ক্রীড়াবেগ পর্ব ২

0
314

#গল্পপোকা_ধারাবাহিক_গল্প_প্রতিযোগিতা_২০২০
#বিষয়_ধারাবাহিক_গল্প
ক্রীড়াবেগ পর্ব ২
#কলমে_রিয়া_খাতুন

নিজের জীবন নিয়ে সকলেই স্বার্থপর তাই উনিও কাজটি বাধ্য হয়ে করেছিল। এখন আমার চোখে ওনার কোন দোষ ধরা না পড়ায় কাকাকে মিথ্যা পুলিশ সাজিয়ে ফোন তথা ওই যে বললাম ভদ্রস্থের ছাপ কোন ভাবে মাসি রক্ষা পেয়েছিল। তাছাড়া মাসির ওই নাতনিটার মুখের দিকে তাকিয়ে, আমার একটা আক্ষেপও কাজ করছিল, তাই সব মিলিয়ে,, আমি মিথ্যাশ্রয় নিয়েছিলাম একটা নির্দোষীকে বাঁচাতে কোন নিরীহ প্রাণকে মারার জন্য নয়। আমার ভাবতে ঘৃণা লাগছে ,তুমি আমার শা..ন্ত না। ইউ আর ভিলেন! ইউ আর লায়ার! আই হেট ইউ..।

আমি তোমার মুখে তোমার মায়ের কথা শুনলেই একটা যেন প্রতিশোধাগুনের জ্বলনফোয়াড়া দেখতাম,, সেটা এভাবে রূপায়িত করবে বুঝতে পারিনি। ঠিক এইভাবে তা বলে..,,তুমি আসলে ক্রিমিনালের নিরনুসন্ধান হয়ে বোকার ন্যায় শুধু প্রতিহিংসা চরিতার্থ করেছো। তারাও তো কারোর মেয়ে, কারোর মা ;বলতে পারো তাদের প্রতি এই পদক্ষেপ নেওয়ার আগে আমার মুখটা কেন ভেসে উঠলো না আমাকেও তো ঠিক এইভাবে মারতে পার….তে এইভাবে আইন হাতে তোলা যায় না শান্ত….।

ঈশ্বর যেখানে পরস্পর সব ঘটনা সাজিয়ে রাখে সেখানে অতি বুদ্ধিমান ‘মানুষ’ শব্দটিও ফানুসের মতো উড়ে যায়। সেদিন তোমার ফিরতে রাত হওয়া, তার পরবর্তী আমার আবভাবও কিন্তু তোমাকে ধরতে দেয়নি। হয়তো কোন কোন দিন একটু প্রভাব পড়লেও,, প্রভাবহীনতার আচ্ছনে তোমাকে ঘিরে রাখার চেষ্টা করেছি। শুধু ‘ঘৃণ্য’ শব্দটি তোমার ক্ষেত্রে রেখেছি, আর তোমাকে একটু একটু করে জানার চেষ্টা করেছি..।

মিথ্@শ্রয় কোম্পানির এমপ্লয় ‘তুমি’ নামক ছদ্মবেশী তোমার যে বন্ধু, তার সঙ্গে যোগাযোগ এবং কথার মাধ্যমে জাল সৃষ্টি করে এটাই জানতে পারলাম যে,, সেই মুখবন্ধের একমাত্র মাধ্যম যাতে মানুষকে খুব ভালোভাবে কেনা যায় টাকা; যা মাধ্যম করেই উনি মিথ্যা নাটকের অংশ নিয়েছিলেন….।

অতঃপর আমি মনস্থির করেছিলাম তোমার সঙ্গে ‘নাটকীয়’ সংসার শুধু এই শব্দটাই ব্যাবহার করতে পারব…।

তবে সাহ্ণি মাসিকে আমি মায়ের মত করে ভালোবেসেছিলাম, হয়তো সেও অপরাধী, তবে সে পরিস্থিতির শিকার…। তাই মাতৃত্ববোধের দূর্বলতায়, ওনাকে আমি আমার কাছে রাখতে চাইলেও, উনি কখনই রাজি হননি নয়; তোমার মুখোমুখি উনি হতে চায়নি।
আমি জোর না করলেও একটা বিষয় আমি ভেবেছিলাম…..।

তুমি একটু হলেও মাথায় আনতে পারবে;
সেদিন অনুসরনরতকে আবছাভাবে দেখে ফেলেছিলে , পিছনে ছিল মাসি। দেখেছিলে অনুসরনরতকে কিন্তু কারিনীকে নয়।
শান্ত….ও শা…ন্ত , সেদিন দেখেছিলাম আমার শান্তর আসল রূপ (কল্পনার ভয়ার্তাকুলতায়)।ভিলেনের পোশাকরুপী একজন সঙ্গে সিগারেটের ধোঁয়া আর কয়েকজনের উৎফুল্লতা তথা চিৎকার…।
ভাবতে পারিনি জানো তো ওটা আমার স্বা…আমার গর্ভস্থের বাবা…।

হ্যাঁ আমি মা হতে চলেছি ;যেদিন আমাদের অর্থাৎ সেই তৃতীয় অ্যানিভার্সারির দিনে সব থেকে আনন্দের উপহার ছিল আমার তরফ থেকে কিন্তু সেদিন, ছিঃ!…… ভাবতে ঘৃণা লাগছে তোমার রক্ত আমার গর্ভে, ইচ্ছা করছে ওকে মে…….।(দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্যের ন্যায়)

একবারও কি আমার মুখটা মনে পড়েনি তিন বছর বিবাহ জীবন নয়ই বাদ দিলাম, ভালবাসার পাঁচটা বছর একবারও কি মনে প..না, নাঃ! না, আমিও ভেঙে পড়বো না। আমাকে শক্ত হতেই হবে আমার সন্তানের জন্য। তোমাকে ছেড়ে আমি অনেকটা দূরে চলে যাবো, শান্ত, যেখানে ‘তুমি’ নামক কালো ছায়াটা আমার সন্তানকে স্পর্শ করবে না…। বিশ্বাস করো আর পারছিনা; পারছিনা আমি..। এক ছাদের তলায় মুখোশধারী সঙ্গে অভিনয় রূপ খেলতে..। (কঠিনতার আবেগপ্রবণতায়)

তাই, আমার ভালোবাসার মানুষটাকে নয়, একজন মুখোশধারী পাশবিককে শাস্তি দেওয়ার জন্য পুলিশের কাছে গিয়েছিলাম। কি বল তো,, সংশোধনাগারে গেলেও তোমাদের মতো মানুষদের সঙ্গে সংশোধন শব্দটি যায় না, যায় শুধু কি জানো শাস্তি ,হ্যাঁ শাস্তি..(সংযমিত প্রতিবাদী সত্ত্বায় প্রতিবাদীত হয়ে)।
এই শব্দগুলো বলতে আমার একটুও কষ্ট হচ্ছে না জানো কারণ আজকে আমার ভালোবাসায় দাগ পড়েছে, আচ্ছা শান্ত, তুমি কি ভাবে এরকম কর..তে ,,,,,
বলো না আমি তো তোমাকে ভালোবেসেছিলাম, বলো,, বলো….না,,পাগল পাগল লাগছে আমার। আর পারছি না।

তুমি ভালো করেই জানো রপ্তা কঠিন পরিস্থিতিতে অবিচল থাকতে পারে। তুমি ভাববে যে তোমার ক্ষেত্রেও, হ্যাঁ পেরেছি আমি; তোমার ক্ষেত্রেও…হ্যাঁ পেরেছি পদক্ষেপ নিতে, আমার শান্তর জন্য নয়; একটা নৃশংসকারীর জন্য..।
তবে ভেবেছিলাম,, মাসিকে নয় সকাতরানুরোধ করেই তোমার দায়িত্ব তুলে দিয়ে আমার ছোট্টিকে নিয়ে চলে যাবো, জেলে থেকে ফিরে এসে,, যাতে কোন অসুবিধা না হয়।
দায়িত্ববোধটাকে যেন ক্ষীণ করতে পারছিলাম না।

আজ কিছু ঘন্টা আমি তোমার সঙ্গে থাকতে পারবো, জেনেও কষ্ট নয়,, খুব কষ্ট হচ্ছে।তুমি চলে যাবে বলে নয়; আমার ভালোবাসা অশুভ সীমাবদ্ধতার বেড়াবদ্ধ হয়ে গেছে, বলে তাই জন্যই…, হ্যাঁ, শুধু সেই জন্য…ই। (পায়ের মাটিটা যেন বিদীর্ণ হয়ে)
আমি জানতাম তুমি কোন না কোনদিন আমার ডায়েরিটা পড়বে কিন্তু তবে আমার শান্ত হলে অবশ্যই জোর দিতাম, কিন্তু তোমার ক্ষেত্রে তো,,সেই অধিকারবোধটাই হারিয়ে গেছে। তাই অবাঞ্চিত আশাবাদী আমি হব না..। তাই এই তিনটে মাস তোমার রপ্তা ছিল না, ছিল ভিলেনের অনুসন্ধানকারী। বোধ হয় গোপনে কাজ করতাম বলে বারবার বাবা রপ্তাপনী নামটি অর্থ বোঝানোর চেষ্টা করত আর শান্তর সঙ্গে ‘শ্ত্রু’ শব্দটির আপেক্ষিক নামসাদৃশ্যতার মিল থাকায় তাই বোধহয় তোমার এই আচরণ। আসলে নামের সঙ্গে চরিত্রেরও মিল পাওয়া যায়,সেটা আর যাবে কোথায়, তাই তো তুমি তোমার নামের সঙ্গে বেশ ভালো যোদ্ধা হয়ে উঠেছো..।
আসলে তুমি যদি এতগুলো বছর ধরে গোপনত্ব মিথ্যাজালককারী হও তাহলে আমি কেন গোপ্নী জালকভেদিনী হতে পারিনা..!! একটা কথা সর্বদা মনে রাখবে নিজেকে বেশি উচ্চ ভেবোনা। জালক আর ভেদক দুটোই কিন্তু ভিন্নার্থক; তবে বৈপরীত্য,, বৈপরীত্য শব্দটির মানে কি হতে পারে তুমি ভালো করেই জানো…..।

ডায়েরীর পাতাগুলো আজ থেকে নিজেই নিজের ছায়া হিসেবে থাকবে; আমার শান্ত ছায়াই যখন নেই, তাহলে না হয় আমি নাই বা থাকলাম; ওরাও নিজের ছন্দেই নয় ভরাক ওদের প্রাণ….।ভালো থেকো…….,,, বিদায়……….।

<৩বছর ৯ মাস পর>

ডায়েরিটা কিছুক্ষণ দেখতেই আর্দ্রপাতাগুলো একটু শুকোতে গিয়ে পুনঃ স্তম্ভিত তথা হতভম্ব হল,,যে রপ্তা সবই জা…।আর কিছু বলার অবকাশ ছিল না তার।শুধু মনে হচ্ছিল সে নিজেই যেন আজ জ্যান্তলাশ…। কিন্তু ‘লাশ’ শব্দটিই শুধু ব্যবহার করলাম,আর ‘জীবন্ত’ শব্দটি রেখেছিলাম আমার পরিণীতার ক্ষেত্রে…।
ভেবেছিলাম সাড়ে তিনমাস আগের লেখা লেখাগুলো আমার চোখের ভুল। সাড়ে তিনটেমাস শুধু ‌আয়নার সামনে রেখেছি, আর বারবার তোমার লেখাকে যেন অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছিল। আর ভয়ে মুখোমুখি হতে পারছিলাম না ঐ ছোট্ট বস্তুর। কিন্তু বারদ্বয় পড়ার পরে; যেন তারাখসার মতো স্বপ্ন নয়, বাস্তবিকতার স্বপ্নের ন্যায় ভাবনাগুলোর সঙ্গে লড়াই করছিলাম আমি..।
জানো রপ্তা সেইদিন ভগবান আমার জন্য নয়, তোমার নিস্পাপতার পুণ্যের জন্যই আমার রঙিন;লাল সিঁদুরে রাঙা রপ্তার দাহাবশেষটুকুও আমার দ্বারা হয়েছিল।

কিন্তু আমার ছোট্ট রপ্তা…..।

(অগ্ৰসারিত)

এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share