নাটকের ফাঁদে

0
317

অফিস থেকে বাসায় এসে দেখি স্ত্রী, ছেলেদের নিয়ে ওর বাবার বাসায় গেছে বেড়াতে। রাতে খেয়েদেয়ে আসবে। আমাকে বলে যায়নি, ফোন করেও জানায়নি! আজকে একটু তাড়াতাড়ি চলে এসেছিলাম এই ভেবে যে, সবাইকে নিয়ে বাইরে ঘুরে আসব। হলো না। কি আর করা। টিভি দেখতে বসে গেলাম। বিভিন্ন চ্যানেলে নাটক হচ্ছে। অনেকদিন নাটক দেখা হয়না, বাচ্চাদের কারনে টিভিতে কার্টুন ছাড়া আর কিছু চলেই না। আজকে সুযোগটা কাজে লাগাতে হবে।

আমার প্রিয় অভিনেতাকে একটি চ্যানেলের নাটকে দেখে থামলাম। বরিশালের আন্চলিক ভাষায় নাটক। পড়াশোনার কারনে বহুবছর এই অন্চলে থেকেছি আমি, ভাষাটার প্রতি একটা টানও আছে। কিন্ত দশ মিনিট ধরে নাটক দেখার পরও বুঝতে পারলাম না কি হচ্ছে। একটা ঝগড়া হচ্ছে, অনেকগুলো চরিত্র। অনেকেই যে এই আন্চলিক ভাষা সম্পর্কে জানে না, শুধু স্ক্রিপ্ট মুখস্ত করেছে বোঝা যায়। একটা জিনিসই বুঝলাম ভাষাটাকে পুঁজি করে লোক হাসানোর চেষ্টা হচ্ছে। এই ঝগড়াঝাঁটি দেখার কোন মানে হয় না। চ্যানেল চেন্জ।

পরের চ্যানেলেেই ঢাকাইয়া ভাষায় ঝগড়া হচ্ছে। যারা এই ভাষাটা জানে না তারা বোধহয় মনে করে “আবে হালায়”, “মাগার”, “খিলাইবার” এইসব বললেই ভাষাটা হয়ে যায়। বিরক্তিকর। চ্যানেল চেন্জ।

এবার যশোরের ভাষার নাটক। ভাষাটার মধ্যেই কেমন যেন একটা অসহায় অসহায় ভাব আছে। কিন্ত সেখানেও ঝগড়া! ঝগড়া দেখতে দেখতে মেজাজটা খারাপ হয়ে যাচ্ছে।

এইসময়ই স্ত্রীর ফোন। বাবার বাসা থেকে ফোন করলে ওর গলায় কেমন যেন একটা আদুরি আদুরি ভাব ফুঁটে ওঠে। সেইরকম কন্ঠেই কথা বলা শুরু করল ও।

– কি করছ?

– ভ্যারেণ্ডা ভাজছি! রাগী গলায় বললাম।

– কি ব্যাপার! এভাবে কথা বলছ কেন?

– কিভাবে কথা বলছি?

– আমি বাবার বাসায় আসলেই তুমি খারাপ ব্যবহার কর আমার সাথে! আমি কি সবসময় আসি?

– কোথায় খারাপ ব্যবহার করলাম! তুমি না শুধু শুধু ঝগড়া লাগানোর ছুঁতো খুঁজ!

– ও! আমি ঝগড়াটে! ঠিক আছে, নম্র ভদ্র দেখে আরেকজনকে খুঁজে নাও না। কে আটকে রেখেছে?

– কি যে বলনা তুমি…. হ্যালো.. হ্যালো…

ফোন কেটে দিয়েছে! ধুর্। একটা ভাল সময় কাটাব বলে তাড়াতাড়ি বাসায় চলে আসলাম আর কি হলো। আর হবে নাই বা কেন? এরকম সব জায়গায় যদি ঝগড়াঝাটি দেখি তাহলে তো এমন হবেই! নাটকই দেখব না! চ্যানেল চেন্জ।

ক্রিকেট খেলা হচ্ছে। ফাইনাল। রানটা নিয়েই জিতে গেল প্রিয়দল, অপ্রিয় প্রতিপক্ষের সাথে। খুবই ভাল লাগল। কিন্ত একি? ছেলেগুলো নিজেদের মাঝে ঝগড়া শুরু করে দিল!

শুনেছি নাটক হচ্ছে সমাজের দর্পণ। তাহলে কি আমরা দিনে দিনে ঝগড়াটে জাতিতে পরিণত হচ্ছি?!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here