ছায়া নীল ! ৩৫.

0
1462

ছায়া নীল !

৩৫.

Maria Kabir

সৌরভ কে অনেক বলার পরও বড় ফুপু কিছু করাতে পারলেন না। বাধ্য হয়ে নিচতলার ভাড়াটিয়া কে ডেকে তুললেন। তাকে দিয়ে এম্বুলেন্স আনালেন।
রাত ১.৩০ এ আমরা হাসপাতালে পৌঁছালাম। সৌরভ সেই আগের মতোই চুপচাপ আছে। ক্রমাগত ওর চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পরছে। ডাক্তার ছিলেন না। কয়েকজন নার্স ছিলেন তারা মেজো ফুপুকে দেখে রীতিমত ভয় পেলেন। এতক্ষণ আমি খেয়াল করিনি এসিড কোথায় লেগেছে। বুক থেকে পেট, পেট থেকে ডান পা পর্যন্ত এসিডদগ্ধ হয়েছে। ভয়ানক অবস্থা। বড় ফুপু ডাক্তার এর নাম্বার নিয়ে ফোন করে রিকুয়েস্ট করলেন আসার জন্য।
ডাক্তার আসলেন রাত ২.৩০ টায়। মেজো ফুপু এর অবস্থা খুবই খারাপ।
ফজরের আযানের সময় ডাক্তার সাহেব অপারেশন থিয়েটার থেকে বের হয়ে শুকনো মুখে বললেন
– অবস্থা খুবই খারাপ। এসিড টা তীব্র ছিলো তাই দেহের বাইরে তো দগ্ধ হয়েছেই ভিতরেও হয়েছে। আল্লাহ কে ডাকুন।
বড় ফুপু কাঁদতে লাগলেন। আমার জন্যই এমন হয়েছে। আমি ওর জীবনে না আসলে ওর আর ওর মায়ের এই করুণ পরিণতি হতো না।
হাসপাতালে আসার পর থেকে আমাদের কারোরই চোখে ঘুম ছিলো না। আমার শরীর খারাপ করছে। মেডিসিন খাওয়া হয়নি আজকে।
সকাল ৭ টার সময় একজন নার্স আমাদের বললেন
– আপনারা সকালের খাবার খেয়ে আসুন। এখন আমি আপনাদের রুগীর কাছে আছি।
বড় ফুপু আমাদের নিয়ে হাসপাতালের পাশের একটা খাবার হোটেলে নিয়ে গেলেন।
নীলকে এখন আগের থেকে স্বাভাবিক মনে হচ্ছে। বড় ফুপু ওকে বললেন
– এখন খাবার খেয়ে নে। তোর মা ঠিক আছে।
ও মাথা নেড়ে সম্মতি প্রকাশ করলো। খাবার খাওয়ার পর বড় ফুপু বিল দিয়ে দিলেন।
তারপর আমাকে আর সৌরভ কে বললেন
– তোরা বাসায় যা। আমি আছি এখানে।
সৌরভ যেতে চাইলো না। বড় ফুপু জোড় করে আমাদের ওনার বাসায় পাঠিয়ে দিলেন।
বাসায় এসে আমি গোসল করে নিলাম। ও বিছানার উপর চুপচাপ বসে আছে।
ওর পাশে বসে বললাম
– আমার জন্যে এতো কিছু হলো। সবকিছুর মূলে আমি। মেজো ফুপু সুস্থ হয়ে গেলে আমি চলে যাবো তোমাদের জীবন থেকে।
ও বলল
– কোথায় যাবা?
– জানি না, তবে ঠিক বলছি আমি চলে যাবো। আমার মতো খারাপ একটা মেয়ের জন্য মা – সন্তানের মধ্যে দন্দ্ব। আমি না থাকলেই সব ঠিক হয়ে যাবো।
– তুমি ভুল বলছো। সবকিছুর মূলে আমার মায়ের হিংসা, প্রতিশোধ নেয়ার প্রবণতা। আর কিছুই না। এসিডদগ্ধ হয়েছে নিজের কারণেই।
– আমি না থাকলে তো এই ঘটনা তো ঘটতো না।
– শুনো শারলিন, আমার মায়ের পাপের বোঝা অনেক বেশি হয়ে গেছে যার ফলাফল গতকালের ঘটনা। কিন্তু ঘটনার আকস্মিকতায় আমি থমকে গিয়েছিলাম। আমি বুঝে উঠতে পারিনি কীভাবে কী ঘটলো। আমার হাত থেকেই কী এসিড পরেছে নাকি দোষ আমার মায়ের। এতক্ষণ ভাবার পর খুঁজে পেলাম আমার কারণে হয়নি। মায়ের হাত থেকেই তার শরীরে পরেছে।
ও আমাকে জড়িয়ে ধরলো শক্ত করে। তারপর বলতে শুরু করলো
– জানো শারলিন, ছোটোবেলা থেকে মায়ের আদর পাওয়ার অনেক চেষ্টা করেছি। সে আমাকে প্রতিনিয়ত কষ্টই দিয়েছে। আমি একফোঁটা ভালবাসার জন্য দিনের পর দিন মায়ের প্রত্যেকটা কথা শুনেছি। ওনার কথা শুনেই তোমার সাথে আমি খারাপ ব্যবহার করেছি। শারলিন, আমাকে মাফ করে দাও।
– আরে বোকা, মাফ করার কী আছে? পাগলামি করো না। গোসল করে নাও। তারপর মেজো ফুপুর কাছে যেতে হবে আমাদের।
হাসপাতালে মেজো ফুপুর কেবিনের সামনে বেশ ভিড় দেখতে পারলাম।কাছে গিয়ে বুঝতে পারলাম মেজো ফুপু আর নেই। মেজো ফুপুর বেডে সাদা কাপড় দিয়ে তার দেহ ঢাকা। পাশের টুলে বড় ফুপু বসে আছেন।
সাদা কাপড় এর কিছু অংশ রক্তে লাল হয়ে আছে।

চলবে……..!

#Maria_kabir

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে