গল্পের নামঃ “heart touch love” পর্ব-২

0
3590

গল্পের নামঃ “heart touch love” পর্ব-২

সকালে উঠে আমি এমন ভাব দেখালাম যেন রাতে
কিছু হয় নি, ৩ মাস চাকুরী করে অভিনয় করা
অনেক শিখে গেছি।
অবশ্য আমাদের ট্রেনিং অভিনয় করা… কিভাবে
অভিনয় করে মানুষের মনের খবর নিতে হবে,
আজ কোন কাজ নাই, সারা দিন বাইরে ঘুরেই
কাটিয়ে দিলাম, কাল আমাদের বউ-ভাত!
রাতে আম্মু খাবারের জন্য ডাক দিলো, আমি
খেতে গেলাম, আজ রান্না টা যেন অন্য রকম
লাগলো, তার ওপর একটু ঝাল হয়েছে,
আমি অবশ্য ঝাল সহ্য করতে পারি, কিন্তু
আমার কেন জানি মনে হলো এটা আম্মু রান্না
করে নি।
আমিঃ মাংস কে রান্না করেছে?
আম্মুঃ কেন কি হয়েছে?
আমিঃ রান্না এতো ঝাল কেন?
আম্মুঃ সামিয়া রান্না করেছে, একটু ঝাল হয়েছে,
বেশি তো না, খেয়ে নে। কাল থেকে ঠিক হয়ে
যাবে।
আমিঃ ধুর! কি যাকে তাকে রান্না করতে দাও,
নিজে রান্না করতে পারো না? আমি এতো ঝাল
খাবো না।
আম্মুঃ তো আমি ডিম করে দিচ্ছি,
আমিঃ দাও।
।।
আমি সুধু ডিম ভাজা দিয়ে ভাত খেলাম, যদিও
মাংসের জন্য কষ্ট হলো, অভিনয় করার জন্য
খেতে পেলাম না।
।।
রাতে শ্বশুর ফোন দিলো,
আমি সালাম দিলাম।।
শ্বশুরঃ বাবা, কালকে তো আমরা আসবো,
আমিঃ হ্যাঁ, আসেন। কোন সমস্যা নাই।
শ্বশুরঃ সামিয়া কি করছে?
আমিঃএই তো পাশেই, টিভি দেখছে, দিবো?
কথা বলবেন?
শ্বশুরঃ না থাক, তুমি কি করছো?
আমিঃ আমি তেমন কিছু না, কম্পিউটারে একটু
কাজ করছি।
শ্বশুরঃ ঠিক আছে বাবা, ঘুমাও।
আমিঃ জি আচ্ছা, আসসাল্মু,।
।।
দেখলাম সামিয়া আমার দিকে তাকাচ্ছে,
আমিঃ কি হয়েছে?
সামিয়াঃ আমার দোষ কি?
আমিঃ কিসের দোষ?
সামিয়াঃ আমার রান্না আপনার খারাপ লাগতেই
পারে, কিন্তু এভাবে অপমান না করলে কি হতো
না? একটু ঝাল হয়েছে ঠিক আছে, তবে খাওয়া
তো যাচ্ছে। একটু ঝোল কম নিয়ে তো খাওয়া
যেত। আপনি সুধু ডিম ভাজি দিয়ে ভাত খেলেন?
আমিঃ তো কি হয়েছে? আমার ভালো লাগে নি
আমি খায় নি…
সামিয়াঃ তার মানে আপনি ইচ্ছা করেই এইরকম
করেছেন?
আমিঃ হ্যাঁ, অবশ্যই! তুমি এখনও বুজতে পারো
নি, আমি বলি তোমাকে, তোমার রান্নার
থেকেও অনেক ঝাল আমি খেতে পারি, কিন্তু
তোমার হাতের টা খাবো না।
সামিয়াঃ কিন্তু আমার দোষ কি সেটা তো
বলবেন।
আমিঃ প্রয়োজন মনে করি না, এখন বিরক্ত
করো না, ঘুমাবো।
।।
সকালে আমি ঘুম থেকে উঠে, আম্মুকে বললাম
আম্মু তাড়াতাড়ি নাস্তা বানাও আমাকে একটু
অফিস যেতে হবে, একটু কাজ আছে।
আম্মুঃ তুই কি ঢাকা চলে যাবি নাকি?
আমিঃ না, শহরেই যাবো, একটু কাজ আছে।
আম্মুঃ কিন্তু আজ তোর শ্বশুর যে আসবে,
তোকে আর সামিয়াকে যে নিয়ে যাবে।
আমিঃ সামিয়াকে নিয়ে যাক, আমি পরে চলে
যাবো।
আম্মুঃ যাওয়া কি খুব জরুরী?
আমিঃ আমি একটু দরকারেই যাচ্ছি।
আম্মুঃ ঠিক আছে।
।।
আমি ঘরে এসে রেডি হচ্ছি, দেখলাম সামিয়া
আমার দিকে চেয়ে চুপ করে দাঁড়িয়ে আছে?
আমিঃ কি ভাবছো, যে আমি সত্যি কোন কাজে
যাচ্ছি নাকি অভিনয় করছি? আমি অভিনয় করছি,
কাজ একটা আছে তবে সেটা আজ না করলেও
কোন সমস্যা নাই,
আসল কথা আমি তোমাদের বাড়ী যাবো না।
আর কোন প্রশ্ন?
সামিয়া চুপ করে দাঁড়িয়ে আছে… তার চোখ
দিয়ে পানি বের হচ্ছে।
আমিঃ দিনে কাঁদলে সবাই বুঝে যাবে। রাতে
কেঁদো অনেক সময় পাবা। এখন পথ ছাড়ো।

চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here