তোমাকে_চাই(Season 3)Part:-1+2

0
1176

তোমাকে_চাই(Season 3)Part:-1+2
#আরবি_আরভী
#Part_1

চাচীর অবস্থার কথা ভেবে আমি এটা বুঝে গিয়েছিলাম আপাতত রেহানের সাথে আমার থাকাটা ঠিক হবে না,, ফাইনাল পরীক্ষা অব্দি আমাদের আলাদা থাকতে হবে,,,,তারপর চাকরি হয়ে গেলে কিছু একটা ভাবা যাবে,,, বিষয়টা প্রথমে উনি কিছুতেই মানতে পারেন নি পরে উনাকে বুঝি বললে তাতে উনি রাজি হন,,,, যেহেতু উনার আব্বুর কম্পানি ছিল তাই চাকরি পাওয়াটা উনার জন্য কোন ব্যাপারই ছিল না,,,,

আমার ফ্যামিলি আমাদের সম্পর্কের সবটা জানতো কিন্তু রেহানের ফ্যামিলি ভেবেছিল আমার আর রেহানের মধ্যে সব কিছু শেষ হয়ে গেছে,,,,আম্মুর কাছে গেলে আম্মু কিছুতেই তাদের ঘরে আমাকে থাকতে দিবে না বলে,,,, পরে রেহান উনার বউয়ের (আমার) সমস্ত খরচ উনি নিজে বহন করবেন বললে আব্বু আর অমত করেন না,,, তাদের মধ্যে তো থাকছি কিন্তু নিজেকে আর আগের মতো এই বাড়িতে খুজে পাইনা,,, আম্মু তো সারাক্ষণ রেহানের বউ রেহানের বউ করতে থাকেন,,,, সত্যি বলতে খুব মিস করি মা তোমার মুখে নিসা নামটা,,, আর বাকিদের ব্যবহার ঠিক যেন ভাড়াটিয়ার মতো,,, এতটা পর হয়ে গেছি আমি খুব কষ্ট লাগে ভাবতে,,,

ফাইনাল রেসাল্ট প্রকাশ হলে ইন্টারে আমি রেহানদের ভার্সিটিতে ভর্তি হলাম,,, তারমধ্যে আবার ভার্সিটির পোশাক নিয়ে আমার আর রেহানের ঝগড়া বেধে যায়,,,, উনার মতে আমি বোরকা পড়ে আপাদমস্তক ডেকে পড়তে যাবো তা না হলে ভার্সিটিতে যাওয়া লাগবে না,,, উনার মূর্খ বউ খুব আদুরে,,,, শেষমেশ ডেভিলটার কথাই চিরদার্য,,,

বাইকে বসে বিশাল এই বোরকায় রেহানের সাথে একদম বেমানান হয়ে আছি আর উনি খুব স্টাইল করে চুলটা জেল দিয়ে সেট করে সাদা টিশার্টে সাথে উপরে কালো জ্যাকেট,,, উউফফফফ কি যে হ্যান্ডসাম লাগছে না আমার ডেভিলটাকে,,, আর আমি?,,,।।।যাওয়ার পথে আমাদের কথা হচ্ছে,,,,
-রেহান,,
-হুমম,
-আমার খুব ভয় করছে,,, ফাস্ট ক্লাস আল্লাহ জানেন কেমন হয়,,
-কোনো ব্যাপার না সমস্যা হলে আমার নাম যেকাউকে জিজ্ঞাসা করলে বলে দিবে আমার ক্লাস কোনটা ওকে,,,,,
-জি না কোনো সমস্যা হবে না সু আপনাকেউ খোঁজা লাগবে না,,
-দেখা যাক,,,,

ক্লাসে যে যেভাবে পারছে সে সেই ভাবে পঁচাছে,,, বাধ্য মেয়েটির মতো চুপটি করে লাস্টে বসে থাকা মেয়েটির সাথে গিয়ে আলাপ শুরু করলাম,,, টিফিন পিরিয়ডে সাদিয়ার সাথে কথা বলছি এমন সময় একটা ঢংগী মেয়ে এসে আমাদের উপর ইচ্ছা করে বোতল থেকে পানি ফেলে দিয়ে পাগলের মতো হাসা শুরু করলো সাথে পুরো ক্লাসও,,,, মেজাজটা খারাপ লাগে বোরকা পড়ে সিধেসাধা হয়ে আছি বলে ভেবেছে কিছুই করতে পারবো না,,,,,ডাইনীটার হাত থেকে বোতলটা কেড়ে নিয়ে সবটুকু পানি তার মুখে ছুড়ে ফেলে খালি বোতল দিয়ে ইচ্ছে মতো তার মাথায় আঘাত করতে লাগলাম সাথে লাথি ফ্রি,,,,,, পেছন থেকে সাদিয়া আমাকে অনেক আটকানোর চেষ্টা করছে আর চিৎকার করে কি যেন বলছে কিন্তু আমি কিছুই শুনিনি ডাইনীটাকে শায়েস্তা করতে ব্যাস্ত হয়ে পরে ছিলাম,,,,, মারধর শেষে মেয়েটা নিজেকে কোনোরকমে সামলে নিয়ে রাগান্বিত হয়ে ধমকের সুরে বলতে লাগে,,,,,
-দু টাকার মেয়ে আমার গায়ে হাত তুলিস,,,, তুই এই ভার্সিটিতে কিভাবে থাকিস দেখেনেবো,,, জাস্ট ওয়েট এন্ড সিই,,,
-ওকে দেখেনিস ,,,,, (পলকহীনভাবে মেয়েটার দিকে তাকিয়ে)

প্রথম দিনই এরকম কিছু হবে তা ভাবতেও পারিনি,,,ইচ্ছে ছিল সবার সাথে খুব মজা করবো,,,, তাছাড়া ডেভিলটাও কি ভাববে আল্লাহ জানেন,,, উনি তো আবার আমাকে বুঝতেই চান না,,

চলবে,,
এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share


#তোমাকে_চাই
#আরবি_আরভী
Part_2 (Season 3)

বাসায় এসে চুপচাপ বসে আছি অস্বস্তিকর লাগছে সারাদিন কারো সাথে কথা বলিনি ডেভিলটাও কি কাজে যেন ব্যাস্ত হয়ে পরেছে আমার খোঁজ নেওয়ার উনার সময়ই নেই।।।

রাতে লাইট অফ করে আধবসা অবস্থায় বসে আছি,,, বাহিরের লাইটের আলো খোলা জানালা ভেদ করে রুমে এসে পড়ছে ,, বালিশটা বুকে জড়িয়ে মেয়েটার কথা চিন্তা করছি।। প্রথম দিনই ঝগড়া।।। না জেনে না চিনে মেয়েটার সাথে লড়াই করা আমার একদম ঠিক হয়নি ।। তাছাড়া কারো সাথে বিষয়টা শেইরও করতে পারছি না,, চৌতি আপু যে আমার সাথে এক রুমে থাকতে নারাজ,, একা হয়ে গেছি আমি কেউ আমাকে বুঝতে চায় না,,।।

কথাগুলো ভাবছি এমন সময় রেহান বারেবারে ফোন দিচ্ছেন।। সারাদিন চলে গেলো কোন খবর নাই আর এখন আসছে,, যেন ভালোবাসা বেয়ে বেয়ে পড়ছে উনার।। যত্তসব,, তাই ইচ্ছা করে কলগুলো ইগনোর করছি।। বেশ কিছুক্ষন কেটে গেছে হয়তো বুঝে গেছেন আমি উনার সাথে কথা বলতে চাইনা তাই কল করাও ছেড়ে দিলেন,,।।

মন খারাপ হয়ে শরীরটা এলিয়ে চোখগুলো বন্ধ করে ঘুমুতে চেষ্টা করছি।। হঠাৎ ধপাস করে কি যেন বিছানায় পড়লে আমি আতকে উঠে চিৎকার করে আম্মুকে ডাকবো অম্নি একটা লোক আমার শরীর উপড় ওঠে মুখ চেঁপে ধরে,,,,,আমি বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে থেকে এক দৃষ্টিতে উনার দিকে তাকিয়ে থাকলে রেহান বলতে শুরু করেন,,,,
-চেঁচামেচি করিস না,,,আমি আমি রেহান,,।

আমি হতভম্ব হয়ে উনার চোখগুলোর দিকে তাকিয়ে মুখ থেকে উনার হাত টা সরিয়ে উনাকে ধাক্কা দিয়ে বিছানা থেকে লাফ দিয়ে উঠে রাগান্বিত হয়ে বলতে লাগলাম,,,,

-আপনে কি ভূত নাকি জিন এত্ত রাতে আমার রুমে আসলেন কিভাবে,,,,
-কিভাবে আবার জানালা দিয়ে,,,,,, (বিছানায় গুটিশুটি মেরে বসে মুচকি হেসে)
-মগের মুলুক নাকি জানালা দিয়ে কিভাবে এলেন,,,,
-গাছে চড়ে,,, অনেক কষ্ট হচ্ছিল জানিস,,
-আমার জানা জানির দরকার নেই আপনি এখান থেকে যান প্লিজ,,,
-এত কষ্ট করে আসছি আর এত তাড়াতাড়ি চলে যাবো আমার প্রতি কি তোর একটু মায়া হয়না,,??
-না হয় না এবার জানতো নয়তো আম্মুকে ডাক দিবো,,,
-না যাবো না আমিও চাচীকে বলবো আপনার মেয়ে আমাকে রাতে ডেকেছে,,,
-হা হা হা আর সবাই তা বিশ্বাস করবে তাই না,,, মানে যা ইচ্ছা তাই,,
-হ্যাঁ যা ইচ্ছা তাই করবো আমার বউয়ের সাথে,,

কথাটা বলে বিছানা থেকে নেমে আমার কাছে এসে ধীরে ধীরে কোমরে হাত দিয়ে আমাকে উনার দিকে টেনে ধরে উনার ঠোঁটগুলো আমার দিকে এগিয়ে দিলে আমি একনাগাড়ে আম্মুকে “চুর চুর ” বলে ডাকতে থাকি,, আম্মু এসে জোরে জোরে দরজা ধাক্কাছে আর আমাকে ডাকছেন এর মধ্যে আব্বুও চলে আসছে,,,,, অন্যদিকে সবার জেগে যাওয়ার টের পেয়ে রেহান আমার মুখ চেপে ধরে চুপ করার জন্য অনুরোধ করতে থাকেন।।। কিন্তু আমাকে থামায় কে আমি চুর চুর বলে হেকেই যাচ্ছি।।। বেচারা ডেভিল আর কোন পথ না পেয়ে আমাকে ছেড়ে দিয়ে জানালা দিয়ে পালাচ্ছেন আর আমার দিকে রাগান্বিত ভাবে তাকিয়ে বলছেন,,,,
-কি ডেঞ্জারাস মেয়ে রে, বর কে চুর বলে ,,,,,,তোকে আমি দেখে নেবো নিসাআআআ,,,

সকাল বেলা দোকান থেকে পাউরুটি কিনে এনে সিড়ি বেয়ে ৩ তলায় উঠছি এমন সময় দেখালাম ডেভিলটা কোনোরকমে গায়ে লেগে থাকা একটা হাতা কাটা সাদা আর্মি গেঞ্জি তার সাথে সুরমা রঙের টাউজার পড়ে এক হাত পকেটে দিয়ে মনের আনন্দে আপেল খেতে খেতে সিড়ি দিয়ে লাফিয়ে লাফিয়ে নামছেন।।। ছাদে জিম করেছেন হয়তো,, যা বাবা তাতে আমার কি,,, মাথায় এক হাত গোমটা দিয়ে যেইনা পাশ কেটে চলে যাচ্ছিলাম অম্নি ডেভিলটা ৩টা সিড়ি পিছিয়ে আমাকে ডাক দিয়ে বসলো।। কথাতে মনে হচ্ছিল আমাকে চিনতে পারেনি নিশ্চিত হতে নামটা অনুমান করেছে।।।

যাইহোক উনার সাড়া পেয়ে আর নিজেকে আটকাতে পারলাম না দিলাম এক দৌড় ।। যদি একবার ধরতে পারেন তাহলে আর রক্ষে নেই রাতের মাশুল হাড়ে হাড়ে উসুল করবেন,,,, পেছনে খুরুচ রাব্বিস্টাও দৌড়ে তাড়া করছে,,,, শেষমেশ আমার নাগাল পেলে উনি উনার এক হাতে আমার হাত দুটো শক্ত করে দেয়ালের সাথে মিশিয়ে ধরে অন্য হাতে বেখেয়ালি লুক নিয়ে আপেল খেতে লাগলে আমি ধমক দিয়ে উনার কাছে এরুপ করার কারন জানতে চাইলে উনি বলেন আজকে নাকি আমাকে আর ছাড়ছেন না যতক্ষন না উনি যা চান আমি তা না করতে দি।।। আমি গম্ভীর হয়ে উনাকে জিজ্ঞাসা করলাম,,,,
-কি সমস্যা আপনার কি চান,,,মাটিতে পাউরুটি গুলো ফেলে দিলেন আমি এখন কি খাবো ,,,,ধূর।। প্লিজ আমাকে যেতে দেন,,
-বলবো,,,,, (ডেভিল মার্কা হাসি দিয়ে)
-জ্বি তাড়াতাড়ি বলেন হাতে ব্যথা পাচ্ছি,,,
-বলা যাবে না করেই দেখাই ,, (আপেলটা ফেলে আরেক হাত দেয়ালে রেখে)

কথাটা বলে উনি আমার একদম কাছে এসে আমার গায়ের গন্ধ নিতে লাগলেন,,,নিজেকে আমার সাথে মিলিয়ে নিয়ে গলায় গালে ঠোঁটে পাগলের মতো চুমু খেতে লাগলেন,,, পাথর হয়ে গেছি মনে হচ্ছে উনার সাথে সাথে আমিও পাগল হয়ে যাচ্ছিলাম,,,,এ কেমন অনুভুতি,,,।।

দুজনেই দুজনের মধ্যে বিবর।। এমন সময় উপর তলার থেকে মিঠি আপুর আব্বু কাশতে কাশতে পত্রিকা পড়ে সিড়ি দিয়ে নিচে নামছেন,,,, চাচ্চুর আওয়াজ শুনে ডেভিলটা তাড়াহুড়ো করে চোরের মতো দৌড়ে সেখান থেকে উধাও ।। ,, আমি তো হাসতে হাসতে শেষ,,, চাচ্চু আমাকে শুভ সকাল জানিয়ে বাড়ি যেতে বললে আমি রুমে এসে বসে আছি,,,, কিচ্ছুক্ষণ পরেই নিচে দোকানের ছেলেটা পাউরুটি, চা, রুটি বাজি,নুডুলস নিয়ে হাজির হয় এসব কার জন্য আম্মু জিগ্যেস করায় ছেলেটা মুখের ওপর বলে দেয় রেহান ভাই পাঠাইছে ভাবীর জন্য,,,,,,,,, চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here