতে দিলেন না। সব কিছু নষ্ট করে দিলেন। আমাকে ধর্ষিতা বানালেন। চরিত্রে কালি মাখালেন। আমার সতীত্ব হরণ করলেন। আমাকে জীবন্ত লাশ বানিয়ে ছাড়লেন। এখন..এখন আপনিই বলুন, আমাকে কে বিয়ে করবে? কেউ কি যেচে পড়ে কোনো ধর্ষিতা কে বিয়ে করে? করে না তো। তাই এখন আপনাকেই আমার বিয়ে করতে হবে। আপনি চান কিংবা না চান আমিই আপনার বউ হবো।’

কথাগুলো শেষ করেই চটজলদি চোখ মুছে নিল রাইমা। হঠাৎ করেই খুব কান্না পাচ্ছে তার। সেই ভয়ংকর মুহুর্তগুলো বারবার চোখের সামনে ভেসে উঠছে। নিজের দেয়া সেই বিভৎস চিৎকারগুলো যেন নিজের কানেই বাজছে। পারছে না সে, না পারছে মরতে না পারছে বেঁচে থাকতে। আর চোখের সামনের এই মানুষটাকে দেখে যেন তার এই যন্ত্রণা আরো বেড়ে গিয়েছে। খুব তো চলছিল তার সুন্দর, সাধারণ জীবন টা। হঠাৎ কোথ থেকে এই অচেনা মানুষটা এসে অমানুষের মতো তার জীবন টা নষ্ট করে দিল। ধ্বংস করে দিল তার সমস্ত স্বপ্ন। এর জন্য সে কোনোদিনও এই মানুষটাকে ক্ষমা করতে পারবে না। কোনোদিনও না।
.
.
চলবে..?

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে