তুই_যে_শুধুই_আমার [❤you are only mine❤]Part_3

0
1206

তুই_যে_শুধুই_আমার [❤you are only mine❤]Part_3
#Writer_Tanzin_Islam_Ishika

সায়রা যখন মুখ লুকিয়ে কান্না করছিল তখন রাহেলা বেগম আর রিপা বেগম সায়রা এর রুমে কিছু জিনিস নিয়ে এসে বলে,,

রাহেলা বেগমঃ যা তারাতারি এইগুলো পড়ে রেডি হয়ে নেয়,,
সায়রা তাদের আসার আভাস পেয়ে আগেই চোখ দুটো মুছে ফেলে আর বলে,,

সায়রাঃ কেনো,,

রাহেলা বেগমঃ একটু পর তোর বিয়ে,,

সায়রাঃ মানেএএএ,,কার সাথে,, অবাক হয়ে

রাহেলা বেগমঃ আরুশ এর সাথে,, তোদের এখনই বিয়ে করে নিতে হবে,,

সায়রা কিছু বলতে যাবে,, তার আগেই রাহেলা বেগম ওকে থামিয়ে বলে,,
রাহেলা বেগমঃ কোন কথা না,, চুপচাপ রেডি হয়ে নে,, একটু পর কাজি চলে আসবে,, হাতে বেশি সময় নেই,, যা তারাতারি রেডি হয়ে নে,,,

এই বলে তিনি আমার হাতে সব জিনিস ধরিয়ে চলে যায়,,, আর রিপা বেগম আমার এর মাথা হাত বুলিয়ে চলে যায়,, আমি বেকুবের মত বসে থাকে,, হঠাৎ ফোনে আলো জ্বলে উঠে,, ফোন হাতে নিয়ে দেখি রুহান ফোন করেছি,, আমি কিছুই বুঝতে পারতাসি না কি করবো,, ফোন বাজতে বাজতে একসময় অফ হয়ে যায়,, আবার ফোনটা বেজে উঠে,,, আমি ফোন রিসিভ করতেই যাব এমন সময় কেউ আমার হাত থেকে ফোন নিয়ে স্বজরে আছাড় মারে,, আমি ভয়ে কুকড়িয়ে উঠি,, সামনে তাকাতেই দেখি আরুশ ভাই রক্তিম চোখের আমার দিকে তাকিয়ে আছে,, আমি ভয়ে ভয়ে কয়েক শুকনো গলায় কয়েকটা ঢোক গিলি,,আমি কিছু বুঝে উঠার আগেই সে আমাকে উঠিয়ে আমার হাত পিছনে মুচড়ে ধরে,, আর আমাকে তার সাথে পিছনের দিক থেকে নিজের মিশিয়ে নেয়,, আমি ব্যথায় ‘আহহ’ করে উঠি,,, তখন সে আমার কানের কাছে এসে ফিসফিসিয়ে বলে,,

এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share


আরুশঃ খুব বেশি অন্যায় করে ফেলেছি তুই সায়রা,, খুব বেশি,, তোর আজ এখন আমার সাথে বিয়ে আর তুই এখনো ওই রুহানের সাথে কথা বলার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিস,, এমনটা করা মোটেও উচিত হয়নি তোর,, আমার সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করার শাস্তি তুই অবশ্যই পাবে ।
আমার বিশ্বাস ভাঙ্গার পরিনাম তুই ঠিকই বুঝতে পারবি,,,তোকে নিজের করে ভয়ানক শাস্তি দেবো,,

বলেই আরুশ ভাই আমায় আরো শক্ত করে নিজের সাথে চেপে ধরেন,,সে আমার কমোড় জরিয়ে ধরে বেশ রাগ ক্ষোপ জেদ নিয়ে,,,
আমি ব্যথায় কুকড়িঁয়ে উঠি,, চোখ থেকে অনাবরত পানি পরেই চলেছে,, তা দেখে আরুশ ভাই বলে উঠে,,,

আরুশঃ একদম ন্যাকামি করবি,, তোর এই চোখের পানি এখন আমায় আর গলাতে পারবে না,,,খুব শখ ছিল না রুহান বিয়ে করার,, কিন্তু
তা আর হচ্ছে না,, কেন না আমি তা হতে দিবো না,,তোকে তো আমাকেই বিয়ে করতে হবে,, আর আমারই হতে হবে,, কেন না #তুই_যে_শুধুই_আমার,,, আর আমি ভালো করেই জানি আমার জিনিস আমাকে কি করে আদায় করে নিতে হয়,,, কথায় আছে না,,
“Everything is fair in love and war”
So get ready being my,,,

এই বলে আরুশ ভাই আমায় ধাক্কা দিয়ে রুম থেকে চলে যায়,, আমি তার যাওয়ার দিকে তাকিয়ে থাকি,, আমার ভিতর থেকে এক দীর্ঘ শ্বাস বেড়িয়ে আসে,,,


?কিছুক্ষণ আগে?


সবাই গোল হয়ে বসে আছে,, কি করবে না করবে কিছু বুঝতাসে না,,
দাদীঃ আগেই কইসিলাম ছেলে মেয়ে গো এমন অবাধ মেলামেশা ভালা না,, তখন তহ বলসিলা কিছু হয় না,, এখন দেখ বড় গো কথা না শুনলে কি হয়,, পান চিবুতে চিবুতে,,,

ওসমান সাহেবঃ আহা মা,, চুপ করতো,, এখন এইসব না বলে কি করা যায় তা ভাব,,,

রিপা বেগমঃ দেখেন ভাই,, আমার সায়রাকে আগে থেকেই পছন্দ,,তাই ওকে আমার বাড়ির বউ করতে আমার কোন সমস্যা নেই,,

রাহেলা বেগমঃ মেহমানদের না হয় আমরা সামলিয়ে নিব,, কিন্তু রুহানের পরিবারকে কি জবাব দিব,,,

ওসমান সাহেবঃ ওরা যখন একে ওপরকে ভালবাসে সেখানে তহ আমাদের কিছুই করার নেই,, উল্টা এখন যদি আমরা সায়রাকে জোর করব বিয়েটা দেই তাহলে ৩ জনের জীবনই নষ্ট হবে,, এতে কেউ খুশি থাকবে না,,

রাহুল সাহেবঃ একদম ঠিক,, আমার কাছে এক বুদ্ধি আছে,, আমরা ওদের এখন ঘোরোয়া ভাবে বিয়ে করিয়ে দেই,, আর রুহানের পরিবারকে বলবো যে তারা আমাদের না জানিয়ে পালিয়ে বিয়ে করে আসছে,, এখন আমাদের ওদের আপন করে নেওয়া ছাড়া কোন উপায় নেই,, তাই তারা যাতে সব ভুলে যায়,, আর এই বিয়ে ভেংগে ফেলে,, হয়তো কিছু কটু কথা শুনাবে কিন্তু পরে সব ঠিক হয়ে যাবে,, আর যথা তারিখে আরুশ আর সায়রার পুনরায় বিয়ে দেওয়া হবে,, এতে লোক সমাজের কথা কিছুটা কম হবে,,,

ওসমান সাহেবঃ আমার কাছেও এইটাই ভালো মনে হয়,,

দাদীঃ দোষ করবো পোলাপাইনরা,, আর এর দায়ভার নিব বড় রা,, যতসব,,

দাদী এর কথা কেউ কানে না নিয়ে সকলে নিজের কথায় ব্যস্ত হয়ে পরে,,, কেন না সময় খুবই অল্প আর কাজ অনেক বেশি,,, তাই সকলেই বিয়ের জন্য ব্যস্ত হয়ে পরে,,,



??বর্তমানে??

সায়রা বউ সেজে বসে আছে,, পাশেই আরুশ বসা,, আরুশ নীল কালারের পাঞ্জাবি পরেছে,, চুল গুলো স্পাইক করা,, হাতে ঘড়ি,, সাদা আলতো গায়ে নীল পাঞ্জাবিটা একদম ফুটে উঠেছে,, যেন তারই জন্য এই রং টা তৈরি,, বেশ লাগছে তাকে,, সায়রাও কম কিসে,, নীল বেনরসীতে অপরুপ লাগছে তাকে,, চোখে কাজল,, ঠোঁটে হাল্কা লিপস্টিক,, হাতে নীল রেশমী চুড়ি,, গলায় হাড়,, এক পাশে খোপা করা,, আর মাথায় ঘুমটা,, সব মিলিয়ে তাকে আরুশ এর বউই লাগছে,,
বেশ মানিয়েছে দুইজনকে এক সাথে,,সামনে কাজী বসে আছে,, কিছুক্ষণের মধ্যেই বিয়ে পড়ানো শুরু হয়ে যায়,, আরুশকে কবুল বলতে বললে সে বলে দেয়,, যখন সায়রাকে কবুল বলতে বলা তখন সায়রা কিছু না বলে চুপ হয়ে থাকে,, তা দেখে সকলে বলে কবুল বলতে,,, কিন্তু কাজ হয় না,, তখন আরুশ সায়রা এর কানের সামনে এসে বলে,,,

আরুশঃ এত ঢং না করে কবুল বলে দে,, তা না হলে আমি কি করতে পারি তা তোর ধারণার বাইরে নয়,,

অতঃপর আর কি সায়রা বাধ্য হয়ে কবুল বলে দে,, আরুশ আর সায়রা এর বিয়ে সম্পন্ন হয়,,


রাতেরবেলা,,
যে যার রুমে শুয়ে আছে,, চারদিকে নিস্তব্ধতা বিরাজমান,, এর মধ্যে এক চাপা কান্নার কন্ঠ ভেসে আসছে কানে,, আর তা আসছে সায়রা এর রুম থেকে,, সায়রা খাটে বসে নিশব্দে কান্না করেই চলেছে,, তার শ্বাস যেন বন্ধ হয়ে আসছে,, এক তীব্র যন্ত্রণা হচ্ছে তার মধ্যে,,,
কেন না সামনের সোফাতে আরুশ পায়ের উপর পা তুলে একের পর এক সিগারেট খেয়েই চলেছে,, তার সিগারেটের ধোঁয়ায় আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে,,, কিন্তু তাতে আরুশ এর কিছুই যায় আসছে না,, বরং আমার কষ্টা যেন তার ভিতরে জ্বলা আগুনকে শান্ত করছে,, সিগারেটের শেষ টান দিতে দিতে হাতে ওক বোতল পানি নিয়ে আরুশ আমার দিকে এগিয়ে আসে,, আসতে আসতে আমার মুখের একদম কাছে চলে আসে,, তারপর আমার মুখের মধ্যে সিগারেটের ধোঁয়া গুলো ছেড়ে দেয়,, আমি গন্ধটা সহ্য করতে না পেরে কাশতে থাকি,, দম বন্ধ হয়ে আসছিল,, এই বুঝি দম বন্ধ হয়ে মারা যাব,, সিগারেটের গন্ধ আমি বরাবরই সহ্য করতে পারি না,, তার উপর সিগারেটের ধোঁয়াতে আমার দম বন্ধ হয়ে আসে,, বেশিক্ষন এর মধ্যে থাকলে আমার শ্বাসকষ্ট হয়ে যায়,,,
আর তা আরুশ জানে,, জেনে শুনে সে এমন করেছে তা বুঝতে আমার আর বাকি রইলো না,, আমি অনাবরত কেশেই চলেছি,, কাশি থামার নামই নেই,,,তা দেখে আরুশ বলে উঠে,,

আরুশঃ কিরে কষ্ট হচ্ছে বুঝি,, পানি খাবি,, হাতে থাকা পানির বোতলটা দেখিয়ে,,

আমি সাথে সাথে মাথা নারাই,,আর পানির বোতলটা নিতে নেই,, কিন্তু নেওয়ার আগেই আরুশ তা সরিয়ে ফেলে,,, আরুশের ঠোঁটের কোনে এক চিল্লিৎ হাসি ফুটে উঠে,,, তারপর সে বলে,,

আরুশঃ তোকে পানি দিতে পারি কিন্তু এক শর্তে,,

আমি করুন চোখে তার দিকে তাকিয়ে থাকি,, কি শর্ত দিবে আল্লাহই জানে,,

আরুশঃ আমি তোকে একটু পর যা যা বলবো তোকে ঠিক তা তাই করতে হবে,, আমার কথার উপর কোন কথা বলতে পারবি না,,, কি রাজি তহ তুই,, রাজি না হলে কিন্তু পানি পাবি না,,,

এইদিকে আমার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে গিয়েছে,, এখন যদি পানি না পাই তাহলে আমার অবস্থা কাহিল হয়ে যাবে,, তাই আমি মাথা নেড়ে সাই সেই যে আমি রাজি,, আরুশের মুখে বিশ্ব জয়ের হাসি ফুটে উঠে,, আর সে,আমায় পানি এর বোতল এগিয়ে দেয়,, আমি পানি পেয়ে এক ঢোকে পুরো বোতল শেষ করে ফেলি,,, এখন কিছুটা স্বস্তি লাগছে,, তা দেখে আরুশ বলে উঠে,,

আরুশঃ তাহলে শুন তোকে কি করতে হবে,,,,





চলবে,,,
গল্পটা কখন দিব,, সকালে নাকি ইফতার এর পরে,,, আপনারাই বলুন,,, আর গল্পটি কেমন লাগছে জানাতে ভুলবেন না,, ভুল ত্রুটিগুলো ক্ষমার চোখে দেখবেন,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here