তুই_যে_শুধুই_আমার [❤You are only mine❤]Last_Part

4
1236

তুই_যে_শুধুই_আমার [❤You are only mine❤]Last_Part
#Writer_Tanzin_Islam_Ishika [Asfiya Islam Jannat]

সকাল ৭ টা বাজে,,
সায়রা আরুশের খালি বুকে মাথা রেখে ঘুমাচ্ছে,, কি না নিষ্পাপ লাগছে তাকে,, মুখটা একদম উজ্জ্বল দেখাচ্ছে,, এক আলাদা মায়াই বিরাজ করেছে তার মুখখানিতে,,
আরুশ আরো গভীর ভাবে সায়রাকে নিজের সাথে জরিয়ে নেয়,,আরুশের আজ বেশ শান্তি লাগছে সে তার ভালোবাসাকে হারিয়ে আবার নতুন করে পেয়েছে,, তার ভালবাসার মানুষকে নিজের ভালবাসায় নতুন করে রাঙিয়েছে,,

কিন্তু ওকে ভুল বুঝে কতইনা কষ্ট দিয়ে ফেলেছিলাম,, নিজের থেকে দূরে সরিয়ে ফেলেছিলাম,, নিজের ভালবাসা থেকে বঞ্চিত করতে চেয়েছিলাম যে কিনা আমাকে পাগলের মত ভালবেসে চলেছিল,, যে কিনা আমার একটু ভালবাসা পাওয়ার জন্য কাঙাল ছিল,,
অন্য কারোর অন্যায়ের শাস্তি তাকে দিয়ে গেছি,, ভুল বুঝে গিয়েছি,, তার সাথে অন্যায় করেছি,,
কিন্তু এখন থেকে কখনই আমি নিজেদের মধ্যে না কোন ভুল বোঝাবুঝি আসতে দিবে না,, কোন তৃতীয় ব্যক্তিকে আসতে দিবে,,প্রমিস,,

এসব ভাবতে ভাবতে আরুশ সায়রার কপালে চুমু দেয় কপালে কাউরো ঠোঁটের স্পর্শ পড়তেই সায়রা ঘুম ভেঙ্গে যায় সায়রা আলতো করে ঘুম ঘুম চোখে আরুশের দিকে তাকায়,,আরুশের চেহারায় ঠোঁটের কোনে মৃদ্যু হাসি দেখে সায়রা মুখে হাসি ফুটে উঠে,,
আরুশ সায়রাকে নিজের সাথে আলতো করে জরিয়ে ধরে তার কানের কাছে ফিস ফিসিয়ে বলে ,,,
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share


আরুশঃ গুড মর্নিং জান,,

সায়রাঃ গুড মর্নিং,, মিষ্টি একটি হাসি দিয়ে,,

আরুশঃ ঘুম কেমন হলো শুনি,, ভ্রু নাচিয়ে,,

এই কথা শুনে সায়রার মুখে এক লাল আভা ফুটে উঠে,, সে লজ্জায় আরুশের বুকে মুখ লুকায়,, তা দেখে আরুশ বলে,,

আরুশঃ জান সরি,, তোমায় ভুল বুঝে অনেক কষ্ট দিয়ে ফেলেছিলাম,, অনেক অন্যায় করেছিলাম তোমার সামনে,, মাফ করে দিও,, আমাকে কি শেষ বারের মত সুযোগ দিবে,, দিবে কি সুযোগ তোমায় আমার ভালবাসাতে ভরিয়ে দিতে,, নিজের ভালবাসার চাদরে মুড়িয়ে দিতে,,

সায়রা মাথা উঁচু করে এক মিষ্টি হাসি দিয়ে আরুশের ঠোঁটে আলতো করে নিজের ঠোঁট ছুঁয়ায়,, তারপর ওর বুকে মাথা রেখে বলে,,

সায়রাঃ দোষ শুধু তোমার একার ছিল না, আমারও ছিল,, তাই তুমি মাফ চেয়েও না,, আর এখন থেকে সকল সংশয় ভুলে নতুন করে জীবন সাজাবো,, যেখানে থাকবো শুধু তুমি আর আমি আমাদের ভালোবাসা,,
কিন্তু এর আর আগের কথা দেও আর কখনো আমার সাথে এমন বাজে ব্যবহার করবে না,, যত ভুল বোঝাবোঝি রাগারাগি হোক না কেন দুজন শান্ত ভাবে নিজেদের মধ্যে মিটিয়ে নিবো,,
কথা দেও,,,

আরুশ মুচকি হেসে সায়রার কপালে ভালবাসার স্পর্শ একে দিয়ে বলে,,
আরুশঃ কথা দিলাম আর কখনো এমন কিছু করবো না,,প্রমিজ

সায়রাঃ যাও এখন ফ্রেশ হয়ে আসো,,,

আরুশঃ যো হুকুম মেরি সেহেজাদি,,

বেশ কিছুক্ষণ পর সায়রা নিচে চলে যায় নাস্তা তৈরি করতে,, আরুশও ততক্ষনে ফ্রেশ হয়ে চলে আসে,, একটা ব্লেক টাউজার আর টি-শার্ট পরে সে নিচে নেমে আসে,, নিচে এসে সে সোজা রান্নাঘরে চলে যায় গিয়ে পিছন থেকে সায়রার কোমড় জরিয়ে ধরে ওর কাধে থুতনি রেখে বলে,,

আরুশঃ কি করছো,,

সায়রাঃ আকাশ থেকে ডিম পাড়তাসে,,

আরুশঃ মজা করতাসো নাকি,, তুমি তহ রান্না করছো,,

সায়রাঃ দেখতে যখন পাচ্ছো তখন এমন ফালতু প্রশ্ন কেন করছো,,

আরুশঃ উহহ,, আমার বউ দেখে রেগে গেছে,, তা আমার বউ কি জানে তাকে রাগলে আরও বেশি সুন্দর লাগে,, যখন তার নাক রাগে লাল হয়ে যায় আর গাল গুলো টমেটোর মত ফুলে যায় তখন তাকে দেখে ইচ্ছে করে টুপ করে খেয়ে ফেলি,,

সায়রা এখন রাগ ভুলে লজ্জায় লাল হয়ে যায়,, আরুশ যে কেন তাকে বার বার এমন লজ্জায় ফেলায় কে জানে,,, সায়রা কিছু না বলে রান্না করতে থাকে,, আর আরুশ পিছন থেকে ওকে জরিয়ে ধরে ওর কাধে নাক দিয়ে ঘষতে থাকে,, ঠিক তখন আরুশের মোবাইলে একটা ফোন আসে,, আরুশ পকেট থেকে মোবাইল বের করে নাম্বারটি দেখে ভ্রু কুচকিয়ে যায়,,, সে ফোন রিসিভ করে কথা বলতে থাকে,,

আরুশঃ হোয়াট,,, এত কিছু হয়ে গেল আর আপনি আমায় এখন বলছেন,,,

ওই পাশ থেকে কি বললো বুঝা গেল না,,

আরুশঃ ঠিক আছে,, আপনি যা ভালো মনে করেন,, আমার এইখানে কিছু বলার নেই,,

বলে ফোন রেখে দেয়,, সায়রা ততক্ষণে খাবার টেবিলে সাজিয়ে ফেলে,, পরে আরুশের কাছে এসে বলে কি হয়েছে,,

সায়রাঃ কি হয়েছে,,

আরুশঃ কমিশনার ফোন দিয়েছিল,,

সায়রাঃ কেন,,

আরুশঃ তোমাকে একটা কথা বলা হয়নি,, তুমি যখন হাসপাতালে ছিলে তখন আমি রুহানকে পুলিশের কাছে দেওয়া হয়েছিল,,

সায়রাঃ ওও,, তহ কেন ফোন করেছিল,,

আরুশঃ কিছু দিন আগে রুহান জেল থেকে পালানোর চেষ্টা করে,,, এতে কিছু পুলিশ অফিসার দের আঘাতও করে পুলিশের গান নিয়ে সে পালিয়েও যায়,, পুলিশ যখন তাকে ধরতে যায় তখন সে পুলিশের উপর ব্যাক ফায়ার করে,, ওকে কোন ভাবেই ধরা যাচ্ছিল না,, তাই পুলিশ বাধ্য হয়ে ওকে গুলি করতে,, আর ওর অন দ্যা স্পোট ডেড হয়,, এখন ওর ফ্যামিলিকে ওর লাশ নিয়ে যাওয়ার জন্য বলে,, কিন্তু সম্মানের ভয়ে সে ওর লাশ নিতে মানা করে ফেলে,, তাই এখন ওর লাশের কি করবে তার জন্যই ফোন দিয়েছিল,,

সায়রা সব শুনে তার ভিতর থেকে এক দীর্ঘ শ্বাস বেরিয়ে আসে,,

সায়রাঃ সকলের কর্মের ফল তাকে পেতেই হয়,, হয়তো ইহকালে তা না হলে পরকালে,, শাস্তি তহ তাকে ভোগ করতেই হয়,,

আরুশঃ হুম,,

দেখতে দেখতে ৪ মাস কেটে যায়,, আরুশ আর সায়রা এখন ইতালিতে সেটেল হয়ে গিয়েছে,, আরুশের সবকিছু যেহুতু এইখানে তাই সকলের মতে তারা দুইজন এইখানে এসে পরে,,
এইখানে এরা নতুন ভাবে নিজের জীবন সাজাচ্ছে,, যেখানে তাদের ভালবাসার কোন কমতি নেই,,
সায়রা এইখান থেকেই তার পড়া লেখা শেষ করছে,,, আর আরুশও তাকে ফুল সাপোর্ট করছে,,

সন্ধ্যায় সায়রা কফির কাপ নিয়ে বারান্ধায় দাড়িয়ে তাতে চুমুক দেয় বাতাসে তার খোলা চুল গুলো উড়তে লাগে বিকালের এই বাতাসটাকে চোখ বন্ধ করে অনুভব করতে লাগে,,
আরুশ তখন পিছন থেকে সায়রার কোমড় চেপে ধরে তার ঘাড়ে নিজের মুখ ডুবিয়ে দেয়,, সায়রা আরুশের স্পর্শ বুঝতে পেরে মুচকি হেসে চোখ গুলো খুলে আরুশের উপর নিজের শরীরের ভর ছেড়ে দেয়,,তারপর সুবাহ মৃদ্যু হেসে বলে ,,

সায়রাঃ বাহ আজ দেখি আমার হাসবেন্ড ফুল রোমান্টিক মুডে আছে,, কি ব্যাপার,,

আরুশ চোখ বন্ধ করে সায়রার ঘাড়ে চুমু দিতে দিতে মাতাল কন্ঠে বলতে লাগে,,

আরুশঃ আমি তো সব সময়ই রোমেন্টিক মুডে থাকতে চাউ,, তোমাকে নিজের ভালবাসায় রাঙাতে চাই,,তোমাতে ডুবে থাকতে চাই কিন্তু তুমি তো সে সুযোগটা দেও না,,

সায়রা আরুশের দিকে ঘুরে তার গলায় নিজের দু হাত রেখে এক মিষ্টি হেসে দিয়ে বলে,,

সায়রাঃ ও আচ্ছা তাই বুঝি,,

আরুশ সায়রার কোমড় জরিয়ে ওকে আরও কাছে টেনে বলে,,

আরুশঃ জি হ্যাঁ তাই,,তো এখন কি একটা সুযোগ দেওয়া যাবে কাছে আসার,,

বলেই আরুশের সায়রার মুখের কাছে নিজের মুখ নিয়ে আসে,,সায়রা আরুশে মুখের সামনে হাত রেখে আটকিয়ে খিল খিল করে হেসে বলে,,

আরুশঃ একদম না,, আমার এখন রাতের রান্না করতে হবে,,

আরুশ বাচ্চাদের মত ফেস করে বলে ,,

আরুশঃ এটা একদমই ঠিক না,,
তুমি সব সময় এমন করো তোমার কাছে আসলেই তুমি এমন চিটিং করো পালানোর জন্য,, এতে আমার কষ্ট হয় না বুঝি,,

সায়রাঃ আহারে,, আমার বরের কত কষ্ট,, এখন সরো যেতে দাও,,

আরুশঃ তা তহ হচ্ছে না,, আজ আমি তওমার কোন বাধাই মানবো না,, কেন না #তুই_যে_শুধুই_আমার,,

এই বলে সায়রাকে কোলে তুলে নেয়,, আর রুমের দিকে পা বাড়ায়,,


হয়তো আজ আবার নতুন করে রাঙিয়ে দিবে আরুশ সায়রাকে নিজের ভালবাসার রঙে,, পারি দিবে এক অজানা ভালবাসার রাজ্যে,, যেখানে থাকবে না কোন সংশয়,, না থাকবে কোন অবহেলা,, না থাকবে কোন ভুল বুঝাবুঝি,, শুধু থাকবে তাদের দুষ্টু মিষ্টি ভালবাসা,,
বেঁচে থাকুক তাদের ভালবাসা,, মধুর হোক তাদের জীবন,,


???সমাপ্ত????


জানি না গল্পটা কেমন হয়েছে,, সবার মনের মত হয়েছে কিনা,,
সকলেই জানাবেন আপনাদের গল্পটি কেমন লাগলো,, যারা এত দিন আমার গল্প পরেছেন অথচ কোন কমেন্ট করেন নি তারাও প্লিজ জানাবেন গল্পটি কেমন হয়েছে,,
আর কাল দুপুরেই আসছে আমার নতুন গল্প

#তোমাতে_আমি_আবদ্ধ

আশা করি সকলেরই ভালো লাগবে,,

4 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here